নতুন লেখা

সুরা ফাজর বাংলা তরজমা Sura Al Fajr in Words & Audio

সুরা ফাজর বাংলা তরজমা Sura Al Fajr in Words & Audio

সুরা ফাজর >> ১১৪ টি সূরার সূচীপত্র ও লিস্ট >> ২০ টির অধিক তাফসীর কিতাব পড়ুন

৮৯ – সুরা ফাজর – আয়াত : ৩০, মাক্কী, রুকু ১

সুরা ফাজর Sura Al Fajr mp3 Download

পরম করুণাময় অতি দয়ালু আল্লাহর নামেبِسۡمِ ٱللَّهِ ٱلرَّحۡمَٰنِ ٱلرَّحِيمِ
(1) কসম ভোরবেলার।وَٱلۡفَجۡرِ ١
(2) কসম দশ রাতের।وَلَيَالٍ عَشۡرٖ ٢
(3) কসম জোড় ও বিজোড়ের।وَٱلشَّفۡعِ وَٱلۡوَتۡرِ ٣
(4) কসম রাতের, যখন তা বিদায় নেয়।وَٱلَّيۡلِ إِذَا يَسۡرِ ٤
(5) এর মধ্যে কি বোধশক্তিসম্পন্ন ব্যক্তির জন্য কসম আছে?هَلۡ فِي ذَٰلِكَ قَسَمٞ لِّذِي حِجۡرٍ ٥
(6) তুমি কি দেখনি তোমার রব কিরূপ আচরণ করেছেন ‘আদ জাতির সাথে?أَلَمۡ تَرَ كَيۡفَ فَعَلَ رَبُّكَ بِعَادٍ ٦
(7) ইরাম গোত্রের সাথে, যারা ছিল সুউচ্চ স্তম্ভের অধিকারী?إِرَمَ ذَاتِ ٱلۡعِمَادِ ٧
(8) যার সমতুল্য কোন দেশে সৃষ্টি করা হয়নি।ٱلَّتِي لَمۡ يُخۡلَقۡ مِثۡلُهَا فِي ٱلۡبِلَٰدِ ٨
(9) আর সামূদ সম্প্রদায়, যারা উপত্যকায় পাথর কেটে বাড়ি ঘর নির্মাণ করেছিল?وَثَمُودَ ٱلَّذِينَ جَابُواْ ٱلصَّخۡرَ بِٱلۡوَادِ ٩
(10) আর ফির‘আউন, সেনাছাউনীর অধিপতি?وَفِرۡعَوۡنَ ذِي ٱلۡأَوۡتَادِ ١٠
(11) যারা সকল দেশে সীমা ছাড়িয়ে গিয়েছিল।ٱلَّذِينَ طَغَوۡاْ فِي ٱلۡبِلَٰدِ ١١
(12) অতঃপর তারা সেখানে বিপর্যয় বাড়িয়ে দিয়েছিল।فَأَكۡثَرُواْ فِيهَا ٱلۡفَسَادَ ١٢
(13) ফলে তোমার রব তাদের উপর আযাবের কশাঘাত মারলেন।فَصَبَّ عَلَيۡهِمۡ رَبُّكَ سَوۡطَ عَذَابٍ ١٣
(14) নিশ্চয় তোমার রব ঘাঁটিতেই[1]إِنَّ رَبَّكَ لَبِٱلۡمِرۡصَادِ ١٤
(15) আর মানুষ তো এমন যে, যখন তার রব তাকে পরীক্ষা করেন, অতঃপর তাকে সম্মান দান করেন এবং অনুগ্রহ প্রদান করেন, তখন সে বলে, ‘আমার রব আমাকে সম্মানিত করেছেন।فَأَمَّا ٱلۡإِنسَٰنُ إِذَا مَا ٱبۡتَلَىٰهُ رَبُّهُۥ فَأَكۡرَمَهُۥ وَنَعَّمَهُۥ فَيَقُولُ رَبِّيٓ أَكۡرَمَنِ ١٥
(16) আর যখন তিনি তাকে পরীক্ষা করেন এবং তার উপর তার রিযিককে সঙ্কুচিত করে দেন, তখন সে বলে, ‘আমার রব আমাকে অপমানিত করেছেন’।وَأَمَّآ إِذَا مَا ٱبۡتَلَىٰهُ فَقَدَرَ عَلَيۡهِ رِزۡقَهُۥ فَيَقُولُ رَبِّيٓ أَهَٰنَنِ ١٦
(17) কখনো নয়, বরং তোমরা ইয়াতীমদের দয়া- অনুগ্রহ প্রদর্শন কর না।كَلَّاۖ بَل لَّا تُكۡرِمُونَ ٱلۡيَتِيمَ ١٧
(18) আর তোমরা মিসকীনদের খাদ্যদানে পরস্পরকে উৎসাহিত কর না।وَلَا تَحَٰٓضُّونَ عَلَىٰ طَعَامِ ٱلۡمِسۡكِينِ ١٨
(19) আর তোমরা উত্তরাধিকারের সম্পত্তি সম্পূর্ণরূপে ভক্ষণ কর।وَتَأۡكُلُونَ ٱلتُّرَاثَ أَكۡلٗا لَّمّٗا ١٩
(20) আর তোমরা ধন-সম্পদকে অতিশয় ভালবাস।وَتُحِبُّونَ ٱلۡمَالَ حُبّٗا جَمّٗا ٢٠
(21) কখনো নয়, যখন যমীনকে চূর্ণ-বিচূর্ণ করা হবে পরিপূর্ণভাবে।كَلَّآۖ إِذَا دُكَّتِ ٱلۡأَرۡضُ دَكّٗا دَكّٗا ٢١
(22) আর তোমার রব ও ফেরেশতাগণ উপস্থিত হবেন সারিবদ্ধভাবে।وَجَآءَ رَبُّكَ وَٱلۡمَلَكُ صَفّٗا صَفّٗا ٢٢
(23) আর সেদিন জাহান্নামকে উপস্থিত করা হবে, সেদিন মানুষ স্মরণ করবে, কিন্তু সেই স্মরণ তার কী উপকারে আসবে?وَجِاْيٓءَ يَوۡمَئِذِۢ بِجَهَنَّمَۚ يَوۡمَئِذٖ يَتَذَكَّرُ ٱلۡإِنسَٰنُ وَأَنَّىٰ لَهُ ٱلذِّكۡرَىٰ ٢٣
(24) সে বলবে, ‘হায়! যদি আমি কিছু আগে পাঠাতাম আমার এ জীবনের জন্য’!يَقُولُ يَٰلَيۡتَنِي قَدَّمۡتُ لِحَيَاتِي ٢٤
(25) অতঃপর সেদিন তাঁর আযাবের মত আযাব কেউ দিতে পারবে না।فَيَوۡمَئِذٖ لَّا يُعَذِّبُ عَذَابَهُۥٓ أَحَدٞ ٢٥
(26) আর কেউ তাঁর বাঁধার মত বাঁধতে পারবে না।وَلَا يُوثِقُ وَثَاقَهُۥٓ أَحَدٞ ٢٦
(27) হে প্রশান্ত আত্মা!يَٰٓأَيَّتُهَا ٱلنَّفۡسُ ٱلۡمُطۡمَئِنَّةُ ٢٧
(28) তুমি ফিরে এসো তোমার রবের প্রতি সন্তুষ্টচিত্তে, সন্তোষভাজন হয়ে।ٱرۡجِعِيٓ إِلَىٰ رَبِّكِ رَاضِيَةٗ مَّرۡضِيَّةٗ ٢٨
(29) অতঃপর আমার বান্দাদের মধ্যে শামিল হয়ে যাও।فَٱدۡخُلِي فِي عِبَٰدِي ٢٩
(30) আর প্রবেশ কর আমার জান্নাতে।وَٱدۡخُلِي جَنَّتِي ٣٠
সুরা ফাজরع রুকু

hgghg

(1)

وَٱلْفَجْرِ

শপথ ঊষার

By the dawn

(2)

وَلَيَالٍ

শপথ রাতের

And the nights

عَشْرٍ

দশ

ten

(3)

وَٱلشَّفْعِ

শপথ জোড়ের

And the even

وَٱلْوَتْرِ

ও বেজোড়ের

and the odd

(4)

وَٱلَّيْلِ

শপথ রাতের

And the night

إِذَا

যখন

when

يَسْرِ

তা যেতে থাকে

it passes

(5)

هَلْ

কি

Is

فِى

মধ্যে (আছে)

in

ذَٰلِكَ

এর

that

قَسَمٌ

কোনো শপথ (কোনো প্রমাণ)

an oath

لِّذِى

সম্পন্ন ব্যক্তির জন্য

for those

حِجْرٍ

বোধশক্তি

who understand?

(6)

أَلَمْ

নি কি

Do not

تَرَ

তুমি দেখ

you see

كَيْفَ

কেমন

how

فَعَلَ

করেছেন

dealt

رَبُّكَ

তোমার রব

your Lord

بِعَادٍ

আ’দ বংশের সাথে

with Aad

(7)

إِرَمَ

ইরাম গোত্রের (প্রতি)

Iram

ذَاتِ

অধিকারী (ছিল)

possessors (of)

ٱلْعِمَادِ

সুউচ্চ প্রাসাদের

lofty pillars

(8)

ٱلَّتِى

যা (এমন ছিল যে)

Which

لَمْ

নি

not

يُخْلَقْ

নির্মিত হয়

had been created

مِثْلُهَا

তার সমতুল্য (কোন জাতি)

like them

فِى

হতে

in

ٱلْبِلَٰدِ

দেশ সমূহে

the cities

(9)

وَثَمُودَ

এবং (কেমন করেছেন সামূদদের সাথে)

And Thamud

ٱلَّذِينَ

যারা

who

جَابُوا۟

কেটেছিল

carved out

ٱلصَّخْرَ

পাথর (ভূমি সমূহ)

the rocks

بِٱلْوَادِ

উপত্যকার

in the valley

(10)

وَفِرْعَوْنَ

এবং (কেমন করেছেন) ফিরআউনের সাথে

And Firaun

ذِى

(যে ছিল) অধিপতি

owner of

ٱلْأَوْتَادِ

কীলকসমূহের (সৈন্য শিবিরের)

stakes?

(11)

ٱلَّذِينَ

যারা

Who

طَغَوْا۟

সীমালঙ্ঘন করেছিলো

transgressed

فِى

মধ্যে

in

ٱلْبِلَٰدِ

(বিভিন্ন) দেশে

the lands

(12)

فَأَكْثَرُوا۟

আর বৃদ্ধি করেছিল

And made much

فِيهَا

তার মধ্যে

therein

ٱلْفَسَادَ

বিপর্যয়/ অশান্তি

corruption

(13)

فَصَبَّ

তারপর আঘাত করলেন

So poured

عَلَيْهِمْ

তাদের উপর

on them

رَبُّكَ

তোমার রব

your Lord

سَوْطَ

চাবুকের

scourge

عَذَابٍ

শাস্তির

(of) punishment

(14)

إِنَّ

নিশ্চয়ই

Indeed

رَبَّكَ

তোমার রব

your Lord

لَبِٱلْمِرْصَادِ

অবশ্যই (ধরবেন) ঘাঁটিতে

(is) surely Ever Watchful

(15)

فَأَمَّا

অতঃপর ব্যাপার হলো

And as for

ٱلْإِنسَٰنُ

মানুষের

man

إِذَا

যখন

when

مَا

তাকে

does

ٱبْتَلَىٰهُ

পরীক্ষা করেন

try him

رَبُّهُۥ

তার রব

his Lord

فَأَكْرَمَهُۥ

তাকে সম্মান দেন

and is generous to him

وَنَعَّمَهُۥ

ও তাকে অনুগ্রহ করেন

and favors him

فَيَقُولُ

তখন সে বলে

he says

رَبِّىٓ

“আমার রব

“My Lord

أَكْرَمَنِ

আমাকে সম্মানিত করেছেন”

has honored me”

(16)

وَأَمَّآ

আর

But

إِذَا

যখন

when

مَا

তাকে

does

ٱبْتَلَىٰهُ

পরীক্ষা করেন

He try him

فَقَدَرَ

সংকীর্ণ করেন

and restricts

عَلَيْهِ

তার উপর

for him

رِزْقَهُۥ

তার রিযক

his provision

فَيَقُولُ

তখন সে বলে

then he says

رَبِّىٓ

“আমার রব

“My Lord

أَهَٰنَنِ

আমাকে হেয় করেছেন”

(has) humiliated me”

(17)

كَلَّا

কখনও না

Nay!

بَل

বরং

But

لَّا

না

not

تُكْرِمُونَ

তোমরা সম্মান করো

you honor

ٱلْيَتِيمَ

ইয়াতীমের

the orphan

(18)

وَلَا

এবং না

And not

تَحَٰٓضُّونَ

তোমরা পরস্পরকে উৎসাহিত করো

you feel the urge

عَلَىٰ

জন্য

to

طَعَامِ

খাদ্য দানের

feed

ٱلْمِسْكِينِ

অভাবগ্রস্তদের

the poor

(19)

وَتَأْكُلُونَ

এবং তোমরা খাও

And you consume

ٱلتُّرَاثَ

উত্তরাধিকারীদের প্রাপ্য সম্পদ

the inheritance

أَكْلًا

খাওয়া

devouring

لَّمًّا

সম্পূর্ণরূপে

altogether

(20)

وَتُحِبُّونَ

এবং তোমরা ভালোবাস

And you love

ٱلْمَالَ

ধনসম্পদ

wealth

حُبًّا

ভালোবাসা

(with) love

جَمًّا

খুব বেশি

exceeding

(21)

كَلَّآ

কখনও নয়

Nay!

إِذَا

যখন

When

دُكَّتِ

চূর্ণবিচূর্ণ করা হবে

is leveled

ٱلْأَرْضُ

পৃথিবী

the earth

دَكًّا

চূর্ণ

pounded

دَكًّا

বিচূর্ণ

(and) crushed

(22)

وَجَآءَ

এবং আসবেন

And comes

رَبُّكَ

তোমার রব

your Lord

وَٱلْمَلَكُ

ও ফেরেশতারা

and the Angels

صَفًّا

সারি

rank

صَفًّا

সারি

(upon) rank

(23)

وَجِا۟ىٓءَ

এবং আনা হবে

And is brought

يَوْمَئِذٍۭ

সেদিন

that Day

بِجَهَنَّمَ

জাহান্নামকে (সর্বসমক্ষে)

Hell

يَوْمَئِذٍ

সেদিন

That Day

يَتَذَكَّرُ

স্মরণ করবে

will remember

ٱلْإِنسَٰنُ

মানুষ

man

وَأَنَّىٰ

আর কোথায়

but how

لَهُ

তার জন্য

(will be) for him

ٱلذِّكْرَىٰ

এ স্মরণ (লাভজনক হবে)

the remembrance?

(24)

يَقُولُ

সে বলবে

He will say

يَٰلَيْتَنِى

“হায় আমার আফসোস

“O! I wish!

قَدَّمْتُ

আমি আগে পাঠাতাম (যদি)

I had sent forth

لِحَيَاتِى

আমার এ জীবনের জন্য (কিছু নেকী)”

for my life”

(25)

فَيَوْمَئِذٍ

অতঃপর সেদিন

So that Day

لَّا

না

not

يُعَذِّبُ

শাস্তি দিতে পারবে

will punish

عَذَابَهُۥٓ

তাঁর শাস্তির মতো

(as) His punishment

أَحَدٌ

(অন্য) কেউ

anyone

(26)

وَلَا

এবং না

And not

يُوثِقُ

বাঁধতে পারবে

will bind

وَثَاقَهُۥٓ

তাঁর বাঁধনের (মতো)

(as) His binding

أَحَدٌ

(অন্য) কেউ

anyone

(27)

يَٰٓأَيَّتُهَا

“(বলা হবে) হে

“O

ٱلنَّفْسُ

আত্মা

soul!

ٱلْمُطْمَئِنَّةُ

প্রশান্ত

who is satisfied

(28)

ٱرْجِعِىٓ

তুমি ফিরে আস

Return

إِلَىٰ

দিকে

to

رَبِّكِ

তোমার রবের (এ অবস্থায় যে)

your Lord

رَاضِيَةً

(তুমি) সন্তুষ্ট

well pleased

مَّرْضِيَّةً

প্রিয় পাত্রও (তাঁর নিকট)

and pleasing

(29)

فَٱدْخُلِى

অতঃপর শামিল হও

So enter

فِى

মধ্যে

among

عِبَٰدِى

আমার (নেক) বান্দাদের/ দাসদের

My slaves

(30)

وَٱدْخُلِى

এবং তুমি প্রবেশ করো

And enter

جَنَّتِى

আমার জান্নাতে”

My Paradise”

[1] مرصاد অর্থ ঘাঁটি, যেখানে কোন লোক তার শত্রুর অজান্তে তার অপেক্ষায় ওঁত পেতে থাকে এবং শত্রুকে বাগে পেয়েই আক্রমণ করে। এখানে আল্লাহর ক্ষেত্রে শব্দটি সতর্ক দৃষ্টি রাখা, অর্থে ব্যবহৃত হয়েছে।

৮৮সুরা গাশিয়াহ<< সুরা ফাজর >> ৯০ সুরা বা’লাদ

About halalbajar.com

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Check Also

তাফহিমুল কুরআন তাফসীর ১৩ খ.- সুরা ইয়াসিন, সাফফাত, সাদ, জুমার, মুমিন

তাফহিমুল কুরআন তাফসীর ১৩ খন্ড – সুরা ইয়াসিন, সাফফাত, সাদ, জুমার, মুমিন তাফহিমুল কুরআন তাফসীর …

Leave a Reply

%d bloggers like this: