নতুন লেখা

রাত যাপনে স্ত্রীদের মাঝে পালাবন্টন এবং প্রত্যেকের কাছে এক রাত

রাত যাপনে স্ত্রীদের মাঝে পালাবন্টন এবং প্রত্যেকের কাছে এক রাত

রাত যাপনে স্ত্রীদের মাঝে পালাবন্টন এবং প্রত্যেকের কাছে এক রাত >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

১৩. অধ্যায়ঃ রাত যাপনে স্ত্রীদের মাঝে পালাবন্টন এবং প্রত্যেকের কাছে এক রাত পরের দিবাভাগ সহ অবস্থান করা সুন্নাত

৩৫২০

আনাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, শেষ পর্যায়ে নবী [সাঃআঃ]-এর নয়জন সহধর্মিণী ছিলেন। নবী [সাঃআঃ] তাদের মাঝে পালাবন্টন কালে নয় দিনের আগে [পালার] প্রথম স্ত্রীর কাছে পুনরায় পৌছাতেন না। প্রতি রাতে নবী [সাঃআঃ] যে ঘরে অবস্থান করিতেন সেখানে তারা [নবী পত্নীগণ] সমবেত হইতেন। একরাতে তিনি যখন আয়িশা [রাদি.]-এর ঘরে ছিলেন তখন যায়নাব [রাদি.] সেখানে আগমন করলে নবী [সাঃআঃ] তার দিকে নিজের হাত প্রসারিত করিলেন। আয়িশা [রাদি.] বলিলেন, ও তো যায়নাব! ফলে নবী [সাঃআঃ] তাহাঁর হাত গুটিয়ে নিলেন। তখন তারা দুজন [আয়েশাহ ও যায়নাব] কথা কাটাকাটি করিতে লাগলেন। এমনকি তাদের কথা কাটাকাটিতে পরিণত হলো, ইতিমধ্যে নামাজের ইক্বামাত [এর সময় উপস্থিত] হলে আবু বকর [রাদি.] সেখান দিয়ে [সলাতে] যাচ্ছিলেন। তিনি ঐ দুজনের আওয়াজ শুনতে পেয়ে বলিলেন, হে আল্লাহর রসূল! আপনি বের হয়ে আসুন এবং ওদের মুখে ধূলা-মাটি ছুঁড়ে [দিয়ে মুখ বন্ধ করে] দিন। তখন নবী [সাঃআঃ] বের হয়ে এলেন। আয়িশা [রাদি.] বলিলেন, এখন নবী [সাঃআঃ] তাহাঁর নামাজ আদায় করবেন, তার পরে তো আবু বকর [রাদি.] এসে আমাকে বকাঝকা ও গালমন্দ করবেন, পরে [তা-ই হল]। নবী [সাঃআঃ] তাহাঁর নামাজ সমাধা করলে আবু বকর [রাদি.] আয়িশা [রাদি.]-এর নিকটে এসে তাকে কড়া কথা বলিলেন এবং বলিলেন, তুমি এমনটা করে থাক! [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৪৯৩, ইসলামিক সেন্টার- ৩৪৯২]

About halalbajar.com

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। তবে আমরা রাজনৈতিক পরিপন্থী কোন মন্তব্য/ লেখা প্রকাশ করি না। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই লেখাগুলো ফেসবুক এ শেয়ার করুন, আমল করুন

Check Also

মহান আল্লাহর বাণী : “তারা দুটি বিবদমান পক্ষ তাদের প্রতিপালক সম্পর্কে বাক-বিতণ্ডা করে”

মহান আল্লাহর বাণী : “তারা দুটি বিবদমান পক্ষ তাদের প্রতিপালক সম্পর্কে বাক-বিতণ্ডা করে” মহান আল্লাহর …

Leave a Reply

%d bloggers like this: