যে ব্যক্তি যিলহাজ্জ মাসের প্রথম দশদিনে প্রবেশ করিল …

যে ব্যক্তি যিলহাজ্জ মাসের প্রথম দশদিনে প্রবেশ করিল

যে ব্যক্তি যিলহাজ্জ মাসের প্রথম দশদিনে প্রবেশ করিল  >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

৭. অধ্যায়ঃ যে ব্যক্তি যিলহাজ্জ মাসের প্রথম দশদিনে প্রবেশ করিল এবং কুরবানী দেয়ার ইচ্ছা করিল তার জন্য চুল ও নখ কর্তন নিষেধ

৫০১১

উম্মু সালামাহ্‌ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সা] বলেছেনঃ যখন [যিলহাজ্জ মাসের] প্রথম দশদিন উপস্থিত হয়, আর তোমাদের কেউ কুরবানী করার ইচ্ছা করে, তবে সে যেন তার চুল ও নখের কিছুই স্পর্শ না করে [কর্তন না করে]।

সুফ্‌ইয়ান [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] কে বলা হলো, অনেকে তো হাদীসটিকে রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] হইতে উল্লেখ করেন না। তিনি বলিলেন, আমি কিন্তু রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] থেকেই উল্লেখ করি। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৯৫৫, ইসলামিক সেন্টার- ৪৯৬১]

৫০১২

উম্মু সালামাহ্‌ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যখন [যিলহাজ্জ মাসের] প্রথম দশদিন উপস্থিত হয় আর কারো নিকট কুরবানীর পশু উপস্থিত থাকে, যা সে জবেহ করার নিয়্যাত রাখে, তবে সে যেন তার চুল ও নখ না কাটে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৯৫৬, ইসলামিক সেন্টার- ৪৯৬২]

৫০১৩

উম্মু সালামাহ্‌ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সা] বলেছেনঃ যখন তোমরা যিলহাজ্জ মাসের [নতুন চাঁদ দেখিতে পাও] আর তোমাদের কেউ কুরবানী করার ইচ্ছা করে, তবে সে যেন তার চুল না ছাটে ও নখ না কাটে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৯৫৭, ইসলামিক সেন্টার- ৪৯৬৩]

৫০১৪

উমর কিংবা আমর ইবনি মুসলিম [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে এ সূত্র হইতে বর্ণীতঃ

অনুরূপ বর্ণনা করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৯৫৮, ইসলামিক সেন্টার- ৪৯৬৪]

৫০১৫

নবী [সাঃআঃ] এর স্ত্রী উম্মু সালামাহ্‌ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যে লোকের কাছে কুরবানীর পশু আছে সে যেন যিলহাজ্জের নতুন চাঁদ দেখার পর ঈদের দিন থেকে কুরবানী করা পর্যন্ত তার চুল ও নখ না কাটে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৯৫৯, ইসলামিক সেন্টার- ৪৯৬৫]

৫০১৬

আম্‌র ইবনি মুসলিম ইবনি আম্মার আল-লাইসী [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেছেন, আমরা গোসলখানায় ছিলাম কুরবানীর ঈদের কিছুদিন আগে। কতিপয় লোক চুন দিয়ে নাভীর নিচের পশম পরিস্কার করিল। গোসলখানায় উপস্থিত লোকদের একজন বলিলেন, সাঈদ ইবনি মুসাইয়্যিব [রাদি.] এটা অপছন্দ করেন। পরে আমি সাঈদ ইবনি মুসাইয়্যিব [রাদি.] এর সাথে দেখা করে বিষয়টি তাঁকে জানালাম। তিনি বলিলেন, হে ভাতিজা! এ হাদীসটি তো মানুষ ভুলে গেছে এবং ছেড়ে দিয়েছে। নবী [সাঃআঃ] এর স্ত্রী উম্মু সালামাহ্‌ [রাদি.] আমার কাছে হাদীসটি রিওয়ায়াত করিয়াছেন। তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ ……… রাবী মুহাম্মাদ ইবনি আম্‌র [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে মুআয [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বর্ণিত হাদীসের মতই অর্থবোধক শব্দাবলী উল্লেখ করেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৯৬০, ইসলামিক সেন্টার- ৪৯৬৬]

৫০১৭

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] এর স্ত্রী উম্মু সালামাহ্‌ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সাঃআঃ] বলেছেন …… অন্যান্যদের বর্ণিত হাদীসের সমার্থক। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৯৬১, ইসলামিক সেন্টার- ৪৯৬৭]

By মুসলিম শরীফ

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Leave a Reply