রোগের চিকিৎসায় শিঙ্গা লাগানো ও রক্তমোক্ষণ করা

রোগের চিকিৎসায় শিঙ্গা লাগানো

আপনারা আরও পড়তে পারেন লোহা গরম করে শরীরে দাগ লাগানো নবী (সাঃ) নিরুৎসাহিত করেছেন এবং ঔষধি গাছ -সোনামুখী, মেহেদি, আঙ্গুর ইত্যাদির বর্ণনা

পরিচ্ছেদঃ শিঙ্গা লাগানোতে আছে নিরাময়

আসিম ইবনু উমার ইবনু ক্বাতাদাহ (রহঃ) হইতে বর্ণিত যে,

জাবির ইবনু আবদুল্লাহ (রাদিআল্লাহু আঃ) অসুস্থ মুকান্নাকে দেখিতে যান। এরপর তিনি বলেনঃ আমি হটব না, যতক্ষণ না তুমি শিঙ্গা লাগানো না করবে । কেননা, আমি রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-কে বলিতে শুনেছিঃ নিশ্চয় এতে আছে নিরাময়।

সহিহুল বুখারি – ৫৬৯৭ঃ (৫৬৮৩) (আধুনিক প্রঃ- ৫২৮৫, ইঃ ফাঃ- ৫১৮১)

জাবির ইবনু আবদুল্লাহ্‌ (রাঃ) সূত্রে নবী (সাঃআঃ) হইতে বর্ণিতঃ

তিনি বলেছেনঃ যদি তোমাদের চিকিৎসা সমূহে কোনটির মধ্যে আরোগ্য থাকে, তাহলে তা আছে শিঙ্গা লাগানোতে কিংবা আগুন দ্বারা দাগ লাগানোতে, তবে আমি আগুন দিয়ে দাগ দেয়া পছন্দ করি না।

সহিহুল বুখারি – ৫৭০৪ঃ (আধুনিক প্রঃ- ৫২৯০, ইঃ ফাঃ- ৫১৮৬)

পরিচ্ছেদঃ মাথা গর্দান কাঁধের দু পার্শ্বে ও পায়ের পাতায় শিঙ্গা লাগানো যায়

ইবনু আব্বাস (রাদিআল্লাহু আঃ) বর্ণনা করেন,

রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইহরামের অবস্থায় আধ কপালির কারণে তাহাঁর মাথায় শিঙ্গা লাগানো ।

সহিহুল বুখারি –৫৭০১ঃ(১৮৩৫) (আধুনিক প্রঃ- ৫২৮৭, ইঃ ফাঃ- ৫১৮৩)

ইবনি আব্বাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, নাবী (সাঃআঃ) তাহাঁর গর্দানের দুপার্শ্বে এবং কাঁধের দু পার্শ্বে শিঙ্গা লাগালেন এবং শিঙ্গা লাগানেওয়ালাকে এর পারিশ্রমিক দিলেন। শিঙ্গা লাগানো যদি হারাম হতো, তবে তিনি এর পারিশ্রমিক দিতেন না।

শামায়েলে তিরমিযী – ২৭৮

মুসনাদে আহম্মদ, হাদিস নং/২৯০৬; মুসনাদে আবু ইয়ালা, হাদিস নং/২২০৫ঃ মুজামুল কাবীর লিত তাবারানী, হাদিস নং/১২৪২০; মুসান্নাফে ইবনি আবি শাইবা, হাদিস নং/২১৩৮২। হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

আনসারী (রহ.) হিশাম ইবনু হাসসান (রহ.) ইকরামার সূত্রে ইবনু আব্বাস (রাদিআল্লাহু আঃ) থেকে বর্ণনা করেন যে,

রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাহাঁর মাথায় শিঙ্গা লাগানো ।

সহিহুল বুখারি – ৫৬৯৯ঃ(১৮৩৫) (আধুনিক প্রঃ- ৫২৮৬, ইঃ ফাঃ- ৫১৮২)

আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ (সাঃআঃ) ইহরাম বাধা অবস্থায় পায়ের পাতার উপরিভাগে মালাল নামক স্থানে শিঙ্গা লাগালেন।{১}

শামায়েলে তিরমিযী -২৮১

{১} আবু দাউদ, হাদিস নং/১৮৩৯; সুনানে নাসাঈ, হাদিস নং/২৮৪৯; মুসনাদে আহম্মদ, হাদিস নং/১২৭০৫; সহিহ ইবনি হিব্বান, হাদিস নং/৩৯৫২ শারহুস সুন্নাহ, হাদিস নং/১৯৮৬। হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

পরিচ্ছেদঃ সওমরত ও ইহরাম অবস্থায় শিঙ্গা লাগানো যায়

ইবনু আব্বাস হইতে বর্ণিত।

তিনি বলেনঃ নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সওমরত অবস্থায় শিঙ্গা লাগিয়েছেন

সহিহুল বুখারি – ৫৬৯৪. (১৮৩৫) আধুনিক প্রঃ- ৫২৮২, ইঃ ফাঃ- ৫১৭৮)

ইবনু আব্বাস (রাদিআল্লাহু আঃ) হইতে বর্ণিত।

তিনি বলেন, নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইহরামের অবস্থায় শিঙ্গা লাগিয়েছেন।

সহিহুল বুখারি – ৫৬৯৫ঃ(১৮৩৫) (আধুনিক প্রঃ- ৫২৮৩, ইঃ ফাঃ- ৫১৭৯)

ইবনু আব্বাস হইতে বর্ণিত যে,

মাথার ব্যথায় নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইহরাম অবস্থায় লাহয়ী জামাল’ নামের একটি কুয়োর ধারে মাথায় শিঙ্গা লাগানো ।

সহিহুল বুখারি –৫৭০০ঃ (১৮৩৫) (আধুনিক প্রঃ- ৫২৮৭, ইঃ ফাঃ- ৫১৮৩)

আবদুল্লাহ ইবনু বুহাইনা (রাদিআল্লাহু আঃ) হইতে বর্ণিত। সহিহুল বুখারি – ৫৬৯৮ঃ (আধুনিক প্রঃ- ৫২৮৬, ইঃ ফাঃ- ৫১৮২)

আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ (সাঃআঃ) কাঁধের দু পার্শ্বে এবং কাঁধের মধ্যবর্তী স্থানে শিঙ্গা লাগাতেন এবং তিনি ১৭, ১৯ ও ২১ তারিখে শিঙ্গা লাগাতেন।{১}

শামায়েলে তিরমিযী -২৮০

{১} শারহুস সুন্নাহ, হাদিস নং/৩২৩৪; সহিহ তারগীব ওয়াত তারহীব, হাদিস নং/৩৪৬৪; মিশকাত, হাদিস নং/৪৫৪৬। হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

পরিচ্ছেদঃ শিঙ্গা লাগালে পারিশ্রমিক দেয়ার নির্দেশ

ইবনু আব্বাস (রাঃ) হইতে বর্ণিতঃ

নবী (সাঃআঃ) শিঙ্গা লাগিয়েছেন এবং যে ব্যক্তি শিঙ্গা লাগানো বেবস্থা করে দেয় তাকে পারিশ্রমিক দিয়েছেন আর তিনি নাকে ঔষধ টেনে নিয়েছেন।

(সহিহুল বুখারি – ৫৬৯১ঃ১৮৩৫; মুসলিম ১৫/১১, হাঃ ১২০২) আধুনিক প্রঃ- ৫২৮০, ইঃ ফাঃ- ৫১৭৬)

হুমায়দ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] কে শিঙ্গা লাগানোর পারিশ্রমিক সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেন, আবু তায়বা রসূলুল্লাহ (সাঃআঃ) কে শিঙ্গা লাগিয়েছিল। রসূলুল্লাহ (সাঃআঃ) তাঁকে ২ সা খাদ্যশস্য দেয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন এবং তাহাঁর মালিকের সঙ্গে আলাপ করে তাহাঁর নিকট হতে আদায়যোগ্য অর্থ খারাজও কমিয়ে দিয়েছিলেন এবং তিনি বলেছিলেন, তোমরা যে ঔষধ ব্যবহার কর, এর মধ্যে শিঙ্গা উত্তম। অথবা বলেছেন, শিঙ্গা উত্তম প্রতিষেধকের অন্তর্ভুক্ত।{১}

শামায়েলে তিরমিযী -২৭৬ঃ {১} সহিহ মুসলিম, হাদিস নং/৪১২১; মুসনাদে আহম্মদ, হাদিস নং/১২৯০৬; মুসনাদে আবু ইআলা, হাদিস নং/৩৭৫৮; মুস্তাখরাজে ইবনি আবি আওয়ানা, হাদিস নং/৪২৯৮। হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

আলী [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ (সাঃআঃ) নিজে শিঙ্গা লাগালেন এবং আমাকে এর পারিশ্রমিক দেয়ার নির্দেশ দিলেন। অতঃপর আমি তাকে পারিশ্রমিক দিয়ে দিলাম।{১}

শামায়েলে তিরমিযী – ২৭৭ঃ {১} ইবনি মাজাহ, হাদিস নং/২১৬৩; মুসনাদে আহম্মদ, হাদিস নং/১১৩০; বায়হাকী, হাদিস নং/১৯৩০৪; মুসনাদুত তায়ালুসী, হাদিস নং/১৪৮। হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

ইবনি উমার [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, নাবী (সাঃআঃ) এক শিঙ্গা লাগানে ওয়ালাকে ডাকলেন। সে তাকে শিঙ্গা লাগাল। তিনি জিজ্ঞেস করিলেন, তোমাকে দৈনিক কত দিতে হয়? সে বলিল, প্রতিদিন তিন সা। রসূলুল্লাহ (সাঃআঃ) তাহাঁর আদায়যোগ্য অর্থ এক সা কমিয়ে দিলেন এবং তাহাঁর পারিশ্রমিক দিয়ে দিলেন।{১}

শামায়েলে তিরমিযী -২৭৯

{১} মুসনাদে আহম্মদ, হাদিস নং/১১৩৬; সহিহ ইবনি হিব্বান, হাদিস নং/৩৫৩৬; মুসনাদুত তায়ালুসী, হাদিস নং/১৮২৯; মুসান্নাফে ইবনি আবি শাইবা, হাদিস নং/২১৩৮৪। হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

Leave a Reply