পুরুষের জন্য রেশমী কাপড় পরিধান হারাম

পুরুষের জন্য রেশমী কাপড় পরিধান হারাম

 পুরুষের জন্য রেশমী কাপড় পরিধান হারাম >> বুলুগুল মারাম এর মুল সুচিপত্র দেখুন

অধ্যায় ১৭ঃ কাপড় পরিধান

পরিচ্ছেদ ২৬১ঃ পুরুষের জন্য রেশমী কাপড় পরিধান হারাম
পরিচ্ছেদ ২৬২ঃ [পুরুষের যতটুকু রেশমি কাপড় বৈধ]
পরিচ্ছেদ ২৬৩ঃ চিকিৎসার জন্য রেশমী কাপড় পরিধান বৈধ
পরিচ্ছেদ ২৬৪ঃ মহিলাদের জন্য রেশমী কাপড় বৈধ
পরিচ্ছেদ ২৬৫ঃ স্বর্ণ ও রেশমী কাপড় মহিলাদের বৈধ আর পুরুষদের জন্য হারাম
পরিচ্ছেদ ২৬৬ঃ পোশাকসহ অন্য সকল ক্ষেত্রে কিছু দিয়ে আল্লাহর নিয়ামত প্রকাশ মুস্তাহাব
পরিচ্ছেদ ২৬৭ঃ রেশমী কাপড় ও হলুদ কাপড় পরিধান নিষেধ
পরিচ্ছেদ ২৬৮ঃ যে কাপড়ে সামান্য পরিমাণ রেশমী রয়েছে তা পরিধান করা বৈধ

পরিচ্ছেদ ২৬১ঃ পুরুষের জন্য রেশমী কাপড় পরিধান হারাম

৫২৪ – আবু`আমির আশ’আরী [রাঃআঃ] থেকে বর্ণিতঃ

তিনি বলেন , রাসূলাল্লাহ [সাঃআঃ ] বলেছেন , আমার উম্মাতের মধ্যে অবশ্যই এমন কতোগুলা দলের সৃষ্টি হইবে, যারা ব্যাভিচার {৫৬০} ও রেশমি কাপড় হালাল মনে করিবে,–এর মুল বক্তব্য বুখারীতে রয়েছে । {৫৬১}

{৫৬০} [আরবী] শব্দের অর্থ হচ্ছে [আরবী] তথা যৌনাঙ্গ । এর ভাবার্থ হচ্ছেঃ তারা যিনাকে হালাল করে নিবে। {৫৬১} আবূ দাউদ ৪০৩৯ , বুখারী ৫৫৯০। রেশমী কাপড় পরিধান হারাম হাদিসের তাহকীকঃ সহিহ হাদিস

৫২৫ – হুযাইফাহ [রাঃআঃ] থেকে বর্ণিতঃ

তিনি বলেন , নাবী [সাল্লাল্লাহি`আলাইহি ওয়া সাল্লাম] স্বর্ণ ও রৌপ্যের পাত্রে পানাহার করিতে আমাদেরকে নিষেধ করিয়াছেন এবং তিনি মোটা ও চিকন রেশমী বস্ত্র পরিধান করিতে ও তাতে উপবেশন করিতে নিষেধ করিয়াছেন। {৫৬২}

{৫৬২} বুখারী ৫৪২৬, ৫৬২৬ , ৫৬৩২ , ৫৬৩৩, ৫৬৩৭ , মুসলিম ২০৬৭ , তিরমিজি ১৮৮৭। হাদিসের তাহকীকঃ সহিহ হাদিস

পরিচ্ছেদ ২৬২ঃ [পুরুষের যতটুকু রেশমি কাপড় বৈধ]

৫২৬ – উমর [রাঃআঃ] থেকে বর্ণিতঃ

তিনি বলেন, নাবী [সাল্লাল্লাহি`আলাইহি ওয়া সাল্লাম] রেশমের কাপড় পরিধান করিতে নিষেধ করিয়াছেন । তবে দুই বা তিন বা চার আঙ্গুল পরিমান কাপড় হলে তা ব্যবহার করিতে পারে । শব্দ বিন্যাস মুসলিমের । {৫৬৩}

{৫৬৩} বুখারী ৫৮২৮ , ৫৮২৯ , মুসলিম ২০৬৯। হাদিসের তাহকীকঃ সহিহ হাদিস

পরিচ্ছেদ ২৬৩ঃ চিকিৎসার জন্য রেশমী কাপড় পরিধান বৈধ

৫২৭ – আনাস [রাঃআঃ] থেকে বর্ণিতঃ

নাবী [সাঃআঃ]`আব্দুর রাহমান ইবনু আওফ [রাঃআঃ] ও যুবায়র [রাঃআঃ] কে তাদের শরীরে চুলকানি থাকায় রেশমী জামা পরিধান করিতে অনুমতি দিয়েছিলেন। {৫৬৪}

{৫৬৪} বুখারী ২৯১৯, ২৯২০, ২৯২২, ৫৮২৯, মুসলিম ২০৭৬, ৫২৬৮। হাদিসের তাহকীকঃ সহিহ হাদিস

পরিচ্ছেদ ২৬৪ঃ মহিলাদের জন্য রেশমী কাপড় বৈধ

৫২৮ – আলী [রাঃআঃ] থেকে বর্ণিতঃ

নাবী [সাঃআঃ] আমাকে এক জোড়া রেশমী কাপড় পরতে দেন। আমি তা পরে বের হই। কিন্তু তাহাঁর {নাবী [সাঃআঃ]} মুখমন্ডলে রাগের ভাব আমি লক্ষ্য করি। কাজেই আমি তা আমার পরিবারের মহিলাদের মধ্যে বন্টন করে দেই। -শব্দ বিন্যাস মুসলিমের। {৫৬৫}

{৫৬৫} বুখারী ২৬১৪, ৫৩৬৬, ৫৮৪০, মুসলিম ২০৭১, ৫২৬২। রেশমী কাপড় পরিধান হারাম হাদিসের তাহকীকঃ সহিহ হাদিস

পরিচ্ছেদ ২৬৫ঃ স্বর্ণ ও রেশমী কাপড় মহিলাদের বৈধ আর পুরুষদের জন্য হারাম

৫২৯ – আবূ মুসা [রাঃআঃ] থেকে বর্ণিতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেন – আমার উম্মাতের নারীদের জন্য সোনা ও রেশম ব্যবহার হালাল করা হয়েছে, এবং পুরুষদের উপর হারাম করা হয়েছে। – তিরমিজি একে সহিহ বলেছেন। {৫৬৬}

{৫৬৬} নাসায়ি হাদিস ৫১৪৮, তিরমিজি ১৭২০। হাদিসের তাহকীকঃ হাসান হাদিস

পরিচ্ছেদ ২৬৬ পোশাকসহ অন্য সকল ক্ষেত্রে কিছু দিয়ে আল্লাহর নিয়ামত প্রকাশ মুস্তাহাব

৫৩০ – ইমরান বিন হুসাইন [রাঃআঃ] থেকে বর্ণিতঃ

নাবী [সাঃআঃ] বলেছেন – আল্লাহ তা‘আলা যখন তাহাঁর বান্দাকে কোন নি‘মাত দান করেন তখন তার নিদর্শন তার মধ্যে দেখিতে পছন্দ করেন। {৫৬৭}

{৫৬৭} সহীহঃ বাইহাক্বী ৩/২৭১। বাইহাক্বীর সনদ জঈফ কিন্তু তার শাহিদ থাকায় হাদিসটি সহিহ। হাদিসের তাহকীকঃ হাসান হাদিস

পরিচ্ছেদ ২৬৭ঃ রেশমী কাপড় ও হলুদ কাপড় পরিধান নিষেধ

৫৩১ – আলী [রাঃআঃ] থেকে বর্ণিতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] কাসমী [এক জাতীয় রেশমী কাপড় যা মিসরে তৈরী হয়] ও মু‘আসফার [গাঢ় হলুদ রঙের কাপড় ] কাপড়দ্বয় পরিধান নিষেধ করিয়াছেন। {৫৬৮}

{৫৬৮} মুসলিম ২০৭৮, তিরমিজি ১৭২৫, ১৭২৭, ১৮০৮, পূর্ণাঙ্গ হাদিসটি হচ্ছেঃ আর তিনি স্বর্ণের আংটি পরিধান করিতে এবং রুকুতে কুরআন পাঠ করিতে নিষেধ করিয়াছেন। হাদিসের তাহকীকঃ সহিহ হাদিস

৫৩২ – আব্দুল্লাহ বিন`আমর [রাঃআঃ] থেকে বর্ণিতঃ

তিনি বলেন, নাবী [সাঃআঃ] আমাকে দু’খানা মুয়াসফার কাপড় পরিহিত অবস্থায় দেখে বলেছিলেন, তোমার মা তোমাকে কি এগুলো পরিধান করিতে হুকুম করিয়াছেন? {৫৬৯}

{৫৬৯} মুসলিম ২০৭৭, নাসায়ি হাদিস ৫২১৬, ৫২১৭, আহমাদ ৬৪৭৭, পূর্ণ হাদিসটি হচ্ছেন আবদুল্লাহ বিন আমর বলেনঃ আমি বললাম আমি কি তা ধুয়ে ফেলব? রাসূল [সাঃআঃ] বলিলেন, বরং তুমি এগুলোকে জ্বালিয়ে দাও। হাদিসের তাহকীকঃ সহিহ হাদিস

পরিচ্ছেদ ২৬৮ঃ যে কাপড়ে সামান্য পরিমাণ রেশমী রয়েছে তা পরিধান করা বৈধ

৫৩৩ – আসমা বিন্‌তু আবূ বাক্‌র [রাঃআঃ] থেকে বর্ণিতঃ

তিনি রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] এর একটি জুব্বা [লম্বা জামা] বের করে দিলেন, যার সামনের দিক, দু আস্তিন, নীচের অংশে দিবাজ [মোটা রেশমের সঞ্জার] লাগান ছিল – আবু দাউদ। মূল বক্তব্য মুসলিমে রয়েছে। মুসলিমের অতিরিক্ত বর্ণনায় আছেঃ এটা`আয়িশাহ [রাঃআঃ] এর নিকট তাহাঁর মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত ছিল। তারপর আমি [আসমা] সেটি হস্তগত করলাম। ঐটি নাবী [সাঃআঃ] পরতেন। ফলে আমরা সেটি ধুয়ে [তার পানি] আমাদের রুগ্ন ব্যক্তিদের আরোগ্য কামনা করতাম। বুখারী স্বীয় আদাবুল মুফরাদ নামক গ্রন্থে অতিরিক্ত বর্ণনা করেনঃ নাবী [সাঃআঃ] কোন প্রতিনিধি দল এলে ও জুমু‘আয় এটা পরিধান করিতেন। {৫৭০}

{৫৭০} আবু দাউদ ৪০৫৪, আহমাদ ২৬৪০২। রেশমী কাপড় পরিধান হারাম হাদিসের তাহকীকঃ সহিহ হাদিস

By বুলূগুল মারাম

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। তবে আমরা রাজনৈতিক পরিপন্থী কোন মন্তব্য/ লেখা প্রকাশ করি না। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই লেখাগুলো ফেসবুক এ শেয়ার করুন, আমল করুন

Leave a Reply