মিথ্যা কসম এর মাধ্যমে কোন মুসলিমের হাক তসরুফকারীর

মিথ্যা কসম এর মাধ্যমে কোন মুসলিমের হাক তসরুফকারীর

মিথ্যা কসম এর মাধ্যমে কোন মুসলিমের হাক তসরুফকারীর >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

৬১. অধ্যায়ঃ মিথ্যা কসম এর মাধ্যমে কোন মুসলিমের হাক তসরুফকারীর প্রতি জাহান্নামের হুমকী

২৫০

আবু উমামাহ্‌ [রাঃআ:] হইতে বর্ণিতঃ

রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] বলেনঃ যে ব্যক্তি কসমের মাধ্যমে কোন মুসলিমের হাক্‌ বিনষ্ট করে তার জন্য আল্লাহ জাহান্নাম ওয়াজিব করে রেখেছেন এবং জান্নাত হারাম করে রেখেছেন। তখন জনৈক ব্যক্তি জিজ্ঞেস করিল, হে আল্লাহর রসূল! অতি সামান্য বস্তু হলেও? রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] বললেনঃ আরাক [বাবলা গাছের মত এক ধরনের কাঁটাযুক্ত] গাছের ডাল হলেও এ শাস্তি দেয়া হইবে। {৪৯} [ই.ফা. ২৫২; ই.সে. ২৬১]

{৪৯} মুসলিমের হাক্‌ নষ্ট করা পাপের কাজ। তদুপরি মিথ্যা কসম খেয়ে কারো হাক্‌ নষ্ট করা মহাপাপ। যার শাস্তি জান্নাত হতে বঞ্চিত হয়ে জাহান্নামে প্রবেশ করে। সে হাক্‌ ছোট হোক আর বড়ই হোক। শাস্তি ভোগ করিতেই হইবে। কেননা সে ইসলামের হাক্‌ উপলব্ধি করেনি এবং আল্লাহর নামের মর্যাদাও রক্ষা করেনি। ইমাম নাবাবী [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বলেন, উপরোক্ত হাদীসের ব্যাখ্যা দুইভাবে করা যায়।

২৫১

আবু উমামাহ আল হারিসী [রাঃআ:] হইতে বর্ণিতঃ

অনুরূপ হাদীস বর্ণনা করিয়াছেন। [ই.ফা. ২৫৩; ই.সে. ২৬২]

২৫২

আবদুল্লাহ [রাঃআ:] হইতে বর্ণিতঃ

রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] ইরশাদ করিয়াছেন, যে ব্যক্তি তার উপর অর্পিত চূড়ান্ত কসমের মাধ্যমে কোন মুসলিমের সম্পদ আত্মসাৎ করে অথচ সে মিথ্যাবাদী। এমন অবস্থায় আল্লাহর সাথে তার সাক্ষাৎ ঘটবে যে, তিনি তার প্রতি রেগে থাকিবেন। রাবী বলেন, আশআস ইবনি কায়স তথায় প্রবেশ করিলেন এবং জিজ্ঞেস করিলেন, আবু আবদুর রহমান [আবদুল্লাহ] তোমাদেরকে কি বর্ণনা করিলেন? তদুত্তরে সকলে উক্ত হাদীসটির কথা বলিলেন, তিনি বলিলেন, আবু আবদুর রহমান সত্যই বর্ণনা করিয়াছেন, ঘটনাটি আমাকে কেন্দ্র করেই ঘটেছিল। ব্যাপার হলো ইয়ামানে জনৈক ব্যক্তির সাথে আমারও একখণ্ড ভূমি ছিল। এর মীমাংসা করার জন্য আমরা রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:]-এর খিদমাতে উপস্থিত হই, রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] আমাকে জিজ্ঞেস করিলেন, তোমার দাবীর স্বপক্ষে তোমার নিকট কোন প্রমাণ আছে কি? আমি বললাম, না। রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] বলিলেন, তা হলে বিবাদীর কসম নেয়া হইবে। আমি বললাম, এ ব্যক্তি তো কসম করিবেই। রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] বলিলেন, যে ব্যক্তি তার উপর অর্পিত চূড়ান্ত কসমের মাধ্যমে কোন মুসলিমের সম্পদ গ্রাস করে অথচ সে মিথ্যাবাদী আল্লাহর সাথে এমন অবস্থায় তার সাক্ষাৎ ঘটবে যে, আল্লাহ তার প্রতি ক্রোধান্বিত থাকিবেন। এরপর এ আয়াত নাযিল হয়,

 إِنَّ الَّذِينَ يَشْتَرُونَ بِعَهْدِ اللَّهِ وَأَيْمَانِهِمْ ثَمَنًا قَلِيلاً

“যারা আল্লাহর সাথে কৃত ওয়াদা এবং নিজেদের কসম তুচ্ছ মূল্যে বিক্রি করে, পরকালে তাহাদের কোন অংশ নেই। কিয়ামাত দিবসে আল্লাহ তাহাদের সাথে কথা বলবেন না, তাহাদের দিকে তাকাবেন না এবং তাহাদেরকি পরিশুদ্ধ করবেন না; তাহাদের জন্য রয়েছে মর্মন্তুদ শাস্তি”-[সূরাহ আ-লি ইমরান ৩ : ৭৭]। [ই.ফা. ২৫৪; ই.সে. ২৬৩]

২৫৩

আবদুল্লাহ [রাঃআ:] হইতে বর্ণিতঃ

যে ব্যক্তি মিথ্যা কসমের মাধমে কোন সম্পদ আত্মসাৎ করিবে আল্লাহর সঙ্গে তার সাক্ষাৎ ঘটবে এমন অবস্থায় যে, তিনি তার প্রতি রেগে থাকিবেন। পরে বর্ণনাকারী আমাশ বর্ণিত হাদীসের অনুরূপ বর্ণনা করেন। তবে তিনি [ইয়ামানের ভূমির স্থলে] এ কথা বলেন, জনৈক ব্যক্তির সাথে আমার সাথে একটি কূপ নিয়ে বিরোধ ছিল। আমরা এর মীমাংসার জন্য রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:]-এর কাছে উপস্থিত হই। তখন তিনি বলিলেন, তোমার দুজন সাক্ষী লাগবে অথবা বিবাদী থেকে কসম নেয়া হইবে। [ই.ফা. ২৫৫; ই.সে. ২৬৪]

২৫৪

ইবনি মাসউদ [রাঃআ:] হইতে বর্ণিতঃ

রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:]-কে বলিতে শুনিয়াছি : যে ব্যক্তি কোন মুসলিমের সম্পদ আত্মসাতের জন্য মিথ্যা কসম করিবে আল্লাহর সঙ্গে তার সাক্ষাৎ ঘটবে এমন অবস্থায় যে, তিনি তার প্রতি রেগে থাকিবেন। আবদুল্লাহ [রাঃআ:] বলেন, তারপর রসুলুল্লাহ [সাঃআ:] প্রমাণ হিসেবে এ আয়াত পাঠ করেন :

 إِنَّ الَّذِينَ يَشْتَرُونَ بِعَهْدِ اللَّهِ وَأَيْمَانِهِمْ ثَمَنًا قَلِيلاً

“যারা আল্লাহর সাথে কৃত প্রতিশ্রুতি এবং নিজেদের শপথ তুচ্ছ মূল্যে বিক্রয় করে, [পরকালে তাহাদের কোন অংশ নেই। কিয়ামাতের দিনে আল্লাহ তাহাদের সাথে কথা বলবেন না, তাহাদের দিকে তাকাবেন না এবং তাহাদেরকে পরিশুদ্ধ করবেন না; তাহাদের জন্য মর্মন্তুদ শাস্তি রয়েছে]-[সূরাহ আ-লি ইমরান ৩ : ৭৭]। [ই.ফা. ২৫৬; ই.সে. ২৬৫]

২৫৫

ওয়ায়িল [রাঃআ:] হইতে বর্ণিতঃ

ওয়ায়িল [রাঃআ:] বলেন হাযরামাওতের জনৈক ব্যক্তি কিনদীর এক ব্যক্তিকে নিয়ে রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:]-এর কাছে উপস্থিত হয়। হাযরামাওতবাসী লোকটি বলিল, হে আল্লাহর রসূল! এ ব্যক্তি আমার একটি পৈতৃক ভূমি জোর করে দখল করে। কিনদী বলে উঠল না, এতো আমারই সম্পত্তি এবং আমারই দখলে আছে। এতে আমি চাষাবাদ করি, এতে কারোর কোন অধিকার নেই। তখন রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] হাযরামাওতবাসীকে বললেনঃ তোমার কোন সাক্ষী আছে? সে উত্তর দিল, না। রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] বললেনঃ তা হলে এ বিষয়ে বিবাদী কসম করিবে। হাযরামাওতবাসী বলিল, হে আল্লাহর রসূল! এতো অসৎ লোক, কসম করার বিষয়ে তার আদৌ পরোয়া নেই। আর সে কোন কিছুরই বাছ বিচার করে না। রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] বলিলেন, এছাড়া তার কাছ থেকে তোমার নেয়ার আর কোন পথ নেই। এরপর কিনদী শপথ করিতে উদ্যোগ নিল। তখন রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] বলেন, যদি সে [কিনদী] অন্যায়ভাবে সম্পদ আত্মসাৎ করার জন্য শপথ করে তবে সে অবশ্যই আল্লাহর কাছে এমন অবস্থায় উপস্থিত হইবে যে, তিনি তাহাঁর মুখ ফিরিয়ে নিবেন। [ই.ফা. ২৫৭; ই.সে. ২৬৬]

২৫৬

ওয়ায়িল ইবনি হুজ্‌র [রাঃআ:] হইতে বর্ণিতঃ

আমি রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:]-এর কাছে উপস্থিত ছিলাম। ইত্যবসরে দুব্যক্তি তাহাঁর নিকট এসে একটি ভূমি সম্পর্কে বিচার প্রার্থনা করে। তন্মধ্যে একজন বলিল, হে আল্লাহর রসূল! জাহিলী যুগে এ ব্যক্তি আমার ভূমি জোর করে দখল করেছে। বর্ণনাকারী বলেন, বিচার প্রার্থনাকারী ছিল ইমরুল কায়স ইবনি আবিস আল কিনদী আর তার বিবাদী ছিল রাবিআহ ইবনি আব্‌দান। রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] বলিলেন, তোমার সাক্ষী পেশ কর। লোকটি বলিল, আমার কোন সাক্ষী নেই। রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] বললেনঃ তা হলে বিবাদী থেকে কসম নেয়া হইবে। লোকটি বলিল, তবে তো সে মিথ্যা কসম করে সম্পত্তি আত্মসাৎ করিবে। রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] বললেনঃ এছাড়া তার কাছ থেকে তোমার নেয়ার আর কোন পথ নেই। বর্ণনাকারী বলেন, এরপর বিবাদী যখন শপথ করার জন্য প্রস্তুত হলো, তখন রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] বললেনঃ যে অন্যায়ভাবে সম্পত্তি আত্মসাৎ করিবে সে আল্লাহর কাছে এমন অবস্থায় উপস্থিত হইবে যে, তিনি তার প্রতি রেগে থাকিবেন। রাবী ইসহাক্‌ তার বর্ণনায় [আরবী] [রাবীআহ্‌ ইবনি আইদান] উল্লেখ করেন। {৫০} [ই.ফা. ২৫৮; ই.সে. ২৬৭]

{৫০} ইমাম নাবাবী [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বলেন : এ হাদীস হতে কতগুলো মাসআলা লক্ষ্য করা যায়-

[১] অধিকার দখলকারী বেশী হাক্‌দার হইবে, যার দখলে নেই তার থেকে। [২] বিবাদী অস্বীকার করিবে আর বাদীর নিকট কোন সাক্ষী থাকিবে না, তখন বিবাদী কসম খাবে। [৩] দখলের চাইতে সাক্ষী কার্যকরী বেশী। কাজেই যার নিকটে সাক্ষী থাকিবে তার সাক্ষীর সাক্ষ্য নেয়ার পর তাকেই অভিযুক্ত জিনিসটি প্রদান করা হইবে। কসমের প্রয়োজন হইবে না। [৪] বিবাদী যদি অসৎ ফাসিক হয় তাহলেও তার কসম গ্রহণ করা হইবে। এর সাথে বাদীর দাবী শেষ হয়ে যাবে। [৫] বাদী ও বিবাদী পরস্পর ঝগড়ার সময় যালিম, পাপী ইত্যাদি বললে, তার জন্য তাহাদের অভিযুক্ত করা হইবে না বা শাস্তি দেয়া হইবে না। [৬] যদি উত্তরাধিকারী দাবী করে মূল ব্যক্তির [যার মাধ্যম হতে সে উত্তরাধিকার প্রাপ্ত হয়েছে] পক্ষ হতে এবং বিচারক জানতে পারেন যে, মূল ব্যক্তি মারা গেছে, আর তার বাদী ছাড়া আর কেউ নেই। তখন বাদীকে উত্তরাধিকারী হিসেবে মীমাংসা করা সঠিক হইবে। কসম গ্রহণের কোন প্রয়োজন নেই। কিন্তু যদি বিচারক জানতে না পারেন তাহলে উত্তরধিকারী প্রমাণের জন্য বাদীর নিকট কসম গ্রহণ করিতে হইবে। তারপর তার দাবী প্রাপ্যের ব্যাপারেও কসম গ্রহণ করিতে হইবে। [সংক্ষিপ্ত নাবাবী]

By মুসলিম শরীফ

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Leave a Reply