মিসওয়াক এর বিবরণ

মিসওয়াক এর  বিবরণ

মিসওয়াক এর  বিবরণ  >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

১৫. অধ্যায়ঃ মিসওয়াক এর  বিবরণ

৪৭৭

আবু হুরাইরাহ্[রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, নবী [সাঃআঃ] বলেছেনঃ মুমিনদের জন্যে এবং যুহায়র-এর বর্ণিত হাদীসে রয়েছে, আমার উম্মাতের জন্য যদি কষ্টসাধ্য না হতো, তাহলে অবশ্যই তাদেরকে প্রত্যেক নামাজের সময় মিসওয়াক করার নির্দেশ দিতাম। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৮০, ইসলামিক সেন্টার- ৪৯৬]

৪৭৮

মিকদাম-এর পিতা শুরায়হ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি আয়িশা [রাদি.]-কে জিজ্ঞেস করলাম যে, রাসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] তাহাঁর ঘরে ঢুকে সর্বপ্রথম কোন্‌ কাজটি করিতেন? তিনি বলিলেন, সর্বপ্রথম মিসওয়াক করিতেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৮১, ইসলামিক সেন্টার- ৪৯৭]

৪৭৯

আয়িশাহ্[রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সাঃআঃ] [বাইরে থেকে এসে] বাড়িতে প্রবেশ করে সর্বপ্রথম মিসওয়াক করিতেন। [ই.ফা.৪৮২, ইসলামিক সেন্টার- ৪৯৮]

৪৮০

আবু মূসা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলিলেন, আমি একবার নবী[সাঃআঃ]-এর কাছে গেলাম তখন মিসওয়াকের এক অংশ তাহাঁর জিহবার উপর ছিল। [ই.ফা.৪৮৩, ইসলামিক সেন্টার- ৪৯৯]

৪৮১

হুযাইফাহ্‌ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ[সাঃআঃ] যখন তাহাজ্জুদের জন্যে উঠতেন তখন মিসওয়াক দ্বারা ঘষে মুখ পরিষ্কার করিতেন। [ই.ফা.৪৮৪, ইসলামিক সেন্টার- ৫০০]

৪৮২

হুযাইফাহ্‌ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] যখন রাতে উঠতেন এরপর অনুরূপ বর্ণনা রয়েছে। এ হাদীসে তাহাজ্জুদের কথা উল্লেখ করা হয়নি। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৮৫, ইসলামিক সেন্টার- ৫০১]

৪৮৩

হুযাইফাহ্‌ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রাসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] যখন রাতে উঠতেন তখন মিসওয়াক দ্বারা ঘষে মুখ পরিষ্কার করিতেন। [ই.ফা.৪৮৬, ইসলামিক সেন্টার- ৫০২]

৪৮৪

ইবনি আব্বাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

একদা তিনি আল্লাহর নবী [সাঃআঃ]-এর কাছে রাত কাটালেন। [তিনি দেখলেন] আল্লাহর নবী [সাঃআঃ] শেষ রাতে ঘুম থেকে উঠলেন এবং বাইরে গিয়ে আকাশের দিকে তাকালেন এর পরে সুরা আ-লি ইমরানের এ আয়াতটি তিলওয়াত করলেনঃ আকাশ ও পৃথিবীর সৃষ্টি এবং রাত ও দিনের আবর্তনে জ্ঞানীদের জন্যে বহু নিদর্শন রয়েছে… অতএব আপনি অনুগ্রহ করে আমাদেরকে আগুনের শাস্তি থেকে রক্ষা করুন পর্যন্ত পড়লেন-[সূরাহ আ-লি ইমরান ৩ঃ ১৯০-১৯১]। অতঃপর ঘরে ফিরে এসে মিসওয়াক ও ওযূ করিলেন। এরপর দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করিলেন। নামাজ শেষে শুয়ে পড়লেন। পুনরায় কিছুক্ষন পরে উঠে বাইরে গেলেন এবং আকাশের দিকে তাকিয়ে উক্ত আয়াতটি পাঠ করিলেন। অতঃপর ফিরে এসে [আবার] মিসওয়াক করে ওযূ করিলেন; অতঃপর ফাজ্‌রের নামাজ আদায় করিলেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৮৭, ইসলামিক সেন্টার- ৫০৩]

By মুসলিম শরীফ

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Leave a Reply