আত তারগীব ওয়াত তারহীব – পবিত্রতা অধ্যায়

আত তারগীব – পবিত্রতা অধ্যায়

<< সহীহ আত তারগীব ওয়াত তারহীব হাদীস বই এর মুল সুচিপত্র << আত তা. ওয়াত তারহীব – পবিত্রতা অধ্যায়

পরিচ্ছেদঃ চলাচলের রাস্তা, ছায়া বা পানির ঘাটে শৌচকাৰ্য করার প্রতি ভীতি প্ৰদৰ্শন। আর কিবলাকে সামনে বা পিছনে না করার প্রতি উদ্বুদ্ধ করনঃ

১৪৫ -আবু হুরায়রা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেনঃ “তোমরা অভিশাপ আনয়নকারী দুটি কাজ থেকে বেঁচে থাক। তাঁরা বললেনঃ সে কাজ দুটি কী হে আল্লাহর রাসূল! যা লানত ডেকে নিয়ে আসে? তিনি বললেনঃ মানুষের চলাচলের রাস্তায় অথবা তাহাদের ছায়ায় {১} পেশাব-পায়খানা করা।”

[হাদীসটি বর্ণনা করিয়াছেন মুসলিম, আবু দাউদ প্রমূখ] {১} অর্থাৎ মানুষ বিশ্রাম বা অন্য কোন কারণে ছাউনী বা বৃক্ষ বা এরূপ কোন স্থানকে ছায়া হিসেবে ব্যবহার করলে সেখানে পেশাব-পায়খানা করা নিষেধ। আত তারগীব হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

১৪৬ -মুআয বিন যাবাল [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেনঃ রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেনঃ “তোমরা তিনটি লানতের স্থান থেকে বেঁচে থাক। [১] পানির ঘাট, [২] চলাচলের রাস্তা ও [৩] মানুষ যে স্থানের ছায়ায় আশ্রয় নেয় সেখানে পেশাব-পায়খানা করা।”

[হাদীসটি বর্ণনা করিয়াছেন আবু দাউদ ও ইবনি মাজাহ] সহীহ আত তারগীব ওয়াত তারহীব হাদিসের তাহকিকঃ হাসান লিগাইরিহি

১৪৭ -ইবনি আব্বাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেনঃ আমি শুনিয়াছি, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেনঃ “তোমরা তিনটি অভিশাপের স্থান থেকে বেঁচে থাক। বলা হলঃ হে আল্লাহর রাসূল সে তিনটি অভিশাপের স্থান কি? তিনি বললেনঃ “তোমাদের কেহ [পেশাব-পায়খানার জন্য] বসবেঃ [১] মানুষ ছায়া গ্রহণ করে এধরণের স্থানে অথবা [২] রাস্তায় বা [৩] যেখানে পানি জমে থাকে।”

[হাদীসটি বর্ণনা করিয়াছেন আহম্মদ] আত তা. ওয়াত তারহীব হাদিসের তাহকিকঃ হাসান লিগাইরিহি

১৪৮ -হুযায়ফা ইবনি উসায়দ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নাবী [সাঃআঃ] বলেনঃ “যে ব্যক্তি মুসলমানদের চলাচলের রাস্তায় তাহাদেরকে কষ্ট দিল, তার উপর তাহাদের লানত আবশ্যক হয়ে গেল।”

[হাদীসটি ত্বাবরানী স্বীয় {কবীর গ্রন্থে} হাসান সনদে বর্ণনা করেন] আত তারগীব ওয়াত তারহীব হাদিসের তাহকিকঃ হাসান হাদিস

১৪৯ -জাবের বিন আবদুল্লাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ “তোমরা রাতের বেলায় রাস্তার মধ্যভাগে অবস্থান নেয়া থেকে সাবধান। কেননা উহা হল, সাপ ও হিংস্র প্রাণীদের আশ্রয় স্থল। এবং ঐ স্থানে প্রয়োজন পূরণ তথা শৌচকার্য থেকেও সাবধান। কেননা উহা অভিশাপের কাজ।”

[হাদীসটি বর্ণনা করিয়াছেন ইবনি মাজাহ, তাহাঁর বর্ণনা কারীগণ সবাই নির্ভরযোগ্য] আত তারগীব ওয়াত তারহীব হাদিসের তাহকিকঃ হাসান লিগাইরিহি

১৫০ -মাকহূল হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেনঃ “রাসূলুল্লাহ্ [সাঃআঃ] মসজিদের দরজার [আশে-পাশে] প্রস্রাব করিতে নিষেধ করিয়াছেন।”

[আবু দাউদ {মারাসীল গ্রন্থে} বৰ্ণনা করিয়াছেন] আত তারগীব ওয়াত তারহীব হাদিসের তাহকিকঃ হাসান লিগাইরিহি

১৫১ -আবু হুরায়রা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেন, “যে ব্যক্তি প্ৰস্ৰাব-পায়খানার সময় কিবলাকে সামনে বা পিছনে না রাখবে, তার জন্য একটি নেকী লেখা হইবে এবং তার একটি পাপ মোচন করা হইবে।”

[হাদীসটি বর্ণনা করিয়াছেন ত্বাবরানী] হাফেয মুনযেরী বলেন, খোলা মাঠে কিবলাকে সামনে বা পিছনে রেখে পেশাব-পায়খানা করার প্রতি নিষেধাজ্ঞা অসংখ্য প্ৰসিদ্ধ হাদীছে বর্ণিত হয়েছে। হাদীসগুলো অধিক প্ৰসিদ্ধ হওয়ার কারণে এবং তা সাধারণ নিষিদ্ধ বিষয় হওয়ার কারণে এখানে উল্লেখ করা হল না। [আল্লাহই সকল বিষয়ে সঠিক জ্ঞান রাখেন] আত তারগীব ওয়াত তারহীব হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

Leave a Reply