নবী [সাঃ] -এর বাণী : যে আমাকে স্বপ্নে দেখলো সে আমাকেই দেখলো

নবী [সাঃআঃ] -এর বাণী : যে আমাকে স্বপ্নে দেখলো সে আমাকেই দেখলো

নবী [সাঃআঃ] -এর বাণী : যে আমাকে স্বপ্নে দেখলো সে আমাকেই দেখলো >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

১. অধ্যায়ঃ নবী [সাঃআঃ] -এর বাণী : যে আমাকে স্বপ্নে দেখলো সে আমাকেই দেখলো

৫৭৯০

আবু সালামাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি এমন স্বপ্ন দেখতাম যাতে ভয় পেয়ে জ্বর জ্বর ভাব অনুভব করতাম। তবে আমাকে কম্বল দিয়ে ঢাকতে হতো না। অবশেষে আমি আবু কাতাদাহ্ [রাদি.]-এর সঙ্গে দেখা করলাম এবং এ বিষয়টি তার নিকট বর্ণনা করলাম। তিনি বলিলেন, আমি রসূলুল্লাহ রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -কে বলিতে শুনেছি الرُّؤْيَا সু-স্বপ্ন আল্লাহর তরফ হতে, আর الْحُلْمُ খারাপ স্বপ্ন শাইতানের তরফ হইতে। অতএব তোমাদের কেউ যখন এমন স্বপ্ন দেখে, যা সে পছন্দ করে না, তখন যেন সে তার বাম পাশে তিনবার থু থু ফেলে এবং এর অনিষ্ট থেকে আল্লাহর কাছে আশ্রয় প্রার্থনা করে [অর্থাৎ- আঊযুবিল্লাহ পড়ে], তাহলে সেটি তার ক্ষতি করিবে না। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭০০, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৩২]

৫৭৯১

আবু কাতাদাহ্ [রাদি.]-এর সানাদে নবী [সাঃআঃ] হইতে বর্ণীতঃ

হুবহু হাদীস বর্ণনা করিয়াছেন। তবে এঁরা এদের বর্ণিত হাদীসে [পূর্বোল্লিখিত হাদীসের] বর্ণনাকারী আবু সালামাহ্ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] -এর কথা– আমি স্বপ্ন দেখে ভয় পাওয়ার দরুন জ্বর জ্বর ভাব দেখা দিতো, কিন্তু আমাকে কম্বল দিয়ে ঢাকতে হতো না কথাটি বর্ণনা করেননি। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭০১, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৩৩]

৫৭৯২

যুহরী [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

উপরোল্লিখিত সূ্ত্রে হাদীস বর্ণনা করিয়াছেন। কিন্তু তাঁদের উভয়ের বর্ণিত হাদীসে- ভয় পেয়ে জ্বরাক্রান্ত হয়ে পড়তাম উক্তিটি নেই। আর [প্রথম সূত্রে] বর্ণনাকারী ইউনুস [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বর্ধিত করে বলেছেন, যখন সে ঘুম হইতে জেগে উঠবে তখন সে যেন তিনবার তার বাম পাশে থু থু ফেলে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭০২, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৩৪]

৫৭৯৩

আবু কাতাদাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -কে বলিতে শুনেছি যে, الرُّؤْيَا সু-স্বপ্ন আল্লাহর তরফ হতে, আর الْحُلْمُ দুঃস্বপ্ন শাইতানের তরফ থেকে। অতএব তোমাদের কেউ যখন এমন কোন ব্যাপারে স্বপ্নে দেখে, যা সে পছন্দ করে না, তখন সে যেন তার বাম পাশে তিন বার থু থু ফেলে এবং [আঊযুবিল্লাহ্ বা সূরা আল ফালাক্ব ও সূরা আন্ নাস পড়ে] স্বপ্নের অনিষ্ট হইতে আশ্রয় চায়। কারণ [এভাবে করলে] তা তার কোন খারাবী করিতে পারবে না। রাবী বলেন, আমি এমন স্বপ্নও দেখতাম যা আমার জন্য পাহাড়ের চাইতেও কঠিন [ও ভয়াবহ] কিন্তু এখন অবস্থা এই যে, এ হাদীস যখন আমি শুনে ফেলেছি, এখন আর সে সবের পরোয়া করি না। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭০৩, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৩৫]

৫৭৯৪

ইয়াহ্ইয়া ইবনি সাঈদ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

উপরোল্লিখিত সূ্ত্রে হাদীস বর্ণনা করিয়াছেন। কিন্তু বর্ণনাকারী আস্‌-সাকাফী [রাদি.] কর্তৃক বর্ণিত হাদীসে আছে, [আমার উস্তাদ] বর্ণনাকারী আবু সালামাহ্‌ [রাদি.] বলেছেন, আমি এমন স্বপ্নও দেখতাম যা…..। আর বর্ণনাকারী আল-লায়স ও ইবনি নুমায়র [রাদি.] সূ্ত্রে বর্ণিত হাদীসে আবু সালামাহ্‌ [রাদি.] এর কথা হইতে হাদীসের শেষাংশ নেই এবং বর্ণনাকারী ইবনি রুম্‌হ্‌ এ হাদীসের রিওয়ায়াতে বর্ধিত বলেছেন যে, আর সে [স্বপ্নদ্রষ্টা] লোক যে পাশে ঘুমাচ্ছিল সে পাশ পরিবর্তন করে অন্যপাশে ঘুমাবে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭০৪, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৩৬]

৫৭৯৫

আবু কাতাদাহ্ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] সূ্ত্রে নবী [সাঃআঃ] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেছেন, ভাল স্বপ্ন আল্লাহ্‌র তরফ থেকে আর মন্দ স্বপ্ন শাইতানের তরফ থেকে। সুতরাং যে ব্যক্তি কোন স্বপ্ন দেখল আর এতে কোন কিছু পছন্দ হলো না, তখন সে যেন তার বাম পাশে থু থু ফেলে এবং শাইতান [এর অনিষ্ট] হইতে আল্লাহ্‌র আশ্রয় প্রার্থনা করে, [তাহলে] তা তাকে কোন সমস্যায় ফেলবে না। আর কোরো কাছে ঐ স্বপ্নের কথা বর্ণনা করিবে না। আর যদি কোন ভাল স্বপ্ন দেখে তাহলে সু-সংবাদ গ্রহণ করিবে। আর যাকে সে মুহাব্বাত করে এমন ব্যক্তি ব্যতীত কারো নিকট তা বর্ণনা করিবে না। [ই.ফা.৫৭০৫, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৩৭]

৫৭৯৬

আবু সালামাহ্ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি এমন স্বপ্ন দেখতাম, যা আমাকে রোগগ্রস্ত করে দিত। তিনি বলেন, পরে আমি আবু কাতাদাহ্ [রাদি.]-এর সঙ্গে দেখা করলাম [এবং আমার সমস্যার ব্যাপারটি তাঁকে বললাম]। তখন তিনি বলিলেন, আমিও এমন স্বপ্ন দেখতাম, যা আমাকে অসুস্থ করে দিত। অবশেষে আমি রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে বলিতে শুনলাম, ভাল স্বপ্ন আল্লাহর তরফ থেকে। অতএব তোমাকে কেউ যখন এমন [স্বপ্ন] দেখে, যা সে পছন্দ করে তাহলে তা তার ঘনিষ্ট লোক ব্যতীত কারো নিকট যেন প্রকাশ না করে। আর যখন এমন [স্বপ্ন] দেখে,

যা সে অপছন্দ করে তাহলে সে যেন তার বামপাশে তিন [বার] থু থু নিক্ষেপ করে এবং শাইতানের অনিষ্ট ও স্বপ্নের অমঙ্গল থেকে আল্লাহর নিকট আশ্রয় প্রার্থনা করে ও কাউকে তা না বলে। কারণ [এভাবে করলে] সে স্বপ্ন তার কোন অকল্যাণ হইবে না। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭০৬, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৩৮]

৫৭৯৭

জাবির [রাদি.]-এর সানাদে নবী [সাঃআঃ] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, তোমাদের কেউ যখন এমন স্বপ্ন দেখে, যা সে পছন্দ করে না তখন সে যেন তার বামপাশে তিনবার থু থু ফেলে এবং শাইতান [এর খারাবী] থেকে আল্লাহর নিকট তিনবার আশ্রয় প্রার্থনা করে। আর যে পাশে ঘুমন্ত ছিল তা হইতে যেন বিপরীত পাশে ঘুমায়। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭০৭, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৩৯]

৫৭৯৮

আবু হুরাইরাহ্ [রাদি.] সূ্ত্রে নবী [সাঃআঃ] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, যখন যুগ ও সময় [কিয়ামাতের] সন্নিকটে হয়ে আসবে তখন প্রায়শ [খাঁটি] মুসলিমের স্বপ্ন মিথ্যা ও ভ্রান্ত হইবে না। তোমাদের [মাঝে] অধিক সত্যভাষী লোক সর্বাধিক সত্য [ও বাস্তব] স্বপ্নদ্রষ্টা হইবে। আর মুসলিমের স্বপ্ন নুবূওয়াতের পঁয়তাল্লিশ ভাগের এক ভাগ। আর স্বপ্ন তিন [প্রকার]- ভাল স্বপ্ন আল্লাহর তরফ হইতে সুসংবাদ [বাহক]। আর [এক ধরনের] স্বপ্ন শাইতানের পক্ষ হইতে দুর্ভাবনা তৈরি করে। আর [এক ধরনের] স্বপ্ন শাইতানের পক্ষ হইতে দুর্ভাবনা তৈরি করে। আর [এক ধরনের] স্বপ্ন যা মানুষ তার মনের সাথে কথা বলে [এবং ভাবনা-চিন্তা করে] তা থেকে [উদ্ভূত]। অতএব তোমাদের কেউ যদি এমন কিছু [স্বপ্ন] দর্শন করে- যা সে পছন্দ করে না, তাহলে সে যেন [ঘুম থেকে] উঠে দাঁড়ায় এবং নামাজ আদায় করে আর মানুষের নিকট সে [স্বপ্নের] কথা গোপন রাখে। তিনি [আরও] বলেছেন যে, আমি [স্বপ্নে] হাত কড়া [দেখা] পছন্দ করি এবং গলায় বেড়ী [দেখা] পছন্দ করি না। কারণ, হাত কড়া দীন-ধর্মে অবিচলতা [র পরিচায়ক]। বর্ণনাকারী বলেন, তবে আমি জানি না যে, তা [রিওয়ায়াতের এ শেষাংশটি] মূল হাদীসের অংশ [নবী [সাঃআঃ] -এর বাণী] নাকি তা {জাবির [রাদি.] থেকে রিওয়ায়াতকারী} ইবনি সীরীন [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বলেছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭০৮, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৪০]

৫৭৯৯

আইয়ূব [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

উপরোল্লিখিত সুত্রে হাদীস বর্ণনা করিয়াছেন। আর তিনি [তাহাঁর বর্ণিত] হাদীসে বলেছেন, আবু হুরায়রা্ [রাদি.] বলেন, হাত কড়া [দেখা] আমাকে বিমোহিত করে এবং গলায় বেড়ী [দেখা] আমি পছন্দ করি না। [কেননা] হাতকড়া হলো দ্বীন ধর্মে অটল থাকার পরিচায়ক। নবী [সাঃআঃ] আরো বলেছেন, [খাঁটি] ঈমানদারের স্বপ্ন নুবূওয়াতের [চল্লিশ অংশের] একটি অংশ। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭০৯, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৪১]

৫৮০০

আবু হুরাইরাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, যখন যুগ বা সময় কিয়ামাতের সন্নিকটে এসে যাবে… বর্ণনাকারী [এভাবেই] হাদীসটি রিওয়ায়াত করিয়াছেন এবং তিনি তাতে নবী [সাঃআঃ] -এর নামোল্লেখ করেননি। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭১০, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৪২]

৫৮০১

আবু হুরাইরাহ্ [রাদি.]-এর সানাদে নবী [সাঃআঃ] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি তাহাঁর বর্ণনায় আর আমি গলায় বেড়ী দেখা পছন্দ করি না… পর্যন্ত অংশ সংযোজন করিয়াছেন। আর স্বপ্ন নুবূওয়াতের ছিচল্লিশ ভাগের এক ভাগ- উক্তিটি তিনি বর্ণনা করেননি। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭১১, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৪৩]

৫৮০২

উবাদাহ্ ইবনি সামিত [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ মুমিনের স্বপ্ন নুবূওয়াতের ছিচল্লিশ ভাগের এক ভাগ। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭১২, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৪৪]

৫৮০৩

আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] নবী [সাঃআঃ] হইতে বর্ণীতঃ

উপরে বর্ণিত হাদীসের হুবহু বর্ণনা করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭১৩, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৪৫]

৫৮০৪

আবু হুরাইরাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেন, অবশ্য ঈমানদারের স্বপ্ন নুবূওয়াতের ছিচল্লিশ ভাগের এক ভাগ। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭১৪, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৪৬]

৫৮০৫

আবু হুরাইরাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ মুসলিমের স্বপ্ন, যা সে দেখে অথবা যা তার ব্যাপারে দৃশ্য হয়। বর্ণনাকারী ইবনি মুসহির বর্ণিত হাদীসে মুসলিমের স্বপ্ন এ জায়গায় রয়েছে ভাল স্বপ্ন নুবূওয়াতের ছিচল্লিশ ভাগরে এক ভাগ। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭১৫, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৪৭]

৫৮০৬

আবু হুরাইরাহ্ [রাদি.]-এর সানাদে নবী [সাঃআঃ] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, সৎ লোকের স্বপ্ন নুবূওয়াতের ছিচল্লিশ ভাগের এক ভাগ। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭১৬, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৪৮]

৫৮০৭

ইয়াহ্ইয়া ইবনি আবু কাসীর [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

উপরোল্লিখিত সূ্ত্রে হাদীস বর্ণনা করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭১৭, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৪৯]

৫৮০৮

আবু হুরাইরাহ্ [রাদি.] সূত্রে নবী [সাঃআঃ] হইতে বর্ণীতঃ

আবদুল্লাহ ইবনি ইয়াহ্ইয়া ইবনি আবু কাসীর [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] তাহাঁর পিতার সূ্ত্রে বর্ণিত হাদীসের অনুরূপ হাদীস রিওয়ায়াত করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭১৮, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৫০]

৫৮০৯

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ ভাল স্বপ্ন নুবূওয়াতের সত্তর ভাগের এক ভাগ। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭১৯, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৫১]

৫৮১০

ইয়াহ্ইয়া সূ্ত্রে উবাইদুল্লাহ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

অবিকল রিওয়ায়াত করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭২০, ইসলামিক সেন্টার- নেই]

৫৮১১

কুতাইবাহ্ ও ইবনি রুমহ্ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] লায়স ইবনি সাদ থেকে [ভিন্ন সানাদে] ইবনি রাফি ও ইবনি ফুদায়ক [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] নাফি [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

হুবহু রিওয়ায়াত করিয়াছেন। লায়স-এর হাদীসে আছে নাফি [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বলেন, আমার ধারণা ইবনি উমর [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বলেছেনঃ স্বপ্ন নুবূওয়াতের সত্তর ভাগের এক ভাগ। {৩৩} [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭২১, ইসলামিক সেন্টার- নেই]

{৩৩} [আরবী] বর্ণনাকারীদের শ্রবণে কিংবা স্মৃতিশক্তির তারতম্যের কারণে রিওয়ায়াত বিভিন্ন রকমের দেখা যায়। তবে মূলতঃ [আরবী] বর্ণিত রিওয়ায়াতই অধিক বিশুদ্ধ ও প্রাধান্যপ্রাপ্ত। কারণ নবী [সাঃআঃ] নুবূওয়াত প্রাপ্তির পূর্বের ছয় মাস শুধু ভাল ও কল্যাণমূলক স্বপ্নই দর্শন করিয়াছেন। যা নুবূওয়াত প্রাপ্তির পূর্ণ ২৩ বছর সময়ের ছিচল্লিশ অংশের এক অংশ।

৫৮১২

আবু হুরাইরাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যে লোক আমাকে স্বপ্নে দেখে সে [অবশ্যই] আমাকে দেখেছে। কারণ, শাইতান আমার আকৃতি ধারণ করিতে পারে না। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭২২, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৫২]

৫৮১৩

আবু হুরাইরাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে বলিতে শুনেছি, যে লোক আমাকে স্বপ্নে দেখে, শীঘ্রই সে আমাকে জেগে থাকাবস্থায় দেখিতে পাবে। অথবা তিনি বলেছেন, সে যেন আমাকে জাগ্রত অবস্থায় প্রত্যক্ষ করলো। কারণ শাইতান আমার আকৃতি ধারণ করিতে পারে না। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭২৩, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৫৩]

৫৮১৪

আবু কাতাদাহ্‌ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]বলেনঃ যে আমাকে দেখলো সে যেন [অবশ্যই] সত্যই দেখলো।

৫৮১৫

যুহরীর ভাইয়ের ছেলে হইতে বর্ণীতঃ

তাহাঁর চাচা [অর্থাৎ যুহরী] তাঁকে হাদীস রিওয়ায়াত করিয়াছেন। এ ব্যাপারে তিনি ইউনুস বর্ণিত হাদীসের অনুরূপ দুটি হাদীস সানাদসহ রিওয়ায়াত করেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭২৩, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৫৪]

৫৮১৬

জাবির [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যে লোক স্বপ্নযোগে আমাকে দেখল, সে নিশ্চয়ই আমাকে [স্বপ্নে] দেখল। কারণ, শাইতানের পক্ষে আমার আকৃতি ধারণ করা অসম্ভব। তিনি আরও বলেন, তোমাদের কেউ যখন খারাপ স্বপ্ন দেখে সে যেন ঘুমের মধ্যে তার সাথে শাইতানের চক্রান্তের সংবাদ কাউকে না দেয়। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭২৪, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৫৫]

৫৮১৭

জাবির ইবনি আবদুল্লাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যে লোক স্বপ্নযোগে আমাকে দেখল সে অবশ্যই আমাকেই দেখল। কারণ আমার রূপ ধারণ করা শাইতানের পক্ষে অসম্ভব। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭২৫, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৫৬]

৫৮১৮

জাবির [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

একবার এক বেদুঈন তাহাঁর নিকট এসে বলিল, আমি স্বপ্নে প্রত্যক্ষ করলাম যে, আমার মস্তিষ্ক কর্তন করা হয়েছে আর আমি তার পিছু পিছু ছুটে চলেছি। সে সময় নবী [সাঃআঃ] তাকে রাগান্বিত হয়ে বললেনঃ ঘুমের মধ্যে তোমার সঙ্গে শাইতানের খেলাধূলার সংবাদ কাউকে প্রকাশ করো না। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭২৬, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৫৭]

৫৮১৯

জাবির [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, এক বেদুঈন নবী [সাঃআঃ] -এর নিকট এসে বলিল, হে আল্লাহর রসূল! আমি স্বপ্নে দেখলাম যেন আমার মাথা কর্তন করা হয়েছে এবং তা গড়াতে শুরু করেছে, আর আমি তার পিছনে পিছনে খুব জোরে দৌড়াতে লাগলাম। তখন রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] সে বেদুঈন আরবকে বলিলেন, তোমার ঘুমের মধ্যে তোমার সঙ্গে শাইতানের ক্রীড়া-কৌতুকের ব্যাপারে কারো নিকটেই প্রকাশ করো না।

বর্ণনাকারী {জাবির [রাদি.]} বলেন, এ ঘটনার পর আমি নবী [সাঃআঃ] -কে ভাষণ দিতে শুনলাম। তাতে তিনি বলিলেন, তোমাদের কেউ ঘুমের মধ্যে তার সঙ্গে শাইতানের ক্রীড়া-কৌতুকের ব্যাপারে বলে দিও না। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৭২৭, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৫৮]

By মুসলিম শরীফ

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Leave a Reply