নতুন লেখা

পোশাক সম্পর্কে হাদিস ও পাকা চুল উপড়িয়ে ফেলা নিষেধ

পোশাক সম্পর্কে হাদিস ও পাকা চুল উপড়িয়ে ফেলা নিষেধ

পোশাক সম্পর্কে হাদিস ও পাকা চুল উপড়িয়ে ফেলা নিষেধ >> সুনান তিরমিজি শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন

অধ্যায়ঃ ৪১, অনুচ্ছেদঃ (৪৫-৫৭)=১৩টি

অনুচ্ছেদ-৪৫ঃ পুরুষের জন্য হলুদ রঙের কাপড় এবং রেশমী কাপড় পরা নিষেধ
অনুচ্ছেদ-৪৬ঃ সাদা পোশাক পরিধান
অনুচ্ছেদ-৪৭ঃ পুরুষদের লাল রং-এর পোশাক পরিধানের অবকাশ প্রসঙ্গে
অনুচ্ছেদ-৪৮ঃ সবুজ পোশাক প্রসঙ্গে
অনুচ্ছেদ-৫০ঃ হলুদ রংয়ের পোশাক প্রসঙ্গে
অনুচ্ছেদ-৫১ঃ যাফরানী রং এবং যাফরান মিশ্রিত সুগন্ধি ব্যবহার পুরুষের জন্য মাকরূহ
অনুচ্ছেদ-৫২ঃ রেশমী কাপড় পরা [পুরুষের জন্য] নিষিদ্ধ
অনুচ্ছেদ-৫৩ঃ [কুবা পরিধান করা]
অনুচ্ছেদ-৫৪ঃ আল্লাহ তায়ালা বান্দার উপর তাহাঁর নিয়ামাতের চিহ্ন দেখিতে ভালবাসেন
অনুচ্ছেদ-৫৫ঃ কালো রংয়ের চামড়ার মোজা পরা
অনুচ্ছেদ-৫৬ঃ পাকা চুল উপড়িয়ে ফেলা নিষেধ
অনুচ্ছেদ-৫৭ঃ পরামর্শদাতা হল আমানতদার

অনুচ্ছেদ৪৫ঃ পুরুষের জন্য হলুদ রঙের কাপড় এবং রেশমী কাপড় পরা নিষেধ

২৮০. আবদুল্লাহ ইবনি আমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেনঃ দুটি লাল কাপড় পরা কোন এক ব্যক্তি রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ]-এর পাশ দিয়ে অতিক্রম করার সময় তাঁকে সালাম দিল। কিন্তু রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] তার সালামের উত্তর দেননি।সনদ দূর্বল, আবু ঈসা বলেনঃ এ হাদীসটি হাসান এবং উপরোক্ত সূত্রে গারীব। আলিমের মতে এ হাদীসের অর্থ হল, তারা কুসুম রংয়ের জামা-কাপড় অপছন্দ করিয়াছেন। তাহাদের মতে কুসুম রং ছাড়া লাল, মেটে ইত্যাদি রং দিয়ে যদি কাপড় লাল করা হয়, তবে কোন দোষ নেই।

পোশাক সম্পর্কে হাদিস -এই হাদীসটির তাহকিকঃ দুর্বল হাদীস

২৮০৮. আলী ইবনি আবু তালিব [রাঃ] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] সোনার আংটি, কাসসী[রেশমী] কাপড়, রেশমী জীনপোষ [গদি] এবং যবের তৈরী বদ নিষিদ্ধ করিয়াছেন। আবুল আহওয়াস[রঃ] বলেন, জিআহ্ হল মিসরে যব হইতে তৈরী করা এক প্রকার মদ।হাদীসের বক্তব্য সহীহ।

আবু ঈসা বলেন, এ হাদীসটি হাসান সহীহ। পোশাক সম্পর্কে হাদিস -এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

২৮০৯. বারাআ ইবনি আযিব [রাঃ] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] আমাদেরকে সাতটি কাজ করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন এবং সাতটি কাজ করিতে নিষেধ করিয়াছেন। তিনি আমাদেরকে জানাযার অনুসরণ করিতে, রোগীর খোঁজ-খবর নিতে, হাঁচিদাতার জবাব দিতে, দাওয়াতকারীর দাওয়াত গ্রহণ করিতে, মযলিমের সাহায্য করিতে, প্রতিশ্রুতি পূর্ণ করিতে এবং সালামের উত্তর দিতে নির্দেশ দিয়েছেন। আর তিনি সাতটি কাজ হইতে আমাদের বারণ করেছেঃ সোনার আংটি বা শাখা, রুপার পাত্র ব্যবহার করিতে, রশমী বস্ত্র, মিহী রেশমী কাপড়, মোটা রেশমী কাপড়, কাসসী কাপড় পরিধান করিতে।

সহীহঃ বুখারী শরীফ ও মুসলিম শরীফ। আবু ঈসা বলেন, এ হাদীসটি হাসান সহীহ। আশআস ইবনি সুলাইম হলেন আশআস ইবনি আবীশ শাসা। আবুশ্ শামার নাম সুলাইম ইবনিল আসওয়াদ। পোশাক সম্পর্কে হাদিস -এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

অনুচ্ছেদ৪৬ঃ সাদা পোশাক পরিধান

২৮১০. সামুরাহ্ ইবনি জুনদাব [রাঃ] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ তোমরা সাদা পোশাক পরিধান কর। কেননা এটা সবচেয়ে পবিত্র ও উত্তম। আর তোমাদের মৃতদেরকেও এ কাপড়ে কাফন দিও।

সহীহঃ ইবনি মা-জাহ [১৪৭২] আবু ঈসা বলেন, এ হাদীসটি হাসান সহীহ। ইবনি আব্বাস ও ইবনি উমার [রাঃ] হইতেও এ অনুচ্ছেদে হাদীস বর্ণিত আছে। পোশাক সম্পর্কে হাদিস -এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

অনুচ্ছেদ৪৭ঃ পুরুষদের লাল রংএর পোশাক পরিধানের অবকাশ প্রসঙ্গে

২৮১. জাবির ইবনি সামুরা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেনঃ এক জোছনা রাতে আমি রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে তাকিয়ে দেখলাম। তাহাঁর পরনে ছিল একজোড়া লাল রং-এর পোশাক। আমি রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ]-এর দিকে এবং চাঁদের দিকে তাকাতে লাগলাম। তিনিই আমার কাছে চাঁদের চাইতে অধিক সুন্দর মনে হল।

যঈফ, মুখতাসার শামায়িল [৮]। উহাকে সহীহ বলা ভুল।আবু ঈসা বলেনঃ এ হাদীসটি হাসান গারীব। আমরা শুধুমাত্র আশআসের রিওয়ায়াত হিসাবে এ হাদীস জেনেছি। শুবা ও সুফিয়ান সাওরী তাঁরা উভয়েই আবু ইসহাক হইতে বারাআ ইবনি আযিব [রাদি.]- এর সূত্রে বর্ণনা করিয়াছেন তিনি বলেনঃ “আমি রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ]-এর পরনে একজোড়া লাল পোশাক দেখেছি”।সহীহ, পূর্বে ১৭২৪ নং হাদীসটি বর্ণিত হয়েছে। মাহমূদ ইবনি গাইলান-ওয়াকী হইতে তিনি সুফিয়ান হইতে তিনি আবু ইসহাক হইতে তিনি মুহাম্মাদ ইবনি বাশশার হইতে তিনি মুহাম্মাদ ইবনি জাফার হইতে তিনি শুবা হইতে তিনি আবু ইসহাক হইতে উপরোক্ত হাদীস বর্ণনা কারেছেন। এ হাদিসে আরো অধিক কথা আছে। আমি মুহাম্মাদকে প্রশ্ন করলাম, আবু ইসহাক-আল-বারাআ [রাদি.] সূত্রে বর্ণিত হাদীসটি বেশি সহীহ না জাবির ইবনি সামুরা [রাদি.]- এর সূত্রে বর্ণিত হাদীসটি? তিনি উভয় হাদীস সহীহ বলে মত দিয়েছেন। এ অনুচ্ছেদে বারাআ ও আবু জুহাইফা [রাদি.] হইতেও হাদীস বর্ণিত আছে। পোশাক সম্পর্কে হাদিস -এই হাদীসটির তাহকিকঃ দুর্বল হাদীস

অনুচ্ছেদ৪৮ঃ সবুজ পোশাক প্রসঙ্গে

২৮১২. আবু রিমসা [রাঃ] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] -কে দুটি সবুজ চাদর পরিহিত অবস্থায় দেখেছি।

সহীহঃ মুখতাসার শামা-য়িল [৩৬]। আবু ঈসা বলেন, এ হাদীসটি হাসান গারীব। আমরা এ হাদীসটি শুধুমাত্র উবাইদুল্লাহ্ ইবনি ইয়াদের সূত্রেই জেনেছি। আবু রিমসা আত্-তাইমীর নাম হাবীব ইবনি হাইয়্যান, মতান্তরে রিফাআ ইবনি ইয়াসরিবী। পোশাক সম্পর্কে হাদিস -এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

অনুচ্ছেদ৪৯ঃ কালো পোশাক প্রসঙ্গে

২৮১৩.আয়েশা [রাঃ] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, একদিন সকালে রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] কালো পশমী চাদর পরিহিত অবস্থায় বের হলেন।

সহীহঃ মুখতাসার শামা-য়িল [৫৬], মুসলিম। আবু ঈসা বলেন, এ হাদীসটি হাসান গারীব সহীহ। পোশাক সম্পর্কে হাদিস -এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

অনুচ্ছেদ৫০ঃ হলুদ রংয়ের পোশাক প্রসঙ্গে

২৮১৪. ক্বাইলা বিনতু মাখ্রামাহ্ [রাঃ] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমরা রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] -এর নিকট হাযির হলাম। তারপর তিনি লম্বা হাদীস বর্ণনা করেন। সূর্য প্রখর হয়ে উঠার পর জনৈক ব্যাক্তি এসে বলিল, আসসালামু আলাইকা ইয়া রসুলুল্লাহ। রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বললেনঃ ওয়ালাইকাস সালাম ওয়া রাহমাতুল্লাহ। রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] -এর পরণে বিবর্ণ হয়ে যাওয়া জাফরানী রং-এর দুটি পুরনো কাপড় ছিল এবং নাবী [সাঃআঃ] -এর সাথে ছিল একটি খেজুরের ডাল।

হাসানঃ মুখতাসার শামা-য়িল, তাহকীক সানী [৫৩]। আবু ঈসা বলেন, আমরা এ হাদীসটি শুধুমাত্র আব্দুল্লাহ্ ইবনি হাসসানের রিওয়ায়াত হিসেবে জেনেছি। পোশাক সম্পর্কে হাদিস -এই হাদীসটির তাহকিকঃ হাসান হাদীস

অনুচ্ছেদ৫১ঃ যাফরানী রং এবং যাফরান মিশ্রিত সুগন্ধি ব্যবহার পুরুষের জন্য মাকরূহ

২৮১৫. আনাস ইবনি মালিক [রাঃ] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] পুরুষদেরকে জাফরানী রং ব্যবহার করিতে নিষেধ করিয়াছেন।

সহীহঃ বুখারী [৫৮৪৬], মুসলিম [৬/১৫৫]। আবু ঈসা বলেন, এ হাদীসটি হাসান সহীহ। এ হাদীসটি শুবাহ্-ইসমাঈল ইবনি উলাইয়্যা হইতে, তিনি আব্দুল আযীয ইবনি সুহাইব হইতে, তিনি আনাস [রাঃ] হইতে এই সূত্রে বর্ণিত আছে যে, নাবী [সাঃআঃ] জাফরানী রং ব্যবহার করিতে নিষেধ করিয়াছেন। আব্দুল্লাহ্ ইবনি আব্দুর রাহমান-আদাম হইতে, তিনি শুবাহ্[রঃ] হইতে এরকম বর্ণনা করিয়াছেন। আবু ঈসা বলেন, “পুরুষের জন্য জাফরান লাগানো নিষেধ” এ কথার অর্থ হল জাফরানী রং-এর সুগন্ধি লাগানো তাহাদের জন্য নিষেধ। পোশাক সম্পর্কে হাদিস -এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

২৮১৬. ইয়ালা ইবনি মুররা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] কোন এক ব্যক্তিকে দেখলেন যে, সে খালুক [যাফরান মিশানো সুগন্ধি] ব্যবহার করেছে। তিনি বললেনঃ যাও, এটা ধুয়ে ফেল আবার ধুয়ে ফেল, পুনরায় তা লাগিও না।

সনদ দূর্বল, আবু ঈসা বলেনঃ এ হাদীসটি হাসান। এ হাদীসের সনদে আতা ইবনিস সাইব [রঃ] হইতে বর্ণনার ব্যপারে কিছু হাদীস বিশারদ মতের অমিল করিয়াছেন। আলী [রঃ] বলেনঃ ইয়াহ্‌ইয়া ইবনি সাঈদ বলেছেন, যারা পূর্বে আতা ইবনিস সাইব এর নিকট হাদীস শুনেছেন তাহাদের উক্ত শ্রবণ যথার্থ। আতা ইবনিস সাইব যাযান সূত্রে বর্ণিত দুটি হাদীস ব্যতীত তার বরাতে শুবা ও সুফিয়ানের হাদীস শ্রবণের বিষয়টি সঠিক। শুবা বলেনঃ আতা হইতে যাযান সূত্রে বর্ণিত হাদীসদুটো আমি আতার অন্তিম বয়সে শুনিয়াছি। কথিত আছে যে, শেষ বয়সে আতার স্মৃতিশক্তি নষ্ট হয়ে যায়। এ আনুচ্ছেদে আম্মার, আবু মূসা ও আনাস [রাদি.] হইতেও হাদীস বর্ণিত আছে। রাবী আবু হাফস হলেন ইবনি উমার। পোশাক সম্পর্কে হাদিস -এই হাদীসটির তাহকিকঃ দুর্বল হাদীস

অনুচ্ছেদ৫২ঃ রেশমী কাপড় পরা [পুরুষের জন্য] নিষিদ্ধ

২৮১৭. ইবনি উমার [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি উমার [রাদি.]-কে উল্লেখ করিতে শুনিয়াছি যে, নাবী [সাঃআঃ] বলেছেনঃ দুনিয়াতে যে লোক রেশমী কাপড় পরবে, সে আখিরাতে তা পরতে পারবে না।

সহীহঃ গায়তাতুল মারাম [৭৮], বুখারী শরীফ ও মুসলিম শরীফ. আলী, হুযাইফাহ, আনাস [রাযীঃ] প্রমুখ সাহাবীদের মতে এ অনুচ্ছেদে হাদীস বর্ণিত আছে যা আমি কিতাবুল লিবাসে উল্লেখ করেছি [১৭২০ নং হাদীসের অধীনে দ্রঃ] আবু ঈসা বলেন, এ হাদীসটি হাসান স হীহ । আবু আমর [রাদি.] হইতে এটি ভিন্ন সূত্রেও ব র্ণিত আছে । আবু আমর- এর নাম ;আব্দুল্লাহ এবং উপনাম আবু আমর । আতা ইবনি আবী রাবাহ ও আমর ইবনি দীনার [রাদি.] তাহাঁর সূত্রে হাদীস বর্ণনা করিয়াছেন । পোশাক সম্পর্কে হাদিস -এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

অনুচ্ছেদ৫৩ঃ [কুবা পরিধান করা]

২৮১৮. মিসওয়ার ইবনি মাখরামাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

কোন এক সময় রাসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] কয়েকটি কুবা বন্টন করিলেন, কিন্তু মাখরামাকে এর কোন অংশই দিলেন না। তখন মাখরামাহ বলিলেন, হে পুত্র! চল আমরা রাসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] –এর নিকট যাই। তিনি [মিসওয়ার] বলেন, আমি তার সাথে চললাম। [ঐখানে পৌছে] তিনি বলিলেন, ভিতরে যাও এবং আমার জন্য তাহাঁর নিকট আবেদন কর। আমি তাহাঁর নিকট গিয়ে তার জন্য আবেদন করলাম। তখন রাসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] কুবা গুলো হইতে একটি কুবা হাতে নিয়ে বেরিয়ে আসলেন। এবং বললেনঃ তোমার জন্য এগুলো লুকিয়ে রেখেছিলাম। বর্ণনাকারী বলেন, রাসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] তার দিকে তাকিয়ে বললেনঃ মাখরামাহ এবার খুশি হয়েছো।

সহীহঃ বুখারী শরীফ ও মুসলিম শরীফ, আবু ঈসা বলেন, এ হাদীসটি হাসান সহীহ । ইবনি আবু মুলাইকার নাম আব্দুল্লাহ ইবনি ঊবাইদুল্লাহ ইবনি আলী মুলাইকাহ । পোশাক সম্পর্কে হাদিস -এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

অনুচ্ছেদ৫৪ঃ আল্লাহ তায়ালা বান্দার উপর তাহাঁর নিয়ামাতের চিহ্ন দেখিতে ভালবাসেন

২৮১৯. আমর ইবনি শুআইব [রঃ] হইতে পর্যায়ক্রমে তাহাঁর বাবা ও তাহাঁর দাদার সূত্রে হইতে বর্ণীতঃ

তাহাঁর দাদা বলেন, রাসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ আল্লাহ তাআলা তাহাঁর দেয়া নিমাতের নিদর্শন তাহাঁর বান্দার উপর দেখিতে ভালবাসেন [অর্থাৎ যাকে যে রকম নিমাত প্রদান করা হয়েছে সেনুযায়ী পোশাক-পরিচ্ছেদ ব্যবহার করা আল্লাহ পছন্দ করেন]।

হাসান সহীহঃ গাইয়াতুল মারাম [৭৫] আবুল আহওয়াস তার বাবা হইতে, ইমরান ইবনি হুসাইন ও ইবনি মাসউদ [রাদি.] হইতে এ অনুচ্ছেদে হাদীস বর্ণিত আছে। আবু ঈসা বলেন, এ হাদীসটি হাসান। পোশাক সম্পর্কে হাদিস -এই হাদীসটির তাহকিকঃ হাসান সহীহ

অনুচ্ছেদ৫৫ঃ কালো রংয়ের চামড়ার মোজা পরা

২৮২০. বুরাইদা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

[বাদশাহ] নাজাশী নকশাবিহীন দুটি কালো রংয়ের চামড়ার মোজা রাসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] কে উপহার দিয়েছিলেন। তিনি তা পরিহিত অবস্হায় উযু করিলেন এবং তাহাঁর উপর মাসিহ করিলেন।

সহীহ ইবনি মা-জাহঃ [৫৪৪৯] আবু ঈসা বলেন, এ হাদীসটি হাসান । আমরা দালহামের বর্ণনা মতে এটি জেনেছি । মুহাম্মদ ইবনি রাবীআও এ হাদীসটি দালহামের সূত্রে বর্ণনা করিয়াছেন । পোশাক সম্পর্কে হাদিস -এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

অনুচ্ছেদ৫৬ঃ পাকা চুল উপড়িয়ে ফেলা নিষেধ

২৮২১. আমর ইবনি শুআইব [রঃ] হইতে পর্যায়ক্রমে তাহাঁর বাবা ও তাহাঁর দাদার সূত্রে হইতে বর্ণীতঃ

নাবী [সাঃআঃ] তাহাঁর পাকা চুল উপড়িয়ে ফেলতে নিষেধ করিয়াছেন। তিনি আরো বলেনঃ এটি মুসলিমের নূর।

সহীহঃ মিশকাত ৪৪৫৮, সহীহাহ ১২৪৩ আবু ঈসা বলেনঃ এ হাদীসটি হাসান এ হাদীস আমর ইবনি শুআইব [রঃ] হইতে পর্যায়ক্রমে তাহাঁর বাবা ও তাহাঁর দাদার সূত্রে বর্ণিত আব্দুর রাহমান ইবনিল হারিস এবং আরো অনেকে বর্ণনা করিয়াছেন। পোশাক সম্পর্কে হাদিস -এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

অনুচ্ছেদ৫৭ঃ পরামর্শদাতা হল আমানতদার

২৮২২. আবু হুরাইরা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যে ব্যাক্তির নিকট পরামর্শ চাওয়া হ্য় সে একজন আমানাতদার।

সহীহঃ ইবনি মা-জাহ [৩৭৪৫]।আবু ঈসা বলেন, এ হাদীসটি হাসান । এ হাদীসটি শায়বান ইবনি আব্দুর রাহমান আন-নাহবীর সূত্রে একাধিক বর্ণনাকারী বর্ণনা করিয়াছেন । শাইবান একজন গ্রন্হপ্রণেতা, তার হাদীস সহীহ এবং তার উপনাম আবু মুআবিয়াহ । আব্দুল জাব্বার ইবনি আলা-আল-আত্তার-সুফইয়ান ইবনি উয়াইনাহ হইতে বর্ণনা করিয়াছেন, তিনি বলেন, মালিক ইবনি উমাইর বলেছেন, আমি হাদীশ বর্ণনা করার সময় তা হইতে একটি অক্ষরও কম করি না । পোশাক সম্পর্কে হাদিস -এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

২৮২৩. উম্মু সালামাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ পরামর্শদাতা হল আমানতদার। [সুতরাং তার আমানত রক্ষা করা দায়িত্ব অর্থাৎ কল্যানময় সৎ পরামর্শ প্রদান করা উচিত]।

পূর্বের হাদীস সহায়তায় সহীহ,ইবনি মাসউদ, ইবনি হুরাইরাহ্ ও ইবনি উমার [রাদি.] হইতেও এ অনুচ্ছেদে হাদীস বর্ণিত আছে । আবু ঈসা বলেন এ হাদীসটি উম্মু সালামাত [রাদি.]-এর রিওয়ায়াত হিসেবে গারীব । পোশাক সম্পর্কে হাদিস -এই হাদীসটির তাহকিকঃ সহীহ হাদীস

About halalbajar.com

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Check Also

লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ ও অন্যান্য দুয়া

লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ ও অন্যান্য দুয়া লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ …

Leave a Reply

%d bloggers like this: