সুরা ইয়াসিন mp3 Download & Sura Yasin in Words

সুরা ইয়াসিন mp3 Download & Sura Yasin in Words

সুরা ইয়াসিন >> ১১৪ টি সুরার সূচীপত্র লিস্ট দেখুন ও পড়ুন >> ২০ টির অধিক তাফসীর কিতাব পড়ুন

৩৬, সুরা ইয়াসিন, আয়াত-৮৩, মাক্কী, রুকু-৫

সুরা ইয়াসিন mp3 download

সুরা ইয়াসিন বাংলা অনুবাদ ع Ruku [১][1] >> [২][2] >> [৩][3] >> [৪][4] >> [৫][5]
শব্দে শব্দে সুরা ইয়াসিন Sura Yasin in Words Ruku ع [১][1] >> [২][2] >> [৩][3] >> [৪][4] >> [৫][5]
পরম করুণাময় অতি দয়ালু আল্লাহর নামেبِسۡمِ ٱللَّهِ ٱلرَّحۡمَٰنِ ٱلرَّحِيمِ
(1) ইয়া-সীন।يسٓ ١
(2) বিজ্ঞানময় কুরআনের শপথ।وَٱلۡقُرۡءَانِ ٱلۡحَكِيمِ ٢
(3) নিশ্চয় তুমি রাসূলদের অন্তর্ভুক্ত।إِنَّكَ لَمِنَ ٱلۡمُرۡسَلِينَ ٣
(4) সরল পথের উপর প্রতিষ্ঠিত।عَلَىٰ صِرَٰطٖ مُّسۡتَقِيمٖ ٤
(5) (এ কুরআন) মহাপরাক্রমশালী, পরম দয়াময় (আল্লাহ) কর্তৃক নাযিলকৃত।تَنزِيلَ ٱلۡعَزِيزِ ٱلرَّحِيمِ ٥
(6) যাতে তুমি এমন এক কওমকে সতর্ক কর, যাদের পিতৃপুরুষদেরকে সতর্ক করা হয়নি, কাজেই তারা উদাসীন।لِتُنذِرَ قَوۡمٗا مَّآ أُنذِرَ ءَابَآؤُهُمۡ فَهُمۡ غَٰفِلُونَ ٦
(7) অবশ্যই তাদের অধিকাংশের উপর (আল্লাহর) বাণী অবধারিত হয়েছে, ফলে তারা ঈমান আনবে না।لَقَدۡ حَقَّ ٱلۡقَوۡلُ عَلَىٰٓ أَكۡثَرِهِمۡ فَهُمۡ لَا يُؤۡمِنُونَ ٧
(8) নিশ্চয় আমি তাদের গলায় বেড়ি পরিয়ে দিয়েছি এবং তা চিবুক পর্যন্ত। ফলে তারা ঊর্ধ্বমুখী হয়ে আছে।إِنَّا جَعَلۡنَا فِيٓ أَعۡنَٰقِهِمۡ أَغۡلَٰلٗا فَهِيَ إِلَى ٱلۡأَذۡقَانِ فَهُم مُّقۡمَحُونَ ٨
(9) আর আমি তাদের সামনে একটি প্রাচীর ও তাদের পিছনে একটি প্রাচীর স্থাপন করেছি, অতঃপর আমি তাদেরকে ঢেকে দিয়েছি, ফলে তারা দেখতে পায় না।وَجَعَلۡنَا مِنۢ بَيۡنِ أَيۡدِيهِمۡ سَدّٗا وَمِنۡ خَلۡفِهِمۡ سَدّٗا فَأَغۡشَيۡنَٰهُمۡ فَهُمۡ لَا يُبۡصِرُونَ ٩
(10) আর তুমি তাদেরকে সতর্ক কর অথবা না কর তাদের কাছে দু’টোই সমান, তারা ঈমান আনবে না।وَسَوَآءٌ عَلَيۡهِمۡ ءَأَنذَرۡتَهُمۡ أَمۡ لَمۡ تُنذِرۡهُمۡ لَا يُؤۡمِنُونَ ١٠
(11) তুমি তো কেবল তাকেই সতর্ক করবে যে উপদেশ মেনে চলে এবং না দেখেও পরম করুণাময় আল্লাহকে ভয় করে। অতএব তাকে তুমি ক্ষমা ও সম্মানজনক পুরস্কারের সুসংবাদ দাও।إِنَّمَا تُنذِرُ مَنِ ٱتَّبَعَ ٱلذِّكۡرَ وَخَشِيَ ٱلرَّحۡمَٰنَ بِٱلۡغَيۡبِۖ فَبَشِّرۡهُ بِمَغۡفِرَةٖ وَأَجۡرٖ كَرِيمٍ ١١
(12) আমিই তো মৃতকে জীবিত করি আর লিখে রাখি যা তারা অগ্রে প্রেরণ করে এবং যা পিছনে রেখে যায়। আর প্রতিটি বস্তুকেই আমি সুস্পষ্ট কিতাবে সংরক্ষণ করে রেখেছি।إِنَّا نَحۡنُ نُحۡيِ ٱلۡمَوۡتَىٰ وَنَكۡتُبُ مَا قَدَّمُواْ وَءَاثَٰرَهُمۡۚ وَكُلَّ شَيۡءٍ أَحۡصَيۡنَٰهُ فِيٓ إِمَامٖ مُّبِينٖ ١٢
(13) আর এক জনপদের অধিবাসীদের উপমা তাদের কাছে বর্ণনা কর, যখন তাদের কাছে রাসূলগণ এসেছিল।وَٱضۡرِبۡ لَهُم مَّثَلًا أَصۡحَٰبَ ٱلۡقَرۡيَةِ إِذۡ جَآءَهَا ٱلۡمُرۡسَلُونَ ١٣

সুরা ইয়াসিন ع রুকু Ruku [১][1] >> [২][2] >> [৩][3] >> [৪][4] >> [৫][5]

.

(14) যখন আমি তাদের কাছে দু’জন রাসূল পাঠিয়েছিলাম, তখন তারা তাদেরকে মিথ্যাবাদী বলেছিল। তারপর আমি তাদেরকে তৃতীয় একজনের মাধ্যমে শক্তিশালী করেছিলাম। অতঃপর তারা বলেছিল, ‘নিশ্চয় আমরা তোমাদের প্রতি প্রেরিত রাসূল’।إِذۡ أَرۡسَلۡنَآ إِلَيۡهِمُ ٱثۡنَيۡنِ فَكَذَّبُوهُمَا فَعَزَّزۡنَا بِثَالِثٖ فَقَالُوٓاْ إِنَّآ إِلَيۡكُم مُّرۡسَلُونَ ١٤
(15) তারা বলল, ‘তোমরা তো আমাদের মতই মানুষ। আর পরম করুণাময় তো কিছুই নাযিল করেননি। তোমরা শুধু মিথ্যাই বলছ।قَالُواْ مَآ أَنتُمۡ إِلَّا بَشَرٞ مِّثۡلُنَا وَمَآ أَنزَلَ ٱلرَّحۡمَٰنُ مِن شَيۡءٍ إِنۡ أَنتُمۡ إِلَّا تَكۡذِبُونَ ١٥
(16) তারা বলল, ‘আমাদের রব জানেন, অবশ্যই আমরা তোমাদের কাছে প্রেরিত রাসূল’।قَالُواْ رَبُّنَا يَعۡلَمُ إِنَّآ إِلَيۡكُمۡ لَمُرۡسَلُونَ ١٦
(17) আর সুস্পষ্টভাবে পৌঁছিয়ে দেয়াই আমাদের দায়িত্ব’।وَمَا عَلَيۡنَآ إِلَّا ٱلۡبَلَٰغُ ٱلۡمُبِينُ ١٧
(18) তারা বলল, ‘আমরা তো তোমাদেরকে অমঙ্গলের কারণ মনে করি। তোমরা যদি বিরত না হও তাহলে আমরা অবশ্যই তোমাদেরকে পাথর মেরে হত্যা করব এবং আমাদের পক্ষ থেকে তোমাদেরকে যন্ত্রণাদায়ক আযাব স্পর্শ করবে’।قَالُوٓاْ إِنَّا تَطَيَّرۡنَا بِكُمۡۖ لَئِن لَّمۡ تَنتَهُواْ لَنَرۡجُمَنَّكُمۡ وَلَيَمَسَّنَّكُم مِّنَّا عَذَابٌ أَلِيمٞ ١٨
(19) তারা বলল, তোমাদের অমঙ্গলের কারণ তোমাদের সাথেই। তোমাদেরকে উপদেশ দেয়া হয়েছে বলেই কি এরূপ বলছ? বরং তোমরা সীমালঙ্ঘনকারী কওম’।قَالُواْ طَٰٓئِرُكُم مَّعَكُمۡ أَئِن ذُكِّرۡتُمۚ بَلۡ أَنتُمۡ قَوۡمٞ مُّسۡرِفُونَ ١٩
(20) আর শহরের দূরপ্রান্ত থেকে এক ব্যক্তি দৌড়ে এসে বলল, ‘হে আমার কওম! তোমরা রাসূলদের অনুসরণ কর।وَجَآءَ مِنۡ أَقۡصَا ٱلۡمَدِينَةِ رَجُلٞ يَسۡعَىٰ قَالَ يَٰقَوۡمِ ٱتَّبِعُواْ ٱلۡمُرۡسَلِينَ ٢٠
(21) তোমরা তাদের অনুসরণ কর যারা তোমাদের কাছে কোন প্রতিদান চায় না আর তারা সৎপথপ্রাপ্ত’।ٱتَّبِعُواْ مَن لَّا يَسۡ‍َٔلُكُمۡ أَجۡرٗا وَهُم مُّهۡتَدُونَ ٢١
(22) আর আমি কেন তাঁর ইবাদাত করব না যিনি আমাকে সৃষ্টি করেছেন? আর তাঁর কাছেই তোমাদেরকে ফিরিয়ে নেয়া হবে’।পারা ২৩ وَمَا لِيَ لَآ أَعۡبُدُ ٱلَّذِي فَطَرَنِي وَإِلَيۡهِ تُرۡجَعُونَ ٢٢
(23) আমি কি তাঁর পরিবর্তে অন্য ইলাহ গ্রহণ করব? যদি পরম করুণাময় আমার কোন ক্ষতি করার ইচ্ছা করেন, তাহলে তাদের সুপারিশ আমার কোন কাজে আসবে না এবং তারা আমাকে উদ্ধারও করতে পারবে না’।ءَأَتَّخِذُ مِن دُونِهِۦٓ ءَالِهَةً إِن يُرِدۡنِ ٱلرَّحۡمَٰنُ بِضُرّٖ لَّا تُغۡنِ عَنِّي شَفَٰعَتُهُمۡ شَيۡ‍ٔٗا وَلَا يُنقِذُونِ ٢٣
(24) এরূপ করলে নিশ্চয় আমি স্পষ্ট বিভ্রান্তিতে পতিত হব’।إِنِّيٓ إِذٗا لَّفِي ضَلَٰلٖ مُّبِينٍ ٢٤
(25) নিশ্চয় আমি তোমাদের রবের প্রতি ঈমান এনেছি, অতএব তোমরা আমার কথা শোন’।إِنِّيٓ ءَامَنتُ بِرَبِّكُمۡ فَٱسۡمَعُونِ ٢٥
(26) তাকে বলা হল, ‘জান্নাতে প্রবেশ কর’। সে বলল, ‘হায়! আমার কওম যদি জানতে পারত’,قِيلَ ٱدۡخُلِ ٱلۡجَنَّةَۖ قَالَ يَٰلَيۡتَ قَوۡمِي يَعۡلَمُونَ ٢٦
(27) আমার রব আমাকে কিসের বিনিময়ে ক্ষমা করে দিয়েছেন এবং আমাকে সম্মানিতদের অন্তর্ভুক্ত করেছেন’।بِمَا غَفَرَ لِي رَبِّي وَجَعَلَنِي مِنَ ٱلۡمُكۡرَمِينَ ٢٧
(28) আর আমি তার (মৃত্যুর) পর তার কওমের বিরুদ্ধে আসমান থেকে কোন সৈন্য পাঠাইনি। আর তা পাঠানোর কোন দরকারও আমার ছিল না।۞وَمَآ أَنزَلۡنَا عَلَىٰ قَوۡمِهِۦ مِنۢ بَعۡدِهِۦ مِن جُندٖ مِّنَ ٱلسَّمَآءِ وَمَا كُنَّا مُنزِلِينَ ٢٨
(29) তা ছিল শুধুই একটি বিকট আওয়াজ, ফলে তারা নিথর-নিস্তব্ধ হয়ে পড়ল।إِن كَانَتۡ إِلَّا صَيۡحَةٗ وَٰحِدَةٗ فَإِذَا هُمۡ خَٰمِدُونَ٢٩
(30) আফসোস, বান্দাদের জন্য! যখনই তাদের কাছে কোন রাসূল এসেছে তখনই তারা তাকে নিয়ে ঠাট্টা-বিদ্রূপ করেছে।يَٰحَسۡرَةً عَلَى ٱلۡعِبَادِۚ مَا يَأۡتِيهِم مِّن رَّسُولٍ إِلَّا كَانُواْ بِهِۦ يَسۡتَهۡزِءُونَ ٣٠
(31) তারা কি লক্ষ্য করেনি যে, আমি তাদের পূর্বে কত প্রজন্মকে ধ্বংস করেছি, নিশ্চয় তারা তাদের কাছে ফিরে আসবে না।أَلَمۡ يَرَوۡاْ كَمۡ أَهۡلَكۡنَا قَبۡلَهُم مِّنَ ٱلۡقُرُونِ أَنَّهُمۡ إِلَيۡهِمۡ لَا يَرۡجِعُونَ ٣١
(32) আর তাদের সকলকে একত্রে আমার কাছে হাযির করা হবে।وَإِن كُلّٞ لَّمَّا جَمِيعٞ لَّدَيۡنَا مُحۡضَرُونَ٣٢

সুরা ইয়াসিন ع রুকু Ruku [২][2] >> [১][1] >> [৩][3] >> [৪][4] >> [৫][5]

.

(33) আর মৃত যমীন তাদের জন্য একটি নিদর্শন, আমি তাকে জীবিত করেছি এবং তা থেকে শস্যদানা উৎপন্ন করেছি। অতঃপর তা থেকেই তারা খায়।وَءَايَةٞ لَّهُمُ ٱلۡأَرۡضُ ٱلۡمَيۡتَةُ أَحۡيَيۡنَٰهَا وَأَخۡرَجۡنَا مِنۡهَا حَبّٗا فَمِنۡهُ يَأۡكُلُونَ ٣٣
(34) আর আমি তাতে খেজুর ও আঙ্গুরের বাগান তৈরী করেছি এবং তাতে কিছু ঝর্নাধারা প্রবাহিত করি।وَجَعَلۡنَا فِيهَا جَنَّٰتٖ مِّن نَّخِيلٖ وَأَعۡنَٰبٖ وَفَجَّرۡنَا فِيهَا مِنَ ٱلۡعُيُونِ ٣٤
(35) যাতে তারা তার ফল খেতে পারে, অথচ তাদের হাত তা বানায়নি। তবুও কি তারা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করবে না?لِيَأۡكُلُواْ مِن ثَمَرِهِۦ وَمَا عَمِلَتۡهُ أَيۡدِيهِمۡۚ أَفَلَا يَشۡكُرُونَ ٣٥
(36) পবিত্র ও মহান সে সত্তা যিনি সকল জোড়া জোড়া সৃষ্টি করেছেন, যমীন যা উৎপন্ন করেছে তা থেকে, মানুষের নিজদের মধ্য থেকে এবং সে সব কিছু থেকেও যা তারা জানে না ।سُبۡحَٰنَ ٱلَّذِي خَلَقَ ٱلۡأَزۡوَٰجَ كُلَّهَا مِمَّا تُنۢبِتُ ٱلۡأَرۡضُ وَمِنۡ أَنفُسِهِمۡ وَمِمَّا لَا يَعۡلَمُونَ ٣٦
(37) আর রাত তাদের জন্য একটি নিদর্শন; আমি তা থেকে দিনকে সরিয়ে নেই, ফলে তখনই তারা অন্ধকারাচ্ছন্ন হয়ে যায়।وَءَايَةٞ لَّهُمُ ٱلَّيۡلُ نَسۡلَخُ مِنۡهُ ٱلنَّهَارَ فَإِذَا هُم مُّظۡلِمُونَ ٣٧
(38) আর সূর্য ভ্রমণ করে তার নির্দিষ্ট পথে, এটা মহাপরাক্রমশালী সর্বজ্ঞ (আল্লাহ)-র নির্ধারণ।وَٱلشَّمۡسُ تَجۡرِي لِمُسۡتَقَرّٖ لَّهَاۚ ذَٰلِكَ تَقۡدِيرُ ٱلۡعَزِيزِ ٱلۡعَلِيمِ ٣٨
(39) আর চাঁদের জন্য আমি নির্ধারণ করেছি মানযিলসমূহ, অবশেষে সেটি খেজুরের শুষ্ক পুরাতন শাখার মত হয়ে যায়।وَٱلۡقَمَرَ قَدَّرۡنَٰهُ مَنَازِلَ حَتَّىٰ عَادَ كَٱلۡعُرۡجُونِ ٱلۡقَدِيمِ ٣٩
(40) সূর্যের জন্য সম্ভব নয় চাঁদের নাগাল পাওয়া, আর রাতের জন্য সম্ভব নয় দিনকে অতিক্রম করা, আর প্রত্যেকেই কক্ষ পথে ভেসে বেড়ায়।لَا ٱلشَّمۡسُ يَنۢبَغِي لَهَآ أَن تُدۡرِكَ ٱلۡقَمَرَ وَلَا ٱلَّيۡلُ سَابِقُ ٱلنَّهَارِۚ وَكُلّٞ فِي فَلَكٖ يَسۡبَحُونَ ٤٠
(41) আর তাদের জন্য একটি নিদর্শন হল, অবশ্যই আমি তাদের বংশধরদেরকে ভরা নৌকায় আরোহণ করিয়েছিলাম।وَءَايَةٞ لَّهُمۡ أَنَّا حَمَلۡنَا ذُرِّيَّتَهُمۡ فِي ٱلۡفُلۡكِ ٱلۡمَشۡحُونِ ٤١
(42) আর তাদের জন্য তার অনুরূপ (যানবাহন) সৃষ্টি করেছি, যাতে তারা আরোহণ করে।وَخَلَقۡنَا لَهُم مِّن مِّثۡلِهِۦ مَا يَرۡكَبُونَ ٤٢
(43) আর যদি আমি চাই তাদেরকে নিমজ্জিত করে দেই, তখন তাদের জন্য কোন সাহায্যকারী থাকে না এবং তাদেরকে উদ্ধারও করা হয় না।وَإِن نَّشَأۡ نُغۡرِقۡهُمۡ فَلَا صَرِيخَ لَهُمۡ وَلَا هُمۡ يُنقَذُونَ ٤٣
(44) যদি না আমার পক্ষ থেকে রহমত হয় এবং কিছু সময়ের জন্য উপভোগের সুযোগ দেয়া হয়।إِلَّا رَحۡمَةٗ مِّنَّا وَمَتَٰعًا إِلَىٰ حِينٖ ٤٤
(45) আর যখন তাদেরকে বলা হয়, যা তোমাদের সামনে আছে এবং যা তোমাদের পিছনে আছে সে বিষয়ে সতর্ক হও, যাতে তোমাদের প্রতি অনুগ্রহ করা যায়।وَإِذَا قِيلَ لَهُمُ ٱتَّقُواْ مَا بَيۡنَ أَيۡدِيكُمۡ وَمَا خَلۡفَكُمۡ لَعَلَّكُمۡ تُرۡحَمُونَ٤٥
(46) আর তাদের রবের নিদর্শনসমূহ থেকে তাদের কাছে কোন নিদর্শন আসলেই তারা তা থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়।وَمَا تَأۡتِيهِم مِّنۡ ءَايَةٖ مِّنۡ ءَايَٰتِ رَبِّهِمۡ إِلَّا كَانُواْ عَنۡهَا مُعۡرِضِينَ ٤٦
(47) আর যখন তাদেরকে বলা হয়, ‘আল্লাহ তোমাদেরকে যে রিযিক দিয়েছেন তা থেকে তোমরা ব্যয় কর’, তখন কাফিররা মুমিনদেরকে বলে, ‘আমরা কি তাকে খাদ্য দান করব, আল্লাহ চাইলে যাকে খাদ্য দান করতেন? তোমরা তো স্পষ্ট পথভ্রষ্টতায় রয়েছ’।وَإِذَا قِيلَ لَهُمۡ أَنفِقُواْ مِمَّا رَزَقَكُمُ ٱللَّهُ قَالَ ٱلَّذِينَ كَفَرُواْ لِلَّذِينَ ءَامَنُوٓاْ أَنُطۡعِمُ مَن لَّوۡ يَشَآءُ ٱللَّهُ أَطۡعَمَهُۥٓ إِنۡ أَنتُمۡ إِلَّا فِي ضَلَٰلٖ مُّبِينٖ ٤٧
(48) আর তারা বলে, ‘এ ওয়াদা কখন বাস্তবায়িত হবে’? (তা বল) ‘যদি তোমরা সত্যবাদী হও’।وَيَقُولُونَ مَتَىٰ هَٰذَا ٱلۡوَعۡدُ إِن كُنتُمۡ صَٰدِقِينَ ٤٨
(49) তারা তো কেবল এক বিকট আওয়াজের অপেক্ষা করছে যা তাদেরকে বাক-বিতন্ডায় লিপ্ত অবস্থায় পাকড়াও করবে।مَا يَنظُرُونَ إِلَّا صَيۡحَةٗ وَٰحِدَةٗ تَأۡخُذُهُمۡ وَهُمۡ يَخِصِّمُونَ ٤٩
(50) সুতরাং না পারবে তারা ওসিয়াত করতে এবং না পারবে তাদের পরিবার-পরিজনের কাছে ফিরে যেতে।فَلَا يَسۡتَطِيعُونَ تَوۡصِيَةٗ وَلَآ إِلَىٰٓ أَهۡلِهِمۡ يَرۡجِعُونَ ٥٠

সুরা ইয়াসিন ع রুকু 3 Ruku [৩][3] >> [১][1] >> [২][2] >> [৪][4] >> [৫][5]

.

(51) আর শিঙ্গায় ফুঁক দেয়া হবে, তৎক্ষণাৎ তারা কবর থেকে তাদের রবের দিকে ছুটে আসবে।وَنُفِخَ فِي ٱلصُّورِ فَإِذَا هُم مِّنَ ٱلۡأَجۡدَاثِ إِلَىٰ رَبِّهِمۡ يَنسِلُونَ ٥١
(52) তারা বলবে, ‘হায় আমাদের দুর্ভোগ! কে আমাদেরকে আমাদের নিদ্রাস্থল থেকে উঠালো’? (তাদেরকে বলা হবে)  ‘এটা তো তা যার ওয়াদা পরম করুনাময় করেছিলেন এবং রাসূলগণ সত্য বলেছিলেন’।قَالُواْ يَٰوَيۡلَنَا مَنۢ بَعَثَنَا مِن مَّرۡقَدِنَاۜۗ هَٰذَا مَا وَعَدَ ٱلرَّحۡمَٰنُ وَصَدَقَ ٱلۡمُرۡسَلُونَ ٥٢
(53) তা ছিল শুধুই একটি বিকট আওয়াজ, ফলে তৎক্ষণাৎ তাদের সকলকে আমার সামনে উপস্থিত করা হবে।إِن كَانَتۡ إِلَّا صَيۡحَةٗ وَٰحِدَةٗ فَإِذَا هُمۡ جَمِيعٞ لَّدَيۡنَا مُحۡضَرُونَ ٥٣
(54) সুতরাং আজ কাউকেই কোন যুলম করা হবে না এবং তোমরা যা আমল করছিলে শুধু তারই প্রতিদান তোমাদের দেয়া হবে।فَٱلۡيَوۡمَ لَا تُظۡلَمُ نَفۡسٞ شَيۡ‍ٔٗا وَلَا تُجۡزَوۡنَ إِلَّا مَا كُنتُمۡ تَعۡمَلُونَ ٥٤
(55) নিশ্চয় জান্নাতবাসীরা আজ আনন্দে মশগুল থাকবে।إِنَّ أَصۡحَٰبَ ٱلۡجَنَّةِ ٱلۡيَوۡمَ فِي شُغُلٖ فَٰكِهُونَ ٥٥
(56) তারা ও তাদের স্ত্রীরা ছায়ার মধ্যে সুসজ্জিত আসনে হেলান দিয়ে উপবিষ্ট থাকবে।هُمۡ وَأَزۡوَٰجُهُمۡ فِي ظِلَٰلٍ عَلَى ٱلۡأَرَآئِكِ مُتَّكِ‍ُٔونَ ٥٦
(57) সেখানে তাদের জন্য থাকবে ফল-ফলাদি এবং থাকবে তারা যা চাইবে তাও।لَهُمۡ فِيهَا فَٰكِهَةٞ وَلَهُم مَّا يَدَّعُونَ ٥٧
(58) অসীম দয়ালু রবের পক্ষ থেকে বলা হবে, ‘সালাম’।سَلَٰمٞ قَوۡلٗا مِّن رَّبّٖ رَّحِيمٖ ٥٨
(59) আর [বলা হবে] ‘হে অপরাধীরা, আজ তোমরা পৃথক হয়ে যাও’।وَٱمۡتَٰزُواْ ٱلۡيَوۡمَ أَيُّهَا ٱلۡمُجۡرِمُونَ ٥٩
(60) হে বনী আদম, আমি কি তোমাদেরকে এ মর্মে নির্দেশ দেইনি যে, ‘তোমরা শয়তানের উপাসনা করো না। নিঃসন্দেহে সে তোমাদের প্রকাশ্য শত্রু’?۞أَلَمۡ أَعۡهَدۡ إِلَيۡكُمۡ يَٰبَنِيٓ ءَادَمَ أَن لَّا تَعۡبُدُواْ ٱلشَّيۡطَٰنَۖ إِنَّهُۥ لَكُمۡ عَدُوّٞ مُّبِينٞ ٦٠
(61) আর আমারই ইবাদাত কর। এটিই সরল পথ।وَأَنِ ٱعۡبُدُونِيۚ هَٰذَا صِرَٰطٞ مُّسۡتَقِيمٞ ٦١
(62) আর অবশ্যই শয়তান তোমাদের বহু দলকে পথভ্রষ্ট করেছে। তবুও কি তোমরা অনুধাবন করনি?وَلَقَدۡ أَضَلَّ مِنكُمۡ جِبِلّٗا كَثِيرًاۖ أَفَلَمۡ تَكُونُواْ تَعۡقِلُونَ ٦٢
(63) এটি সেই জাহান্নাম যার সম্পর্কে তোমরা ওয়াদাপ্রাপ্ত হয়েছিলে।هَٰذِهِۦ جَهَنَّمُ ٱلَّتِي كُنتُمۡ تُوعَدُونَ ٦٣
(64) তোমরা যে কুফরী করতে সে কারণে আজ তোমরা এতে প্রবেশ কর।ٱصۡلَوۡهَا ٱلۡيَوۡمَ بِمَا كُنتُمۡ تَكۡفُرُونَ ٦٤
(65) আজ আমি তাদের মুখে মোহর মেরে দেব এবং তাদের হাত আমার সাথে কথা বলবে ও তাদের পা সে সম্পর্কে সাক্ষ্য দেবে যা তারা অর্জন করত।ٱلۡيَوۡمَ نَخۡتِمُ عَلَىٰٓ أَفۡوَٰهِهِمۡ وَتُكَلِّمُنَآ أَيۡدِيهِمۡ وَتَشۡهَدُ أَرۡجُلُهُم بِمَا كَانُواْ يَكۡسِبُونَ ٦٥
(66) আর যদি আমি চাইতাম তবে তাদের চোখসমূহ অন্ধ করে দিতাম। তখন এরা পথের অন্বেষণে দৌড়ালে কী করে দেখতে পেত?وَلَوۡ نَشَآءُ لَطَمَسۡنَا عَلَىٰٓ أَعۡيُنِهِمۡ فَٱسۡتَبَقُواْ ٱلصِّرَٰطَ فَأَنَّىٰ يُبۡصِرُونَ ٦٦
(67) আর আমি যদি চাইতাম তবে তাদের স্ব স্ব স্থানে তাদেরকে বিকৃত করে দিতাম। ফলে তারা সামনেও এগিয়ে যেতে পারত না এবং পিছনেও ফিরে আসতে পারত না।وَلَوۡ نَشَآءُ لَمَسَخۡنَٰهُمۡ عَلَىٰ مَكَانَتِهِمۡ فَمَا ٱسۡتَطَٰعُواْ مُضِيّٗا وَلَا يَرۡجِعُونَ٦٧

সুরা ইয়াসিন ع রুকু Ruku [৪][4] >> [১][1] >> [২][2] >> [৩][3] >> [৫][5]

.

(68) আর আমি যাকে দীর্ঘ জীবন দান করি, সৃষ্টি-অবয়বে আমি তার পরিবর্তন ঘটাই। তবুও কি তারা বুঝবে না?وَمَن نُّعَمِّرۡهُ نُنَكِّسۡهُ فِي ٱلۡخَلۡقِۚ أَفَلَا يَعۡقِلُونَ ٦٨
(69) আমি রাসূলকে কাব্য শিখাইনি এবং এটি তার জন্য শোভনীয়ও নয়। এ তো কেবল এক উপদেশ ও স্পষ্ট কুরআন মাত্র।وَمَا عَلَّمۡنَٰهُ ٱلشِّعۡرَ وَمَا يَنۢبَغِي لَهُۥٓۚ إِنۡ هُوَ إِلَّا ذِكۡرٞ وَقُرۡءَانٞ مُّبِينٞ ٦٩
(70) যাতে তা সতর্ক করতে পারে ঐ ব্যক্তিকে যে জীবিত এবং যাতে কাফিরদের বিরুদ্ধে অভিযোগবাণী প্রমাণিত হয়।لِّيُنذِرَ مَن كَانَ حَيّٗا وَيَحِقَّ ٱلۡقَوۡلُ عَلَى ٱلۡكَٰفِرِينَ ٧٠
(71) তারা কি দেখেনি, আমার হাতের তৈরী বস্তুসমূহের মধ্যে আমি তাদের জন্য চতুষ্পদ জন্তু সৃষ্টি করেছি। অতঃপর তারা হল এগুলোর মালিক।أَوَ لَمۡ يَرَوۡاْ أَنَّا خَلَقۡنَا لَهُم مِّمَّا عَمِلَتۡ أَيۡدِينَآ أَنۡعَٰمٗا فَهُمۡ لَهَا مَٰلِكُونَ ٧١
(72) আর আমি এগুলোকে তাদের বশীভূত করে দিয়েছি। ফলে এদের কতক তাদের বাহন এবং কতক তারা ভক্ষণ করে।وَذَلَّلۡنَٰهَا لَهُمۡ فَمِنۡهَا رَكُوبُهُمۡ وَمِنۡهَا يَأۡكُلُونَ٧٢
(73) আর তাদের জন্য এগুলোতে রয়েছে আরও বহু উপকারিতা ও পানীয় উপাদান। তবুও কি তারা শোকর আদায় করবে না?وَلَهُمۡ فِيهَا مَنَٰفِعُ وَمَشَارِبُۚ أَفَلَا يَشۡكُرُونَ ٧٣
(74) অথচ তারা আল্লাহর পরিবর্তে অন্য সব ইলাহ গ্রহণ করেছে, এই প্রত্যাশায় যে, তারা সাহায্যপ্রাপ্ত হবে।وَٱتَّخَذُواْ مِن دُونِ ٱللَّهِ ءَالِهَةٗ لَّعَلَّهُمۡ يُنصَرُونَ ٧٤
(75) এরা তাদের কোন সাহায্য করতে সক্ষম হবে না, বরং এগুলোকে তাদের বিরুদ্ধে বাহিনীরূপে হাযির করা হবে।لَا يَسۡتَطِيعُونَ نَصۡرَهُمۡ وَهُمۡ لَهُمۡ جُندٞ مُّحۡضَرُونَ ٧٥
(76) সুতরাং তাদের কথা তোমাকে যেন চিন্তিত না করে, নিশ্চয় আমি জানি তারা যা গোপন করে এবং যা প্রকাশ করে।فَلَا يَحۡزُنكَ قَوۡلُهُمۡۘ إِنَّا نَعۡلَمُ مَا يُسِرُّونَ وَمَا يُعۡلِنُونَ ٧٦
(77) মানুষ কি দেখেনি যে, আমি তাকে সৃষ্টি করেছি শুক্রবিন্দু থেকে? অথচ সে (বনে যায়) একজন প্রকাশ্য কুটতর্ককারী।أَوَ لَمۡ يَرَ ٱلۡإِنسَٰنُ أَنَّا خَلَقۡنَٰهُ مِن نُّطۡفَةٖ فَإِذَا هُوَ خَصِيمٞ مُّبِينٞ ٧٧
(78) আর সে আমার উদ্দেশ্যে উপমা পেশ করে, অথচ সে তার নিজের সৃষ্টি ভুলে যায়। সে বলে, ‘হাড়গুলো জরাজীর্ণ হওয়া অবস্থায় কে সেগুলো জীবিত করবে’?وَضَرَبَ لَنَا مَثَلٗا وَنَسِيَ خَلۡقَهُۥۖ قَالَ مَن يُحۡيِ ٱلۡعِظَٰمَ وَهِيَ رَمِيمٞ ٧٨
(79) বল, ‘যিনি প্রথমবার এগুলোকে সৃষ্টি করেছেন তিনিই সেগুলো পুনরায় জীবিত করবেন। আর তিনি সকল সৃষ্টি সম্পর্কেই সর্বজ্ঞাতা।قُلۡ يُحۡيِيهَا ٱلَّذِيٓ أَنشَأَهَآ أَوَّلَ مَرَّةٖۖ وَهُوَ بِكُلِّ خَلۡقٍ عَلِيمٌ ٧٩
(80) যিনি সবুজ বৃক্ষ থেকে তোমাদের জন্য আগুন তৈরী করেছেন। ফলে তা থেকে তোমরা আগুন জ্বালাও।ٱلَّذِي جَعَلَ لَكُم مِّنَ ٱلشَّجَرِ ٱلۡأَخۡضَرِ نَارٗا فَإِذَآ أَنتُم مِّنۡهُ تُوقِدُونَ ٨٠
(81) যিনি আসমানসমূহ ও যমীন সৃষ্টি করেছেন তিনি কি তাদের অনুরূপ সৃষ্টি করতে সক্ষম নন? হ্যাঁ, তিনিই মহাস্রষ্টা, সর্বজ্ঞানী।أَوَ لَيۡسَ ٱلَّذِي خَلَقَ ٱلسَّمَٰوَٰتِ وَٱلۡأَرۡضَ بِقَٰدِرٍ عَلَىٰٓ أَن يَخۡلُقَ مِثۡلَهُمۚ بَلَىٰ وَهُوَ ٱلۡخَلَّٰقُ ٱلۡعَلِيمُ ٨١
(82) তাঁর ব্যাপার শুধু এই যে, কোন কিছুকে তিনি যদি ‘হও’ বলতে চান, তখনই তা হয়ে যায়।إِنَّمَآ أَمۡرُهُۥٓ إِذَآ أَرَادَ شَيۡ‍ًٔا أَن يَقُولَ لَهُۥ كُن فَيَكُونُ ٨٢
(83) অতএব পবিত্র মহান তিনি, যার হাতে রয়েছে সকল কিছুর রাজত্ব এবং তাঁরই দিকে তোমরা প্রত্যাবর্তিত হবে।فَسُبۡحَٰنَ ٱلَّذِي بِيَدِهِۦ مَلَكُوتُ كُلِّ شَيۡءٖ وَإِلَيۡهِ تُرۡجَعُونَ ٨٣  

সুরা ইয়াসিন ع রুকু Ruku [৫][5] [১][1] >> [২][2] >> [৩][3] >> [৪][4]

.

শব্দে শব্দে সুরা ইয়াসিন Sura Yasin in Words Ruku ع [১][1] >> [২][2] >> [৩][3] >> [৪][4] >> [৫][5]

(1)

يسٓ

ইয়া-সীন।

Ya Sin

(2)

وَٱلْقُرْءَانِ

শপথ কুরআনের (যা)

By the Quran

ٱلْحَكِيمِ

জ্ঞানময় (বিজ্ঞানময়)।

the Wise

(3)

إِنَّكَ

তুমি নিশ্চয়ই

Indeed you

لَمِنَ

অন্তর্ভুক্ত অবশ্যই

(are) among

ٱلْمُرْسَلِينَ

রাসূলদের।

the Messengers

(4)

عَلَىٰ

(তুমি প্রতিষ্ঠিত) উপর

On

صِرَٰطٍ

পথের

a Path

مُّسْتَقِيمٍ

সরল সঠিক

straight

(5)

تَنزِيلَ

(এই কোরআন) অবতীর্ণ করা

A revelation

ٱلْعَزِيزِ

পরাক্রমশালীর (পক্ষ হ’তে)

(of) the All-Mighty

ٱلرَّحِيمِ

(যিনি) পরম দয়ালু

the Most Merciful

(6)

لِتُنذِرَ

সতর্ক করো তুমি যেন

That you may warn

قَوْمًا

(এমন) জাতিকে

a people

مَّآ

না

not

أُنذِرَ

সতর্ক করা হয়েছে

were warned

ءَابَآؤُهُمْ

তাদের পিতৃ-পুরুষদেরকে

their forefathers

فَهُمْ

অতএব তারা

so they

غَٰفِلُونَ

উদাসীন (হয়ে আছে)

(are) heedless

(7)

لَقَدْ

নিশ্চয়ই

Certainly

حَقَّ

অবধারিত হয়েছে

(has) proved true

ٱلْقَوْلُ

(শান্তির) বাণী

the word

عَلَىٰٓ

উপর

upon

أَكْثَرِهِمْ

তাদের অধিক অংশের

most of them

فَهُمْ

সুতরাং তারা

so they

لَا

না

(do) not

يُؤْمِنُونَ

ঈমান আনবে

believe

(8)

إِنَّا

নিশ্চয়ই আমরা

Indeed We

جَعَلْنَا

আমরা লাগিয়েছি

[We] have placed

فِىٓ

উপর

on

أَعْنَٰقِهِمْ

তাদের গলায়

their necks

أَغْلَٰلًا

বেড়িসমূহ

iron collars

فَهِىَ

তা তাই

and they

إِلَى

(রয়েছে) পর্যন্ত

(are up)to

ٱلْأَذْقَانِ

চিবুকগুলো (শৃঙ্খলিত হয়ে)

the chins

فَهُم

তারা এজন্য

so they

مُّقْمَحُونَ

ঊর্ধ্বমুখী (হয়ে আছে)

(are with) heads aloft

(9)

وَجَعَلْنَا

এবং আমরা খাড়া করেছি

And We have made

مِنۢ

থেকে

before them

بَيْنِ

সামনে

before them

أَيْدِيهِمْ

তাদের

before them

سَدًّا

প্রাচীর

a barrier

وَمِنْ

ও থেকে

and behind them

خَلْفِهِمْ

তাদের পিছন

and behind them

سَدًّا

প্রাচীর

a barrier

فَأَغْشَيْنَٰهُمْ

তাদেরকে আমরা এভাবে ঢেকে দিয়েছি

and We covered them

فَهُمْ

তারা অতএব

so they

لَا

না

(do) not

يُبْصِرُونَ

দেখতে পায়

see

(10)

وَسَوَآءٌ

এবং সমান

And it (is) same

عَلَيْهِمْ

তাদের পক্ষে

to them

ءَأَنذَرْتَهُمْ

তাদের তুমি সতর্ক করো কি

whether you warn them

أَمْ

বা

or

لَمْ

নি

(do) not

تُنذِرْهُمْ

তাদের সতর্ক করো তুমি

warn them

لَا

না

not

يُؤْمِنُونَ

তারা ঈমান আনবে

they will believe

(11)

إِنَّمَا

প্রকৃতপক্ষে

Only

تُنذِرُ

সতর্ক করো তুমি

you (can) warn

مَنِ

(তাকে) যে

(him) who

ٱتَّبَعَ

মেনে চলে

follows

ٱلذِّكْرَ

উপদেশ

the Reminder

وَخَشِىَ

ও ভয় করে

and fears

ٱلرَّحْمَٰنَ

দয়াময়কে

the Most Gracious

بِٱلْغَيْبِ

না দেখা অবস্থায়

in the unseen

فَبَشِّرْهُ

তাকে সুতরাং দাও সুসংবাদ

So give him glad tidings

بِمَغْفِرَةٍ

ক্ষমার

of forgiveness

وَأَجْرٍ

ও প্রতিফলের

and a reward

كَرِيمٍ

সম্মানজনক

noble

(12)

إِنَّا

নিশ্চয়ই

Indeed We

نَحْنُ

আমরা

We

نُحْىِ

জীবিত করবো (একদিন)

[We] give life

ٱلْمَوْتَىٰ

মৃতদেরকে

(to) the dead

وَنَكْتُبُ

এবং আমরা লিখে রাখি

and We record

مَا

যা

what

قَدَّمُوا۟

তারা আগে পাঠিয়েছে

they have sent before

وَءَاثَٰرَهُمْ

ও তাদের কীর্তিসমূহ (যা পিছনে রেখেছে)

and their footprints

وَكُلَّ

এবং প্রত্যেক

and every

شَىْءٍ

জিনিস

thing

أَحْصَيْنَٰهُ

তা আমরা সংরক্ষণ করেছি

We have enumerated it

فِىٓ

মধ্যে

in

إِمَامٍ

একটি কিতাবের

a Register

مُّبِينٍ

সুস্পষ্ট

clear

(13)

وَٱضْرِبْ

এবং বর্ণনা করো

And set forth

لَهُم

তাদের কাছে

to them

مَّثَلًا

দৃষ্টান্ত

an example

أَصْحَٰبَ

অধিবাসীদেরকে

(of the) companions

ٱلْقَرْيَةِ

জনপদের

(of) the city

إِذْ

যখন

when

جَآءَهَا

সেখানে এসেছিলো

came to it

ٱلْمُرْسَلُونَ

রাসূলগণ

the Messengers

Sura Yasin in Words Ruku ع [১][1] >> [২][2] >> [৩][3] >> [৪][4] >> [৫][5]

(14)

إِذْ

যখন

When

أَرْسَلْنَآ

আমরা পাঠিয়েছিলাম

We sent

إِلَيْهِمُ

তাদের প্রতি

to them

ٱثْنَيْنِ

দু’জনকে

two (Messengers)

فَكَذَّبُوهُمَا

তখন উভয়কে তারা মিথ্যারোপ করলো

but they denied both of them

فَعَزَّزْنَا

আমরা শক্তিশালী করলাম তখন

so We strengthened them

بِثَالِثٍ

তৃতীয়জনকে দিয়ে

with a third

فَقَالُوٓا۟

তারা অতঃপর বললো

and they said

إِنَّآ

“নিশ্চয়ই আমরা

“Indeed We

إِلَيْكُم

তোমাদের প্রতি

to you

مُّرْسَلُونَ

প্রেরিত রাসূল”

(are) Messengers”

(15)

قَالُوا۟

(লোকেরা) বললো

They said

مَآ

“না

“Not

أَنتُمْ

তোমরা

you

إِلَّا

এছাড়া

(are) but

بَشَرٌ

মানুষ

human beings

مِّثْلُنَا

আমাদেরই মতো

like us

وَمَآ

না এবং

and not

أَنزَلَ

অবতীর্ণ করেছেন

has revealed

ٱلرَّحْمَٰنُ

দয়াময়

the Most Gracious

مِن

কোনো

any

شَىْءٍ

কিছুই

thing

إِنْ

না

Not

أَنتُمْ

তোমরা

you

إِلَّا

এছাড়া

(are) but

تَكْذِبُونَ

মিথ্যা বলছো”

lying”

(16)

قَالُوا۟

(রাসূলগণ) বললেন

They said

رَبُّنَا

“আমাদের রব

“Our Lord

يَعْلَمُ

জানেন

knows

إِنَّآ

নিশ্চযই় আমরা

that we

إِلَيْكُمْ

তোমাদের প্রতি

to you

لَمُرْسَلُونَ

প্রেরিত অবশ্যই (রাসূল হিসেবে)

(are) surely Messengers

(17)

وَمَا

এবং না

And not

عَلَيْنَآ

আমাদের উপর (দায়িত্ব)

(is) on us

إِلَّا

এ ব্যতীত

except

ٱلْبَلَٰغُ

প্রচার

the conveyance

ٱلْمُبِينُ

সুস্পষ্ট (পয়গাম)”

clear”

(18)

قَالُوٓا۟

তারা বললো

They said

إِنَّا

“নিশ্চযই় আমরা

“Indeed we

تَطَيَّرْنَا

আমরা অমঙ্গল মনে করি

[we] see an evil omen

بِكُمْ

তোমাদেরকে

from you

لَئِن

অবশ্যই যদি

If

لَّمْ

না

not

تَنتَهُوا۟

তোমরা বিরত হও

you desist

لَنَرْجُمَنَّكُمْ

তোমাদেরকে আমরা পাথর মেরে হত্যা করবোই

surely we will stone you

وَلَيَمَسَّنَّكُم

এবং তোমাদেরকে ধরবে অবশ্যই

and surely will touch you

مِّنَّا

আমাদের পক্ষ হ’তে

from us

عَذَابٌ

শাস্তি

a punishment

أَلِيمٌ

নিদারুণ”

painful”

(19)

قَالُوا۟

(রাসূলগণ) বললেন

They said

طَٰٓئِرُكُم

“তোমাদের অমঙ্গলের (কারণ)

“Your evil omen

مَّعَكُمْ

তোমাদের সাথে

(be) with you!

أَئِن

(এসব বলছো) কি

Is it because

ذُكِّرْتُم

তোমাদের উপদেশ দেওয়া হয়েছে

you are admonished?

بَلْ

বরং

Nay

أَنتُمْ

তোমরা

you

قَوْمٌ

সম্প্রদায়

(are) a people

مُّسْرِفُونَ

সীমালঙ্ঘনকারী”

transgressing”

(20)

وَجَآءَ

এ অবস্থায় আসলো

And came

مِنْ

হ’তে

from

أَقْصَا

এক প্রান্ত

(the) farthest end

ٱلْمَدِينَةِ

শহরের

(of) the city

رَجُلٌ

এক ব্যক্তি

a man

يَسْعَىٰ

দৌঁড়ে

running

قَالَ

সে বললো

He said

يَٰقَوْمِ

“হে আমার জাতি

“O my People!

ٱتَّبِعُوا۟

তোমরা অনুসরণ করো

Follow

ٱلْمُرْسَلِينَ

রাসূলগণকে

the Messengers

(21)

ٱتَّبِعُوا۟

তোমরা অনুসরণ করো

Follow

مَن

(তার) যে

(those) who

لَّا

না

(do) not

يَسْـَٔلُكُمْ

তোমাদের কাছে চায়

ask (of) you

أَجْرًا

কোনো বিনিময়

any payment

وَهُم

এবং তারা

and they

مُّهْتَدُونَ

সৎপথপ্রাপ্ত

(are) rightly guided

(22)

وَمَا

এবং কি

And what

لِىَ

আমার জন্য (যুক্তি আছে যে)

(is) for me

لَآ

না

(that) not

أَعْبُدُ

ইবাদত করবো আমি

I worship

ٱلَّذِى

(তাঁর) যিনি

the One Who

فَطَرَنِى

আমাকে সৃষ্টি করেছেন

created me

وَإِلَيْهِ

ও তাঁরই দিকে

and to Whom

تُرْجَعُونَ

তোমাদেরকে ফিরিয়ে নেয়া হবে

you will be returned?

(23)

ءَأَتَّخِذُ

গ্রহণ করবো আমি কি

Should I take

مِن

ছাড়া

besides Him

دُونِهِۦٓ

তাঁকে

besides Him

ءَالِهَةً

উপাস্য (অন্য কাউকে)

gods?

إِن

(অথচ) যদি

If

يُرِدْنِ

আমাকে চান

intends for me

ٱلرَّحْمَٰنُ

দয়াময়

the Most Gracious

بِضُرٍّ

কোনো ক্ষতি করতে

any harm

لَّا

না

not

تُغْنِ

কাজে আসবে

will avail

عَنِّى

আমার জন্যে

[from] me

شَفَٰعَتُهُمْ

তাদের সুপারিশ

their intercession

شَيْـًٔا

কিছু মাত্র

(in) anything

وَلَا

আর না

and not

يُنقِذُونِ

আমাকে তারা উদ্ধার করতে পারবে

they (can) save me

(24)

إِنِّىٓ

নিশ্চয়ই আমি

Indeed I

إِذًا

তাহ’লে

then

لَّفِى

অবশ্যই মধ্যে হব

surely would be in

ضَلَٰلٍ

বিভ্রান্তির

an error

مُّبِينٍ

সুস্পষ্ট

clear

(25)

إِنِّىٓ

নিশ্চযই় আমি

Indeed I

ءَامَنتُ

আমি ঈমান এনেছি

[I] have believed

بِرَبِّكُمْ

প্রতি তোমাদের রবের

in your Lord

فَٱسْمَعُونِ

সুতরা তোমরা আমার কথা শোনো (ও মানো)”

so listen to me”

(26)

قِيلَ

(তাকে তারা হত্যা করলো এবং তাকে) বলা হলো

It was said

ٱدْخُلِ

“প্রবেশ করো

“Enter

ٱلْجَنَّةَ

জান্নাতে”

Paradise”

قَالَ

সে বললো

He said

يَٰلَيْتَ

“হায় আফসোস্‌

“O would that!

قَوْمِى

আমার জাতি

My people

يَعْلَمُونَ

(যদি) জানতো

knew

(27)

بِمَا

যে কারণে

Of how

غَفَرَ

ক্ষমা করেছেন

has forgiven

لِى

আমাকে

me

رَبِّى

আমার রব্‌

my Lord

وَجَعَلَنِى

ও আমাকে করেছেন

and placed me

مِنَ

অন্তর্ভুক্ত

among

ٱلْمُكْرَمِينَ

সম্মানিতদের”

the honored ones”

(28)

وَمَآ

এবং না

And not

أَنزَلْنَا

আমরা অবতীর্ণ করেছি

We sent down

عَلَىٰ

বিরুদ্ধে

upon

قَوْمِهِۦ

তার জাতির

his people

مِنۢ

পরে

after him

بَعْدِهِۦ

তার

after him

مِن

কোনো

any

جُندٍ

সৈন্য

host

مِّنَ

থেকে

from

ٱلسَّمَآءِ

আকাশ

the heaven

وَمَا

আর না

and not

كُنَّا

আমরা ছিলাম

were We

مُنزِلِينَ

অবতীর্ণকারী

(to) send down

(29)

إِن

না

Not

كَانَتْ

ছিলো

it was

إِلَّا

এছাড়া

but

صَيْحَةً

মহাগর্জন

a shout

وَٰحِدَةً

একটি মাত্র

one

فَإِذَا

তখন

then behold!

هُمْ

তারা

They

خَٰمِدُونَ

নিথর নিস্তব্ধ হয়ে গেলো

(were) extinguished

(30)

يَٰحَسْرَةً

হায় পরিতাপ

Alas

عَلَى

জন্য

for

ٱلْعِبَادِ

দাসদের

the servants!

مَا

না

Not

يَأْتِيهِم

তাদেরর কাছে এসেছে

came to them

مِّن

(এমন) কোন

any

رَّسُولٍ

রাসূল

Messenger

إِلَّا

এ ব্যতীত যে

but

كَانُوا۟

তারা ছিলো

they did

بِهِۦ

তাঁর সাথে

mock at him

يَسْتَهْزِءُونَ

ঠাট্টা বিদ্রূপ করতো

mock at him

(31)

أَلَمْ

দেখে নি কি

Do not

يَرَوْا۟

তারা

they see

كَمْ

কত (জাতিকে)

how many

أَهْلَكْنَا

আমরা ধ্বংস করেছি

We destroyed

قَبْلَهُم

তাদের পূর্বে

before them

مِّنَ

মধ্য হ’তে

of

ٱلْقُرُونِ

মানবগোষ্ঠীর

the generations?

أَنَّهُمْ

তারা যে

That they

إِلَيْهِمْ

তাদের মধ্যে

to them

لَا

না

will not return

يَرْجِعُونَ

ফিরে আসবে

will not return

(32)

وَإِن

এবং নি

And surely

كُلٌّ

কেউ (এমন)

all

لَّمَّا

এছাড়া

then

جَمِيعٌ

সকলকেই

together

لَّدَيْنَا

আমাদের কাছে

before Us

مُحْضَرُونَ

উপস্থিত করা হবে

(will be) brought

Sura Yasin in Words Ruku ع [২][2] >> [১][1] >> [৩][3] >> [৪][4] >> [৫][5]

(33)

وَءَايَةٌ

এবং (অন্যতম) নিদর্শন

And a Sign

لَّهُمُ

তাদের জন্য (রয়েছে)

for them

ٱلْأَرْضُ

মাটি

(is) the earth

ٱلْمَيْتَةُ

নিষ্প্রাণ

dead

أَحْيَيْنَٰهَا

তাকে আমরা জীবিত করি

We give it life

وَأَخْرَجْنَا

ও আমরা উৎপন্ন করি

and We bring forth

مِنْهَا

তা থেকে

from it

حَبًّا

শস্যদানা

grain

فَمِنْهُ

অতঃপর তা থেকে

and from it

يَأْكُلُونَ

তারা খায়

they eat

(34)

وَجَعَلْنَا

এবং আমরা বানিয়েছি

And We placed

فِيهَا

তার মধ্যে

therein

جَنَّٰتٍ

বাগানসমূহ

gardens

مِّن

থেকে

of

نَّخِيلٍ

খেজুরের

date-palms

وَأَعْنَٰبٍ

ও আঙ্গুরের

and grapevines

وَفَجَّرْنَا

এবং আমরা বইয়ে দিয়েছি

and We caused to gush forth

فِيهَا

তার মধ্যে

in it

مِنَ

মধ্য হতে

of

ٱلْعُيُونِ

ঝর্ণা সমূহ

the springs

(35)

لِيَأْكُلُوا۟

তারা খেতে পারে যেন

That they may eat

مِن

থেকে

of

ثَمَرِهِۦ

তার ফলমূল

its fruit

وَمَا

অথচ নি

And not

عَمِلَتْهُ

তা সৃষ্টি করেছে

made it

أَيْدِيهِمْ

তাদের হাতগুলো

their hands

أَفَلَا

তবুও কি না

So will not

يَشْكُرُونَ

তারা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে

they be grateful?

(36)

سُبْحَٰنَ

(আল্লাহ) মহান পবিত্র

Glory be

ٱلَّذِى

যিনি

(to) the One Who

خَلَقَ

সৃষ্টি করেছেন

created

ٱلْأَزْوَٰجَ

জোড়া জোড়া

(in) pairs

كُلَّهَا

সব কিছুকেই

all

مِمَّا

তা হ’তে যা

of what

تُنۢبِتُ

উৎপন্ন করে

grows

ٱلْأَرْضُ

ভূমি

the earth

وَمِنْ

এবং মধ্য হ’তে

and of

أَنفُسِهِمْ

তাদের নিজেদের (মানব জাতিরও)

themselves

وَمِمَّا

এবং তাহ’তেও যা

and of what

لَا

না

not

يَعْلَمُونَ

(এখনও) তারা জানে

they know

(37)

وَءَايَةٌ

এবং (আরো) একটি নিদর্শন

And a Sign

لَّهُمُ

তাদের জন্যে

for them

ٱلَّيْلُ

রাত

(is) the night

نَسْلَخُ

সরিয়ে দিই আমরা

We withdraw

مِنْهُ

তা থেকে

from it

ٱلنَّهَارَ

দিনকে

the day

فَإِذَا

অতঃপর তখন

Then behold!

هُم

তারা

They

مُّظْلِمُونَ

অন্ধকারাচ্ছন্ন (হয়ে যায়)

(are) those in darkness

(38)

وَٱلشَّمْسُ

এবং সূর্য

And the sun

تَجْرِى

আবর্তন করে

runs

لِمُسْتَقَرٍّ

নির্দিষ্ট গন্ডির মধ্যে

to a term appointed

لَّهَا

তার

for it

ذَٰلِكَ

এটা

That

تَقْدِيرُ

নির্দিষ্ট (হিসাব)

(is the) Decree

ٱلْعَزِيزِ

পরাক্রমশালীর

(of) the All-Mighty

ٱلْعَلِيمِ

(যিনি) সুবিজ্ঞ

the All-Knowing

(39)

وَٱلْقَمَرَ

এবং চাঁদকে

And the moon –

قَدَّرْنَٰهُ

তার আমরা নির্দিষ্ট করেছি

We have ordained for it

مَنَازِلَ

বিভিন্ন কক্ষপথ (যার উপর চলে)

phases

حَتَّىٰ

অবশেষে

until

عَادَ

সে ফিরে আসে

it returns

كَٱلْعُرْجُونِ

খেজুর শাখার মতো

like the date stalk

ٱلْقَدِيمِ

(এমন যা শুষ্ক) পুরান

the old

(40)

لَا

না

Not

ٱلشَّمْسُ

সূর্য

the sun

يَنۢبَغِى

ক্ষমতা রাখে

is permitted

لَهَآ

তার জন্যে

for it –

أَن

যে

that

تُدْرِكَ

নাগাল পাবে

it overtakes

ٱلْقَمَرَ

চাঁদের

the moon

وَلَا

আর না

and not

ٱلَّيْلُ

রাত

the night

سَابِقُ

অতিক্রমকারী (হ’তে পারে)

(can) outstrip

ٱلنَّهَارِ

দিনের

the day

وَكُلٌّ

এবং প্রত্যেকে

but all

فِى

উপর

in

فَلَكٍ

কক্ষের

an orbit

يَسْبَحُونَ

সাঁতার কাটছে

they are floating

(41)

وَءَايَةٌ

এবং একটি নিদর্শন

And a Sign

لَّهُمْ

তাদের জন্যে

for them

أَنَّا

(এও) যে আমরা

(is) that

حَمَلْنَا

আমরা আরোহণ করিয়েছি

We carried

ذُرِّيَّتَهُمْ

তাদের বংশধরদেরকে

their offspring

فِى

মধ্যে

in

ٱلْفُلْكِ

জাহাজের

the ship

ٱلْمَشْحُونِ

বোঝাই

laden

(42)

وَخَلَقْنَا

এবং আমরা সৃষ্টি করেছি

And We created

لَهُم

তাদের জন্যে

for them

مِّن

থেকে

from

مِّثْلِهِۦ

সেটার অনুরূপ (আরো অনেকে)

(the) likes of it

مَا

যাতে

what

يَرْكَبُونَ

তারা চড়তে পারে

they ride

(43)

وَإِن

এবং যদি

And if

نَّشَأْ

আমরা চাই

We will

نُغْرِقْهُمْ

তাদেরকে ডোবাতে আমরা

We could drown them;

فَلَا

তখন না

then not

صَرِيخَ

ডাকে সাড়াদানকারী (পাবে)

(would be) a responder to a cry

لَهُمْ

তাদের জন্যে

for them

وَلَا

আর না

and not

هُمْ

তাদের

they

يُنقَذُونَ

নিস্তার পাবে

would be saved

(44)

إِلَّا

কিন্তু

Except

رَحْمَةً

অনুগ্রহ

(by) Mercy

مِّنَّا

আমাদের পক্ষ হ’তে

from Us

وَمَتَٰعًا

এবং জীবনোপভোগ

and provision

إِلَىٰ

পর্যন্ত

for

حِينٍ

কিছুকাল

a time

(45)

وَإِذَا

এবং যখন

And when

قِيلَ

বলা হয়

it is said

لَهُمُ

তাদেরকে

to them

ٱتَّقُوا۟

“তোমরা ভয় করো

“Fear

مَا

(পরিণামের) যা

what

بَيْنَ

সামনে

(is) before you

أَيْدِيكُمْ

তোমাদের

(is) before you

وَمَا

এবং যা

and what

خَلْفَكُمْ

তোমাদের পিছনে (আছে)

(is) behind you

لَعَلَّكُمْ

তোমাদের যাতে (উপর)

so that you may

تُرْحَمُونَ

অনুগ্রহ করা যায়”

receive mercy”

(46)

وَمَا

এবং না

And not

تَأْتِيهِم

তাদের কাছে এসেছে

comes to them

مِّنْ

(এমন) কোনো

of

ءَايَةٍ

নিদর্শন

a Sign

مِّنْ

মধ্য হ’তে

from

ءَايَٰتِ

নিদর্শনের

(the) Signs

رَبِّهِمْ

তাদের রবের

(of) their Lord

إِلَّا

এছাড়া

but

كَانُوا۟

তারা ছিলো

they

عَنْهَا

তা হ’তে

from it

مُعْرِضِينَ

উপেক্ষাকারী

turn away

(47)

وَإِذَا

এবং যখন

And when

قِيلَ

বলা হয়

it is said

لَهُمْ

তাদেরকে

to them

أَنفِقُوا۟

“তোমরা ব্যয় করো

“Spend

مِمَّا

তাহ’তে যা

from what

رَزَقَكُمُ

তোমাদেরকে জীবিকা দিয়েছেন

(has) provided you

ٱللَّهُ

আল্লাহ”

Allah”

قَالَ

বলে

Said

ٱلَّذِينَ

যারা

those who

كَفَرُوا۟

অস্বীকার করেছে

disbelieved

لِلَّذِينَ

তাদেরকে (যারা)

to those who

ءَامَنُوٓا۟

ঈমান এনেছে

believed

أَنُطْعِمُ

“খাওয়াবো আমরা কি

“Should we feed

مَن

যাকে (এমন কাউকে)

whom

لَّوْ

যদি

if

يَشَآءُ

ইচ্ছে করতেন

Allah willed

ٱللَّهُ

আল্লাহ্‌

Allah willed

أَطْعَمَهُۥٓ

তাকে খাওয়াতে পারতেন”

He would have fed him?”

إِنْ

না

Not

أَنتُمْ

তোমরা

(are) you

إِلَّا

এছাড়া

except

فِى

মধ্যে

in

ضَلَٰلٍ

বিভ্রান্তির

an error

مُّبِينٍ

সুস্পষ্ট

clear

(48)

وَيَقُولُونَ

এবং তারা বলে

And they say

مَتَىٰ

“কখন (পূর্ণ হবে)

“When (is)

هَٰذَا

সেই

this

ٱلْوَعْدُ

(কেয়ামতের) প্রতিশ্রুতি

promise

إِن

যদি

if

كُنتُمْ

তোমরা হও

you are

صَٰدِقِينَ

সত্যবাদী”

truthful?”

(49)

مَا

না

Not

يَنظُرُونَ

তারা অপেক্ষা করছে

they await

إِلَّا

এছাড়া

except

صَيْحَةً

মহাগর্জনের

a shout

وَٰحِدَةً

একটি মাত্র

one

تَأْخُذُهُمْ

তাদেরকে আঘাত করবে

it will seize them

وَهُمْ

এ অবস্থায় যে তারা

while they

يَخِصِّمُونَ

তর্কাতর্কি করতে থাকবে

are disputing

(50)

فَلَا

না তখন

Then not

يَسْتَطِيعُونَ

তারা সমর্থ হবে

they will be able

تَوْصِيَةً

উপদেশ করতে

(to) make a will

وَلَآ

আর না

and not

إِلَىٰٓ

প্রতি

to

أَهْلِهِمْ

তাদের পরিবারের

their people

يَرْجِعُونَ

তারা ফিরে যেতে পারবে

they (can) return

Sura Yasin in Words Ruku ع [৩][3] >> [১][1] >> [২][2] >> [৪][4] >> [৫][5]

(51)

وَنُفِخَ

এবং ফুঁ দেওয়া হবে

And will be blown

فِى

মধ্যে

in

ٱلصُّورِ

শিঙ্গার

the trumpet

فَإِذَا

তখন অতঃপর

and behold!

هُم

তারা

They

مِّنَ

হ’তে

from

ٱلْأَجْدَاثِ

কবরসমূহ

the graves

إِلَىٰ

দিকে

to

رَبِّهِمْ

তাদের রবের

their Lord

يَنسِلُونَ

ছুটে আসবে

[they] will hasten

(52)

قَالُوا۟

(ভীত হয়ে) তারা বলবে

They [will] say

يَٰوَيْلَنَا

“আমাদের দুর্ভোগ হায়

“O woe to us!

مَنۢ

কে

Who

بَعَثَنَا

আমাদেরকে উঠালো

has raised us

مِن

হ’তে

from

مَّرْقَدِنَا

আমাদের ঘুমের স্হান”

our sleeping place?”

هَٰذَا

“এটাই

“This (is)

مَا

(তাই) যার

what

وَعَدَ

প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন

(had) promised

ٱلرَّحْمَٰنُ

দয়াময়

the Most Gracious

وَصَدَقَ

এবং সত্যই বলেছিলেন

and told (the) truth

ٱلْمُرْسَلُونَ

রাসূলগণ”

the Messengers”

(53)

إِن

না

Not

كَانَتْ

হবে

it will be

إِلَّا

এছাড়া

but

صَيْحَةً

মহাগর্জন

a shout

وَٰحِدَةً

একটি মাত্র

single

فَإِذَا

অতঃপর তখনই

so behold!

هُمْ

তাদের

They

جَمِيعٌ

সকলকেই

all

لَّدَيْنَا

আমাদের কাছে

before Us

مُحْضَرُونَ

উপস্থিত করা হবে

(will be) brought

(54)

فَٱلْيَوْمَ

অতঃপর (বলা হবে) আজ

So this Day

لَا

না

not

تُظْلَمُ

অবিচার করা হবে

will be wronged

نَفْسٌ

কাউকে

a soul

شَيْـًٔا

কিছুই

(in) anything

وَلَا

আর না

and not

تُجْزَوْنَ

প্রতিফল দেওয়া হবে

you will be recompensed

إِلَّا

এ ব্যতীত

except

مَا

যা

(for) what

كُنتُمْ

তোমরা

you used (to)

تَعْمَلُونَ

কাজ করতেছিলে

do

(55)

إِنَّ

নিশ্চয়ই

Indeed

أَصْحَٰبَ

অধিবাসীরা

(the) companions

ٱلْجَنَّةِ

জান্নাতের

(of) Paradise

ٱلْيَوْمَ

আজ

this Day

فِى

থাকবে

in

شُغُلٍ

(মজার) মগ্ন

will be occupied

فَٰكِهُونَ

আনন্দে

(in) amusement

(56)

هُمْ

তারা

They

وَأَزْوَٰجُهُمْ

ও তাদের স্ত্রীরা (হবে)

and their spouses

فِى

মধ্যে

in

ظِلَٰلٍ

ছায়ার

shades

عَلَى

উপর

on

ٱلْأَرَآئِكِ

সুসজ্জিত আসনে

[the] couches

مُتَّكِـُٔونَ

হেলান দিয়ে বসবে

reclining

(57)

لَهُمْ

তাদের জন্যে (থাকবে)

For them

فِيهَا

তার মধ্যে

therein

فَٰكِهَةٌ

ফলমূল

(are) fruits

وَلَهُم

ও তাদের জন্যে (থাকবে)

and for them

مَّا

যা

(is) whatever

يَدَّعُونَ

তারা চাইবে

they call for

(58)

سَلَٰمٌ

“সালাম”

“Peace”

قَوْلًا

বলা (হবে)

A word

مِّن

পক্ষ হ’তে

from

رَّبٍّ

রবের

a Lord

رَّحِيمٍ

(যিনি) পরম দয়ালু

Most Merciful

(59)

وَٱمْتَٰزُوا۟

“এবং (বলা হবে) তোমারা আলাদা হয়ে যাও

“But stand apart

ٱلْيَوْمَ

আজ

this Day

أَيُّهَا

হে

O criminals!

ٱلْمُجْرِمُونَ

অপরাধীরা

O criminals!

(60)

أَلَمْ

দিই নি কি

Did not

أَعْهَدْ

আমি নির্দেশ

I enjoin

إِلَيْكُمْ

তোমাদের প্রতি

upon you

يَٰبَنِىٓ

হে সন্তান

O Children of Adam!

ءَادَمَ

আদমের

O Children of Adam!

أَن

যে

That

لَّا

না

(do) not

تَعْبُدُوا۟

তোমরা দাসত্ব করো

worship

ٱلشَّيْطَٰنَ

শয়তানের

the Shaitaan

إِنَّهُۥ

সে নিশ্চয়ই

indeed, he

لَكُمْ

তোমাদের জন্যে

(is) for you

عَدُوٌّ

শত্রু

an enemy

مُّبِينٌ

প্রকাশ্য

clear

(61)

وَأَنِ

এবং (এও) যে

And that

ٱعْبُدُونِى

আমারই তোমরা ইবাদত করো

you worship Me?

هَٰذَا

এটাই

This

صِرَٰطٌ

পথ

(is) a Path

مُّسْتَقِيمٌ

সরল সঠিক

straight

(62)

وَلَقَدْ

এবং (এ সত্ত্বেও) নিশ্চয়ই

And indeed

أَضَلَّ

সে পথ ভ্রষ্ট করেছে

he led astray

مِنكُمْ

তোমাদের মধ্য হ’তে

from you

جِبِلًّا

বড় দলকে

a multitude

كَثِيرًا

অনেক

great

أَفَلَمْ

তবুও কি না

Then did not

تَكُونُوا۟

হবে

you

تَعْقِلُونَ

তোমরা বুঝতে

use reason?

(63)

هَٰذِهِۦ

এই সেই

This (is)

جَهَنَّمُ

জাহান্নাম

(the) Hell

ٱلَّتِى

যার

which

كُنتُمْ

তোমাদের

you were

تُوعَدُونَ

প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছিলো

promised

(64)

ٱصْلَوْهَا

তাতে তোমরা প্রবেশ করো

Burn therein

ٱلْيَوْمَ

আজ

this Day

بِمَا

বিনিময়ে যা

because

كُنتُمْ

তোমরা

you used (to)

تَكْفُرُونَ

অস্বীকার করছিলে”

disbelieve”

(65)

ٱلْيَوْمَ

আজ

This Day

نَخْتِمُ

সীল করে দিবো আমরা

We will seal

عَلَىٰٓ

উপর

on

أَفْوَٰهِهِمْ

তাদের মুখগুলোর

their mouths

وَتُكَلِّمُنَآ

এবং আমাদের সাথে কথা বলবে

and will speak to Us

أَيْدِيهِمْ

তাদের হাতগুলো

their hands

وَتَشْهَدُ

এবং সাক্ষ্য দিবে

and will bear witness

أَرْجُلُهُم

তাদের পাগুলো

their feet

بِمَا

ঐ বিষয়ে যা

about what

كَانُوا۟

করেছিলো

they used (to)

يَكْسِبُونَ

তারা কামাই

earn

(66)

وَلَوْ

এবং যদি

And if

نَشَآءُ

চাই আমরা

We willed

لَطَمَسْنَا

দিতে পারি অবশ্যই

We (would have) surely obliterated

عَلَىٰٓ

আমরা আলো নিভিয়ে

over

أَعْيُنِهِمْ

তাদের চোখের

their eyes

فَٱسْتَبَقُوا۟

তারা অতঃপর চলতে চাইতো

then they (would) race

ٱلصِّرَٰطَ

পথে

(to find) the path

فَأَنَّىٰ

তখন কেমন করে

then how

يُبْصِرُونَ

তারা দেখতে পাবে

(could) they see?

(67)

وَلَوْ

এবং যদি

And if

نَشَآءُ

চাই আমরা

We willed

لَمَسَخْنَٰهُمْ

তাদেরকে আমরা অবশ্যই বিকৃত করে দিতে পারি

surely We (would have) transformed them

عَلَىٰ

উপর

in

مَكَانَتِهِمْ

তাদের (নিজ নিজ) অবস্থানেই

their places

فَمَا

অতঃপর না

then not

ٱسْتَطَٰعُوا۟

তারা সমর্থ হবে

they would have been able

مُضِيًّا

আগে যেতে

to proceed

وَلَا

আর না

and not

يَرْجِعُونَ

পিছনে ফিরতে

return

Sura Yasin in Words Ruku ع [৪][4] >> [১][1] >> [২][2] >> [৩][3] >> [৫][5]

(68)

وَمَن

এবং কোনো ব্যক্তি

And (he) whom

نُّعَمِّرْهُ

যাকে দীর্ঘায়ু দিই আমরা

We grant him long life

نُنَكِّسْهُ

উল্টিয়ে দিই আমরা তার

We reverse him

فِى

মধ্যে

in

ٱلْخَلْقِ

আকৃতি-প্রকৃতির (বুদ্ধি ও যোগ্যতার)

the creation

أَفَلَا

তবুও কি না

Then will not

يَعْقِلُونَ

তারা জ্ঞানবুদ্ধি কাজে লাগায়

they use intellect?

(69)

وَمَا

এবং না

And not

عَلَّمْنَٰهُ

তাকে আমরা শিখিয়েছি

We taught him

ٱلشِّعْرَ

কবিতা

[the] poetry

وَمَا

আর না

and not

يَنۢبَغِى

শোভা পায় (এটা)

it is befitting

لَهُۥٓ

তার জন্যে

for him

إِنْ

না

Not

هُوَ

তা

it

إِلَّا

এছাড়া

(is) except

ذِكْرٌ

উপদেশ

a Reminder

وَقُرْءَانٌ

ও (পাঠযোগ্য কিতাব) কোরআন

and a Quran

مُّبِينٌ

সুস্পষ্ট

clear

(70)

لِّيُنذِرَ

সতর্ক করে যেন

To warn

مَن

(এমন প্রত্যেককে) যে

(him) who

كَانَ

হলো

is

حَيًّا

জীবিত

alive

وَيَحِقَّ

এবং প্রতিষ্ঠিত হতে পারে (যেন)

and may be proved true

ٱلْقَوْلُ

(শাস্তির) বাণী

the Word

عَلَى

বিরুদ্ধে

against

ٱلْكَٰفِرِينَ

কাফিরদের

the disbelievers

(71)

أَوَلَمْ

নি কি

Do not

يَرَوْا۟

তারা দেখে

they see

أَنَّا

যে আমরা

that We

خَلَقْنَا

আমরা সৃষ্টি করেছি

[We] created

لَهُم

তাদের জন্যে

for them

مِّمَّا

সেসব থেকে যা

from what

عَمِلَتْ

সৃষ্টি করেছে

have made

أَيْدِينَآ

আমাদের হাতগুলো

Our hands

أَنْعَٰمًا

(যেমন) গবাদি পশু

cattle

فَهُمْ

এখন তারাই

then they

لَهَا

সেগুলোর

for them

مَٰلِكُونَ

মালিক

(are the) owners?

(72)

وَذَلَّلْنَٰهَا

এবং সেগুলোকে আমরা বশীভূত করেছি

And We have tamed them

لَهُمْ

তাদের জন্যে

for them

فَمِنْهَا

অতঃপর (রয়েছে) সেগুলোর কিছু কিছু

so some of them –

رَكُوبُهُمْ

তাদের বাহনও (যেমন উট)

they ride them

وَمِنْهَا

এবং সেগুলোর কিছু কিছু

and some of them

يَأْكُلُونَ

তারা আহারও করে

they eat

(73)

وَلَهُمْ

এবং তাদের জন্যে রয়েছে

And for them

فِيهَا

সেগুলোর মধ্যে

therein

مَنَٰفِعُ

(নানা রকম) উপকার

(are) benefits

وَمَشَارِبُ

এবং (নানা প্রকার) পানীয়

and drinks

أَفَلَا

তবুও কি না

so (will) not

يَشْكُرُونَ

তারা কৃতজ্ঞ হবে

they give thanks?

(74)

وَٱتَّخَذُوا۟

এবং (এ সত্ত্বেও) তারা গ্রহণ করেছে

But they have taken

مِن

মধ্য হতে

besides

دُونِ

ছাড়া

besides

ٱللَّهِ

আল্লাহ

Allah

ءَالِهَةً

উপাস্যরূপে (অন্যদেরকে)

gods

لَّعَلَّهُمْ

তারা যাতে

that they may

يُنصَرُونَ

তারা সাহায্য পাবে

be helped

(75)

لَا

না

Not

يَسْتَطِيعُونَ

তারা সমর্থ হবে

they are able

نَصْرَهُمْ

তাদের সাহায্য করতে

to help them

وَهُمْ

বরং তারাই (হয়ে আছে)

but they –

لَهُمْ

তাদের জন্যে

for them

جُندٌ

সৈন্য (রক্ষাকারী রূপে)

(are) host(s)

مُّحْضَرُونَ

সদা উপস্থিত

(who will) be brought

(76)

فَلَا

কাজেই না (যেন)

So (let) not

يَحْزُنكَ

তোমাকে দুঃখ দেয়

grieve you

قَوْلُهُمْ

তাদের কথা

their speech

إِنَّا

আমরা নিশ্চয়ই

Indeed We

نَعْلَمُ

জানি আমরা

[We] know

مَا

যা

what

يُسِرُّونَ

তারা গোপন করে

they conceal

وَمَا

আর যা

and what

يُعْلِنُونَ

তারা প্রকাশ করে

they declare

(77)

أَوَلَمْ

নি কি

Does not

يَرَ

দেখে

see

ٱلْإِنسَٰنُ

মানুষ

[the] man

أَنَّا

যে আমরা

that We

خَلَقْنَٰهُ

তাকে আমরা সৃষ্টি করেছি

[We] created him

مِن

থেকে

from

نُّطْفَةٍ

শুক্রবিন্দু

a sperm-drop

فَإِذَا

অথচ পরে

Then behold!

هُوَ

সে (হয়েছে)

He

خَصِيمٌ

ঝগড়াটে

(is) an opponent

مُّبِينٌ

প্রকাশ্য

clear

(78)

وَضَرَبَ

এবং পেশ করে

And he sets forth

لَنَا

আমাদের জন্যে

for Us

مَثَلًا

উপমা

an example

وَنَسِىَ

অথচ সে ভুলে যায়

and forgets

خَلْقَهُۥ

তার সৃষ্টিকে

his (own) creation

قَالَ

সে বলে

He says

مَن

“কে

“Who

يُحْىِ

প্রাণ দিবে

will give life

ٱلْعِظَٰمَ

হাড়ে

(to) the bones

وَهِىَ

যখন তা (হয়ে যাবে)

while they

رَمِيمٌ

পচাগলা জরাজীর্ণ”

(are) decomposed?”

(79)

قُلْ

বলো (তাদেরকে)

Say

يُحْيِيهَا

“তাতে প্রাণ দিবেন

“He will give them life

ٱلَّذِىٓ

(তিনিই) যিনি

Who

أَنشَأَهَآ

তা সৃষ্টি করেছেন

produced them

أَوَّلَ

প্রথম

(the) first

مَرَّةٍ

বার

time;

وَهُوَ

এবং তিনি

and He

بِكُلِّ

সম্পর্কে সবকিছু

(is) of every

خَلْقٍ

(তাঁর) সৃষ্টির

creation

عَلِيمٌ

সম্যক অবগত”

All-Knower”

(80)

ٱلَّذِى

যিনি

The One Who

جَعَلَ

সৃষ্টি করেছেন

made

لَكُم

তোমাদের জন্যে

for you

مِّنَ

থেকে

from

ٱلشَّجَرِ

গাছ

the tree

ٱلْأَخْضَرِ

সবুজ

[the] green

نَارًا

আগুন

fire

فَإِذَآ

অতঃপর

and behold!

أَنتُم

তোমরা

You

مِّنْهُ

তা থেকে

from it

تُوقِدُونَ

আগুন জ্বালো

ignite

(81)

أَوَلَيْسَ

নন কি (সেই আল্লাহ)

Is it not

ٱلَّذِى

যিনি

(He) Who

خَلَقَ

সৃষ্টি করেছেন

created

ٱلسَّمَٰوَٰتِ

আকাশ সমূহ

the heavens

وَٱلْأَرْضَ

ও পৃথিবীকে

and the earth

بِقَٰدِرٍ

সক্ষম

Able

عَلَىٰٓ

এক্ষেত্রে

to

أَن

যে

that

يَخْلُقَ

সৃষ্টি করবেন

create

مِثْلَهُم

তাদের মতো

(the) like of them

بَلَىٰ

হ্যাঁ নিশ্চয়ই

Yes indeed!

وَهُوَ

এবং তিনিই

and He

ٱلْخَلَّٰقُ

মহাস্রষ্টা

(is) the Supreme Creator

ٱلْعَلِيمُ

সর্বজ্ঞ

the All-Knower

(82)

إِنَّمَآ

কেবল

Only

أَمْرُهُۥٓ

তাঁর নির্দেশ হয়

His Command

إِذَآ

যখন

when

أَرَادَ

ইচ্ছে করেন

He intends

شَيْـًٔا

কিছু (করতে)

a thing

أَن

যে

that

يَقُولَ

বলেন

He says

لَهُۥ

তাকে

to it

كُن

“হও”

“Be”

فَيَكُونُ

তখনই হয়ে যায়

and it is

(83)

فَسُبْحَٰنَ

অতএব মহান পবিত্র

So glorified be

ٱلَّذِى

(সেই সত্ত্বা) তিনিই

(He) Who

بِيَدِهِۦ

যার হাতে (আছে)

in Whose hand

مَلَكُوتُ

সার্বভৌম ক্ষমতা

is (the) dominion

كُلِّ

সব

(of) all

شَىْءٍ

জিনিসের

things

وَإِلَيْهِ

এবং তাঁরই দিকে

and to Him

تُرْجَعُونَ

তোমাদেরকে ফিরিয়ে নেয়া হবে

you will be returned

Sura Yasin in Words Ruku ع [৫][5] >> [১][1] >> [২][2] >> [৩][3] >> [৪][4]

সুরা ফাতির << সুরা ইয়াসিন >> সুরা সাফফাত

By Quran Sharif

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Leave a Reply