মধুর উপকারিতা । মধু দিয়ে কোরআন ও হাদিসের চিকিৎসা পদ্ধতি

মধুর উপকারিতা

মধুর উপকারিতা হাদিস = বুখারি + তিরমিজি + সহিহ মুসলিম

মধুর উপকারিতা ছারাও আরও পড়তে পারেন আজওয়া খেজুর কি মহা ঔষধ? রুগীর খাবার গুলো কি কি এবং কালোজিরা এর মাধ্যমে সরাসরি হাদিসের আলোকে কিভাবে চিকিতসা করতে হয়?

সহিহ বুখারি

মহান আল্লাহর বাণীঃ এর মধ্যে রয়েছে মানুষের জন্য নিরাময়। সূরাহ আন-নাহলঃ ৬৯)

হাদিসঃ সহিহুল বুখারি -৫৬৮০: ইবনু আব্বাস (রাযিআল্লাহু আনহু) হতে বর্ণিত।

তিনি বলিয়াছেন, তিনটি জিনিসের মধ্যে রোগমুক্তি আছে। মধু পানে, শিঙ্গা লাগানোতে এবং আগুন দিয়ে দাগ লাগানোতে। আমার উম্মাতকে আগুন দিয়ে দাগ দিতে নিষেধ করছি। হাদীসটি মারফূ।

কুম্মী হাদীসটি লায়স, মুজাহিদ, ইবনু আববাস সূত্রে নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে فِي الْعَسَلِ وَالْحَجْمِ শব্দে বর্ণনা করেছেন। (৫৬৮১)

(আধুনিক প্রঃ – ৫২৬৯, ইঃ ফাঃ- ৫১৬৫)

হাদিসঃ সহিহুল বুখারি -৫৬৮১: ইবনু আব্বাস (রাযিআল্লাহু আনহু)-এর সূত্রে নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হতে বর্ণিত।

তিনি বলেনঃ রোগমুক্তি আছে তিনটি জিনিসে। শিঙ্গা লাগানোতে, মধু পানে এবং আগুন দিয়ে দাগ দেয়াতে। আমার উম্মাতকে আগুন দিয়ে দাগ দিতে নিষেধ করছি। (৫৬৮০)

(আধুনিক প্রঃ – ৫২৭০, ইঃ ফাঃ- ৫১৬৬)

হাদিসঃ সহিহুল বুখারি৫৬৮২ঃ আয়িশাহ (রাঃ) হইতে বর্ণিতঃ

তিনি বলেনঃ নবী (সাঃআঃ) মিষ্টান্ন দ্রব্য ও মধু অধিক পছন্দ করিতেন।

(আধুনিক প্রঃ- ৫২৭১, ইঃ ফাঃ- ৫১৬৭)

হাদিসঃ সহিহুল বুখারি -৫৬৮৩জাবির ইবনু আবদুল্লাহ (রাযিআল্লাহু আনহু) হতে বর্ণিত।

তিনি বলেন, আমি নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-কে বলিতে শুনেছিঃ তোমাদের ঔষধসমূহের কোনটির মধ্যে যদি কল্যাণ থাকে তাহলে তা আছে শিঙ্গাদানের মধ্যে কিংবা মধু পানের মধ্যে কিংবা আগুন দিয়ে ঝলসানোর মধ্যে। রোগ অনুসারে। আমি আগুন দিয়ে দাগ দেয়া পছন্দ করি না।

( আহমাদ ১৪৬০৪) (আধুনিক প্রঃ – ৫২৭২, ইঃ ফাঃ- ৫১৬৮)

হাদিসঃ সহিহুল বুখারি -৫৬৮৪আবূ সাঈদ (রাযিআল্লাহু আনহু) হতে বর্ণিত।

এক ব্যক্তি নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর নিকট এসে বললঃ আমার ভাইয়ের পেটে অসুখ হয়েছে। তখন নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ তাকে মধু পান করাও। এরপর লোকটি দ্বিতীয়বার আসলে তিনি বললেনঃ তাকে মধু পান করাও। অতঃপর তৃতীয়বার আসলে তিনি বলিলেন তাকে মধু পান করাও। এরপর লোকটি এসে বললঃ আমি অনুরূপই করেছি। তখন নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ আল্লাহ সত্য বলিয়াছেন, কিন্তু তোমার ভাইয়ের পেট মিথ্যা বলছে। তাকে মধু পান করাও। অতঃপর সে তাকে পান করাল। এবার সে রোগমুক্ত

( আহমাদ ১১১৪৬) (আধুনিক প্রঃ – ৫২৭৩, ইঃ ফাঃ- ৫১৬৯)

হাদিসঃ সহিহুল বুখারিঃ জাবির ইবনু আবদুল্লাহ (রাযিআল্লাহু আনহু) হতে বর্ণিত।

তিনি বলেন, আমি নাবী সাঃ-কে বলিতে শুনেছিঃ যদি তোমাদের ঔষধগুলোর কোনটিতে কল্যাণই থাকে, তাহলে তা আছে মধুপানে কিংবা শিঙ্গা লাগানোতে কিংবা আগুন দিয়ে দাগ লাগানোতে। তবে আমি দাগ দেয়া পছন্দ করি না।

৫৭০২, (আধুনিক প্রঃ – ৫২৮৮, ইঃ ফাঃ- ৫১৮৪)

হাদিসঃ সহিহুল বুখারি -৫৭১৬আবূ সাঈদ খুদরী (রাযিআল্লাহু আনহু) হতে বর্ণিত।

তিনি বলেন, এক ব্যক্তি নাবী সাঃ এর কাছে এসে বলিল যে, আমার ভাইয়ের পেট খারাপ হয়েছে। নাবী সাঃ বলিলেন, তাকে মধু পান করাও। সে তাকে মধু সেবন করাল। এরপর বলিল, আমি তাকে মধু পান করিয়েছি কিন্তু অসুখ আরো বাড়ছে। তিনি বললেনঃ আল্লাহ সত্য বলিয়াছেন, কিন্তু তোমার ভাইয়ের পেট তা মিথ্যা প্রতিপন্ন করতে চায়। নযর (রহ.) শুবাহ থেকে এরকমই বর্ণনা করেছেন

(আধুনিক প্রঃ – ৫২৯৮, ইঃ ফাঃ- ৫১৯৪)

সহিহ মুসলিম

হাদিসঃ সহিহ মুসলিম -৫৬৬৩ (হাঃ একাডেমী)মুহাম্মাদ ইবনুল মুসান্না ও মুহাম্মাদ ইবনু বাশশার (রহঃ) .…….. আবূ সাঈদ খুদরী (রাযিঃ) হতে বর্ণিত।

তিনি বলেন, জনৈক লোক রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর নিকট এসে বলিল, আমার ভাইয়ের উদরাময় হচ্ছে। রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ তাকে মধু পান করাও। সে তাকে মধুপান করালো। তারপর এসে বলিল, আমি তাকে মধু পান করিয়েছি কিন্তু তার পীড়া আরও বেড়ে গেছে। তিনি এভাবে তাকে তিনবার বলিলেন। অতঃপর লোকটি চতুর্থবার এসে বললে, নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলিলেন, তাকে মধু পান করাও। লোকটি বলিল, মধুপান করিয়েছি কিন্তু উদরাময় ক্রমশই বৃদ্ধি পাচ্ছে। অতঃপর রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলিলেন, আল্লাহই সত্য বলিয়াছেন, তোমার ভাইয়ের পেটের যন্ত্রণাটি মিথ্যা। অতঃপর পুনরায় তাকে পান করালে সুস্থ হয়ে গেল।

(ইঃ ফাঃ ৫৫৭৯, ইসলামিক সেন্টার ৫৬০৫)

হাদিসঃ সহিহ মুসলিম -৫৬৬৪ (হাঃ একাডেমী)আমর ইবনু যুররাহ্ (রহঃ) ….. আবূ সাঈদ খুদরী (রাযিঃ) বর্ণনা করেন,

জনৈক লোক নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর নিকট এসে বলিল, আমার ভাইয়ের উদরাময় হয়েছে। তিনি বলিলেন, তাকে মধু পান করাও। … হাদিসের বাকী অংশটুকু শুবাহ বর্ণিত হাদিসের অর্থেই বর্ণিত হয়েছে।

(ইঃ ফাঃ ৫৫৭৯, ইসলামিক সেন্টার ৫৬০৬)

তিরমিজি

হাদিসঃ তিরমিজি – ২০৮২ঃ আবূ সাঈদ (রাযিআল্লাহু আনহু) হতে বর্ণিত আছে,

নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নিকট একজন লোক এসে বলিল, আমার ভাইয়ের পাতলা পায়খানা (উদরাময়) হচ্ছে। তিনি বললেনঃ  তাকে মধু পান করাও। সে তাকে মধু পান করায়, তারপর এসে বলে, হে আল্লাহর রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)। আমি তাকে মধু পান করিয়েছি। কিন্তু তাতে দাস্ত আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ  তাকে মধু পান করাও। বর্ণনাকারী বলেন, সে তাকে মধু পান করানোর পর এসে বলে, হে আল্লাহর রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)। আমি তাকে তা পান করিয়েছি। কিন্তু এর ফলে তার দাস্ত আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্ণনাকারী বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ  আল্লাহ তাআলা সত্য বলিয়াছেন (মধুতে নিরাময় আছে), কিন্তু তোমার ভাইয়ের পেটই মিথ্যা বলছে। আবার তাকে মধু পান করাও। অতএব, লোকটি তাকে মধু পান করায় এবং সে সুস্থ হয়ে উঠে।

আবূ ঈসা বলেন, এ হাদীসটি হাসান সহীহ – মধুর উপকারিতা

Leave a Reply