মুমিন ব্যক্তি কোন রোগ, দুশ্চিন্তা ইত্যাদিতে পতিত হলে …

মুমিন ব্যক্তি কোন রোগ, দুশ্চিন্তা ইত্যাদিতে পতিত হলে

মুমিন ব্যক্তি কোন রোগ, দুশ্চিন্তা ইত্যাদিতে পতিত হলে >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

১৪. অধ্যায়ঃ মুমিন ব্যক্তি কোন রোগ, দুশ্চিন্তা ইত্যাদিতে পতিত হলে এমনকি তার গায়ে কাঁটাবিদ্ধ হওয়াও তার সাওয়াব

৬৪৫১

মাসরূক [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আয়িশা [রাদি.] বলেছেন, আমি রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-এর চাইতে অধিকতর রোগ যন্ত্রণার কষ্ট অন্য কোন ব্যক্তির উপর দেখিনি। উসমানের বর্ণনায় الْوَجَعِ এর স্থলেوَجَعًا উল্লেখ রয়েছে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৩২৩, ইসলামিক সেন্টার- ৬৩৭২]

৬৪৫২

আমাশ থেকে জারীর হইতে বর্ণীতঃ

আমাশ থেকে জারীর-এর সানাদে তাহাঁর হাদীসের অনুরূপ হাদীস বর্ণনা করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৩২৪, ইসলামিক সেন্টার- ৬৩৭৩]

৬৪৫৩

আবদুল্লাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -এর কাছে আসলাম। তখন তিনি জ্বরাক্রান্ত ছিলেন। আমি তাঁকে আমার হাতে স্পর্শ করে বললাম, হে আল্লাহর রসূল [সাঃআঃ]! আপনি তো ভীষণভাবে জ্বরাক্রান্ত। তখন রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলিলেন, হ্যাঁ, আমি এ পরিমাণ জ্বরে ভুগছি, যে পরিমাণ তোমাদের দুজনের হয়ে থাকে। তিনি বলেন, আমি বললাম, এ কারণেই আপনার জন্য দ্বিগুণ প্রতিদান রয়েছে। তখন রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলিলেন, কোন মুসলিম ব্যক্তির জ্বর কিংবা অন্য কোন কারণে বিপদ আপতিত হলে তার বিনিময়ে আল্লাহ তাআলা এমনভাবে তার অপরাধসমূহ ক্ষমা করে দেন যেভাবে বৃক্ষাদি পাতা ঝরায়।

তবে যুহায়র বর্ণিত হাদীসে আমি আমার হাতে তাকে স্পর্শ করি অংশটুকু উল্লেখ নেই। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৩২৫, ইসলামিক সেন্টার- ৬৩৭৪]

৬৪৫৪

আমাশ থেকে জারীর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

আমাশ থেকে জারীর [রাদি.]-এর সানাদে তাহাঁর বর্ণিত হাদীসের অনুরূপ বর্ণনা করেন। আর আবু মুআবিয়াহ্ [রাদি.] কর্তৃক বর্ণিত হাদীসে অতিরিক্ত আছে, তিনি বলেন, হ্যাঁ, সে সত্তার কসম যাঁর হাতে আমার জীবন! পৃথিবীতে এমন কোন মুসলিম ব্যক্তি নেই… [শেষ পর্যন্ত]। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৩২৬, ইসলামিক সেন্টার- ৬৩৭৫]

৬৪৫৫

আসওয়াদ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, কয়েকজন কুরাইশী যুবক আয়িশা [রাদি.]-এর কাছে আগমন করিল। তখন তিনি মিনায় অবস্থান করছিলেন। সে সময় তারা হাসছিল। আয়িশা [রাদি.] বলিলেন, কোন্‌ বিষয় তোমাদেরকে হাসাচ্ছে? তারা বলিল, অমুক ব্যক্তি তাঁবুর রশির উপর পড়ে গেছে। ফলে তার গর্দান কিংবা চোখ নিষ্পিষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়। তিনি বলিলেন, তোমরা হেসো না। কেননা আমি শুনেছি, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যে কোন মুসলিমের গায়ে একটি কাঁটা বিদ্ধ হয় কিংবা তার চেয়েও অধিক ছোট্ট কোন আঘাত লাগে, তার বিনিময়ে তার একটি মর্যাদা বৃদ্ধি পায় এবং তার একটি গুনাহ ক্ষমা করে দেয়া হয়। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৩২৭, ইসলামিক সেন্টার- ৬৩৭৬]

৬৪৫৬

আয়েশাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ কোন ঈমানদার ব্যক্তির শরীরে একটি মাত্র কাঁটার আঘাত কিংবা তার চাইতেও কোন নগণ্য আঘাত লাগলে আল্লাহ তাআলা তার একটি মর্যাদা বাড়িয়ে দেন কিংবা তার একটি গুনাহ্‌ মোচন করে দেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৩২৮, ইসলামিক সেন্টার- ৬৩৭৭]

৬৪৫৭

আয়েশাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ কোন ঈমানদার ব্যক্তির দেহে একটি কাঁটা বিদ্ধ হলে কিংবা তার চেয়ে অধিক ক্ষুদ্র কোন মুসীবাত আপতিত হলে তার পরিবর্তে আল্লাহ তাআলা তার একটি গুনাহ মাফ করে দেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৩২৯, ইসলামিক সেন্টার- ৬৩৭৮]

৬৪৫৮

আবু কুরায়ব [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হিশাম-এর সূত্রে হইতে বর্ণীতঃ

আবু কুরায়ব [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হিশাম-এর সূত্রে এ সানাদে অনুরূপ বর্ণনা করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৩৩০, ইসলামিক সেন্টার- ৬৩৭৮]

৬৪৫৯

আয়িশাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ কোন মুসলিমের উপর কোন বিপদ নিপতিত হলে তার বিনিময়ে তার গুনাহের কাফ্ফারা হয়ে যায়, এমনকি ক্ষুদ্রতর কোন কাঁটা বিদ্ধ হলেও। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৩৩১, ইসলামিক সেন্টার- ৬৩৮০]

৬৪৬০

নবী [সাঃআঃ]-এর সহধর্মিণী আয়িশাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ ঈমানদার ব্যক্তির উপর কোন বিপদাপদ আসলে, এমনকি একটি কাঁটা বিদ্ধ হলেও তার বিনিময়ে তার অপরাধ মোচন করা হয় কিংবা তার গুনাহ মিটিয়ে দেয়া হয়।

ইয়াযীদ স্মরণ রাখতে পারেননি যে, উরওয়াহ্ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] কোন্ শব্দটি উল্লেখ করিয়াছেন, [আরবী] না [আরবী] [তবে শাব্দিক অর্থ একই, অর্থাৎ ক্ষমা করে দেয়া]। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৩৩২, ইসলামিক সেন্টার- ৬৩৮১]

৬৪৬১

আয়েশাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -কে বলিতে শুনেছি যে, ঈমানদার ব্যক্তির উপর কোন বিপদ আপতিত হলে, এমনকি কোন কাঁটা বিঁধলেও তার বিনিময়ে তাকে একটি প্রতিদান দেয়া হয়; কিংবা তার একটি গুনাহ্‌ ক্ষমা করে দেয়া হয়। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৩৩৩, ইসলামিক সেন্টার- ৬৩৮২]

৬৪৬২

আবু সাঈদ আল খুদরী ও আবু হুরাইরাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তারা উভয়ে রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -কে বলিতে শুনেছেন যে, কোন ঈমানদার ব্যক্তির এমন কোন ব্যথা-বেদনা, রোগ-ব্যাধি, দুঃখ-কষ্ট পৌঁছে না, এমনকি দুর্ভাবনা পর্যন্ত, যার প্রতিদানে তার কোন গুনাহ্ ক্ষমা করা হয় না। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৩৩৪, ইসলামিক সেন্টার- ৬৩৮৩]

৬৪৬৩

আবু হুরাইরাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, যখন এ আয়াত

مَنْ يَعْمَلْ سُوءًا يُجْزَ بِهِ

“যে ব্যক্তি মন্দ কাজ করে, তার প্রতিফল সে ভোগ করিবে”- [সুরা আন্‌ নিসা ৪ ঃ ১২৩] অবতীর্ণ হলো তখন কতিপয় মুসলিম ভয়ানক দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হয়ে পড়েন। তখন রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বললেনঃতোমরা মধ্যম পন্থা অবলম্বন করো এবং সঠিক পন্থা গ্রহণ করো। একজন মুসলিম তার প্রত্যেকটি বিপদের পরিবর্তে এমনকি সে আছাড় খেলে কিংবা তার শরীরে কোন কাঁটা বিদ্ধ হলেও তাতে তার [গুনাহের] কাফফারাহ্‌ হয়ে যায়।

ঈমাম মুসলিম [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বলেন, উমর ইবনি আবদুর রহ্‌মান ইবনি মুহাইসিন মাক্কার অধিবাসী ছিলেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৩৩৫, ইসলামিক সেন্টার- ৬৩৮৪]

৬৪৬৪

জাবির ইবনি আবদুল্লাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] একদিন উম্মু সায়িব কিংবা উম্মুল মুসাইয়্যাব [রাদি.]-এর কাছে গিয়ে বলিলেন, তোমার কি হয়েছে হে উম্মু সায়িব অথবা উম্মুল মুসাইয়্যাব! কাঁদছ কেন? তিনি বলিলেন, ভীষণ জ্বর, একে আল্লাহ বর্ধিত না করুন। তখন তিনি বলিলেন, তুমি জ্বরকে গালমন্দ করো না। কেননা জ্বর আদাম সন্তানের পাপরাশি মোচন করে দেয়, যেভাবে হাঁপর লোহার মরিচিকা দূরীভূত করে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৩৩৬, ইসলামিক সেন্টার- ৬৩৮৫]

৬৪৬৫

আতা ইবনি রাবাহ্‌ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আবদুল্লাহ ইবনি আব্বাস [রাদি.] আমাকে বলেছেন, আমি কি তোমাকে এক জান্নাতী মহিলার কথা বলব? আমি বললাম, হ্যাঁ। তিনি বলিলেন, এক কৃষ্ণকায় মহিলা নবী [সাঃআঃ]-এর কাছে এসে বলেছিল, আমি মৃগীরোগে আক্রান্ত হই এবং এ অবস্থায় আমি উলঙ্গ হয়ে পড়ি। অতএব আপনি আমার জন্য আল্লাহ নিকট দুআ করুন। তিনি বলিলেন, যদি তুমি চাও, ধৈর্যধারণ কর। তাহলে তোমার জন্য বিনিময় রয়েছে জান্নাত। আর যদি তুমি চাও তাহলে আমি আল্লাহর দরবারে দুআ করি যেন তিনি তোমাকে আরোগ্যতা দান করেন। তখন সে বলিল, আমি ধৈয্যধারণ করব। তবে আমি যে সে অবস্থায় সতর খুলে ফেলি। কাজেই আপনি আল্লাহর কাছে দুআ করুন যেন আমি সতর খুলে না ফেলি। তখন তিনি তার জন্য দুআ করিলেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৩৩৭, ইসলামিক সেন্টার- ৬৩৮৬]

By মুসলিম শরীফ

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Leave a Reply