নতুন লেখা

মৃতকে কাফন পরানো

মৃতকে কাফন পরানো

মৃতকে কাফন পরানো  >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

১৩. অধ্যায়ঃ মৃতকে কাফন পরানো

২০৬৬

খাব্বাব ইবনিল আরাত [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

আমরা রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-এর সঙ্গে আল্লাহর রাস্তায় আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশে হিজরাত করলাম। অতএব, আল্লাহর কাছে আমাদের পুরস্কার পাওয়া অনিবার্য হয়েছে। আমাদের মধ্যে কেউ কেউ এভাবে দুন্‌ইয়া থেকে চলে গেলেন যে, তাহাঁর পুরস্কারের কোন কিছুই তিনি ভোগ করেননি। মুসআব ইবনি উমায়র [রাদি.] তাদের অন্যতম। তিনি উহুদ যুদ্ধের দিন শাহাদাত বরণ করেন। তাঁকে কাফন দেয়ার মতো একটি চাদর ছাড়া আর কিছুই পাওয়া যায়নি। আমরা যখন তা দিয়ে তাহাঁর মাথা ঢাকলাম পা বেরিয়ে আসল। আর যখন পায়ের উপর রাখলাম, মাথা বেরিয়ে আসল। তখন রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বললেনঃ“তোমরা চাদরটি এভাবে পরাও যাতে তা মাথা জড়িয়ে থাকে আর তাহাঁর পা ইযখির নামক [এক প্রকার] শুকনো ঘাস দিয়ে ঢেকে দাও”। এছাড়া আমাদের মধ্যে কারো কারো ফল পেকে গেছে, যা তারা আহরণ করছে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২০৪৫, ইসলামিক সেন্টার- ২০৫০]

২০৬৭

আমাশ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

একই সূত্রে অনুরূপ বর্ণনা করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২০৪৬, ইসলামিক সেন্টার- ২০৫১]

২০৬৮

আয়েশাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলূল্লাহ [সাঃআঃ]-কে [সিরিয়ার] সাহূল নগরীর তৈরি তিন কাপড় দ্বারা কাফন দেয়া হয়। তন্মধ্যে জামা ও পাগড়ী ছিল না। [তাহাঁর নিকট সংরক্ষিত] জোড়া কাপড় সম্পর্কে মানুষের মধ্যে দ্বিধা-দন্দ্ব ছিল যে, তা কাফনের উদ্দেশে খরিদ করা হয়েছে কিনা? তাই তা রেখে দেয়া হল এবং সাহূল নগরীর তৈরি সাদা তিন কাপড়েই কাফন দেয়া হল। এদিকে আবদুল্লাহ ইবনি আবু বকর [রাদি.] জোড়াটা নিয়ে বলিলেন, আমি অবশ্যই তা সংরক্ষণ করব এবং আমি নিজেকে এর দ্বারা কাফন দিব। তিনি পুনরায় বলিলেন, আল্লাহ যদি এটা তাহাঁর নবীর জন্য পছন্দ করিতেন, তবে অবশ্যই তিনি তা দিয়ে কাফনের ব্যবস্থা করিতেন। অতঃপর তা বিক্রি করে তিনি তার মূল্য সদাক্বাহ্‌ করে দিলেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২০৪৭, ইসলামিক সেন্টার- ২০৫২]

২০৬৯

আয়েশাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলূল্লাহ [সাঃআঃ]- প্রথমে ইয়ামানী জোড়া কাপড়ে রাখা হয়েছিল, যা ছিল আবদুল্লাহ ইবনি আবু বাক্‌র-এর। অতঃপর তা তাহাঁর থেকে খুলে ফেল হল এবং ইয়ামন দেশের সাহূল নগরের তৈরি কাপড়ের তিন কাপড় দ্বারা কাফন দেয়া হল। এতে পাগড়ী ও কামিজ ছিল না। অতঃপর আবদুল্লাহ জোড়া চাদরটা তুলে বললেনঃএ কাপড়ে আমার কাফন দেয়া হইবে। একটু পর আবার বলিলেন, যে কাপড় দিয়ে রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে কাফন দেয়া হয়নি তা দিয়ে আমার কাফন দেয়া হইবে? অতঃপর তিনি তা সদাক্বাহ করে দিলেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২০৪৮, ইসলামিক সেন্টার- ২০৫৩]

২০৭০

আবু বাকর ইবনি আবু শায়বাহ্, ইয়াহ্ইয়া ইবনি ইয়াহ্ইয়া [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] ….. সকলে হিশাম [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

উক্ত সানাদে বর্ণনা করিয়াছেন। তবে তাদের হাদীসে আবদুল্লাহ ইবনি আবু বকর-এর ঘটনা উল্লেখ নেই। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২০৪৯, ইসলামিক সেন্টার- ২০৫৪]

২০৭১

আবু সালামাহ্‌ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি নবী [সাঃআঃ]-এর স্ত্রী আয়িশা [রাদি.]-কে জিজ্ঞেস করলাম। রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে কয়টি কাপড়ে কাফন দেয়া হয়েছিল? তিনি বলিলেন, তিন কাপড়ে যা সাহূল অঞ্চলের তৈরি ছিল। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২০৫০, ইসলামিক সেন্টার- ২০৫৫]

About halalbajar.com

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Check Also

মহান আল্লাহর বাণী : “তারা দুটি বিবদমান পক্ষ তাদের প্রতিপালক সম্পর্কে বাক-বিতণ্ডা করে”

মহান আল্লাহর বাণী : “তারা দুটি বিবদমান পক্ষ তাদের প্রতিপালক সম্পর্কে বাক-বিতণ্ডা করে” মহান আল্লাহর …

Leave a Reply

%d bloggers like this: