ফাজায়েলে দোয়া – দুআর ফযিলত

ফাজায়েলে দোয়া – দুআর ফযিলত

৮০/৩৬. অধ্যায় : মানুষের প্রভাবাধীন হওয়া থেকে আল্লাহর আশ্রয় প্রার্থনা ।

৬৩৬৩. আনাস ইবনু মালিক (রাদি.) হইতে বর্ণিতঃ

যে, রাসুলুল্লাহ (সাঃআঃ) আবু ত্বলহা (রাদি.) কে বললেনঃ তুমি তোমাদের ছেলেদের ভিতর থেকে আমার খিদমাত করার উদ্দেশে একটি ছেলে খুঁজে নিয়ে এসো। আবু ত্বলহা (রাদি.) গিয়ে আমাকে তাহাঁর সাওয়ারীর পিছনে বসিয়ে নিয়ে এলেন। তখন থেকে আমি রাসুলুল্লাহ (সাঃআঃ) এর খিদমাত করে আসছি। যখনই কোন বিপদ দেখা দিত, তখন আমি তাঁকে অধিক করে এ দুআ পড়তে শুনতাম :

اللَّهُمَّ إِنِّي أَعُوذُ بِكَ مِنَ الْهَمِّ وَالْحَزَنِ، وَالْعَجْزِ وَالْكَسَلِ، وَالْبُخْلِ وَالْجُبْنِ، وَضَلَعِ الدَّيْنِ، وَغَلَبَةِ الرِّجَالِ

আল্লাহুম্মা ইন্নি আউজুবিকা মিনাল হাম্মি ওয়াল হাজানি, ওয়াল আজজি, ওয়াল কাসালি, ওয়াল বুখলি, ওয়াল জুবনি, ওয়া দ্দালায়েদ্দাইন, ওয়া গালাবাতির রিজাল। হে আল্লাহ! আমি দুশ্চিন্তা, পেরেশানী, অপারগতা, অলসতা, কৃপণতা, কাপুরুষতা, ঋণের বোঝা এবং মানুষের আধিপত্য থেকে আপনার আশ্রয় প্রার্থনা করছি।

أَعُوذُ إِنِّي اللَّهُمَّ
আশ্রয় প্রার্থনাআমি হে আল্লাহ
الْهَمِّ مِنَ بِكَ
দুশ্চিন্তাথেকে আপনার
وَالْكَسَلِوَالْعَجْزِ وَالْحَزَنِ
অলসতাঅপারগতাপেরেশানী
وَضَلَعِوَالْجُبْنِوَالْبُخْلِ
ঋণের বোঝাকাপুরুষতাকৃপণতা
الرِّجَالِوَغَلَبَةِالدَّيْنِ
মানুষেরআধিপত্য

আমি সর্বদা তাহাঁর খিদমাত করে আসছি, এমনকি যখন আমরা খাইবার থেকে প্রত্যাবর্তন করছিলাম, তখন তিনি সফীয়্যাহ বিনতু হুয়াইকে সঙ্গে নিয়ে আসলেন। তিনি তাঁকে গনীমতের সম্পদ থেকে নিজের জন্য বেছে নিয়েছিলেন। তখন আমি তাঁকে দেখছিলাম যে, তিনি তাঁকে একখানা চাদর অথবা একখানা কম্বল দিয়ে ঢেকে নিজের পেছনে বসিয়েছিলেন। যখন আমরা সবাই সাহবা নামক স্থানে পৌঁছলাম, তখন আমরা হাইস নামীয় খাবার তৈরী করে একটি চর্মের দস্তরখানে রাখলাম। তিনি আমাকে পাঠালে আমি গিয়ে কয়েকজনকে দাওয়াত করলাম। তাঁরা এসে আহার করে গেলেন। এটি ছিল সফীয়্যাহর সঙ্গে তাহাঁর বাসর যাপন। অতঃপর তিনি রওয়ানা হলে উহুদ পর্বত তাহাঁর সামনে দেখা গেল। তখন তিনি বললেনঃ এ এমন একটি পর্বত যা আমাদের ভালবাসে এবং আমরাও তাকে ভালবাসি। তারপর যখন মাদীনাহর কাছে পৌঁছলেন, তখন তিনি বললেনঃ

اللَّهُمَّ إِنِّي أُحَرِّمُ مَا بَيْنَ جَبَلَيْهَا مِثْلَ مَا حَرَّمَ بِهِ إِبْرَاهِيمُ مَكَّةَ، اللَّهُمَّ بَارِكْ لَهُمْ فِي مُدِّهِمْ وَصَاعِهِمْ

আল্লাহুম্মা উহাররেমু মা বাইনা জাবালাইহা মিনকা মা হাররামা বিহি ইবরাহিমু মাক্কাতা, আল্লাহুম্মা বারিক লাহুম ফি মুদ্দিহিম ওয়া সায়েহিম,

হে আল্লাহ! আমি মাদীনাহর দুটি পর্বতের মধ্যবর্তী জায়গাকে হারাম (ঘোষণা) করছি, যে রকম ইবরাহীম (আঃ) মক্কাকে হারাম (ঘোষণা) করেছিলেন। হে আল্লাহ! আপনি তাদের মুদ্দ ও সাতে বারাকাত দান করুন।

(আঃপ্রঃ- ৫৯১৭, ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৮১০)

৬৩৬৫. মুসআব (রহমাতুল্লাহি আলাইহি) হইতে বর্ণিতঃ

মুসআব (রহমাতুল্লাহি আলাইহি) বর্ণনা করেন, সাদ পাঁচটি জিনিস হইতে আল্লাহর আশ্রয় প্রার্থনা করার নির্দেশ দিতেন এবং তিনি এগুলো নাবী (সাঃআঃ) হইতে উল্লেখ করিতেন। তিনি এগুলো থেকে আল্লাহর আশ্রয় চেয়ে এ দুআ পড়তে নির্দেশ দিতেন :

 اللَّهُمَّ إِنِّي أَعُوذُ بِكَ مِنَ الْبُخْلِ، وَأَعُوذُ بِكَ مِنَ الْجُبْنِ، وَأَعُوذُ بِكَ أَنْ أُرَدَّ إِلَى أَرْذَلِ الْعُمُرِ، وَأَعُوذُ بِكَ مِنْ فِتْنَةِ الدُّنْيَا يَعْنِي فِتْنَةَ الدَّجَّالِ وَأَعُوذُ بِكَ مِنْ عَذَابِ الْقَبْرِ

আল্লা-হুম্মা ইন্নি আউজুবিকা মিনাল বুখলি ওয়া আউজুবিকা মিনাল জুবনি ওয়া আউজুবিকা মিন্ আন্ উরাদ্দা ইলা আরযালিল ও’মুরি ওয়া আউজুবিকা মিং ফিতনাতিদ দুনইয়া ওয়া ‘আউজুবিকা মিন ‘আজাবিল ক্বাবরি। হে আল্লাহ! আমি কৃপণতা থেকে আপনার আশ্রয় চাচ্ছি। আমি কাপুরুষতা হইতে আপনার আশ্রয় প্রার্থনা করছি, আমি অবহেলিত বার্ধ্যক্যে উপনীত হওয়া থেকে আপনার আশ্রয় প্রার্থনা করছি, আর আমি দুনিয়ার ফিতনা অর্থাৎ দাজ্জালের ফিতনা থেকেও আপনার আশ্রয় প্রার্থনা করছি এবং আমি ক্ববরের আযাব হইতেও আপনার আশ্রয় প্রার্থনা করছি।

إِلَىأُرَدَّأَنْ
الْعُمُرِأَرْذَلِ
يَعْنِي الدُّنْيَا فِتْنَةِ
عَذَابِ الدَّجَّالِ فِتْنَةَ
الْقَبْرِ

(আঃপ্রঃ- ৫৯১৯, ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৮১২)

============

Leave a Reply