নতুন লেখা

ফলজ বৃক্ষ রোপন ও ফসল ফলানোর ফযিলত

ফলজ বৃক্ষ রোপন ও ফসল ফলানোর ফযিলত

ফলজ বৃক্ষ রোপন ও ফসল ফলানোর ফযিলত >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

২. অধ্যায়ঃ ফলজ বৃক্ষ রোপন ও ফসল ফলানোর ফযিলত

৩৮৬০

জাবির [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যে কোন মুসলিম ফলজ বৃক্ষ রোপন করিবে তা থেকে যা কিছু খাওয়া হয় তা তার জন্য দান স্বরূপ, যা কিছু চুরি হয় তাও দান স্বরূপ, বন্য জন্তু যা খেয়ে নেয় তাও দান স্বরূপ। পাখী যা খেয়ে নেয় তাও দান স্বরূপ। আর কেউ কিছু নিয়ে গেলে তাও তার জন্য দান স্বরূপ। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৮২৪, ইসলামিক সেন্টার-৩৮২৩]

৩৮৬১

জাবির [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

একদা নবী [সাঃআঃ] উম্মু মুবাশ্‌শির নাখীয়া নাম্নী এক আনসারী মহিলার খেজুর বাগানে প্রবেশ করেন। রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] তাকে জিজ্ঞেস করিলেন, এই খেজুর গাছ কি কোন মুসলিম ব্যক্তি লাগিয়েছে, না কোন কাফির ব্যক্তি? মহিলা উত্তর দিল মুসলিম। তিনি বলিলেন, “যে কোন মুসলিম গাছ লাগায় বা ক্ষেত করে, আর তা থেকে মানুষ কিংবা জীব জন্তু অথবা অন্য কিছুতে ভক্ষণ করে, তবে তা তার পক্ষে দান স্বরূপ। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৮২৫, ইসলামিক সেন্টার-৩৮২৪]

৩৮৬২

জাবির ইবনি আবদুল্লাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -কে বলিতে শুনেছি যে, কোন মুসলিম যদি বৃক্ষ রোপণ করে বা ক্ষেত করে, আর তা থেকে কোন হিংস্র জন্তু কিংবা পাখী অথবা অন্য কিছুতে খেয়ে নেয় তবে এর জন্যে সে সাওয়াব পাবে। ইবনি আবু খালাফ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বলেছেন – পাখী বা এমন কিছু। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৮২৬, ইসলামিক সেন্টার-৩৮২৫]

৩৮৬৩

জাবির ইবনি আবদুল্লাহ্‌ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রাসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] একদা উম্মু মাবাদ- এর বাগানে ঢুকলেন। তখন তিনি জিজ্ঞেস করিলেন, হে উম্মু মাবাদ! এ গাছ কে লাগিয়েছে? কোন মুসলিম ব্যক্তি না কোন কাফির? সে জানাল, মুসলিম। তিনি বলিলেন, কোন মুসলিম যদি কোন গাছ লাগায়, আর তা থেকে মানুষ কিংবা চতুষ্পদ জন্তু অথবা পাখী খেয়ে নেয়, তবে কিয়ামাতের দিন পর্যন্ত তা তার জন্য সদাকাহ হিসাবে থাকিবে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৮২৭, ইসলামিক সেন্টার-৩৮২৬]

৩৮৬৪

আবু বাক্র ইবনি আবু শাইবাহ্, আবু কুরায়ব, ইসহাক্ ইবনি ইব্রাহীম ও আম্‌র আন্ নাকিদ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হাফস্ ইবনি গিয়াস [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে, আবু কুরায়ব ও ইসহাক্ ইবনি ইবরাহীম [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] একসাথে আবু মুআবিয়াহ্ [রাদি.] থেকে, আমর আন্ নাকিদ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] আম্মার ইবনি মুহাম্মাদ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে এবং আবু বাক্র ইবনি আবু শাইবাহ্ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] ইবনি ফুযায়ল [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে এবং এরা প্রত্যেকেই আমাশ-এর সূত্রে জাবির [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তবে আম্মার [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে আমরের বর্ণনায় ও মুআবিয়াহ থেকে আবু বাকরের বর্ণনায় উম্মু মুবাশ্শির [রাদি.]- এর নাম বাড়তি এসেছে। আর ইবনি ফুযায়লের বর্ণনায় যায়িদ ইবনি হারিসার স্ত্রীর নাম যোগ করা হয়েছে। আর মুআবিয়ার থেকে ইসহাকের যে বর্ণনা তাতে তিনি কখনও বা তার নাম বাদ দিয়েই বর্ণনা করেন। আর তাঁরা সকলেই নবী [সাঃআঃ] থেকে ঐ রূপ হাদীস বর্ণনা করিয়াছেন, যেরূপ বর্ণনা করিয়াছেন আতা[রহমাতুল্লাহি আলাইহি], আবু যুবায়র ও আমর ইবনি দীনার [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৮২৮, ইসলামিক সেন্টার-৩৮২৭]

৩৮৬৫

আনাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ কোন মুসলিম যদি বৃক্ষ রোপন কিংবা ফসল উৎপাদন করে আর তা থেকে পাখী কিংবা মানুষ অথবা চতুষ্পদ জন্তু অথবা পাখী কিছু খায় তবে তা তার পক্ষ থেকে সাদাকাহ্‌ স্বরূপ হইবে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৮২৯, ইসলামিক সেন্টার-৩৮২৮]

৩৮৬৬

আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] একদা উম্মু মুবাশ্‌শির নাম্নী এক আনসারী মহিলার খেজুর বাগানে গমন করেন। তখন রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] জিজ্ঞেস করেন, এ খেজুর গাছ কে লাগিয়েছে, কোন মুসলিম ব্যক্তি না কোন কাফির ব্যক্তি? তারা বলিল, একজন মুসলিম। এরপর উপরে উল্লিখিত রাবীদের বর্ণিত হাদীসের অনুরূপ বর্ণনা করেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৮৩০, ইসলামিক সেন্টার-৩৮২৯]

About halalbajar.com

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Check Also

মহান আল্লাহর বাণী : “তারা দুটি বিবদমান পক্ষ তাদের প্রতিপালক সম্পর্কে বাক-বিতণ্ডা করে”

মহান আল্লাহর বাণী : “তারা দুটি বিবদমান পক্ষ তাদের প্রতিপালক সম্পর্কে বাক-বিতণ্ডা করে” মহান আল্লাহর …

Leave a Reply

%d bloggers like this: