ফল এবং শস্যের একটি অংশের বিনিময়ে মুসাকাহ ও মুআমালাহ্

ফল এবং শস্যের একটি অংশের বিনিময়ে মুসাকাহ ও মুআমালাহ্

ফল এবং শস্যের একটি অংশের বিনিময়ে মুসাকাহ ও মুআমালাহ্ >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

১. অধ্যায়ঃ ফল এবং শস্যের একটি অংশের বিনিময়ে মুসাকাহ ও মুআমালাহ্

৩৮৫৪

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রাসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] খাইবারবাসীদের উৎপন্ন ফল-ফসলের আধাআধি শর্তে খাইবারের জমি বর্গা দিয়েছিলেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৮১৮, ইসলামিক সেন্টার-৩৮১৭]

৩৮৫৫

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] খাইবারের জমি উৎপন্ন ফল ও ফসলের আধাআধির শর্তে দিয়েছিলেন। তিনি নিজ স্ত্রীদেরকে বছর প্রতি একশ ওসাক প্রদান করিতেন। তম্মধ্যে আশি ওসাক খুরমা আর বিশ ওসাক যব। উমর [রাদি.] যখন খলীফা হন তখন খাইবারের জমি তিন ভাগে ভাগ করে দেন। তিনি নবী সহধর্মিণীদেরকে ইখ্‌তিয়ার দেন যে, তাঁরা ভূমি ও পানি নিবেন। [অর্থাৎ- নিজেদের দায়িত্বে চাষাবাদের ব্যবস্থা করবেন] অথবা বার্ষিক হারে ওসাক গ্রহণ করবেন। তাঁরা এ ব্যাপারে ভিন্নভিন্ন মত গ্রহণ করেন। তাঁদের মধ্যে কেউ ভূমি ও পানি নিলেন আর কেউ বার্ষিক হারে ওসাক গ্রহণ করিলেন। আয়িশাহ্ ও হাফ্সাহ্ [রাদি.] ভূমি ও পানি নিয়েছিলেন। [ ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৮১৯, ইসলামিক সেন্টার-৩৮১৮]

৩৮৫৬

আবদুল্লাহ্‌ ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] খাইবারের জমি খাইবারবাসীদের উৎপন্ন শস্য ও ফলের অর্ধেকের শর্তে ব্যবস্থা দিয়েছিলেন এরপর হাদীসটি আলী ইবনি মুসহিরের বর্ণিত হাদীসের ন্যায় বর্ণনা করেন। তবে এ কথাটি তিনি উল্লেখ করেননি যে, আয়িশাহ্ ও হাফ্সাহ [রাদি.] জমি ও পানি নিয়েছিলেন। তিনি এ কথা বলেছেন যে, উমর [রাদি.] নবী সহধর্মিণীদের ইখতিয়ার দেন জমি নিতে, তবে সেখানে পানির উল্লেখ করেননি। [ ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৮২০, ইসলামিক সেন্টার-৩৮১৯ ]

৩৮৫৭

আবদুল্লাহ ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, খাইবার বিজয়ের পর ইয়াহূদীরা রাসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -এর নিকট নিবেদন করে তাদের শ্রমের বিনিময়ে তাদেরকে তথায় থাকতে দেয়ার জন্যে এই শর্তে যে, উৎপন্ন ফসল ও ফলের অর্ধেক তারা পাবে। তখন রাসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বললেনঃ উপরোক্ত শর্তে যতদিন আমরা চাই ততদিনের জন্যে থাকার অনুমতি দিলাম। এরপরে আবদুল্লাহ থেকে ইবনি নুমায়র ও ইবনি মুসহিরের বর্ণিত হাদীসের অনুরূপ বর্ণনা করেন। তবে তাতে এতটুকু বাড়তি আছে যে, খাইবারের প্রাপ্ত ফলকে কয়েক ভাগে ভাগ করা হত। আর তা থেকে রাসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] পাঁচ ভাগের এক ভাগ গ্রহণ করিতেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৮২১, ইসলামিক সেন্টার-৩৮২০]

৩৮৫৮

আবদুল্লাহ্ ইবনি উমর [রাদি.] সুত্রে রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] হইতে বর্ণীতঃ

খাইবারের বাগান ও যমীন খাইবারের ইয়াহূদীদেরকে এ শর্তে প্রদান করেন যে, তারা নিজেদের মাল খরচ করে তাতে কাজ করিবে, আর রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] তার ফলের অর্ধেক প্রাপ্ত হইবেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৮২২, ইসলামিক সেন্টার-৩৮২১]

৩৮৫৯

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

উমর ইবনিল খাত্তাব [রাদি.] ইয়াহূদী ও নাসারাদেরকে হিজাজের মাটি থেকে বিতাড়িত করে দেন। রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] যখন খাইবার জয় করেন তখন তিনি তাদের তথা হইতে বের করে দিতে চেয়েছিলেন। খাইবার যখন বিজিত হলো তখন তা আল্লাহ্‌, তাহাঁর রসূল ও মুসলিমদের সম্পত্তি হিসেবে পরিণত হয়। তাই তিনি [সাঃআঃ] ইয়াহূদীদের বিতাড়িত করার ইচ্ছা পোষণ করেন। পরে ইয়াহূদীরা রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -এর নিকট এসে তথায় তাদের থাকার অনুমতি প্রার্থনা করে এই শর্তে যে, তারা শ্রম বিনিয়োগ করিবে এবং উৎপাদিত ফলের অর্ধেক নিবে। রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেনঃ যতদিন এ শর্তের উপর আমাদের ইচ্ছা, থাকার অনুমতি দিলাম। এরপর তারা তথায় রয়ে গেল। পরে উমর [রাদি.]তাদের তায়মা ও আরীহায় বিতাড়িত করেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৮২৩, ইসলামিক সেন্টার-৩৮২২]

By মুসলিম শরীফ

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Leave a Reply