বাই-আরায়ার অনুমতি, মূল বস্তু [গাছ] ও ফল বিক্রয়

বাই-আরায়ার অনুমতি, মূল বস্তু [গাছ] ও ফল বিক্রয়

 বাই-আরায়ার অনুমতি, মূল বস্তু [গাছ] ও ফল বিক্রয় >> বুলুগুল মারাম এর মুল সুচিপত্র দেখুন

অধ্যায়-৪ঃ বাই-আরায়ার অনুমতি, মূল বস্তু [গাছ] ও ফল বিক্রয়

পরিচ্ছেদ ০১. আরায়া“র বিধান {৯০৩}
পরিচ্ছেদ ০২. গাছের ফল ব্যবহারের উপযোগী হওয়ার পূর্বেই বিক্রয় করা নিষেধ
পরিচ্ছেদ ০৩. গাছের ফল বিক্রি করার পর যদি প্রাকৃতির দূর্যোগে নষ্ট হয়ে যায়, তাহলে ক্ষতির পরিমানমত মূল্য বিক্রেতার ছেড়ে দেওয়ার আদেশ
পরিচ্ছেদ ০৪. খেজুর বাগান তাবীর করার পর বিক্রি করার বিধান {৯১০}

পরিচ্ছেদ ০১. `আরায়া“র বিধান {৯০৩}

৮৪৭ -যায়দ ইব্‌নু সাবিত [রাঃআঃ] হইতে বর্ণিতঃ

আল্লাহর রসূল [সাঃআঃ] আরায়্যার ব্যাপারে অনুমতি দিয়েছেন যে, ওযনকৃত খেজুরের বিনিময়ে গাছের অনুমানকৃত খেজুর বিক্রি করা যেতে পারে।

মুসলিমে আছে- আরিয়া ক্রয়-বিক্রয়ে নবী [সাঃআঃ] অনুমতি দিয়েছেন। বাড়ীওয়ালা শুকনো খেজুর দিয়ে গাছের তাজা খেজুর অনুমানের ভিত্তিতে নিবে এবং ঐ টাট্‌কা খেজুর খাবে। {৯০৪}

{৯০৪} বুখারি ২১৯২, ১৪৮৬, ২১৭১, ২১৭৩, ২১৮৫, মুসলিম ১৫৩৪, ১৫৩৮, ১৫৩৯, তিরমিজি ১২২৬, ১২২৭, নাসায়ী ৩৯২১, ৪৫২০, আবূ দাঊদ ৩৩৬৭, ৩৩৬৮, ইবনু মাযাহ ২২১৪, ২২৬৫, ২২২৬৮, আহমাদ ৪৪৭৬, ৪৪৭৯, ৪৮৫৪, মুয়াত্তা মালেক ১৩০৩, ১৩১৭, দারেমী ২৫৫৫। হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

৮৪৮ -আবূ হুরাইরা [রাঃআঃ] হইতে বর্ণিতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] পাঁচ অসাকের কম পরিমাণ অথবা পাঁচ অসাক পরিমাণ [গাছের] তাজা খেজুর অনুমান করে শুকনো খেজুরের বিনিময়ে বিক্রয় করার অনুমতি দিয়েছেন। {৯০৫}

{৯০৫} বুখারি ২৩৯২, ২১৯০, মুসলিম ১৫৪১, তিরমিজি ১৩০১, নাসায়ী ৪৫৪১, আবূ দাউদ ৩৩৬৪, আহমাদ ৭১৯৫, মুয়াত্তা মালেক ১৩০৭। হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

পরিচ্ছেদ ০২. গাছের ফল ব্যবহারের উপযোগী হওয়ার পূর্বেই বিক্রয় করা নিষেধ

৮৪৯ -আবদুল্লাহ ইবনু `উমার [রাঃআঃ] হইতে বর্ণিতঃ

আল্লাহর রসূল [সাঃআঃ] গাছের ফল ব্যবহার উপযোগী হওয়ার আগেই তা বিক্রি করিতে ক্রেতা ও বিক্রেতাকে নিষেধ করিয়াছেন।

অন্য বর্ণনায় আছে- সেলাহ্‌ [পুষ্ট] হবার অর্থ সম্বন্ধে জিজ্ঞাসিত হয়ে তিনি বলিতেন, `ফলের দূর্যোগকাল উত্তীর্ণ হওয়া।` {৯০৬}

{৯০৬} এখানে আব্দুল্লাহ বিন উমার [রাঃআঃ]-কে প্রশ্ন করা হয়েছিল। বুখারি ১৪৮৬, ২১৭১, ২১৭৩, ২১৮৪, ২১৮৫, ২২০৫, মুসলিম ১৫৩৪, ১৫৩৮, ১৫৩৯, ১৫৪২, তিরমিজি ১২২৬, নাসায়ী ৩১২১, ৪৫১৯, ৪৫২০, আবূ দাঊদ ৩৩৬১, ৩৩৬৭, ইবনু মাযাহ ২২১৪, ২২৬৭, আহমাদ ৪৪৭৬, ৪৫১১, মুয়াত্তা মালেক ১৩০৩, দারেমী ২৫৫৫। হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

৮৫০ -আনাস বিন মালিক [রাঃআঃ] হইতে বর্ণিতঃ

নবী [সাঃআঃ] অবশ্য ফলে পরিপক্কতা আসার পূর্বে বিক্রয় করিতে নিষেধ করিয়াছেন। `পরিপক্কতা`র অবস্থা সম্বন্ধে জিজ্ঞাসিত হয়ে তিনি বলেছেন- ফলের রং যেন লালচে বা হলুদ হয়ে ওঠে। – শব্দ বিন্যাস বুখারির। {৯০৭}

{৯০৭} বুখারি ১৪৮৮, ২১৯৫, ২১৯৭, ২১৯৯, মুসলিম ১৫৫৫, তিরমিজি ১২২৮, নাসায়ী ৪৫২৬, ইবনু মাযাহ ৩৩৭১, ইবনু মাযাহ ২২১৭, আহমাদ ১১৭২৮, ১২২৭, মুওয়াত্তা মালিক ১৩০৪। হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

৮৫১ -আনাস [রাঃআঃ] হইতে বর্ণিতঃ

নবী [সাঃআঃ] আঙ্গুরের ক্ষেত্রে কালচে রং না ধরা পর্যন্ত তা বিক্রয় করিতে একং শস্য দৃঢ় পুষ্ট হবার পূর্বে বিক্রয় করিতে নিষেধ করিয়াছেন।– ইবনু হিব্বান ও হাকিম একে সহীহ্‌ বলেছেন। {৯০৮}

{৯০৮} বুখারি ১৪৮৮, ২১৯৭, ২১৯৯, ২২০৮, মুসলিম ১৩৫, আবূ দাঊদ ৩৩৭১, তিরমিজি ১২২৮, নাসায়ী ৪৫২৬, ইবনু মাযাহ ২২১৭, আহমাদ ১২২২৭, ১২৯০১, মুয়াত্তা মালেক ১৩০৫। হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

পরিচ্ছেদ ০৩. গাছের ফল বিক্রি করার পর যদি প্রাকৃতির দূর্যোগে নষ্ট হয়ে যায়, তাহলে ক্ষতির পরিমানমত মূল্য বিক্রেতার ছেড়ে দেওয়ার আদেশ

৮৫২ -জাবির বিন `আবদুল্লাহ [রাঃআঃ] হইতে বর্ণিতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেন- যদি তুমি তোমার কোন [মুসলিম] ভাই-এর নিকটে ফল বিক্রয় কর তারপর তা কোন দুর্যোগে নষ্ট হয়ে যায় তাহলে তার নিকট থেকে কিছু [মূল্য বাবদ] গ্রহণ করা তোমার জন্য বৈধ হইবে না। কারণ তোমার মুসলিম ভাইয়ের মাল [মূল্য] তুমি কিসের বিনিময়ে নেবে?

অন্য বর্ণনায় আছে- অবশ্য নবী [সাঃআঃ] দূর্যোগে ক্ষতির পূরণ করিতে বলেছেন। অর্থাৎ এ অবস্থায় ক্ষতির পরিমাণমত মূল্য না নিতে নির্দেশ দিয়েছেন। {৯০৯}

{৯০৯} [আরবী] : প্রাকৃতিক দূর্যোগে ফলফলাদি নষ্ট হয়ে যাওয়া। বুখারি ৪৮৩২, ৪৯৮৭, ৫৯৮৭, মুসলিম ২৫৫৪, আহমাদ ৭৮৭২, ৮১৬৭, ৮৭৫২। হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

পরিচ্ছেদ ০৪. খেজুর বাগান তা`বীর করার পর বিক্রি করার বিধান {৯১০}

৮৫৩ -ইবনু `উমার [রাঃআঃ] হইতে বর্ণিতঃ

তিনি নবী [সাঃআঃ] হইতে বর্ণনা করিয়াছেন, নবী [সাঃআঃ] বলেছেন- যে ব্যক্তি খেজুর গাছ তা`বীর [ফুলের পরাগায়ন] করার পর গাছ বিক্রয় করে, তার ফল বিক্রেতার। কিন্তু ক্রেতা শর্ত করলে তা তারই। {৯১১}

{৯১১} বুখারি ২২০৩, ২২০৪, ২২০৬, ২৭১৬, ২৩৭৯, ২৭১৬ মুসলিম ১৫৪৩, তিরমিজি ১২৪৪, নাসায়ী ৪৬৩৫, ৪৬৩৬, আবূ দাঊদ ৩৪৩৩, ইবনু মাযাহ ২২১০, ২২১১, আহমাদ ৫২৮৪, মুয়াত্তা মালেক ১৩০২, ২৫৬১, দারেমী ২৫৬১। বুখারি ও মুসলিমে আরো রয়েছে, আর যদি কেউ গোলাম বিক্রয় করে এবং তার সম্পদ থাকে তবে সে সম্পদ যে বিক্রি করিল তার। কিন্তু যদি ক্রেতা শর্ত করে তাহলে তা হইবে তার। হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

By বুলূগুল মারাম

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। তবে আমরা রাজনৈতিক পরিপন্থী কোন মন্তব্য/ লেখা প্রকাশ করি না। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই লেখাগুলো ফেসবুক এ শেয়ার করুন, আমল করুন

Leave a Reply