নামাজ আদায়কারীর সামনে সম্মুখীন হওয়া…

নামাজ আদায়কারীর সামনে সম্মুখীন হওয়া…

নামাজ আদায়কারীর সামনে সম্মুখীন হওয়া…>> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

৫১. অধ্যায়ঃ নামাজ আদায়কারীর সামনে সম্মুখীন হওয়া [অর্থাৎ- আড়াআড়িভাবে, লম্বালম্বি হয়ে শুয়ে থাকার প্রসঙ্গে আলোচনা]

১০২৭

আয়িশাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, নবী [সাঃআঃ] রাত্রি বেলায় নামাজ আদায় করিতেন। আমি তাহাঁর এবং কিবলার মাঝামাঝি জানাযার মত আড়াআড়িভাবে শুয়ে থাকতাম। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১০২১ , ইসলামিক সেন্টার- ১০৩১]

১০২৮

আয়িশাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, নবী [সাঃআঃ] প্রতি রাত্রে নামাজ আদায় করিতেন। আমি তাহাঁর ও কিবলার মাঝে আড়াআড়িভাবে শুয়ে থাকতাম। তিনি যখন বিত্‌র নামাজ আদায় করার ইচ্ছা পোষণ করিতেন, তখন আমাকে জাগাতেন। অতঃপর আমিও বিত্‌র নামাজ আদায় করে নিতাম। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১০২২ , ইসলামিক সেন্টার- ১০৩২]

১০২৯

উরওয়াহ্‌ ইবনি যুবায়র [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আয়িশা [রাদি.] বলিলেন, কিসে নামাজ নষ্ট হয়? রাবী বলেন, আমরা বললাম, স্ত্রীলোক এবং গাধার কারণে নামাজ নষ্ট হয়। তিনি বলিলেন, তাহলে স্ত্রীলোক একটি অশুভ প্রাণী! আমি রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -এর সামনে জানাযার মত আড়াআড়ি হয়ে শুয়ে থাকতাম, আর তিনি নামাজ আদায় করিতেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১০২৩, ইসলামিক সেন্টার- ১০৩৩]

১০৩০

আল আসওয়াদ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি [মাসরূক্‌] বলেন, আয়িশা [রাদি.] -এর সম্মুখে নামাজ বিনষ্টকারী জিনিস যেমন কুকুর, গাধা এবং মহিলাদের কথা উল্লেখ করা হলো। আয়িশা [রাদি.] বলিলেন, তোমরা তো আমাদেরকে গাধা ও কুকুরের সমতুল্য করে দিলে। আল্লাহর শপথ! আমি রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -কে নামাজরত অবস্থায় দেখেছি। আমি বিছানার উপর তাহাঁর ও কিবলার মাঝখানে শুয়ে থাকতাম। আমার উঠার প্রয়োজন দেখা দিলে [শোয়া থেকে উঠে] তাহাঁর সামনে বসে থাকা এবং এভাবে তাঁকে কষ্ট দেয়া আমার কাছে খারাপ লাগত। তাই আমি খাটের পায়ের দিক দিয়ে ঘেসে ঘেসে নেমে বের হয়ে যেতাম। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১০২৪, ইসলামিক সেন্টার- ১০৩৪]

১০৩১

আয়িশাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, তোমরা আমাদেরকে কুকুর ও গাধার সাথে তুলনা করলে। আমি খাটের উপর শুয়ে থাকতাম। রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] এসে খাটের উপর দাঁড়িয়ে যেতেন, অতঃপর নামাজ শুরু করে দিতেন। আমার উঠবার প্রয়োজন দেখা দিলে শোয়া থেকে উঠে তাহাঁর সামনে বসে থেকে তাঁকে কষ্ট দেয়া আমার কাছে খারাপ লাগত। তাই আমি খাটের পায়ের দিকে ঘেসে ঘেসে আসতাম, অতঃপর লেপের মধ্য থেকে বেরিয়ে যেতাম। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১০২৫, ইসলামিক সেন্টার- ১০৩৫]

১০৩২

আয়িশাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -এর সামনে শুয়ে থাকতাম। আমার পা দুটি কিবলার দিকে থাকত। তিনি যখন সাজদাহ্ করিতেন, আমাকে ইঙ্গিত দিতেন এবং আমি আমার পা গুটিয়ে নিতাম। যখন তিনি দাঁড়িয়ে যেতেন, আমি আবার পা বিছিয়ে দিতাম। এ সময় ঘরে বাতি থাকত না। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১০২৬, ইসলামিক সেন্টার- ১০৩৬]

১০৩৩

নবী [সাঃআঃ] -এর স্ত্রী মাইমূনাহ্‌ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] নামাজ আদায় করিতেন, আর আমি তাহাঁর পাশেই সোজা হয়ে শুয়ে থাকতাম। আমি তখন হায়িয [মাসিক ঋতু] অবস্থায় ছিলাম। কখনো কখনো সাজদাহ্ করার সময় তাহাঁর কাপড় আমার গায়ে এসে পড়ত। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১০২৭ , ইসলামিক সেন্টার- ১০৩৭]

১০৩৪

আয়িশাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, নবী [সাঃআঃ] রাত্রিতে নামাজ আদায় করিতেন। আমি তাহাঁর পাশে শুয়ে থাকতাম। আমি এ সময় ঋতুবতী ছিলাম। আমার গায়ে চাদর ছিল, এর কোন কোন অংশ তাহাঁর পার্শ্বদেশে ঠেকে যেত। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১০২৮ , ইসলামিক সেন্টার- ১০৩৮]

By বুলূগুল মারাম

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। তবে আমরা রাজনৈতিক পরিপন্থী কোন মন্তব্য/ লেখা প্রকাশ করি না। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই লেখাগুলো ফেসবুক এ শেয়ার করুন, আমল করুন

Leave a Reply