নতুন লেখা

স্বপ্নের ব্যাখ্যা

স্বপ্নের ব্যাখ্যা

স্বপ্নের ব্যাখ্যা >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

৩. অধ্যায়ঃ স্বপ্নের ব্যাখ্যা

৫৮২১

উবাইদুল্লহ ইবনি আবদুল্লাহ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

ইবনি আব্বাস [রাদি.] অথবা আবু হুরায়রা্ [রাদি.] হাদীস রিওয়ায়াত করিতেন যে, জনৈক লোক রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] এর নিকট উপস্থিত হলো …..। ভিন্ন সূত্রে হারমালাহ্ ইবনি ইয়াহ্ইয়া তুজীবী [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] উবাইদুল্লাহ ইবনি আবদুল্লাহ ইবনি উতবাহ্ [রাদি.] {ইবনি শিহাব [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]} -কে সংবাদ দিয়েছেন যে, ইবনি আব্বাস [রাদি.] এ হাদীসটি রিওয়ায়াত করিতেন যে, জনৈক লোক রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -এর দরবারে এসে বলিল, হে আল্লাহর রসূল! আমি আজ রাতে স্বপ্ন দেখলাম যে, শামিয়ানা হইতে ঘি ও মধু ঝড়ে পড়ছে আর লোকদের দেখলাম- তারা তা থেকে তাদের হাতের অঞ্জলি ভরে ভরে নিয়ে যাচ্ছে। কেউ বেশি পরিমাণ নিচ্ছে, কোউ স্বল্প পরিমাণে। আর একটি রশি দেখলাম আসমান থেকে জমিন পর্যন্ত সংযোগ স্থাপনকারী, আর দেখলাম আপনি তা ধরলেন এবং উপরে উঠ গেলেন, এরপর এক ব্যক্তি তা ধরল এবং সে উপর উঠে গেল, তারপর আর এক ব্যক্তি তা ধরল এবং তা ছিঁড়ে পড়ে গেল। পরিশেষে তা তার জন্য জুড়ে দেয়া হলো এবং সেও উপরে উঠে গেল।

স্বপ্ন বর্ণনার এ পর্যায়ে আবু বকর [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বলিলেন, হে আল্লাহর রসূল! আমার পিতা আপনার জন্য উৎসর্গিত! আল্লাহ্‌র শপথ! আপনি অবশ্য আমাকে অনুমতি দিবেন, তাহলে আমি এ স্বপ্নটির ব্যাখ্যা করব। রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলিলেন, আপনি ব্যাখ্যা করুন। আবু বকর [রাদি.] বলিলেন, শামিয়ানাটি হলো ইসলামের [রূপক] শামিয়ানা, আর যে ঘি ও মধু ফোটা ঝরে পড়ছিল, তা হচ্ছে আল-কুরআনের মধুরতা ও কোমলতা আর মানুষেরা যে তা থেকে অঞ্জলি ভরে ভরে নিয়ে যাচ্ছিল তা হলো- কেউ বেশি পরিমাণে আর কেউ সামান্য পরিমাণে আল-কুরআন হইতে সংগ্রহ করছে। আর আসমান হইতে জমিন পর্যন্ত সংযুক্ত রশিটি হলো হক ও সত্য [পথ], যার উপরে আপনি রয়েছেন তা ধারণ করিলেন, আর আল্লাহ তা দিয়ে আপনাকে উপরে উঠিয়ে নিলেন। তারপর আপনার পরে এক লোক তা ধারণ করিলেন এবং তা দিয়ে সেও উপরে উঠে যাবে, তারপর আর এক লোক তা ধারণ করিবে এবং তা দিয়ে সেও উপরে উঠে যাবে, তারপর আর এক লোক তা ধারণ করিবে এবং তা ছিঁড়ে পরে যাবে, পরে তা তার জন্য জুড়ে দেয়া হইবে এবং তা দিয়ে সে উপরে উঠে যাবে। হে আল্লাহর রসূল! এখন আমাকে বলে দিন, আমার পিতা আপনার উদ্দেশে উৎসর্গিত, আমি ঠিক বলেছি নাকি ভুল বলেছি? রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বললেনঃ কতক ঠিক বলেছেন আর কতক ভুল করিয়াছেন। তিনি বলিলেন, তাহলে আল্লাহ্‌র শপথ! হে আল্লাহর রসূল! যা আমি ভুল করেছি তা আপনি অবশ্যই আমাকে বর্ণনা করে দিবেন। তিনি বলিলেন, এভাবে শপথ করিবে না। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭২৯, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৬০]

৫৮২২

ইবনি আব্বাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, উহুদ [যুদ্ধক্ষেত্র] হইতে তাহাঁর ফিরে আসার সময় জনৈক লোক নবী [সাঃআঃ] -এর দরবারে এলো। সে বলিল, হে আল্লাহর রসূল! আজ রাতে আমি স্বপ্নে দেখলাম- একটি শামিয়ানা তা থেকে ফোটা ফোটা ঘি ও মধু ঝরছে। হাদীসের পরবর্তী অংশ ইউনুস [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বর্ণিত হাদীসের অর্থানুরূপ। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭৩০, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৬১]

৫৮২৩

ইবনি আব্বাস [রাদি.] কিংবা আবু হুরাইরাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

আবদুর রায্যাক বলেন [আমার ঊর্ধ্বতন বর্ণনাকারী উস্তাদ] মামার [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] কখনো বর্ণনা করিতেন ইবনি আব্বাস [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে আবার কখনো বর্ণনা করিতেন আবু হুরায়রা্ [রাদি.] হইতে এ মর্মে যে, জনৈক লোক রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -এর দরবারে উপস্থিত হয়ে বলিলেন, আজ রাতে [স্বপ্নে] আমি একটি শামিয়ানা দেখিতে পাই, তারপর পূর্বোল্লিখিত বর্ণনাকারীগণের বর্ণিত হাদীসের অর্থে হাদীস বর্ণনা করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭৩১, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৬২]

৫৮২৪

ইবনি আব্বাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] [যেসব অভ্যাসে অভ্যস্ত] ছিলেন [সে সবের মধ্যে একটি ছিল এই] যে, তিনি তাহাঁর সাহাবীগণকে [ফজরের নামাজের পরে] বলিতেন, তোমাদের কেউ কোন স্বপ্ন দেখলে সে তা আমার নিকট প্রকাশ করুক, তাহলে আমি তাকে তার ব্যাখ্যা বলে দিব। জনৈক লোক এসে বলিল, হে আল্লাহর রসূল! আমি একটি শামিয়ানা দেখলাম …..। পরবর্তী বর্ণনা [পূর্বোল্লিখিত] বর্ণনাকারীগণের বর্ণিত হাদীসের অবিকল।[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭৩২, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৬৩]

About halalbajar.com

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Check Also

মহান আল্লাহর বাণী : “তারা দুটি বিবদমান পক্ষ তাদের প্রতিপালক সম্পর্কে বাক-বিতণ্ডা করে”

মহান আল্লাহর বাণী : “তারা দুটি বিবদমান পক্ষ তাদের প্রতিপালক সম্পর্কে বাক-বিতণ্ডা করে” মহান আল্লাহর …

Leave a Reply

%d bloggers like this: