নেশা সৃষ্টিকারী সকল বস্তুই মদ, আর সর্বপ্রকার মদই হারাম

নেশা সৃষ্টিকারী সকল বস্তুই মদ, আর সর্বপ্রকার মদই হারাম

নেশা সৃষ্টিকারী সকল বস্তুই মদ, আর সর্বপ্রকার মদই হারাম >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

৭. অধ্যায়ঃ নেশা সৃষ্টিকারী সকল বস্তুই মদ, আর সর্বপ্রকার মদই হারাম

৫১০৬

আয়েশাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে বিতই বিষয়ে প্রশ্ন করা হলো। তিনি বলিলেন, নেশাগ্রস্ত করে এমন সকল প্রকার পানীয়ই নিষিদ্ধ। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৪১, ইসলামিক সেন্টার-৫০৫১]

৫১০৭

আবু সালামা ইবনি আবদুর রহমান [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি আয়েশাহ [রাদি.]-কে বলিতে শুনেছেন যে, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে বিত্‌ই সম্বন্ধে প্রশ্ন করা হলো। তিনি বলিলেন, নেশা উদ্রেক করে এমন সর্বপ্রকার পানীয়ই নিষিদ্ধ। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৪২, ইসলামিক সেন্টার-৫০৫২]

৫১০৮

মামার [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে, তাঁরা সবাই যুহরী [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

উক্ত সূত্রে হাদীসটি বর্ণনা করিয়াছেন। তবে সুফ্ইয়ান সালিহ্ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]- এর হাদীসে রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে “বিত্ই {৬} সম্বন্ধে প্রশ্ন করা হলো”-কথাটি নেই। কিন্তু মামার [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]-এর কথাটি হাদীসে রয়েছে। আর সালিহ্ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]-এর হাদীসে রয়েছ যে, তিনি {আয়িশাহ্ [রাদি.]} রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে বলিতে শুনেছেন- সকল প্রকার নেশা উদ্রেককারী পানীয়ই নিষিদ্ধ। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৪৩, ইসলামিক সেন্টার-৫০৫৩]

{৬} [বিতই] মদ। মধু কিংবা খেজুর রসের তৈরি করা মদ বা তাড়ি। [মিসবাহ ২৭ পৃঃ]

৫১০৯

আবু মূসা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, নবী [সাঃআঃ] আমাকে এবং মুআয ইবনি জাবাল [রাদি.]-কে ইয়ামানে প্রেরণ করিলেন। আমি বললাম, হে আল্লাহর রসূল! আমাদের অঞ্চলে যব হইতে মিয্‌র নামক মদ এবং মধু হইতে বিত্‌ই নামক মদ প্রস্তুত করা হয়। তিনি বলিলেন, সকল প্রকার নেশা উদ্রেককারী জিনিসই নিষিদ্ধ।

{দ্রষ্টব্য হাদীস ৪৫২৬} [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৪৪, ইসলামিক সেন্টার-৫০৫৪]

৫১১০

সাঈদ ইবনি আবু বুরদাহ্‌ [রাদি.] তাহাঁর পিতা, তিনি দাদা হইতে হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সাঃআঃ] তাঁকে ও মুআয [রাদি.]-কে ইয়ামানে প্রেরণ করিলেন এবং তাদেরকে বললেনঃ তোমরা [মানুষকে] সুসংবাদ দিবে আর [দীনকে] সহজভাবে প্রকাশ করিবে, [মানুষকে] দ্বীন শিক্ষা দেবে, কাউকে [দীন থেকে] পৃথক করে দিবে না।

আমার ধারণা হয়, তিনি একতাবদ্ধ হয়ে কাজ করিবে কথাটিও বলেছেন। তিনি যাত্রা করলে আবু মূসা [রাদি.] ফিরে এসে বলিলেন, হে আল্লাহর রসূল! তাদের তো মধু থেকে বানানো মদ আছে যা পাকিয়ে ঘন করা হয় এবং মিয্‌র আছে যা যব দিয়ে প্রস্তুত করা হয়। রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলিলেন, যা কিছু নামাজ হইতে বিরত করে তা-ই হারাম। [ই ফা ৫০৪৫ ই সে ৫০৫৫]

৫১১১

আবু বুরদাহ্‌ [রাদি.] তার পিতা হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] আমাকে ও মুআয [রাদি.]-কে ইয়ামানে প্রেরণ করে বললেনঃ তোমরা লোকদেরকে [দ্বীনের] আহ্বান করিবে, সুখবর দিবে, কাউকে তাড়িয়ে দিবে না। সহজ করিবে-কঠিন করিবে না। তিনি বলেন, আমি বললাম, হে আল্লাহর রসূল! ইয়ামানে আমরা দুরকমের মদ তৈরি করি, আপনি সে ব্যাপারে আমাদেরকে জানান। [১] আল-বিতই, যা মধু পাকিয়ে ঘন করে প্রস্তুত করা হয়; [২] আল-মিয্‌র, যা যব পাকিয়ে ঘন করে তৈরি হয়। বর্ণনাকারী বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে কিছু শব্দ অথচ ব্যাপক অর্থবোধক কথা পূর্ণতার সঙ্গে প্রকাশ করার সামর্থ্য দেয়া হয়েছিল। তিনি বললেনঃ প্রত্যেক নেশাযুক্ত জিনিস যা নামাজ হইতে গাফিল করে তা [পান করিতে] বারণ করছি। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৪৬, ইসলামিক সেন্টার-৫০৫৬]

৫১১২

জাবির [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

জাইশান থেকে জনৈক লোক আসলো। জাইশান ইয়ামানের একটি অঞ্চল। অতঃপর সে নবী [সাঃআঃ]-কে তাদের অঞ্চলে তারা শস্য দিয়ে প্রস্তুত মিয্‌র নামক যে মদ পান করে সে সম্পর্কে প্রশ্ন করলো। নবী [সাঃআঃ] বললেনঃ এটা কি নেশা তৈরি করে? সে বলিল, হ্যাঁ। রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বললেনঃ নেশা উদ্রেক করে এমন সবাই নিষিদ্ধ। আল্লাহ তাআলা ওয়াদা করিয়াছেন, যে লোক নেশাযুক্ত জিনিস পান করিবে তাঁকে তিনি “তীনাতুল খাবাল” পান করিয়ে ছাড়বেন। মানুষেরা বলিল, হে আল্লাহর রসূল! তীনাতুল খাবাল কি? তিনি বলিলেন, জাহান্নামবাসীদের ঘাম বা জাহান্নামবাসীদের মল-মূত্র। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৪৭, ইসলামিক সেন্টার-৫০৫৭]

৫১১৩

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যা কিছু নেশা তৈরি করে তা-ই মদ। আর যা নেশা উদ্রেক করে তাই নিষিদ্ধ। যে লোক দুনিয়াতে মদ পান করিবে, আবার সব সময় এ কাজ করে তাওবাহ্‌ না করেই মৃত্যুমুখে পতিত হইবে, সে আখিরাতে তা পান করিতে পারবে না। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৪৮, ইসলামিক সেন্টার-৫০৫৮]

৫১১৪

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নিশ্চয়ই রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যা কিছু নেশাগ্রস্থ করে তা-ই মদ। আর যা নেশা উদ্রেক করে তা-ই নিষিদ্ধ। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৪৯, ইসলামিক সেন্টার-৫০৫৯]

৫১১৫

মূসা ইবনি উক্‌বাহ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

উপরোল্লিখিত সূত্রে হুবহু বর্ণিত হয়েছে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৫০, ইসলামিক সেন্টার-৫০৬০]

৫১১৬

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

সম্ভবত তিনি নবী[সাঃআঃ] থেকেই বর্ণনা করিয়াছেন। তিনি বলেন, যে জিনিসে নেশা উদ্রেক করে তাই মদ। আর মদ মাত্রই হারাম। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৫১, ইসলামিক সেন্টার-৫০৬১]

By মুসলিম শরীফ

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Leave a Reply