সুনানে তিরমিযি pdf – অধ্যায় জিহাদের ফযিলত

সুনানে তিরমিযি pdf – অধ্যায় জিহাদের ফযিলত

সুনানে তিরমিযি pdf – অধ্যায় জিহাদের ফযিলত >> সুনান তিরমিজি শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন

অধ্যায়-২০ঃ জিহাদের ফযিলত, অনুচ্ছেদঃ (১-২৬)=২৬টি

১. অনুচ্ছেদঃ জিহাদের ফযিলত
২. অনুচ্ছেদঃ পাহারা প্রদানরত অবস্থায় মৃত্যুর সাওয়াব
৩. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্‌ তাআলার পথে রোযা আদায়ের সাওয়াব
৪. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্‌ তাআলার রাস্তায় ব্যয় করার সাওয়াব
৫. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্‌ তাআলার রাস্তায় সেবাদানের সাওয়াব
৬. অনুচ্ছেদঃ সৈনিকের অস্ত্র ও রসদপত্রের যোগানদারের সাওয়াব
৭. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায় যে লোকের পদদ্বয় ধুলি-মলিন হয় তার মর্যাদা
৮. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায় ধুলি-মলিন হওয়ার সাওয়াব
৯. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায় যে লোক বুড়ো হয়েছে তার সাওয়াব
১০. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায় যে ব্যক্তি ঘোড়া লালন-পালন করে তার সাওয়াব
১১. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায় তীর ছুড়ার সাওয়াব
১২. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্‌ তাআলার রাস্তায় পাহারাদানের সাওয়াব
১৩. অনুচ্ছেদঃ শহীদদের সাওয়াব সম্বন্ধে
১৪. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ তাআলার নিকটে শহীদদের মর্যাদা
১৫. অনুচ্ছেদঃ নৌযুদ্ধ প্রসঙ্গে
১৬. অনুচ্ছেদঃ লোক দেখানো বা পার্থিব স্বার্থে যে লোক যুদ্ধ করে
১৭. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্ তাআলার পথে এক সকাল ও এক বিকাল ব্যয় করার সাওয়াব
১৮. অনুচ্ছেদঃ কে উত্তম লোক
১৯. অনুচ্ছেদঃ যে লোক [আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায়] শাহাদাতের প্রার্থনা করে
২০. অনুচ্ছেদঃ মুজাহিদ, মুকাতাব গোলাম ও বিবাহ ইচ্ছুক ব্যক্তির প্রতি আল্লাহ্ তাআলার সাহায্য
২১. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্ তাআলার পথে আহত ব্যক্তির মর্যাদা
২২. অনুচ্ছেদঃ সবচাইতে মর্যাদাপূর্ণ কাজ কোনটি?
২৩. অনুচ্ছেদঃ তলোয়ারের ছায়াতলে জান্নাতের দরজা
২৪. অনুচ্ছেদঃ কোন ধরনের মানুষ সবচাইতে উত্তম?
২৫. অনুচ্ছেদঃ শহীদের সাওয়াব
২৬. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্ তাআলার পথে পাহারাদানের সাওয়াব

১. অনুচ্ছেদঃ জিহাদের ফযিলত

১৬১৯. আবু হুরাইরা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, প্রশ্ন করা হল, হে আল্লাহ্‌র রাসূল! কোন কাজ জিহাদের সমতুল্য হইতে পারে? তিনি বললেনঃ তোমরা তা করিতে পারবে না। তারা দুই অথবা তিনবার একই প্রশ্ন করিল। প্রতি বারই তিনি বলিলেন, তোমরা তা করিতে পারবে না। তৃতীয় বারে তিনি বললেনঃ আল্লাহ্‌ তাআলার রাস্তায় জিহাদকারী লোকের সাথে এমন লোকের তুলনা হইতে পারে যে লোক অক্লান্তভাবে নামাজ-রোযায় ব্যস্ত থাকে যতক্ষণ না আল্লাহ্‌ তাআলার পথের মুজাহিদ ফিরে না আসে।

সহিহ, সহীহা [২৮৯৬], মুসলিম. শিফাআ, আবদুল্লাহ ইবনি হুবশী, আবু মূসা, আবু সাঈদ, উম্মু মালিক আল-বাহ্‌যিয়্যা ও আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] হইতেও এ অনুচ্ছেদে হাদীস বর্ণিত আছে । এ হাদীসটি হাসান সহীহ্‌ । এটা আবু হুরাইরা [রাদি.] এর বরাতে নাবী [সাঃআঃ] হইতে বিভিন্ন সূত্রে বর্ণিত হয়েছে । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৬২০. আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ অর্থাৎ আল্লাহ্‌ তাআলা বলেনঃ আমার পথে জিহাদকারীর জন্য আমি নিজেই যামিন। আমি তার জীবনটা নিয়ে নিলে তবে তাকে জান্নাতের উত্তরাধিকারী বানিয়ে দেই। আমি তাকে [যুদ্ধক্ষেত্র হইতে] ফিরিয়ে আনলে তবে তাকে ছাওয়াব বা গানীমাতসহ ফিরিয়ে আনি।

সহীহ্‌, তালীকুর রাগীব [২/১৭৮] এ হাদীসটিকে আবু ঈসা উল্লেখিত সনদসূত্রে সহীহ্‌ গারীব বলেছেন । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

২. অনুচ্ছেদঃ পাহারা প্রদানরত অবস্থায় মৃত্যুর সাওয়াব

১৬২১. ফাযালা ইবনি উবাইদ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ প্রত্যেক মৃত ব্যক্তির সকল প্রকার কাজের উপর সীলমোহর করে দেওয়া হয় [কাজের পরিসমাপ্তি ঘটে]। কিন্তু আল্লাহ্‌ তাআলার রাস্তায় পাহারাদানরত অবস্থায় যে লোক মৃত্যুবরণ করে কিয়ামাত পর্যন্ত তার কর্মের সাওয়াব বাড়ানো হইতে থাকে এবং তিনি কবরের সকল ফিতনা হইতে নিরাপদে থাকেন। আমি রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] কে বলিতে শুনেছিঃ যে লোক নিজের প্রবৃত্তির বিরুদ্ধে জিহাদ করে সে-ই আসল মুজাহিদ।

সহীহ্‌, মিশকাত তাহকীক ছানী [৩৪] এবং [৩৮২৩], তালীকুর রাগীব [২/১৫০], সহীহা [৫৪৯], সহীহ্‌ আবু দাঊদ [১২৫৮] আবু ঈসা বলেন, উকবা ইবনি আমির ও জাবির [রাদি.] হইতেও এ অনুচ্ছেদে হাদীস বর্ণিত আছে । ফাযালা [রাদি.] হইতে বর্ণিত হাদীসটি হাসান সহীহ্‌ । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

৩. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্‌ তাআলার পথে রোযা আদায়ের সাওয়াব

১৬২২. আবু হুরাইরা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যে লোক একদিন আল্লাহ্‌ তাআলার পথে রোযা আদায় করে আল্লাহ্‌ তাআলা তাকে জাহান্নাম হইতে সত্তর বছরের [পথের] দূরত্বে রাখবেন। [উরওয়া ও সুলাইমানের] একজনের বর্ণনায় সত্তর বছর এবং অপরজনের বর্ণনায় চল্লিশ বছর উল্লেখ আছে।

প্রথম শব্দে [অর্থাৎ সত্তর বছর] হাদীসটি সহীহ্‌, তালীকুর রাগীব [২/৬২] এ হাদীসটিকে আবু ঈসা উল্লেখিত সনদসূত্রে গারীব বলেছেন । আবুল আসওয়াদের নাম মুহাম্মাদ, বাবা আবদুর রাহমান, দাদা নাওফাল আল-আসাদী আল-মাদানী । আবু সাঈদ, আনাস, উকবা ইবনি আমির ও আবু উমামা [রাদি.] হইতেও এ অনুচ্ছেদে হাদীস বর্ণিত আছে । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৬২৩,আবু সাঈদ আল-খুদরী [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ কোন মানুষ যদি একদিন আল্লাহ্‌ তাআলার রাস্তায় রোযা আদায় করে তাহলে সেই দিনটি তার চেহারা হইতে জাহান্নামকে সত্তর বছরের দূরত্বে সরিয়ে দেয়।

সহীহ্‌, ইবনি মা-জাহ [১৭১৭], নাসা-ঈ, এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান সহীহ্‌ বলেছেন । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৬২৪. আবু উমামা আল-বাহিলী [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ কোন লোক যদি একদিন আল্লাহ্‌ তাআলার রাস্তায় রোযা আদায় করে তাহলে আল্লাহ্‌ তাআলা তার ও জাহান্নামের মাঝখানে আকাশ ও যমীনের মাঝখানের দূরত্বের সমতুল্য একটি পরিখা সৃষ্টি করে দিবেন।

হাসান সহীহ্‌, সহীহা [৫৬৩] আবু উমামার হাদীস হিসেবে এ হাদীসটি গারীব। সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ হাসান সহীহ

৪. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্‌ তাআলার রাস্তায় ব্যয় করার সাওয়াব

১৬২৫. খুরাইম ইবনি ফাতিক [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যে ব্যক্তি আল্লাহ্‌ তাআলার রাস্তায় কিছু ব্যয় করে [এর বিনিময়ে] তার জন্য সাতশত গুণ সাওয়াব লেখা হয়।

সহীহ্‌, মিশকাত [৩৮২৬], তালীকুর রাগীব [২/১৫৬], আবু ঈসা বলেন, আবু হুরাইরা [রাদি.] হইতেও এ অনুচ্ছেদে হাদীস বর্ণিত আছে । এ হাদীসটি হাসান । আমরা এ হাদীস শুধুমাত্র আর-রুকাইন ইবনির রাবীর সূত্রেই জেনেছি । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

৫. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্‌ তাআলার রাস্তায় সেবাদানের সাওয়াব

১৬২৬. আদী ইবনি হাতিম তাঈ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে প্রশ্ন করেন, কোন রকমের দান-খাইরাত বেশি উত্তম? তিনি বললেনঃ আল্লাহ্‌ তাআলার রাস্তায় সেবার উদ্দেশ্যে গোলাম দান করা, অথবা ছায়ার ব্যবস্থা করার জন্য তাঁবু দান করা বা আল্লাহ্‌র রাস্তায় জাওয়ান উষ্ট্রী দান করা।

হাসান, তালীকুর রাগীব [২/১৫৮] আবু ঈসা বলেন, এ হাদীসটি মুআবিয়া ইবনি আবু সালিহের সূত্রে মুরসাল হিসেবে বর্ণিত হয়েছে । যাইদ তার কোন কোন সনদে গড়মিল করিয়াছেন । যিয়াদ ইবনি আইয়্যূব আমাদের নিকট বর্ণনা করিয়াছেন যে, হাদীসটি “ওয়ালীদ ইবনি জামীল বর্ণনা করিয়াছেন আবু আবদুর রাহমান আল-কাসিম হইতে, তিনি আবু উমামা হইতে, তিনি নাবী [সাঃআঃ] হইতে । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ হাসান হাদীস

১৬২৭. আবু উমামা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ উত্তম সাদকা হচ্ছে, আল্লাহ্‌ তাআলার রাস্তায় ছায়া সৃষ্টির জন্যে তাঁবু দান করা, আল্লাহ্‌ তাআলার রাস্তায় সেবার উদ্দেশ্যে গোলাম দান করা অথবা আল্লাহ্‌ তাআলার রাস্তায় জাওয়ান উষ্ট্রী দান করা।

হাসান, দেখুন পূর্বের হাদীস, এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান সহীহ্‌ গারীব বলেছেন । আমার মতে এই বর্ণনাটি মুআবিয়া ইবনি সালিহের বর্ণনার চাইতে অনেক বেশি সহীহ্‌ । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ হাসান হাদীস

৬. অনুচ্ছেদঃ সৈনিকের অস্ত্র ও রসদপত্রের যোগানদারের সাওয়াব

১৬২৮. যাইদ ইবনি খালিদ আল-জুহানী [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যে মানুষ আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায় জিহাদকারী কোন যোদ্ধার যুদ্ধে যাওয়ার সকল সাজ-সরঞ্জামের যোগাড় করিল সে যেন নিজেই জিহাদ করিল। আর যে মানুষ কোন সৈনিকের পরিবার-পরিজনের খোঁজখবর রাখলো সেও যেন জিহাদ করিল।

সহিহ, ইবনি মা-জাহ [২৭৫৯] এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান সহিহ বলেছেন । এ হাদীসটি এ সূত্র ব্যতীত অন্য একটি সূত্রেও বর্ণিত হয়েছে । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৬২৯. যাইদ ইবনি খালিদ আল-জুহানী [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যে মানুষ আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায় জিহাদের জন্য কোন যোদ্ধার সাজ-সরঞ্জাম যোগাড় করে দিল অথবা তার পরিবার-পরিজনের খোঁজখবর রাখল, সে যেন নিজেই জিহাদ করিল।

পূর্বের হাদীসের সহায়তায় এ হাদীসটি সহিহ। এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান বলেছেন । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৬৩০. মুহাম্মাদ ইবনি বাশ্‌শার ইয়াহইয়া ইবনি সাঈদ হইতে বর্ণীতঃ

মুহাম্মাদ ইবনি বাশ্‌শার ইয়াহইয়া ইবনি সাঈদ হইতে, তিনি আব্দুল মালিক ইবনি আবী সুলাইমান হইতে, তিনি আতা হইতে, তিনি যাইদ ইবনি খালিদ আল-জুহানী হইতে তিনি নাবী [সাঃআঃ] হইতে অনুরূপ বর্ণনা করিয়াছেন।

সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ নির্ণীত নয়

১৬৩১ যাইদ ইবনি খালিদ আল-জুহানী [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যে লোক আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায় কোন মুজাহিদের সাজ-সরঞ্জামের যোগাড় করে দিল সে যেন নিজেই জিহাদ করিল। আর যে লোক কোন যোদ্ধার পরিবার-পরিজনের খোঁজখবর রাখলো সেও যেন জিহাদ করিল।

সহিহ, দেখুন এই হাদীসের পূর্বের হাদীস. এ হাদীসটিকে আবু ঈসা সহীহ্‌ বলেছেন । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

৭. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায় যে লোকের পদদ্বয় ধুলি-মলিন হয় তার মর্যাদা

১৬৩২. ইয়াযীদ ইবনি আবু মারইয়াম [রঃ] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি পায়ে হেটে জুমুআর নামাজ আদায় করিতে যাচ্ছিলাম। এ সময় আবাইয়া ইবনি রিফাআ ইবনি রাফি [রাদি.] আমার সাথে মিলিত হন। তিনি [আমাকে] বলিলেন, তোমার জন্য সুখবর। আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায়ই তোমার এই পথ চলা। আবু আব্‌স [রাদি.]-কে আমি বলিতে শুনিয়াছি, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায় যে লোকের পা দুটি ধুলিমলিন হয় তা জাহান্নামের আগুনের জন্য হারাম হয়ে যায়।

সহীহ্‌, ইরওয়া [১১৮৩], বুখারী, এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান গারীব সহীহ্‌ বলেছেন । আবু আব্‌স-এর নাম আবদুর রাহমান ইবনি জাব্‌র । আবু বাকর [রাদি.] ও আরো একজন সাহাবী হইতে এ অনুচ্ছেদে হাদীস বর্ণিত আছে । আবু ঈসা বলেন, ইয়াযীদ ইবনি আবু মারইয়াম হচ্ছেন সিরিয়ার অধিবাসী । তার সূত্রে ওয়ালীদ ইবনি মুসলিম, ইয়াহ্ইয়া ইবনি হামযা এবং আরো কয়েকজন সিরীয় মুহাদ্দিস হাদীস বর্ণনা করিয়াছেন । অপরদিকে কূফার অধিবাসী বুরাইদ ইবনি আবু মারইয়ামের পিতা রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] এর সাহাবীদের অন্তর্ভূক্ত । তার নাম মালিক, পিতা রাবীআ । বুরাইদ ইবনি আবী মারইয়াম আনাস ইবনি মালিকের নিকট হাদীস শুনেছেন । আবু ইসহাক আল হামদানী, আতা ইবনিস সাইব, ইউনুস ইবনি আবী ইসহাক ও শুবা প্রমুখ মুহাদ্দিসগণ বুরাইদ ইবনি আবী মারইয়াম হইতে হাদীস বর্ণনা করিয়াছেন । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

৮. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায় ধুলি-মলিন হওয়ার সাওয়াব

১৬৩৩. আবু হুরাইরা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ আল্লাহ্ তাআলার ভয়ে যে লোক ক্রন্দন করে তার জাহান্নামে যাওয়া এরূপ অসম্ভব যেমন অসম্ভব দোহন করা দুধ আবার পালানের মধ্যে ফিরে যাওয়া। আল্লাহ্ তাআলার পথের ধুলা এবং জাহান্নামের ধোঁয়া কখনও একত্র হইবে না [আল্লাহ্ তাআলার পথের পথিক জাহান্নামে যাবে না]।

সহিহ, মিশকাত [৩৮২৮], তালীকুর রাগীব [২/১৬৬] এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান সহিহ বলেছেন । আবু তালহা [রাদি.]-এর মুক্তদাস ছিলেন মুহাম্মাদ ইবনি আবদুর রাহমান [রঃ] । তিনি একজন মাদীনার অধিবাসী । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

৯. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায় যে লোক বুড়ো হয়েছে তার সাওয়াব

১৬৩৪. সালিম ইবনি আবুল জাদ [রঃ] হইতে বর্ণীতঃ

শুরাহ্‌বীল ইবনিস সিম্‌ত [রঃ] বলেন, হে কাব ইবনি মুররা! আমাদেরকে রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] এর হাদীস শুনান এবং সতর্কতা অবলম্বন করুন। তিনি বলিলেন, আমি রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে বলিতে শুনেছিঃ যে লোক মুসলমান অবস্থায় বুড়ো হল, তার জন্য কিয়ামাতের দিন একটি বিশেষ আলোকবর্তিকা থাকিবে।

সহিহ, সহীহা [১২৪৪], মিশকাত তাহকীক ছানী [৪৪৫৯] আবু ঈসা বলেন, ফাযালা ইবনি উবাইদ ও আবদুল্লাহ ইবনি আমর [রাদি.] হইতেও এ অনুচ্ছেদে হাদীস বর্ণিত আছে । কাব ইবনি মুররার হাদীসটি হাসান । কাব ইবনি মুররার হাদীসটি আমর ইবনি মুররা হইতে আমাশ এরূপই বর্ণনা করিয়াছেন । মানসূর-সালিম ইবনি আবিল জাদ হইতেও এই হাদীসটি বর্ণিত হয়েছে । তবে সনদের মধ্যে অন্য একজন বর্ণনাকারীকে সালিম ও কাব-এর মাঝখানে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে । তাঁকে কাব ইবনি মুররাও বলা হয় এবং মুররা ইবনি কাব আল বাহযীও বলা হয় । তবে রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] এর একজন সাহাবী হিসাবেই মুররা ইবনি কাব আল-বাহ্‌যী [রাদি.] প্রসিদ্ধ ও স্বতন্ত্র ব্যক্তি । তিনি নাবী [সাঃআঃ] হইতে অনেকগুলো হাদীস বর্ণনা করিয়াছেন । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৬৩৫. আমর ইবনি আবাসা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ আল্লার তাআলার পথে যে লোক বুড়ো হয়েছে, তার জন্য কিয়ামাতের দিন একটি আলোকবর্তিকা থাকিবে।

সহিহ, তালীকুর রাগীব [২/১৭১] এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান সহিহ গারীব বলেছেন । হাইওয়া ইবনি শুরাইহ্ হচ্ছেন ইয়াযীদ আল-হিমসী-এর ছেলে । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১০. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায় যে ব্যক্তি ঘোড়া লালন-পালন করে তার সাওয়াব

১৬৩৬. আবু হুরাইরা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ কিয়ামাত পর্যন্ত ঘোড়ার কপালে কল্যাণ বাঁধা রয়েছে। তিন প্রকার মানুষের জন্য ঘোড়া তিন ধরণের ফল বয়ে আনে। তা কোন মানুষের জন্য সাওয়াবের মাধ্যম, কোন মানুষের জন্য আবরণস্বরূপ এবং কোন মানুষের জন্য গুনাহের কারণ হয়ে থাকে। এটা সেই প্রকার মানুষের জন্য সাওয়াবের মাধ্যম হয় যে আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায় [জিহাদের উদ্দেশ্যে] তা লালন-পালন করে এবং এটাকে [সর্বদা] প্রস্তুত রাখে। এটা তার জন্য সাওয়াবের মাধ্যম হইবে। সে এর পেটে যা কিছুই ঢালে আল্লাহ্‌ তাআলা তার বিনিময়ে তার জন্য সাওয়াব লিখে দেন।

সহিহ, মুসলিম, এ হাদীসে আরও বিবরণ আছে । এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান সহীহ্‌ বলেছেন । উপরোক্ত হাদীসের মত মালিক ইবনি আনাস-যাইদ ইবনি আসলাম হইতে, তিনি আবু সালিহ হইতে, তিনি আবু হুরাইরা [রাদি.] হইতে, তিনি রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] এইসুত্রে বর্ণনা করিয়াছেন । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১১. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায় তীর ছুড়ার সাওয়াব

১৬৩৭. আবদুল্লাহ ইবনি আবদুর রহমান ইবনি আবু হুসাইন [রঃ] হইতে বর্ণীতঃ

রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ আল্লাহ তাআলা একটি তীরের উসীলায় তিনজন লোককে জান্নাতে প্রবেশ করাবেনঃ তীর নির্মাতা যে নির্মাণকালে কল্যাণের আশা করেছে, [জিহাদে] এই তীর নিক্ষেপকারী এবং তা নিক্ষেপে সাহায্যকারী। তিনি আরো বলেনঃ তোমরা তীরন্দাজী কর ও ঘোড়দৌড় শিক্ষা কর। তবে তোমাদের ঘোড়দৌড় শেখার তুলনায় তীরন্দাজী শিক্ষা করা আমার কাছে বেশি পছন্দনীয়। মুসলিম ব্যক্তির সকল ক্রীড়া-কৌতুকই বৃথা। তবে তীর নিক্ষেপ, ঘোড়ার প্রশিক্ষণ এবং নিজ স্ত্রীর সাথে ক্রীড়া-কৌতুক বৃথা নয়। [কারণ] এগুলো হল উপকারী ও বিধি সম্মত।

যঈফ, ইবনি মাজাহ হাদীস নং-[২৮১১]। সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ দুর্বল হাদীস

১৬৩৮. আবু নাজীহ আস-সুলামী [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে বলিতে শুনেছিঃ আল্লাহ্‌ তাআলার রাস্তায় যে লোক তীর ছুড়লো তার জন্য রয়েছে একটি গোলাম মুক্ত করার অনুরূপ সাওয়াব।

সহীহ্‌, ইবনি মা-জাহ [২৮১২], এ হাদীসটিকে আবু ঈসা সহীহ্‌ বলেছেন । আবু নাজীহ্‌র নাম আমর, পিতা আবাসা আস-সুলামী । আবদুল্লাহ ইবনি ইয়াযীদ নামেও আবদুল্লাহ ইবনিল আযরাক [রঃ]-এর পরিচিতি রয়েছে । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১২. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্‌ তাআলার রাস্তায় পাহারাদানের সাওয়াব

১৬৩৯, ইবনি আব্বাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে আমি বলিতে শুনেছিঃ জাহান্নামের আগুন দুটি চোখকে স্পর্শ করিবে না। আল্লাহ্‌ তাআলার ভয়ে যে চোখ ক্রন্দন করে এবং আল্লাহ্‌ তাআলার রাস্তায় যে চোখ [নিরাপত্তার জন্য] পাহারা দিয়ে ঘুমবিহীনভাবে রাত পার করে দেয়।

সহীহ্‌, মিশকাত [৩৮২৯], তালীকুর রাগীব [২/১৫৩] আবু ঈসা বলেন, উসমান ও আবু রাইহানা [রাদি.] হইতেও এ অনুচ্ছেদে হাদীস বর্ণিত আছে । ইবনি আব্বাস [রাদি.] হইতে বর্ণিত হাদীসটি হাসান গারীব । আমরা এ হাদীসটি শুধুমাত্র শুয়াইব ইবনি যুরাইক-এর সূত্রেই জেনেছি । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৩. অনুচ্ছেদঃ শহীদদের সাওয়াব সম্বন্ধে

১৬৪০. আনাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ আল্লাহ্‌ তাআলার পথে মৃত্যুবরণ করা সকল পাপের কাফফারা হয়ে যায়। তখন জিবরাঈল [আঃ] বলিলেন, ঋণ ব্যতীত [তা ক্ষমা করা হয় না]। রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলিলেন, ঋণ ব্যতীত।

সহীহ্‌, মুসলিম ইবনি উমার হইতে, ইরওয়া [১১৯৬], গাইয়াতুল মারাম [৩৫১], তাখরীজ মুশকিলাতুল ফাকর [৬৭] আবু ঈসা বলেন, কাব ইবনি উজরা, জাবির, আবু হুরাইরা ও আবু কাতাদা [রাদি.] হইতেও এ অনুচ্ছেদে হাদীস বর্ণিত আছে। এ হাদীসটি গারীব । আমরা এ হাদীস বিষয়ে শুধুমাত্র আবু বাক্‌র ইবনি আইয়্যাশের নিকট হইতে এই শাইখ [ইয়াহ্‌ইয়া ইবনি তালহা] কর্তৃক বর্ণিত সূত্রেই জেনেছি । মুহাম্মাদ ইবনি ইসমাঈলকে উল্লেখিত হাদীস প্রসঙ্গে আমি [তিরমিযী] প্রশ্ন করলে এ বিষয়ে তিনি তার অজ্ঞতা প্রকাশ করেন । তিনি আরও বলেন, আমার মনে হয় তিনি হয়ত আনাস [রাদি.]-এর সূত্রে বর্ণিত হুমাইদ এর হাদীসটি বুঝাতে চেয়েছেনঃ রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেনঃ “জান্নাত হইতে পৃথিবীতে ফিরে আসতে শহীদ ব্যতীত অন্য কেউই আনন্দবোধ করিবে না ।” সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৬৪১. কাব ইবনি মালিক [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ সবুজ পাখির মধ্যে শহীদদের রূহ্‌ অবস্থান করে। তারা জান্নাতের বৃক্ষসমূহের ফল ভক্ষণ করে।

সহীহ্‌, ইবনি মা-জাহ [৪২৭১] এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান সহীহ্‌ বলেছেন । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৬৪২. আবু হুরাইরা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ সবার আগে যে তিনজন জান্নাতে যাবে তাহাদেরকে আমার সামনে উপস্থিত করা হয়েছে। শহীদ, হারাম ও সংশয়পূর্ণ জিনিস হইতে ও অপরের নিকটে হাত পাতা হইতে দূরে অবস্থানকারী এবং উত্তমরূপে অল্লাহ তাআলার ইবাদতকারী ও মনিবদের কল্যাণকামী গোলাম।

যঈফ, তালিকুর রাগীব [১/২৬৮]। আবু ঈসা বলেন, এ হাদীসটি হাসান। সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ দুর্বল হাদীস

১৬৪৩. আনাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ আল্লাহ্‌ তাআলার নিকট সঞ্চিত সাওয়াবের অধিকারী যে কোন বান্দার মৃত্যুর পর তাকে পৃথিবী এবং এর সকল কিছু দিলেও সে আবার পৃথিবীতে চলে আসা পছন্দ করিবে না। কিন্তু যখন শহীদ ব্যক্তি শাহাদাত লাভের ফযিলত ও মর্যাদা প্রত্যক্ষভাবে দেখিতে পাবে তখন সে আবার দুনিয়াতে আসতে আগ্রহী হইবে, যাতে সে আবার আল্লাহ তাআলার পথে শহীদ হইতে পারে।

সহীহ্‌, নাসা-ঈ, এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান সহীহ্‌ বলেছেন । ইবনি আবী উমার বলেন, সুফিয়ান ইবনি উয়াইনাহ বলেছেন যে, আমর ইবনি দীনার যুহরীর চাইতে বয়সে বড় ছিলেন । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৪. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ তাআলার নিকটে শহীদদের মর্যাদা

১৬৪৪. উমার ইবনিল খাত্তাব [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

আমি রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে বলিতে শুনেছিঃ শহীদ চার প্রকার। [১] উত্তম ঈমানের অধিকারী মুমিন, যে শত্রুর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে এবং আল্লাহ তাআলার ওয়াদা [প্রতিশ্রুতি] সত্য বলে বিশ্বাস করে যুদ্ধ করে, অবশেষে মারা যায়। কিয়ামাতের দিন লোকেরা তার প্রতি এভাবে উপরে চোখ তুলে তাকাবে, এই বলে তিনি মাথা উপরের দিকে তুলে [বাস্তবরূপে] দেখালেন, এমনকি তাহাঁর মাথার টুপি পড়ে গেল। রাবী বলেন, এখানে উমারের টুপির কথা বলা হয়েছে না নাবী [সাঃআঃ]-এর টুপি বুঝানো হয়েছে তা আমার জানা নেই। রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেনঃ [২] আরেক ব্যক্তিও উত্তম ঈমানের অধিকারী মুমিন। সেও শত্রুর মুকাবিলায় অবতীর্ণ হয়, কিন্তু ভীরুতার কারণে তার দেহ এমনভাবে কম্পিত হইতে থাকে যেন তাকে বাবলা গাছের কাঁটাযুক্ত ডাল দিয়ে মারা হয়েছে। একটি অদৃশ্য তীর এসে তার শরীরে বিদ্ধ হলে তার আঘাতে সে মারা গেল। এ হল দ্বিতীয় পর্যায়ের শহীদ। [৩] আরেক মুমিন ব্যক্তি তার ভাল কাজের সাথে কিছু খারাপ কাজও করে ফেলেছে। সে শত্রুর বিরুদ্ধে অবতীর্ণ হয়ে আল্লাহ তাআলার ওয়াদা সত্য বলে বিশ্বাস করে যুদ্ধ করে অবশেষে মারা যায়। এ ব্যক্তি তৃতীয় পর্যায়ের শহীদ। [৪] অপর মুমিন ব্যক্তি নিজের উপর যুলুম করেছে। সেও শত্রুর মুকাবিলায় অবতীর্ণ হয় এবং আল্লাহ তাআলার ওয়াদা সত্য বলে বিশ্বাস করে যুদ্ধ করে, তারপর মারা যায়। এই ব্যক্তি চতুর্থ স্তরের শহীদ।

যঈফ, মিশকাত, তাহকীক ছানী [৩৮৫৮], যঈফা [২০০৪]। আবু ঈসা বলেছেন, এ হাদীসটি হাসান গারীব। আমরা শুধু আতা ইবনি দীনারের বর্ণিত হাদীস হিসেবে এটি জেনেছি। আমি ঈমাম বুখারীকে বলিতে শুনিয়াছি যে, সাঈদ ইবনি আবু আইউব [রঃ] আতা ইবনি দীনার হইতে, তিনি বানূ খাওলানের কিছু শাইখের সূত্রে উক্ত হাদীস বর্ণনা করিয়াছেন। এই সূত্রে আবু ইয়াযীদের উল্লেখ নেই। তিনি আরও বলেনঃ আতা ইবনি দীনারের মধ্যে কোন দোষ নেই। সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ দুর্বল হাদীস

১৫. অনুচ্ছেদঃ নৌযুদ্ধ প্রসঙ্গে

১৬৪৫. আনাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] মিলহানের মেয়ে উম্মু হারামের বাসায় গেলে তিনি তাঁকে খাবার খাওয়াতেন। উম্মু হারাম [রাদি.] ছিলেন উবাদা ইবনি সামিত [রাদি.]-এর স্ত্রী। এক দিন রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] তার বাসায় গেলে তিনি তাঁকে খাওয়ান এবং তাহাঁর ঘুমানোর ব্যবস্থা করে তাহাঁর মাথায় বিলি কাটতে লাগলেন। রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] ঘুমিয়ে যান। তারপর তিনি হাসতে হাসতে ঘুম হইতে জেগে উঠেন। তিনি [উম্মু হারাম] বলেন, আমি বললাম, হে আল্লাহ্‌র রাসূল! আপনি কি কারণে হাসছেন? তিনি বললেনঃ আমার উম্মাতের একদল লোককে [স্বপ্নে] আমার সামনে হাযির করা হল। তারা সাগরের বুকে সিংহাসনে বসা শাসকের মত সাওয়ার হয়ে আল্লাহ্‌ তাআলার রাস্তায় [নৌ] যুদ্ধে নিয়োজিত। আমি বললাম, হে আল্লাহ্‌র রাসূল! আল্লাহ্‌ তাআলার নিকট আমার জন্য দুআ করুন, তিনি আমাকেও যেন তাহাদের অন্তর্ভুক্ত করে দেন। তিনি তার জন্য দুআ করেন এবং [বালিশে] মাথা রেখে আবার ঘুমিয়ে পড়েন। তিনি পুনরায় হাসতে হাসতে ঘুম হইতে সজাগ হন। আমি তাঁকে প্রশ্ন করলাম, হে আল্লাহ্‌র রাসূল! আপনি হাসছেন কেন? তিনি বললেনঃ আমার সামনে আমার উম্মাতের এক দল লোককে [স্বপ্নে] হাযির করা হয়, যারা আল্লাহ্‌ তাআলার রাস্তায় [নৌ] যুদ্ধে নিয়োজিত। তিনি পূর্বানুরূপ বর্ণনা করেন। তিনি [উম্মু হারাম] বলেন, আমি বললাম, হে আল্লাহ্‌র রাসূল! আল্লাহ্‌ তাআলার নিকট আমার জন্য দুআ করুন, তিনি আমাকেও যেন তাহাদের অন্তর্ভুক্ত করেন। তিনি বললেনঃ তুমি প্রথম দলের অন্তর্ভুক্ত হইবে। মুআবিয়া ইবনি আবু সুফিয়ান [রাদি.]-এর রাজত্বকালে উম্মু হারাম [রাদি.] নৌযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। তিনি নৌযুদ্ধ হইতে ফিরে এসে তার সাওয়ারী হইতে পড়ে গিয়ে মারা যান।

সহীহ্‌, ইবনি মা-জাহ [২৭৭৬], নাসা-ঈ, এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান সহীহ্‌ বলেছেন । উম্মু হারাম [রাদি.] উম্মু সুলাইম [রাদি.]-এর বোন এবং আনাস [রাদি.]-এর খালা । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৬. অনুচ্ছেদঃ লোক দেখানো বা পার্থিব স্বার্থে যে লোক যুদ্ধ করে

১৬৪৬. আবু মূসা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে প্রশ্ন করা হল, এক লোক বীরত্ব দেখানোর উদ্দেশ্যে যুদ্ধে লিপ্ত হয়, এক লোক গোত্রীয় মর্যাদা রক্ষার উদ্দেশ্যে যুদ্ধ করে এবং এক লোক মানুষকে দেখানোর জন্য যুদ্ধ করে-এদের মধ্যে কোন ব্যক্তি আল্লাহ্‌ তাআলার পথে? তিনি বললেনঃ আল্লাহ্‌ তাআলার বাণীকে সমুন্নত করার উদ্দেশ্যে যে ব্যক্তি যুদ্ধ করে শুধুমাত্র সে-ই আল্লাহ্‌র পথে [জিহাদ করে]।

সহীহ্‌, ইবনি মা-জাহ [২৭৮৩], নাসা-ঈ, আবু ঈসা বলেন, উমার [রাদি.] হইতেও এ অনুচ্ছেদে বর্ণিত আছে । এ হাদীসটি হাসান সহীহ্‌ । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৬৪৭. উমার ইবনিল খাত্তাব [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ সকল কর্মের ফলাফল নিয়্যাতের উপর নির্ভরশীল। প্রত্যেক মানুষের জন্য তার নিয়্যাত [উদ্দেশ্য ও লক্ষ] মতো ফলাফল রয়েছে। সুতরাং যে মানুষের হিজরাত আল্লাহ্ ও তার রাসূলের দিকে, আল্লাহ্ ও তাহাঁর রাসূলের জন্যই তার হিজরাত পরিগণিত হয়। যে মানুষের হিজরাত দুনিয়াবি স্বার্থের জন্য সে তা-ই অর্জন করিবে। অথবা তার হিজরাত কোন নারীকে বিয়ের উদ্দেশ্যে হলে সে যে উদ্দেশ্যে হিজরাত করেছে তার হিজরাত সেই উদ্দেশ্যের জন্যেই পরিগণিত হইবে।

সহিহ, ইবনি মা-জাহ [৪২২৭], নাসা-ঈ, এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান সহিহ বলেছেন । এ হাদীসটি ইয়াহ্ইয়া ইবনি সাঈদের সূত্রে মালিক ইবনি আনাস, সুফিয়ান সাওরী ও অন্যান্য ঈমামগণও বর্ণনা করিয়াছেন । আমরা এ হাদীসটি শুধুমাত্র ইয়াহ্ইয়া ইবনূ সাঈদের বর্ণনার মাধ্যমেই জেনেছি । আব্দুর রাহমান ইবনি মাহদী বলেন, এই হাদীস প্রত্যেক অনুচ্ছেদেই সংযোজন করা উচিত । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৭. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্ তাআলার পথে এক সকাল ও এক বিকাল ব্যয় করার সাওয়াব

১৬৪৮. সাহল ইবনি সাদ আস-সাঈদী [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায় একটি সকালের ব্যয় পৃথিবী এবং এর মধ্যকার সবকিছু হইতে উত্তম। জান্নাতের এক চাবুক পরিমাণ জায়গা পৃথিবী এবং এর মধ্যকার সবকিছু হইতে উত্তম।

সহিহ, ইবনি মা-জাহ [২৭৫৬], নাসা-ঈ, আবু ঈসা বলেন, আবু হুরাইরা, ইবনি আব্বাস, আবু আইয়ূব ও আনাস [রাদি.] হইতেও এ অনুচ্ছেদে হাদীস বর্ণিত আছে । এ হাদীসটি হাসান সহিহ । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৬৪৯. আবু হুরাইরা ও ইবনি আব্বাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নাবী [সাঃআঃ] বলেছেনঃ আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায় একটি সকালের অথবা একটি বিকালের ব্যয় পৃথিবী ও তার মধ্যকার সব কিছু হইতে উত্তম।

সহিহ, ইরওয়া [৫/৩-৪], মুসলিম, এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান গারীব বলেছেন । যে আবু হাযিম সাহল ইবনি সাদ [রাদি.] হইতে হাদীস বর্ণনা করিয়াছেন তিনি ছিলেন আবু হাযিম আয-যাহিদ আল-মাদানী, তার নাম সালামা ইবনি দীনার । আর এই আবু হাযিম যিনি আবু হুরাইরা [রাদি.] হইতে হাদীস বর্ণনা করিয়াছেন তিনি ছিলেন আবু হাযিম আল-আশজাঈ আল-কূফী, তার নাম সালমান এবং তিনি আযযা আল-আশজাইয়্যার আযাদকৃত গোলাম । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৬৫০. আবু হুরাইরা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] এর সাহাবীদের মধ্যে একজন সাহাবী একটি পাহাড়ী উপত্যকা দিয়ে যাচ্ছিলেন। সে স্থানে একটি মিঠা পানির ছোট ঝর্ণা ছিল। নির্মল-স্বচ্ছ এই পানির স্বাদ ও সৌন্দর্য তাকে মুগ্ধ করিল। তিনি [মনে মনে] বলিলেন, আমি যদি সাথীদের হইতে আলাদা হয়ে এই উপত্যকায় থেকে যেতাম! আমি তা কখনও করিতে পারি না রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] এর অনুমতি ব্যতীত। তিনি বিষয়টি রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] এর নিকট উল্লেখ করিলেন। তিনি বললেনঃ তা কখনো কর না। কেননা তোমাদের কেউ বাড়ীতে থেকে সত্তর বছর ধরে নামাজ আদায় করার চেয়েও কিছু সময় আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায় অবস্থান করা উত্তম। তোমরা কি এটা পছন্দ কর না যে, তোমাদেরকে আল্লাহ্ তাআলা ক্ষমা করে দেন এবং তোমাদেরকে জান্নাতে দাখিল করান? তোমরা আল্লাহ্ তাআলার পথে জিহাদ কর। যে লোক আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায় দুইবার উষ্ট্রী দোহনের মধ্যবর্তী পরিমাণ সময় যুদ্ধ করে তার জন্য জান্নাত নির্ধারিত হয়ে যায়।

হাসান, তালীকুর রাগীব [২/১৭৪] এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান বলেছেন । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ হাসান হাদীস

১৬৫১. আনাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ আল্লাহ্ তাআলার পথে এক সকাল অথবা এক বিকাল ব্যয় করা অবশ্যই পৃথিবী ও তার মধ্যকার সবকিছু হইতে উত্তম। তোমাদের কারো ধনুকের জ্যা অথবা হাত পরিমাণ জান্নাতের জায়গা পৃথিবী ও তার মধ্যকার সকল কিছু হইতে উত্তম। জান্নাতের মহিলাদের কেউ পৃথিবীর দিকে একবার উঁকি দিয়ে দেখলে অবশ্যই আকাশ-যমীনের মাঝে অবস্থিত সবকিছু আলোকিত হয়ে যেত এবং দুনিয়ার সমস্ত জায়গা সুগন্ধময় হয়ে যেত। তার মাথার ওড়নাটিও পৃথিবী ও তার মধ্যকার সবকিছু হইতে উত্তম।

সহীহ্‌, ইবনি মা-জাহ [২৭৫৭], নাসা-ঈ. এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান সহিহ বলেছেন । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৮. অনুচ্ছেদঃ কে উত্তম লোক

১৬৫২. ইবনি আব্বাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নাবী [সাঃআঃ] বলেছেনঃ কে উত্তম মানুষ, আমি কি তোমাদের তা জানিয়ে দেবো না? আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায় যে নিজের ঘোড়ার লাগাম ধরে প্রস্তুত থাকে। আমি কি তোমাদের বলে দেবো না, তারপর কোন মানুষ উত্তম? যে নিজের মেষপাল নিয়ে মানুষদের কাছ হইতে দূরে অবস্থান করে থাকে এবং তাতে আল্লাহ্ তাআলার যে হক [যাকাত] রয়েছে তা দিয়ে দেয়। কে মানুষের মধ্যে নিকৃষ্ট লোক তা কি আমি তোমাদের বলে দেবো না? যার নিকট আল্লাহ্ তাআলার নাম নিয়ে কিছু চাওয়া হয় কিন্তু [সামর্থ্য থাকা সত্ত্বেও] দান করে না।

সহীহ্‌, সহীহা [২৫৫], তালীকুর রাগীব [২/১৭৩] হাদীসটিকে আবু ঈসা উল্লেখিত সনদসূত্রে হাসান গারীব বলেছেন । হাদীসটি একাধিক সূত্রে ইবনি আব্বাস [রাদি.] হইতে বর্ণিত হয়েছে । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৯. অনুচ্ছেদঃ যে লোক [আল্লাহ্ তাআলার রাস্তায়] শাহাদাতের প্রার্থনা করে

১৬৫৩. সাহ্‌ল ইবনি হুনাইফ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যে লোক আল্লাহ্ তাআলার নিকট সত্যিকারভাবে সর্বান্তকরণে শাহাদাতের প্রার্থনা করে, আল্লাহ্ তাকে শহীদের মনযিলে পৌঁছাবেন, সে তার বিছানাতে মারা গেলেও।

সহীহ্‌, ইবনি মা-জাহ [২৭৯৭], মুসলিম, এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান গারীব বলেছেন । আমরা হাদীসটি শুধুমাত্র আবদুর রাহমান ইবনি শুরাইহ্-এর সূত্রেই জেনেছি । এ হাদীসটি আবদুর রাহমান ইবনি শুরাইহ্ হইতে আবদুল্লাহ ইবনি সালিহ [রঃ] বর্ণনা করিয়াছেন । আবদুর রাহমানের উপনাম আবু শুরাইহ্, তিনি ইসকান্দারিয়ার অধিবাসী । মুআয ইবনি জাবাল [রাদি.] হইতেও এ অনুচ্ছেদে হাদীস বর্ণিত আছে । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৬৫৪. মুআয ইবনি জাবাল [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, নাবী [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যে লোক সত্যিকারভাবেই আন্তরিকতার সাথে আল্লাহ্ তাআলার পথে নিহত হওয়ার জন্য তাহাঁর নিকট প্রার্থনা করে আল্লাহ্ তাআলা তাকে শহীদের সাওয়াব দান করবেন।

সহীহ্‌, ইবনি মা-জাহ [২৭৯২] হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান সহিহ বলেছেন । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

২০. অনুচ্ছেদঃ মুজাহিদ, মুকাতাব গোলাম ও বিবাহ ইচ্ছুক ব্যক্তির প্রতি আল্লাহ্ তাআলার সাহায্য

১৬৫৫. আবু হুরাইরা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ আল্লাহ্ তাআলা তিন প্রকার মানুষকে সাহায্য করা নিজের কর্তব্য হিসাবে নির্ধারণ করিয়াছেন। আল্লাহ্ তাআলার পথে জিহাদকারী, মুকাতাব গোলাম- যে চুক্তির অর্থ পরিশোধের ইচ্ছা করে এবং বিবাহে আগ্রহী লোক- যে বিয়ের মাধ্যমে পবিত্র জীবন যাপন করিতে চায়।

হাসান, ইবনি মা-জাহ [২৫১৮] এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান বলেছেন । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ হাসান হাদীস

২১. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্ তাআলার পথে আহত ব্যক্তির মর্যাদা

১৬৫৬. আবু হুরাইরা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ আল্লাহ্ তাআলার পথে যে মানুষই আহত হয়, আর আল্লাহ্ তাআলা ভালভাবেই জানেন, তাহাঁর পথে কে আহত হয়; সে এমনভাবে কিয়ামাত দিবসে হাযির হইবে যে, রক্তের রং-এর মত হইবে তার জখমের রং এবং কস্তুরীর সুগন্ধির মত হইবে এর ঘ্রাণ।

সহীহ্‌, ইবনি মা-জাহ [২৭৯৫], নাসা-ঈ, এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান সহিহ বলেছেন । একাধিক সূত্রে আবু হুরাইরা [রাদি.]-এর বরাতে নাবী [সাঃআঃ] হইতে এ হাদীসটি বর্ণিত হয়েছে । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৬৫৭. মুআয ইবনি জাবাল [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নাবী [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যে মুসলমান লোক আল্লাহ্ তাআলার পথে উষ্ট্রীর দুইবার দুধ দোহনের মধ্যবর্তী [ সময়ের পরিমাণ ] সময় জিহাদ করিল তার জন্য জান্নাত নির্ধারিত হয়ে গেছে। আল্লাহ্‌ তাআলার পথে যে লোক আহত হল অথবা আঘাতপ্রাপ্ত হল, এই জখম কিয়ামতের দিবসে আরো তাজা হয়ে উপস্থিত হইবে। এই জখমের রং যাফরানের মত হইবে এবং এর ঘ্রাণ কস্তুরীর মত সুগন্ধময় হইবে।

সহিহ, ইবনি মা-জাহ [২৭৯২] এ হাদীসটি সহীহ্‌, সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

২২. অনুচ্ছেদঃ সবচাইতে মর্যাদাপূর্ণ কাজ কোনটি?

১৬৫৮, আবু হুরাইরা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে প্রশ্ন করা হলঃ সবচাইতে মর্যাদাপূর্ণ কাজ কোনটি এবং উত্তম বা কল্যাণকর কোন ধরনের কাজ? তিনি বললেনঃ আল্লাহ্‌ ও তাহাঁর রাসূলের উপর ঈমান আনা। আবার প্রশ্ন করা হল, এরপর কোন জিনিস উত্তম? তিনি বললেনঃ জিহাদ হচ্ছে সকল কাজের চূড়া বা শিখর। আবার প্রশ্ন করা হল, হে আল্লাহর রাসূল! এরপর কোন জিনিস উত্তম? তিনি বললেনঃ[আল্লাহ তাআলার নিকট] ক্ববূল হওয়া হাজ্ব।

হাসান সহীহ্‌, নাসা-ঈ,এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান সহিহ বলেছেন । একাধিক সূত্রে আবু হুরাইরা [রাদি.]-এর বরাতে রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] হইতে এ হাদীসটি বর্ণিত হয়েছে । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ হাসান সহীহ

২৩. অনুচ্ছেদঃ তলোয়ারের ছায়াতলে জান্নাতের দরজা

১৬৫৯. আবু বাক্‌র ইবনি আবু মূসা আল-আশআরী [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, শত্রুর মোকাবিলায় আমি আমার বাবাকে [যুদ্ধক্ষেত্রে] বলিতে শুনেছিঃ রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ তলোয়ারের ছায়াতলে জান্নাতের দরজাসমূহ। দলের উস্কখুস্ক একজন লোক বলিলেন, আপনি রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে কি তা বলিতে শুনেছেন? তিনি বলিলেন, হ্যাঁ। বর্ণনাকারী বলেন, লোকটি তার সঙ্গীদের নিকট ফিরে গিয়ে বলিলেন, আমি তোমাদের বিদায়ী সালাম জানাচ্ছি। এই বলে তিনি নিজ তলোয়ারের খাপ ভেঙ্গে ফেললেন এবং তলোয়ার দ্বারা [শত্রুর প্রতি] আঘাত হানতে থাকেন। অবশেষে তিনি নিহত হন।

সহীহ্‌, ইরওয়া [৫/৭], মুসলিম, এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান গারীব বলেছেন । আমরা এ হাদীসটি শুধুমাত্র জাফর ইবনি সুলাইমান আয-যুবাঈর সূত্রেই জেনেছি । আবু ইমরান আল-জাওনীর নাম আবদুল মালিক, পিতা হাবীব । আবু বাক্‌র ইবনি আবু মূসার ব্যাপারে আহ্‌মাদ ইবনি হাম্বল [রঃ] বলেন, এটাই তার নাম, উপনাম নয় । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

২৪. অনুচ্ছেদঃ কোন ধরনের মানুষ সবচাইতে উত্তম?

১৬৬০. আবু সাঈদ আল-খুদরী [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে প্রশ্ন করা হলঃ কোন ধরনের মানুষ সবচাইতে উত্তম? তিনি বললেনঃ আল্লাহ্ তাআলার পথে যে সকল মানুষ জিহাদ করে। তারা আবার প্রশ্ন করিলেন, তারপর কে? তিনি বললেনঃ পাহাড়ের কোন উপত্যকায় যে মুমিন আশ্রয় নিয়ে নিজের প্রতিপালককে ভয় করে চলে এবং মানুষকে নিজের অনিষ্ট হইতে নিরাপদে রাখে।

সহীহ্‌, তালীকুর রাগীব [২/১৭৩], নাসা-ঈ, এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান সহিহ বলেছেন । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

২৫. অনুচ্ছেদঃ শহীদের সাওয়াব

১৬৬১. আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ জান্নাতে বসবাসকারীদের মধ্যে শহীদ ব্যক্তি ব্যতীত আর কেউই পৃথিবীতে ফিরে আসার উৎসাহ বোধ করিবে না। শহীদ ব্যক্তিই আবার পৃথিবীতে ফিরে আসতে চাইবে। আল্লাহ্ তাআলা তাকে যেসব নিয়ামত ও মর্যাদা দিবেন তা দেখে সে বলবে, আমি দশবার আল্লাহর রাস্তায় নিহত হব।

সহীহ্‌, নাসা-ঈ, এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান সহিহ বলেছেন। সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৬৬২. মুহাম্মদ ইবনি বাশ্‌শার হইতে বর্ণীতঃ

মুহাম্মদ ইবনি বাশ্‌শার- মুহাম্মদ ইবনি জাফর হইতে, তিনি শুবা হইতে, তিনি কাতাদা হইতে, তিনি আনাস [রাদি.]-এর সূত্রে রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] হইতে একইরকম বর্ণনা করিয়াছেন।

আবু ঈসা এ হাদীসটিকে হাসান সহিহ বলেছেন । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ নির্ণীত নয়

১৬৬৩. মিকদাব ইবনি মাদীকারিব [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ শহীদের জন্য আল্লাহ্ তাআলার নিকট ছয়টি পুরস্কার বা সুযোগ আছে। তাহাঁর প্রথম রক্তবিন্দু পড়ার সাথে সাথে তাঁকে ক্ষমা করা হয়, তাঁকে তাহাঁর জান্নাতের বাসস্থান দেখানো হয়, কবরের আযাব হইতে তাঁকে মুক্তি দেওয়া হয়, সে কঠিন ভীতি হইতে নিরাপদ থাকিবে, তাহাঁর মাথায় মর্মর পাথর খচিত মর্যাদার টুপি পরিয়ে দেওয়া হইবে। এর এক একটি পাথর দুনিয়া ও তাহাঁর মধ্যকার সবকিছু হইতে উত্তম। তার সাথে টানা টানা আয়তলোচনা বাহাত্তরজন জান্নাতী হূরকে বিয়ে দেওয়া হইবে এবং তাহাঁর সত্তরজন নিকটাত্মীয়ের জন্য তাহাঁর সুপারিশ ক্ববূল করা হইবে।

সহীহ্‌, আহকা-মুল জানায়িজ [৩৫-৩৬], তালীকুর রাগীব [২/১৯৪], সহীহা [৩২১৩]এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান সহীহ্‌ গারীব বলেছেন । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

২৬. অনুচ্ছেদঃ আল্লাহ্ তাআলার পথে পাহারাদানের সাওয়াব

১৬৬৪. সাহল ইবনি সাদ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ আল্লাহ তাআলার পথে একদিন সীমান্ত পাহারা দেওয়া পৃথিবী ও তার উপরের সকল কিছু হইতে উত্তম। জান্নাতে তোমাদের কারো চাবুক পরিমাণ জায়গা পৃথিবী ও তার মধ্যকার [উপরের] সব কিছু হইতে উত্তম। [জিহাদের মাঠে] বান্দার এক বিকাল অথবা এক সকালের ব্যয় পৃথিবী ও তার উপরের সকল কিছু হইতে কল্যাণকর।

সহীহ্‌, বুখারী [২৭৯৪, ২৮৯২, ৬৪১৫] এ হাদীসটি হাসান সহিহ । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৬৬৫. মুহাম্মদ ইবনিল মুনকাদির [রঃ] হইতে বর্ণীতঃ

কোন এক সময় শুরাহবীল ইবনিস সিমতের সামনে দিয়ে সালমান ফারসী [রাদি.] পথ চলছিলেন। তিনি তখন তার ঘাঁটিতে পাহারারত ছিলেন। তাহাঁর ও তাহাঁর সাথীদের জন্য পাহারার কাজটি খুবই কঠিন হয়ে গিয়েছিল। তিনি [সালমান] বলিলেন, হে সিমতের পুত্র! আমি কি তোমাকে এমন একটি হাদীস বলব, যা আমি রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] এর নিকট শুনিয়াছি? তিনি বলিলেন, হ্যাঁ। সালমান [রাদি.] বলিলেন, আমি রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে বলিতে শুনেছিঃ এক দিন আল্লাহ্ তাআলার পথে সীমান্ত পাহারা দেওয়া একাধারে এক মাস রোযা রাখা এবং রাতে নামাজ আদায় হইতেও উত্তম ও বেশি কল্যাণকর। এই কাজে লিপ্ত থাকাবস্থায় যে লোক মারা যাবে তাকে কবরের বিপর্যয়কর পরিস্থিতি হইতে মুক্তি দেওয়া হইবে এবং কিয়ামত পর্যন্ত তার আমল পরিবর্ধিত করা হইবে।

সহিহ, ইরওয়া [১২০০] এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান বলেছেন । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

১৬৬৬. আবু হুরাইরা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যে ব্যক্তি [নিজ দেহে] জিহাদের কোন চিহ্ন ব্যতীত আল্লাহ তাআলার নিকটে হাযীর হইবে, তার দীনদারী ও কাজের মধ্যে বিরাট ত্রুটি থেকে যাবে।

যঈফ ইবনি মাজাহ হাদীস নং-[২৭৬৩]। আবু ঈসা বলেন, ওয়ালীদ ইবনি মুসলিম হইতে ইসমাঈল ইবনি রাফি-এর সূত্রে এ হাদীসটি গারীব। ইসমাঈল ইবনি রাফিকে কোন কোন হাদীস বিশারদ দুর্বল বলে আখ্যায়িত করিয়াছেন। আমি ঈমাম বুখারীকে বলিতে শুনিয়াছি, তিনি নির্ভরযোগ্য [সিকাহ] রাবী বা তার সমপর্যায়ভুক্ত [মুকারীবুল হাদীস]। উল্লেখিত হাদীসটি আবু হুরাইরা [রাদি.] হইতে রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] সূত্রে অন্যভাবেও বর্ণিত হয়েছে। সালমানের হাদীসের সনদ মুত্তাসিল নয়, কেননা মুহাম্মাদ ইবনিল মুনকাদির সালমানের সাক্ষাৎ পান নাই। এই হাদীসটি আইয়ূব ইবনি মূসার সূত্রে, তিনি মাকহুল হইতে তিনি শুরাহবীল হইতে তিনি সালমান হইতে তিনি রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] হইতে বর্ণিত হয়েছে। সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ দুর্বল হাদীস

১৬৬৭. উসমান ইবনি আফফান [রাদি.]-এর গোলাম আবু সালিহ [রঃ] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি উসমান [রাদি.]-কে মিম্বারের উপরে দাঁড়িয়ে বলিতে শুনেছিঃ আমি [উসমান] রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] হইতে শুনা একটি হাদীস তোমাদেরকে বলিনি এই ভয়ে যে, হয়ত [তা শুনে] তোমরা আমার নিকট হইতে আলাদা হয়ে যাবে। কিন্তু পরে আমার উপলব্ধি হল যে, তোমাদের নিকট এটা বর্ণনা করি, যাতে নিজের জন্য প্রত্যেকে তা পছন্দ করে নিতে পারে যা তার নিকট ভাল মনে হয়। আমি রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে বলিতে শুনেছিঃ অন্য [কোন কাজে] কোথাও এক হাজার দিন কাটানোর চাইতে এক দিন আল্লাহ্‌ তাআলার রাস্তায় সীমান্ত পাহারা দেওয়া [বা শত্রুর অপেক্ষায় থাকা] বেশি কল্যাণকর।

হাসান, তালীকুর রাগীব, তাহকীক ছানী [২/১৫২], তালীক আলা-আহাদীস মুখতারাহ [৩০৫-৩১০] আবু ঈসা বলেন, এ হাদীসটি হাসান সহীহ্‌ গারীব । ঈমাম বুখারী [রঃ] বলেন, উসমান [রাদি.]-এর মুক্তদাস আবু সালিহ-এর নাম বুরকান । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ হাসান হাদীস

১৬৬৮. আবু হুরাইরা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ শহীদ ব্যক্তি মৃত্যুর কষ্ট শুধু ততটুকুই অনুভব করে, তোমাদের কাউকে একবার চিমটি কাটলে সে যতটুকু কষ্ট অনুভব করে।

হাসান সহীহ্‌, ইবনি মা-জাহ [২৮০২] এ হাদীসটিকে আবু ঈসা হাসান সহীহ্‌ গারীব বলেছেন । সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ হাসান সহীহ

১৬৬৯. আবু উমামা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নাবী [সাঃআঃ] বলেনঃ দুটি ফোঁটা ও দুটি চিহ্নের চেয়ে বেশি প্রিয় আল্লাহ্‌ তাআলার নিকট আর কিছু নেই। আল্লাহ্‌ তাআলার ভয়ে যে অশ্রুর ফোঁটা পরে, আল্লাহ্‌ তাআলার পথে [জিহাদে] যে রক্তের ফোঁটা নির্গত হয় এবং আল্লাহ্‌ তাআলার নির্ধারিত কোন ফরজ আদায় করিতে গিয়ে যে চিহ্ন সৃষ্টি হয় [যেমন কপালে সিজদার চিহ্ন]।

হাসান, মিশকাত [৩৮৩৭], তালীকুর রাগীব [২/১৮০] এ হাদীসটি হাসান গারীব, সুনানে তিরমিযি PDF – এই হাদীসটির তাহকিকঃ হাসান হাদীস

By ইমাম তিরমিজি

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Leave a Reply