নতুন লেখা

মুযাফ্‌ফাত, দুব্বা, হানতাম ও নাকীর ইত্যাদিতে নবীয তৈরি

মুযাফ্‌ফাত, দুব্বা, হানতাম ও নাকীর {৫} ইত্যাদিতে নবীয তৈরি

মুযাফ্‌ফাত, দুব্বা, হানতাম ও নাকীর {৫} ইত্যাদিতে নবীয তৈরি

৬. অধ্যায়ঃ মুযাফ্‌ফাত, দুব্বা, হানতাম ও নাকীর {৫} ইত্যাদিতে নবীয তৈরি করার নিষেধাজ্ঞা [এবং এ হুকুম রহিত হওয়া আর নেশা সৃষ্টি না হওয়া পর্যন্ত এগুলো বৈধ] হওয়ার বর্ণনা

৫০৬০

আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসুলুল্লাহ্‌ [সাঃআঃ] দুব্বা ও মুযাফ্‌ফাতে নবীয প্রস্তুত করিতে বারণ করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৯৯৮, ই.সে ৫০০৮]

{৫} [১] আলকাতরা মাখানো এক প্রকার পাত্র যাতে মদ প্রস্তুত করা হত। [২] লাউয়ের শুকনো খোলা-এর বাসন যাতে মদ প্রস্তুত করা হত। [৩] সবুজ রং-এর কলসী যাতে মদ প্রস্তুত করা হতো। [৪] খেজুর বৃক্ষের গোড়ালি দ্বারা প্রস্তুত বিশেষ পাত্র।

৫০৬১

আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসুলুল্লাহ্‌ [সাঃআঃ] দুব্বা ও মুযাফ্‌ফাতে নবীয বানাতে বারণ করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৯৯৯, ই.সে ৫০০৮]

৫০৬২

আবু সালামাহ্ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

আবু সালামাহ্ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]-ও তাকে অবহিত করিয়াছেন, তিনি আবু হুরায়রা্ [রাদি.]-কে বলিতে শুনেছেন যে, রসুলুল্লাহ্ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ তোমরা দুব্বা ও মুযাফ্ফাতে নবীয বানিও না। অতঃপর আবু হুরায়রা্ [রাদি.] বলেন, হান্তাম ব্যবহার করা থেকেও তোমরা সরে [বেঁচে] থাকো।[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৯৯৯, ই.সে ৫০০৯]

৫০৬৩

আবু হুরাইরাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সাঃআঃ] মুযাফ্‌ফাত, হান্‌তাম ও নাকীর [ইত্যাদিতে নবীয প্রস্তুত করা] হইতে বারণ করিয়াছেন।

রাবী বলেন, আবু হুরায়রা্ [রাদি.]-কে প্রশ্ন করা হলো, হান্‌তাম কি জিনিস? তিনি বলিলেন, সবুজ রং-এর কলসী।[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০০০, ই.সে ৫০১০]

৫০৬৪

আবু হুরাইরাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সাঃআঃ] আবদুল কায়সের প্রতিনিধি দলকে বলেছেন, আমি তোমাদেরকে দুব্বা, হান্‌তাম, নাকীর ও মুকাইয়্যার হইতে বারণ করছি। হান্‌তাম হল মাথা কাটা চামড়ার বাসন হইতে। আর তুমি তোমার চামড়ার বানানো মশক হইতে নবীয পান করো এবং এর প্রবেশ মুখ আটকে রাখো। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০০১, ই.সে ৫০১১]

৫০৬৫

আলী [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ্‌ [সাঃআঃ] দুব্বা ও মুযাফ্‌ফাতে নবীয প্রস্তুত করিতে বারণ করিয়াছেন। এ হলো জারীর [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]-এর বর্ণিত হাদীস।

আব্‌সার ও শুবাহ্‌ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]-এর হাদীসে উল্লেখ আছে যে, নবী [সাঃআঃ] দুব্বা ও মুযাফ্‌ফাত হইতে বারণ করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০০২, ই.সে ৫০১২]

৫০৬৬

ইব্‌রাহীম [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি আসওয়াদ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]-কে বললাম, আপনি কি উম্মুল মুমিনীন {আয়িশা [রাদি.]}-কে প্রশ্ন করেছিলেন ¬¬- কোন জিনিসে নবীয প্রস্তুত করা মাকরূহ? তিনি বলিলেন, হ্যাঁ। আমি তখন বলেছিলাম, হে উম্মুল মুমিনীন! আমাকে বলুন, রসুলুল্লাহ্‌ [সাঃআঃ] কোন জিনিসে নবীয প্রস্তুত করিতে বারণ করিয়াছেন। তিনি বলিলেন, তিনি আমাদের পরিবারের সকলকে বারণ করিয়াছেন, আমরা যেন দুব্বা ও মুযাফ্‌ফাতে নবীয প্রস্তুত না করি।

ইব্‌বাহীম [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বলেন, আমি আসওয়াদকে বললাম, তিনি {আয়িশা [রাদি.]} কি হান্‌তাম ও কলসীর কথা বর্ণনা করেননি? তিনি বলিলেন, আমি যা শুনেছি, তাই তোমার কাছে বলেছি। সেটিও কি তোমার কাছে বলিতে হইবে যা আমি শুনিনি? [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০০৩, ই.সে ৫০১৩]

৫০৬৭

আয়েশাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সাঃআঃ] দুব্বা ও মুযাফ্‌ফাত হইতে বারণ করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০০৪, ই.সে ৫০১৪]

৫০৬৮

আয়িশাহ্ [রাদি.]-এর সনদ হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সাঃআঃ] হইতে হুবহু বর্ণনা করা হয়েছে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০০৫, ই.সে ৫০১৫]

৫০৬৯

সুমামাহ্‌ ইবনি হায্‌ন কুশাইরী [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি আয়িশা [রাদি.]-এর সাথে দেখা করে তাঁকে নবীয সম্বন্ধে প্রশ্ন করলাম। তিনি আমার কাছে উল্লেখ করিলেন যে, আবদুল কায়সের প্রতিনিধি দল নবী [সাঃআঃ]-এর কাছে আসল এবং তারা নবী [সাঃআঃ]-কে নবীয সম্পর্কে প্রশ্ন করিল। তিনি দুব্বা, নাকীর, মুযাফ্‌ফাত ও হান্‌তাম-এ তাদেরকে নবীয প্রস্তুত করিতে বারণ করিলেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০০৬, ই.সে ৫০১৬]

৫০৭০

আয়েশাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ্‌ [সাঃআঃ] দুব্বা, হান্‌তাম, নাকীর ও মুযাফ্‌ফাত হইতে বারণ করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০০৭, ই.সে ৫০১৭]

৫০৭১

ইসহাক ইবনি সুওয়াইদ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

উপরোল্লিখিত সনদে হাদীসটি বর্ণনা করিয়াছেন। তবে তিনি মুযাফ্‌ফাত-এর জায়গায় মুকাইয়্যার শব্দটি ব্যবহার করিয়াছেন।[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০০৮, ই.সে ৫০১৮]

৫০৭২

ইবনি আব্বাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আবদুল কায়সের প্রতিনিধি রসুলুল্লাহ্‌ [সাঃআঃ]-এর কাছে আসলে তিনি বললেনঃ আমি তোমাদেরকে দুব্বা, হান্‌তাম, নাকীর এবং মুকাইয়্যার হইতে বারণ করছি। হাম্মাদ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বর্ণিত হাদীসে মুকাইয়্যার স্থলে মুযাফ্‌ফাত শব্দটি উল্লেখ করা হয়েছে।[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০০৯, ই.সে ৫০১৯]

৫০৭৩

ইবনি আব্বাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ্‌ [সাঃআঃ] দুব্বা, হান্‌তাম, মুযাফ্‌ফাত ও নাকীর হইতে বারণ করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০১০, ই.সে ৫০২০]

৫০৭৪

ইবনি আব্বাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসুলুল্লাহ্‌ [সাঃআঃ] নিষেধ করিয়াছেন- দুব্বা, হান্‌তাম, মুযাফ্‌ফাত ও নাকীর থেকে এবং কাঁচা-পাকা খেজুর একসাথে মিশিয়ে নবীয প্রস্তুত করা থেকে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০১১, ই.সে ৫০২১]

৫০৭৫

ইবনি আব্বাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ্‌ [সাঃআঃ] দুব্বা, নাকীর ও মুযাফ্‌ফাত হইতে বারণ করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০১২, ই.সে ৫০২২]

৫০৭৬

আবু সাঈদ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসুলুল্লাহ্‌ [সাঃআঃ] কলসীতে নবীয তৈরি করিতে নিষেধ করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০১৩, ই.সে ৫০২৩]

৫০৭৭

আবু সাঈদ খুদরী [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সাঃআঃ] দুব্বা, হানতাম, নাকীর ও মুযাফফাত [এ নবীয বানানো] থেকে নিষেধ করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০১৪, ইসলামিক সেন্টার- ৫০২৪]

৫০৭৮

কাতাদাহ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

উল্লেখিত সূত্রে বর্ণিত যে, আল্লাহর নবী [সাঃআঃ] নবীয বানাতে বারণ করিয়াছেন। অতঃপর রাবী উল্লেখিত হাদীসের হুবহু বর্ণনা করেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০১৫, ইসলামিক সেন্টার- ৫০২৫]

৫০৭৯

আবু সাঈদ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বারণ করিয়াছেন হানতাম, দুব্বা ও নাকীরের [বানানো নবীয] পান করিতে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০১৬, ইসলামিক সেন্টার- ৫০২৬]

৫০৮০

সাঈদ ইবনি যুবায়র [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

ইবনি উমর ও ইবনি আব্বাস [রাদি.] সম্পর্কে আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, তাঁরা দুজনেই সাক্ষ্য দিয়েছেন যে, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] দুব্বা, হানতাম, মুযাফফাত ও নাকীর [এ নবীয বানানো] হইতে বারণ করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০১৭, ইসলামিক সেন্টার- ৫০২৭]

৫০৮১

সাঈদ ইবনি জুবায়র [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি কলসীর নবীয সম্বন্ধে ইবনি উমর [রাদি.]-কে প্রশ্ন করলে তিনি বলিলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] কলসীর নবীযকে নিষিদ্ধ করিয়াছেন। অতঃপর আমি ইবনি আব্বাস [রাদি.]-এর নিকট এসে বললাম, ইবনি উমারের কথা কি আপনি শুনেছেন? তিনি বলিলেন, ইবনি উমর যথার্থই বলেছেন। রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] কলসীর নবীযকে নিষিদ্ধ করিয়াছেন। আমি বললাম, কলসীর নবীয কি? তিনি বলিলেন, মাটি দ্বারা যে পাত্র প্রস্তুত হয় সেটাই। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০১৮, ইসলামিক সেন্টার- ৫০২৮]

৫০৮২

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] লোকদের উদ্দেশ্যে কোন এক যুদ্ধে বক্তৃতা দিচ্ছিলেন। ইবনি উমর [রাদি.] বলেন, আমি সে দিকে অগ্রসর হচ্ছিলাম। তবে আমি তাহাঁর কাছে পৌঁছার আগেই তিনি [অন্যদিকে] চলে গেলেন। আমি [লোকেদের] প্রশ্ন করলাম, তিনি কি বলিলেন? তারা বলিলেন, তিনি দুব্বা ও মুযাফফাতে নবীয তৈরি করিতে বারণ করিলেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০১৯, ইসলামিক সেন্টার- ৫০২৯]

৫০৮৩

উসামাহ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তাঁদের প্রত্যেকেই নাফি [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]-এর সনদে ইবনি উমর [রাদি.] হইতে মালিক [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]-এর হাদীসের হুবহু বর্ণনা করিয়াছেন। কিন্তু মালিক ও উসামাহ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] ভিন্ন অন্য কেউ “কোন এক যুদ্ধে” কথাটি বর্ণনা করেন নি। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০২০, ইসলামিক সেন্টার- ৫০৩০]

৫০৮৪

সাবিত [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি ইবনি উমর [রাদি.]-কে প্রশ্ন করলাম, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] কলসীর নবীয হইতে বারণ করিয়াছেন কি? তিনি বলিলেন, মানুষের তো তাই ধারণা। আমি বললাম, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বারণ করিয়াছেন কি-না? তিনি বলিলেন, মানুষের তো তাই ধারণা। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০২১, ইসলামিক সেন্টার- ৫০৩১]

৫০৮৫

তাউস [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, এক লোক ইবনি উমর [রাদি.]-কে বলিল, আল্লাহর নবী [সাঃআঃ] কি কলসীর নবীয হইতে বারণ করিয়াছেন? তিনি বলিলেন, হ্যাঁ। অতঃপর তাউস বলেন, আল্লাহর কসম! আমি তা তাহাঁর নিকট হইতে শুনেছি। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০২২, ইসলামিক সেন্টার- ৫০৩২]

৫০৮৬

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

এক লোক তাহাঁর নিকট এসে বলিল, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] কি কলসী ও লাউয়ের খোলে নবীয তৈরি করিতে বারণ করিয়াছেন? তিনি বলিলেন, হ্যাঁ। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০২৩, ইসলামিক সেন্টার- ৫০৩৩]

৫০৮৭

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] হাড়ি [কলস] ও দুব্বা [-তে নবীয বানানো] হইতে বারণ করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০২৪, ইসলামিক সেন্টার- ৫০৩৪]

৫০৮৮

তাউস [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি ইবনি উমর [রাদি.]-এর কাছে উপস্থিত ছিলাম। এমনি মুহূর্তে জনৈক লোক এসে বলিল, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] কি কলসী, দুব্বা ও মুযাফফাত-এর [বানানো] নবীয হইতে বারণ করিয়াছেন? তিনি বলিলেন, হ্যাঁ। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০২৫, ইসলামিক সেন্টার- ৫০৩৫]

৫০৮৯

মুহারিব ইবনি দিসার [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি ইবনি উমর [রাদি.]-কে বলিতে শুনেছি যে, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] হানতাম, দুব্বা ও মুযাফফাত হইতে বারণ করিয়াছেন। তিনি বলেন, আমি তাহাঁর কাছে কয়েকবার শুনেছি। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০২৬, ইসলামিক সেন্টার- ৫০৩৬]

৫০৯০

ইবনি উমর [রাদি.]-এর সনদ হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সাঃআঃ] হইতে হুবহু রিওয়ায়াত করিয়াছেন।

তিনি বলেন, আমার ধারণা তিনি  নাকীর-এর বিষয়েও বলেছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০২৭, ইসলামিক সেন্টার- ৫০৩৭]

৫০৯১

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] কলসী, দুব্বা , মুযাফফাত হইতে বারণ করিয়াছেন। তিনি বলেছেন, তোমরা নবীয প্রস্তুত করো চামড়া দ্বারা নির্মিত পাত্রে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০২৮, ইসলামিক সেন্টার- ৫০৩৮]

৫০৯২

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] হানতাম হইতে বারণ করিয়াছেন। সে সময় আমি বললাম, হানতাম কি? তিনি বলিলেন, কলসী। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০২৯, ইসলামিক সেন্টার- ৫০৩৯]

৫০৯৩

যাযান [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি ইবনি উমর [রাদি.]-কে বললাম, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] যে সমস্ত পানীয় হইতে বারণ করিয়াছেন সে সম্পর্কে আপনি আপনার ভাষায় আমার কাছে উল্লেখ করুন এবং আমাদের ভাষায় তা বুঝিয়ে দিন। কারণ আপনাদের ভাষা আমাদের ভাষা থেকে ব্যতিক্রম। তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বারণ করিয়াছেন হানতাম হইতে- হানতাম হলো কলসী এবং দুব্বা থেকে, তা হলো- কদু [এর খোল]। আর মুযাফফাত হইতে, তা হলো- আলকাতরা মিশ্রিত পাত্র এবং নাকীর থেকে, তা হলো- খেজুর গাছের নিম্নাংশ, যার ভেতরের অংশ ফেলে দিয়ে পাত্রের মতো করা হয়। আর তিনি চামড়া দ্বারা তৈরি পাত্রে নবীয প্রস্তুত করার নির্দেশ দিয়েছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৩০, ইসলামিক সেন্টার- ৫০৪০]

৫০৯৪

আবু দাউদ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, শুবাহ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] উল্লেখিত সূত্রে আমাদের কাছে হাদীসটি রিওয়ায়াত করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৩১, ইসলামিক সেন্টার- ৫০৪১]

৫০৯৫

সাঈদ ইবনি মুসাইয়্যিব [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

আমি ইবনি উমর [রাদি.]-কে এ মিম্বারের নিকট বলিতে শুনেছি বলে তিনি রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-এর মিম্বারের প্রতি ইশারা করেন। আবদুল কায়সের প্রতিনিধি দল রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-এর কাছে আসলো এবং তাঁকে মদ সম্বন্ধে প্রশ্ন করলো। রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] তাদেরকে দুব্বা, নাকীর ও হানতাম হইতে বারণ করিলেন। আমি বললাম, হে আবু মুহাম্মাদ! মুযাফফাতের কথা? আমরা মনে করলাম, তিনি সম্ভবত ভুলে গেছেন। তিনি বলিলেন, সেদিন আবদুল্লাহ ইবনি উমর [রাদি.] এ কথা বলেছেন আমি তা শুনিনি। তবে তিনি সেটাকে পছন্দ করিতেন না। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৩২, ইসলামিক সেন্টার- ৫০৪২]

৫০৯৬

জাবির ও ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] নাকীর, মুযাফফাত ও দুব্বা [-তে নবীয তৈরি করা] হইতে বারণ করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৩৩, ইসলামিক সেন্টার- ৫০৪৩]

৫০৯৭

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে কলসী, দুব্বা এবং মুযাফ্‌ফাত [ইত্যাদিতে নবীয তৈরি] হইতে বারণ করিতে শুনেছি।[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৩৪, ইসলামিক সেন্টার-৫০৪৪]

৫০৯৮

আবু যুবায়র [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

আমি জাবির [রাদি.]-কেও বলিতে শুনেছি যে, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বারণ করিয়াছেন কলসী, মুযাফ্ফাত ও নাকীরের [বানানো নবীয পান করিতে]। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৩৪, ইসলামিক সেন্টার-৫০৪৪]

৫০৯৯

বর্ণনাকারী হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-এর জন্য যে নবীয প্রস্তুত করার জন্য কোন বাসন না পাওয়া গেলে পাথর নির্মিত বাসনে তাহাঁর জন্য নবীয প্রস্তুত করা হতো। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৩৪, ইসলামিক সেন্টার-৫০৪৪]

৫১০০

জাবির ইবনি আবদুল্লাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সাঃআঃ]-এর জন্য পাথর দ্বারা তৈরি পাত্রে নবীয বানানো হতো। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৩৫, ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৪৫]

৫১০১

জাবির [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-এর জন্য চর্ম দ্বারা তৈরি বাসনে নবীয প্রস্তুত করা হতো। তবে চামড়া নির্মিত বাসন পাওয়া না গেলে পাথর নির্মিত বাসনে তাহাঁর জন্য নবীয প্রস্তুত করা হতো। সে সময় এক লোক আবু যুবায়র-এর নিকটে জিজ্ঞেস করিল আর আমি তা শুনলাম। তিনি বলিলেন, পাথরের ডেগ? তিনি [আবু যুবায়র] বলিলেন, হ্যাঁ পাথরের ডেগ। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৩৬, ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৪৬]

৫১০২

বুরাইদাহ্‌ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ আমি তোমাদেরকে চর্ম নির্মিত পাত্র ব্যতীত অন্য সব পাত্রেই নবীয প্রস্তুত করা হইতে বারণ করেছিলাম। এখন তোমরা সব ধরণের পাত্রেই নবীয প্রস্তুত করে পান করিতে পারো। কিন্তু, নেশা জাতীয় নবীয পান করো না।

{দ্রষ্টব্য হাদীস ২২৬} [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৩৭, ইসলামিক সেন্টার-৫০৪৭]

৫১০৩

বুরাইদাহ্‌ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ আমি তোমাদেরকে নবীয তৈরি করিতে সব রকম পাত্র [ব্যবহার করা] হইতে বারণ করেছিলাম। পাত্রগুলো অথবা [তিনি বলেছেন,] কোন পাত্র কোন জিনিসকে হালাল করিতে পারে না হারাম করিতে পারে না। তবে সব ধরনের নেশা জাতীয় জিনিসই নিষিদ্ধ। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৩৮, ইসলামিক সেন্টার-৫০৪৮]

৫১০৪

বুরাইদাহ্‌ [রাদি.] তিনি তাহাঁর পিতা হইতে হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ আমি তোমাদেরকে নিষেধ করেছিলাম চামড়া নির্মিত সব রকম বাসনে [বানানো নবীয] পান করিতে। কিন্তু এখন তোমরা সর্বপ্রকার বাসনেই পান করিতে পার। তবে নেশা জাতীয় কোন প্রকার জিনিসই বানানো নবীয পান করো না। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৩৯, ইসলামিক সেন্টার-৫০৪৯]

৫১০৫

আবদুল্লাহ ইবনি আম্‌র [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] যখন সকল [চামড়ার ছাড়া] বাসনের নবীয হইতে বারণ করিলেন, তখন মানুষেরা বলিল, সবাই তো [চামড়ার বাসন] পায় না। পরে তিনি আলকাতরা মিশ্রিত কলসী ব্যতীত ভিন্ন কলসীর ক্ষেত্রে অনুমতি প্রদান করেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫০৪০, ইসলামিক সেন্টার-৫০৫০]

About halalbajar.com

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Check Also

মহান আল্লাহর বাণী : “তারা দুটি বিবদমান পক্ষ তাদের প্রতিপালক সম্পর্কে বাক-বিতণ্ডা করে”

মহান আল্লাহর বাণী : “তারা দুটি বিবদমান পক্ষ তাদের প্রতিপালক সম্পর্কে বাক-বিতণ্ডা করে” মহান আল্লাহর …

Leave a Reply

%d bloggers like this: