বীর্যের হুকুম

বীর্যের হুকুম

বীর্যের হুকুম  >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

৩২. অধ্যায়ঃ বীর্যের হুকুম

৫৫৫

আলকামাহ্ ও আল আসওয়াদ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

একদিন জনৈক ব্যক্তি আয়িশা [রাদি.]-এর ঘরে মেহমান হল। আয়েশাহ[রাদি.] দেখলেন, ভোরে সে তাহাঁর কাপড় ধৌত করছে [অর্থাৎ রাত্রে তার স্বপ্ন দোষ হয়েছিল] তা দেখে আয়েশাহ বললেনঃ মূলত তোমার পক্ষে এটুকুই যথেষ্ট হতো যে, তুমি বীর্য দেখে থাকলে কেবলমাত্র সে স্থানটি ধুয়ে নিতে। আর যদি তা না দেখে থাক, তাহলে [মনের সন্দেহ দূর করার জন্যে] জায়গাটিতে পানি ছিটিয়ে নিতে পারতে। কেননা, এমনও হয়েছে আমি নিজে রসুলূল্লাহ্ [সাঃআঃ] এর কাপড় থেকে শুকনো বীর্য রগড়িয়ে ফেলেছি, আর তিনি সে কাপড় পরেই নামাজ আদায় করিয়াছেন। {৮১} [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৫৯, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৫]

{৮১} যা লাফিয়ে কুদে বের হয়, তাকে বলে মানী [বীর্য], তাতে গোসল করা ফারয হয়। আর যদি কারও প্রস্রাবের আগে বা পরে কিছু বের হয়, তাতে গোসল করিতে হয় না। কতলোক খুব হাস্য রসিক, সামান্য মহিলার স্পর্শ পেলেই তরল কিছু বের হয়, তাতে শুধু লজ্জাস্থান ধুয়ে নিবে ও ওযূ করে নিবে। গোসল করিতে হইবে না।

৫৫৬

আয়েশাহ [রা.] হইতে বর্ণীতঃ

বীর্য সম্পর্কে বলেন, আমি তা [বীর্য] রসূলুল্লাহ্ [সাঃআঃ] এর কাপড় থেকে নখ দিয়ে আঁচড়ে ফেলতাম। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৬০, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৬]

৫৫৭

আয়েশাহ [রা.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ্ [সাঃআঃ] এর কাপড় থেকে বীর্য রগড়িয়ে ফেলা সম্পর্কে আবু মাশার হইতে বর্ণীত খালিদের হাদীসের অনুরূপ বর্ণিত আছে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৬১, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৭]

৫৫৮

আয়িশাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

ইবনি উওয়াইনাহ্ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] এর সূত্রে আয়িশা [রাদি.] থেকে অনুরূপ হাদীস বর্ণিত আছে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৬২, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৮]

৫৫৯

আমর ইবনি মাইমূন [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি সুলাইমান ইবনি ইয়াসারকে জিজ্ঞেস করলাম যে, বীর্য কোন লোকের কাপড়ে লেগে গেলে সে শুধু সে বীর্য ধুয়ে ফেলবে না কাপড়টাই ধুয়ে ফেলবে? তিনি বলিলেন, আয়িশাহ্ [রাদি.] আমাকে জানিয়েছেন যে, রসূলুল্লাহ্ [সাঃআঃ] এর বীর্য ধুয়ে ফেলতেন তারপর সে কাপড়েই সালাতের জন্যে বেরিয়ে যেতেন আর আমি [পিছন থেকে] সে কাপড়ে ধোয়ার চিহ্ন দেখিতে পেতাম। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৬৩, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭৯]

৫৬০

আবু কামিল আল জাহদারী, আবু কুরায়ব ও ইবনি আবু যায়িদাহ্ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]-এরা সকলেই আমর ইবনি মাইমুন হইতে বর্ণীতঃ

এ সানাদে হাদীসটি বর্ণনা করিয়াছেন। তবে ইবনি যায়িদার হাদীস ইবনি বিশর-এর অনুরূপ যাতে বর্ণিত হয়েছে যে, রসূলুল্লাহ্ [সাঃআঃ] [নিজে] বীর্য ধুলেন। আর ইবনিল মুবারক [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] ও আবদুল ওয়াহিদ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] এর হাদীসে রয়েছে যে, আয়েশাহ[রাদি.] বলেন: আমি তা রসূলুল্লাহ্ [সাঃআঃ] এর কাপড় থেকে ধুয়ে ফেলতাম। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৬৪, ইসলামিক সেন্টার- ৫৮০]

৫৬১

আবদুল্লাহ্ ইবনি শিহাব আল খাওলানী [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

আমি একবার আয়িশাহ্ [রাদি.] এর মেহমান ছিলাম। [রাতে] আমার কাপড়েই স্বপ্নদোষ হল। আমি সে কাপড় দুটি পানিতে ডুবিয়ে পরিষ্কার করছিলাম। আয়িশাহ্হ [রাদি.] এর এক দাসী আমাকে এ রকম করিতে দেখে তাঁকে গিয়ে জানাল। আয়িশাহ্ [রাদি.] লোক পাঠিয়ে আমাকে বলিলেন, তুমি তোমার কাপড় দুটিকে এ রকম করছ কেন? তিনি [আবদুল্লাহ্ ইবনি শিহাব] বলেন, আমি বললাম, ঘুমন্ত ব্যক্তি তার স্বপ্নে যা দেখে আমি তাই দেখেছি। তিনি বলিলেন, তুমি কি কাপড় দুটিতে কিছু দেখিতে পেয়েছ? আমি বললাম, না। তিনি বলিলেন, তুমি যদি কিছু দেখিতে, তবে তা ধুয়ে ফেলতে। আমি তো রসূলুল্লাহ্ [সাঃআঃ] এর কাপড় থেকে শুকনো বীর্য নখ দিয়ে আঁচড়ে ফেলতাম। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৬৫, ইসলামিক সেন্টার- ৫৮১]

By মুসলিম শরীফ

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Leave a Reply