আগুনে রান্না খাবার খেয়ে ওযূ করার বিধান মানসুখ হওয়া ..

আগুনে রান্না খাবার খেয়ে ওযূ করার বিধান মানসুখ হওয়া ..

আগুনে রান্না খাবার খেয়ে ওযূ করার বিধান মানসুখ হওয়া ..>> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

২৪. অধ্যায়ঃ আগুনে রান্না খাবার খেয়ে ওযূ করার বিধান মানসুখ [রহিত] হওয়া সম্পর্কে

৬৭৭

ইবনি আব্বাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

একদা রসূলূল্লাহ [সাঃআঃ] একটি বকরীর কাঁধের গোশ্‌ত খেলেন তারপর নামাজ আদায় করিলেন কিন্তু ওযূ করিলেন না। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৭৯, ইসলামিক সেন্টার- ৬৯৪]

৬৭৮

ইবনি আব্বাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রাসুলুল্লাহ[সাঃআঃ] একবার হাড়ে লাগানো গোশ্‌ত অথবা গোশ্‌ত খেলেন। তারপর নামাজ আদায় করিলেন; কিন্ত ওযূ করিলেন না এবং পানিও স্পর্শ করিলেন না। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৮০, ইসলামিক সেন্টার- ৬৯৫]

৬৭৯

আম্‌র ইবনি উমাইয়্যাহ্‌ আয্‌ যামরী [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি একবার দেখলেন যে, রাসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] একটী বকরীর কাঁধের গোশ্‌ত কেটে খাচ্ছেন। তারপর তিনি [সাঃআঃ] নামাজ আদায় করিলেন আর ওযূ করিলেন না। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৮১, ইসলামিক সেন্টার- ৬৯৬]

৬৮০

আম্‌র ইবনি উমাইয়্যাহ আয্‌ যামরী [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি একবার রাসুলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে দেখলাম তিনি একটী বকরীর কাঁধের গোশ্‌ত [ছুরি দিয়ে] কাটছেন। এরপর তিনি তা খেলেন। ইতিমধ্যেই নামাজের জন্যে ডাকা হল। তিনি তখন দাঁড়িয়ে গেলেন এবং ছুরিটি ফেলে দিলেন এবং নামাজ আদায় করিলেন; কিন্তু ওযূ করিলেন না। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৮২, ইসলামিক সেন্টার- ৬৯৭]

ইবনি শিহাব বলেন, আলী ইবনি আবদুল্লাহ ইবনি আব্বাস তাহাঁর পিতা আবদুল্লাহ ইবনি আব্বাস-এর মাধ্যমে রাসুলুল্লাহ[সাঃআঃ] থেকে হাদীসটি বর্ণনা করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৮২, ইসলামিক সেন্টার- ৬৯৭]

৬৮১

আম্‌র বলেন, বুকায়র ইবনি আল আশাজ্জ কুরায়ব-এর সূত্রে নবী [সাঃআঃ]-এর স্ত্রী মাইমূনাহ্‌ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রাসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] একবার তাহাঁর কাছে বসে কাঁধের গোশ্‌ত খেলেন, তারপর নামাজ আদায় করিলেন কিন্তু ওযূ করিলেন না। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৮২, ইসলামিক সেন্টার- ৬৯৭]

৬৮২

ইয়াকূব ইবনি আল আশাজ্জ কুরায়ব-এর সূত্রে হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সাঃআঃ]-এর স্ত্রী মায়মুনাহ্‌ [রাদি.] থেকে অনুরূপ বর্ণনা করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৮২, ইসলামিক সেন্টার- ৬৯৭]

৬৮৩

আবু রাফি [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, আমি রাসুলুল্লাহ[সাঃআঃ]-এর জন্য বকরীর পেটের গোশ্‌ত ভুনা করতাম [তিনি তা খেতেন] তারপর পুনরায় ওযূ না করেই নামাজ আদায় করিতেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৮২, ইসলামিক সেন্টার- ৬৯৭]

৬৮৪

ইবনি আব্বাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রাসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] একবার দুধ পান করিলেন। তারপর পানি আনালেন। এরপর কুলি করিলেন এবং বলিলেন, এতে তৈলাক্ত পদার্থ রয়েছে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৮৩, ইসলামিক সেন্টার- ৬৯৮]

৬৮৫

আহমাদ ইবনি ঈসা [রহমাতুল্লাহি আলাইহি], যুহায়র ইবনি হার্‌ব, হারমালাহ্‌ ইবনি ইয়াহ্‌ইয়া প্রত্যেকেই হইতে বর্ণীতঃ

ইবনি শিহাব থেকে উকায়ল-এর সানাদে যুহরী থেকে অনুরূপ বর্ণনা করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৮৪, ইসলামিক সেন্টার- ৬৯৯]

৬৮৬

ইবনি আব্বাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রাসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] একবার কাপড় পরে নামাজের জন্য বের হলেন। এমন সময় কিছু রুটি ও গোশ্‌ত উপঢৌকন এলো। এরপর তিনি [সেখান থেকে] তিনি লুকমা খেলেন। তারপর লোকদেরকে নিয়ে নামাজ আদায় করিলেন এবং পানি স্পর্শও করিলেন না। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৮৫, ইসলামিক সেন্টার- ৭০০]

৬৮৭

মুহাম্মাদ ইবনি আম্‌র ইবনি আতা [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি একদিন ইবনি আব্বাস [রাদি.]-এর সাথে ছিলাম। তারপর তিনি ইবনি হাল্‌হালাহ্‌-এর হাদীস [উপরোক্ত হাদীস]-এর অনুরূপ বর্ণনা করেন। সেখানে উল্লেখ আছে যে, ইবনি আব্বাস [রাদি.]রাসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] কে এমন করিতে দেখেছেন। আর এ হাদীসের রাবী শুধু নামাজ আদায়ের কথা উল্লেখ করিয়াছেন। লোকদেরকে নিয়ে কথাটির উল্লেখ করেননি। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬৮৬, ইসলামিক সেন্টার- ৭০১]

By মুসলিম শরীফ

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Leave a Reply