আল্লাহ তাআলা রাঃসাঃ কে বিশুদ্ধভাষা ও বাগ্মিতা দান করেছেন

আল্লাহ তাআলা রাঃসাঃ কে বিশুদ্ধভাষা ও বাগ্মিতা দান করেছেন

আল্লাহ তাআলা রাঃসাঃ কে বিশুদ্ধভাষা ও বাগ্মিতা দান করেছেন << নবুওয়তের মুজিযা হাদীসের মুল সুচিপত্র দেখুন

সপ্তবিংশ পরিচ্ছেদ – আল্লাহ তাআলা রাঃসাঃ কে বিশুদ্ধভাষা ও বাগ্মিতা দান করেছেন।

ইবনে আব্বাস রাদি. আনহু হইতে বর্ণিত। দিমাদ মক্কায় আগমন করিলেন। তিনি আযদ শানুআ গোত্রের সদস্য। তিনি বাতাস লাগার ঝারফুঁক করতেন। তিনি মক্কার কতক নির্বোধকে বলতে শুনেছেন, মুহাম্মাদ নিশ্চয়ই উন্মাদ। দিমাদ বলেন, আমি যদি লোকটিকে দেখতাম তাহলে আল্লাহ হয়ত আমার হাতে তাকে আরোগ্য দান করতেন। রাবী বলেন, তিনি তাহাঁর সাথে সাক্ষাৎ করে বলেন, হে মুহাম্মাদ! আমি এসব বাতাস লাগার ঝাড়ফুঁক করি। আল্লাহ যাকে চান তাকে আমার হাতে আরোগ্য দান করেন। আপনি কি ঝড়ফুঁক করাতে চান? রাঃসাঃ বলেন, নিশ্চয়ই সমস্ত প্রশংসা আল্লাহর। আমি তাহাঁর প্রশংসা করি, তাহাঁর সাহায্য প্রার্থনা করি। আল্লাহ যাকে হেদায়েত দান করেন, কেউ তাকে বিপথগামী করতে পারে না এবং তিনি যাকে বিপথগামী করেন, কেউ তাকে হেদায়েত দান করতে পারেন না। আমি সাক্ষ্য দেই যে, আল্লাহ ব্যতীত কোনো ইলাহ নাই, তিনি একক, তাহাঁর কোনো শরীক নাই এবং নিশ্চয়ই মুহাম্মাদ তাহাঁর বান্দা ও রাসূল। অতঃপর রাবী বলেন, দিমাদ বলিলেন, আপনার এই কথাগুলো আমাকে পুনরায় শুনান। অতএব, রাঃসাঃ সেই কথাগুলো তাকে তিনবার পুনরাবৃত্তি করে শুনান। রাবী বলেন, দিমাদ বললো, আমি অনেক গণক ও জাদুকরের কথা শুনেছি, কিন্তু আপনার এই কথাগুলোর অনুরূপ কথা আমি শুনিনি। এই কথাগুলো সমুদ্রের গভীরে পৌঁছে গেছে। রাবী বলেন, দিমাদ বলিলেন, আপনার হাত প্রসারিত করুন, আমি আপনার নিকট ইসলামের বাই`আত গ্রহণ করবো। তিনি তাকে বাই`আত করালেন [ইসলাম গ্রহণ করালেন]। রাঃসাঃ বলিলেন, তোমার সম্প্রদায়ের ক্ষেত্রেও কি [বাই`আত প্রযোজ্য]? দিমাদ বলেন, আমার সম্প্রদায়ের ক্ষেত্রেও। রাবী বলেন, রাঃসাঃ একটি ক্ষুদ্র সামরিক বাহিনী [সারিয়্যা] প্রেরণ করলে তারা তার সম্প্রদায়ের এলাকা দিয়ে অতিক্রম করে। তখন বাহিনী প্রধান সৈন্যবাহিনীকে বলেন, তোমরা কি এদের থেকে কিছু গ্রহণ করেছ? দলের একজন বললো, আমি তাদের থেকে একটি পানির পাত্র নিয়েছি। সেনানায়ক বলেন, তোমরা সেটি ফেরত দাও। কারণ তারা দিমাদের সম্প্রদায়। [1]


[1] সহিহ মুসলিম, হাদিস নম্বর ৮৬৮।

Leave a Reply