রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -কে সম্মান প্রদর্শন করা এবং অকারণে বেশি প্রশ্ন করা

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -কে সম্মান প্রদর্শন করা এবং অকারণে বেশি প্রশ্ন করা

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -কে সম্মান প্রদর্শন করা এবং অকারণে বেশি প্রশ্ন করা >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

৩৭. অধ্যায়ঃ রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -কে সম্মান প্রদর্শন করা এবং অকারণে বেশি প্রশ্ন করা বা কষ্ট দেয়া ও অবাঞ্চিত ইত্যাদি বিষয় থেকে বিরত থাকা

৬০০৭. আবদুর রহমান ও সাঈদ ইবনি মুসাইয়্যিব [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তাঁরা দুজনে বলেন, আবু হুরায়রা্ [রাদি.] বলিতেন যে, তিনি রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে বলিতে শুনেছেন, আমি তোমাদের যা বারণ করেছি তা হইতে বিরত থাকো এবং যা তোমাদের নির্দেশ করেছি তা যা সম্ভব পালন করো। কেননা, অধিক জিজ্ঞাসা ও স্বীয় নবীগণের সঙ্গে মতবিরোধ তোমাদের পূর্ববর্তীদের ধ্বংস করেছে।

[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৯০২, ইসলামিক সেন্টার- ৫৯৩৯]

৬০০৮. ইবনি শিহাব [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

এ সূত্রে অবিকল হাদীস রিওয়ায়াত করিয়াছেন।

[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৯০৩, ইসলামিক সেন্টার- ৫৯৪০]

৬০০৯. আবু হুরাইরাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সাঃআঃ] বলেছেনঃ “আমি তোমাদের জন্য যা ছেড়ে দিয়েছি তোমরাও আমাকে সে বিষয়ে ছেড়ে দাও” [অর্থাৎ সে বিষয়ে আমাকে প্রশ্ন করো না]। হাম্মাম [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]-এর হাদীসে আছে, “যে বিষয়ে তোমাদের ছাড় দেয়া হয়েছে।” কারণ তোমাদের পূর্ববর্তীরা ধ্বংস হয়েছে, এরপর তাঁরা আবু হুরায়রা হইতে যুহরী এবং আবু সালামাহ্ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]-এর হাদীসের অবিকল রিওয়ায়াত করিয়াছেন।

[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৯০৪, ইসলামিক সেন্টার- ৫৯৪১]

৬০১০. সাদ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ মুসলিমদের মাঝে সর্বাধিক দোষী ঐসব লোক, যে এমন ব্যাপারে জিজ্ঞেস করে, যা মুসলিমদের জন্য হারাম বা নিষিদ্ধ ছিল না। আর তাহাঁর জিজ্ঞেস করার কারণে সে ব্যাপারটি মুসলিমদের উপর হারাম করে দেওয়া হয়।

[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৯০৫, ইসলামিক সেন্টার- ৫৯৪২]

৬০১১. সাদ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ মুসলিমদের মধ্যে সর্বাধিক অপরাধী মুসলিম সে-ই, যে মুসলিমদের জন্য যা অবৈধ নয়, এমন ব্যাপারে জিজ্ঞেস করে, আর সে ব্যাপারটি তার জিজ্ঞেস করার কারণে লোকদের উপর অবৈধ ঘোষণা দেওয়া হয়।

[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৯০৬, ইসলামিক সেন্টার- ৫৯৪৩]

৬০১২. হারমালাহ্ ইবনি ইয়াহ্ইয়া [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] ইউনুস থেকে এবং আবদ ইবনি হুমায়দ মামার হইতে বর্ণীতঃ

উভয়ে উক্ত সানাদে যুহরী [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে রিওয়ায়াত করেন। তবে মামার-এর হাদীসে যুহরীর রিওয়ায়াতে বর্ধিত আছে- “কোন লোক কোন ব্যাপারে জিজ্ঞেস করে এবং তৎসম্পর্কে অধিক জিজ্ঞেস করে”। ইবনি সাদ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীত ইউনুসের হাদীসে আছে যে, যুহরী [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বলেছেন, তিনি আমির ইবনি সাদ হইতে শুনেছেন।

[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৯০৬, ইসলামিক সেন্টার- ৫৯৪৪]

৬০১৩. আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, তাহাঁর সহাবীদের কোন কথা রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-এর নিকট পৌঁছল। তখন তিনি এক বক্তৃতা দিলেন এবং বললেনঃ আমার সামনে জান্নাত ও জাহান্নাম উপস্থিত করা হয়। আজকের মতো ভাল এবং মন্দ আমি আর কখনো দেখিনি। আমি যা জানতে পেরেছি, তা যদি তোমরা জানতে, তবে তোমরা অবশ্যই খুবই কম হাসতে এবং বেশী কাঁদতে। আনাস [রাদি.] বলিলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-এর সহাবীদের উপর এর চাইতে বিভীষিকাময় কোন দিন আর আসেনি। তাঁরা নিজেদের মাথা আবৃত করিল এবং তাঁদের ভেতর হইতে কান্নার আওয়াজ আসতে লাগল। আনাস [রাদি.] বলেন, তারপর উমর [রাদি.] দাঁড়িয়ে বলিলেন, আমরা সন্তুষ্টচিত্তে আল্লাহকে রব, ইসলামকে দ্বীন এবং মুহাম্মাদ [সাঃআঃ]-কে নবী হিসেবে মেনে নিলাম। অতঃপর এক লোক দাঁড়িয়ে বলিল, আমার পিতা কে? তিনি বললেনঃ তোমার পিতা অমুক। তখন এ আয়াত নাযিল হলোঃ “হে মুমিনগণ! তোমরা সেসব ব্যাপারে জিজ্ঞেস করো না, যা উন্মোচিত হলে তোমরা বেদনার্ত হইবে”- [সূরাহ্ আল মায়িদাহ্ ৫ : ১০১]।

[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৯০৭, ইসলামিক সেন্টার- ৫৯৪৫]

৬০১৪. আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, জনৈক লোক বলিল, হে আল্লাহর রসূল! আমার পিতা কে? তিনি বললেনঃ তোমার পিতা অমুক। আর তখনই নাযিল হয়ঃ হে মুমিনগণ! তোমরা সেসব ব্যাপারে জিজ্ঞেস করো না যা উন্মোচিত হলে তোমরা বেদনার্ত হইবে … আয়াতের শেষাংশ পর্যন্ত।

[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৯০৮, ইসলামিক সেন্টার- ৫৯৪৬]

৬০১৫.আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] সূর্য ঢলে যাওয়ার পর বের হলেন এবং লোকদের নিয়ে যুহরের নামাজ আদায় করিলেন। যখন সালাম ফিরালেন তখন মিম্বারে দাঁড়িয়ে কিয়ামাতের আলোচনা করে বর্ণনা করিলেন যে, এর পূর্বে বহু বড় বড় বিষয় ঘটবে। তারপর বললেনঃ তোমাদের মাঝে যে লোক আমাকে কোন ব্যাপারে জিজ্ঞেস করিতে চায় সে যেন ঐ সম্বন্ধে আমাকে জিজ্ঞেস করে। আল্লাহর শপথ! যতক্ষণ পর্যন্ত আমি এ স্থানে রয়েছি ততক্ষণ তোমরা আমাকে যে বিষয়েই জিজ্ঞেস করিবে আমি তা বলে দিব।

আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] বলেন, এ কথা শুনে লোকেরা অনেক চিৎকার আরম্ভ করে দিল। রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বারবার বলিতে থাকলেন, আমাকে জিজ্ঞেস করো। তখন আব্দুল্লাহ ইবনি হুযাফাহ্‌ [রাদি.] দাঁড়িয়ে বলিলেন, আমার পিতা কে? হে আল্লাহর রসূল [সাঃআঃ]! তিনি বললেনঃ তোমার পিতা হুযাফাহ্। তারপর যখন রসূল [সাঃআঃ] বারবার বলিতে থাকলেন, আমাকে জিজ্ঞেস করো। তখন উমর [রাদি.] হাঁটু গেড়ে বসে বলিলেন, সন্তুষ্টচিত্তে আমরা আল্লাহকে রব, ইসলামকে দ্বীন এবং মুহাম্মাদ [সাঃআঃ]-কে রসূল হিসেবে মেনে নিয়েছি। আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] বলেন, যখন উমর [রাদি.] এ কথা বলিলেন, তখন রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] থেমে গেলেন। বর্ণনাকারী বলেন, তারপর রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বললেনঃ বিপদ সন্নিকটবর্তী। মুহাম্মাদের জীবন যাঁর হাতে তাহাঁর শপথ! এ দেয়ালটির পাশে এখনই আমার সামনে জান্নাত ও জাহান্নাম দেখানো হয়েছে। অতএব, আজকের মতো ভাল এবং খারাবী আমি আর দেখিনি।

ইবনি শিহাব [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বলেন, উবাইদুল্লাহ ইবনি আব্দুল্লাহ ইবনি উত্‌বাহ্ আমাকে বলেছেন, তিনি বলেন, আব্দুল্লাহ ইবনি হুযাফার মা আব্দুল্লাহ ইবনি হুযাফাহ্‌কে বলেছেন, তোর চাইতে অধিক অবাধ্য কোন সন্তানের ব্যাপারে আমি শুনিনি। তুই কি এ কথা হইতে নিশ্চিন্ত ছিলি যে, তোর মাও হয়ত এমন কোন পাপ করে বসেছে যা জাহিলী যুগের নারীরা করত, আর তুই তোর মাকে লোকদের সম্মুখে অপমান করতিস? আব্দুল্লাহ ইবনি হুযাফাহ্ [রাদি.] জবাবে বলিলেন, আল্লাহর শপথ! আমাকে যদি একটা কালো হাবশীর সঙ্গেও সম্পর্কিত করিতেন তাহলে আমি তা মেনে নিতাম

। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৯০৯, ইসলামিক সেন্টার- ৫৯৪৭]

৬০১৬. আনাস [রাদি.]-এর সানাদ হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সাঃআঃ] হইতে এ হাদীস রিওয়ায়াত করিয়াছেন। উবাইদুল্লাহ হাদীসটিও এর সাথে রয়েছে, তবে শুআয়ব যুহরীর সূত্রে তিনি আবদুল্লাহ থেকে, তিনি জনৈক আহলে ইল্‌ম থেকে শুনেছেন- আবদুল্লাহ ইবনি হুযাফার মা ইউনুসের হাদীসের অনুরূপ বলেছেন।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৯১০, ইসলামিক সেন্টার- ৫৯৪৮]

৬০১৭. আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

লোকেরা রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে জিজ্ঞেস করিতে লাগল। এমনকি তারা তাঁকে প্রশ্ন করে জর্জরিত করে ফেলল, একদা রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বের হয়ে এসে মিম্বারে দাঁড়িয়ে বললেনঃ আমাকে প্রশ্ন করো, যে কোন ব্যাপারে তোমরা আমাকে প্রশ্ন করিবে, আমি অবশ্যই তোমাদের নিকট তা বর্ণনা করে দিব। লোকেরা এ কথা শুনে তাঁকে জিজ্ঞেস করা হইতে মুখ বন্ধ রাখল এবং ঘাবড়িয়ে গেল, না জানি সামনে কোন ঘটনা সামনে এসে পড়ে।

আনাস [রাদি.] বলেন, আমি ডানে বামে দেখিতে লাগলাম। সকল লোক স্ব স্ব মাথা আবৃত করে কান্নাকাটি করছিল। তখন মাসজিদ হইতে জনৈক ব্যক্তি উঠল যার সাথে ঝগড়া লাগলে তাহাঁর পিতা ছাড়া অন্যের দিকে তাকে সম্পর্কিত করা হতো। সে বলিল, হে আল্লাহর নবী! কে আমার পিতা? তিনি বলিলেন, তোমার পিতা হুযাফাহ্। তারপর উমর [রাদি.] দাঁড়িয়ে বলিলেন, [আমরা আন্তরিকতার সাথে] আল্লাহকে রব, ইসলামকে দ্বীন এবং মুহাম্মদ [সাঃআঃ] -কে রসূল হিসেবে মেনে নিলাম। আর আল্লাহর আশ্রয় প্রার্থনা করি ফিতনার অকল্যাণ থেকে। তারপর রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বললেনঃ আজকের মতো ভাল এবং খারাপ আমি কক্ষনো দেখিনি। আমার সামনে জান্নাত ও জাহান্নামের চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। তাই আমি উভয়টিকে এ দেয়ালের পাশে দেখিতে পাই।

[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৯১১, ইসলামিক সেন্টার- ৫৯৪৯]

৬০১৮. আনাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

এ বিবরণই রিওয়ায়াত করিয়াছেন।

[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৯১২, ইসলামিক সেন্টার- ৫৯৫০]

৬০১৯. আবু মূসা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, নবী [সাঃআঃ]-কে এমন কতক ব্যাপারে জিজ্ঞেস করা হলো যা তিনি অপছন্দ করেন। যখন এ রকম প্রশ্ন বারবার করা হলো, তিনি রাগান্বিত হয়ে লোকদেরকে বললেনঃ যা ইচ্ছে তোমরা আমাকে প্রশ্ন করো। জনৈক লোক বলিল, আমার পিতা কে? তিনি বললেনঃ তোমার পিতা হুযাফাহ্‌। আরেক লোক দাঁড়িয়ে বলিল, হে আল্লাহর রসূল! আমার পিতা কে? তিনি বললেনঃ তোমার পিতা শাইবার গোলাম সালিম। উমর [রাদি.] যখন রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-এর মুখমণ্ডলে রাগের লক্ষণ দেখিতে পেলেন, তখন বলিলেন, হে আল্লাহর রসূল! আমরা আল্লাহর নিকট তাওবাহ্ করছি। আবু কুরায়ব [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]-এর বর্ণনায় [কেবল এটুকু] আছে, বলিল, কে আমার পিতা, হে আল্লাহর রসূল! তিনি বলিলেন, তোমার পিতা শাইবার দাস সালিম।

[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৯১৩, ইসলামিক সেন্টার- ৫৯৫১]

By মুসলিম শরীফ

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Leave a Reply