শাবান মাস এ রামাদানের সিয়ামের ক্বাযা

শাবান মাস এ রামাদানের সিয়ামের ক্বাযা

শাবান মাস এ রামাদানের সিয়ামের ক্বাযা >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

২৬. অধ্যায়ঃ শাবান মাস এ রামাদানের সিয়ামের ক্বাযা

২৫৭৭

আবু সালামাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি আয়িশা [রাদি.]–কে বলিতে শুনেছি, “আমার রামাযান মাসের রোজা অবশিষ্ট থেকে যেত। রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]–এর খিদমতে ব্যস্ত থাকার কারণে আমি শাবান মাস ছাড়া অন্য কোন সময়ে তা আদায় করার সুযোগ পেতাম না।” [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৫৫৪, ইসলামিক সেন্টার- ২৫৫৩]

২৫৭৮

ইয়াহ্ইয়া ইবনি সাঈদ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] থেকে এ সূত্র হইতে বর্ণীতঃ

উপরের হাদীসের অনুরূপ বর্ণিত হয়েছে। তবে এ বর্ণনায় পার্থক্য এতটুকু যে, তিনি বলেছেন, আর রামাযানের সিয়ামের ক্বাযা আদায়ের ব্যাপারে শাবান পর্যন্ত বিলম্ব করার কারণ হল, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] খিদমতে নিযুক্ত থাকা। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৫৫৫, ইসলামিক সেন্টার- ২৫৫৪]

২৫৭৯

ইয়াহ্ইয়া ইবনি সাঈদ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

এ সানাদেও উপরের হাদীসটি বর্ণনা করিয়াছেন। তবে এ হাদীসে তিনি আরো বলেছেন, আমার এরুপ দেরি করার কারণ ছিল নবী [সাঃআঃ]–এর খিদমতে ব্যস্ত থাকা। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৫৫৬, ইসলামিক সেন্টার- ২৫৫৫]

২৫৮০

ইয়াহ্ইয়া [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] থেকে এ সানাদ হইতে বর্ণীতঃ

উপরের হাদীসটি বর্ণনা করিয়াছেন। তবে তিনি এ বর্ণনায় রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-এর খিদমতে তার ব্যস্ত থাকার কথা উল্লেখ করেননি। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৫৫৭, ইসলামিক সেন্টার- ২৫৫৬]

২৫৮১

আয়েশাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমাদের [রসূলের স্ত্রীগণের] মধ্যে কেউ যদি রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-এর সময়ে রোজা ভঙ্গ করত তাহলে সে শাবান মাস আসার পূর্বে কোন সময়ই রোযা করার সুযোগ পেত না। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৫৫৮, ইসলামিক সেন্টার- ২৫৫৭]

By মুসলিম শরীফ

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Leave a Reply