দাওয়াতে সাড়া দেয়ার নির্দেশ

দাওয়াতে সাড়া দেয়ার নির্দেশ

দাওয়াতে সাড়া দেয়ার নির্দেশ >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

১৬. অধ্যায়ঃ দাওয়াতে সাড়া দেয়ার নির্দেশ

৩৪০১

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেন: যখন তোমাদের কাউকে ওয়ালীমার দাওয়াত দেয়া হয়, সে যেন ঐ দাওয়াতে সাড়া দেয়। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৩৭৪, ইসলামিক সেন্টার- ৩৩৭৩]

৩৪০২

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সাঃআঃ] বলেছেন: যখন তোমাদের কাউকে ওয়ালীমার দাওয়াত দেয়া হয়, সে যেন তা কবুল করে। [রাবী] খালিদ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বলেন, উবায়দুল্লাহ্‌ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] একে বিবাহের ওয়ালীমাহ্‌ বলে গ্রহণ করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৩৭৫, ইসলামিক সেন্টার- ৩৩৭৪]

৩৪০৩

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেন: তোমাদের কাউকে বিবাহের ওয়ালীমার দাওয়াত দেয়া হলে সে যেন তা কবূল করে।[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৩৭৬, ইসলামিক সেন্টার- ৩৩৭৫]

৩৪০৪

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সাঃআঃ] বলেছেন: তোমাদের কাউকে দাওয়াত দেয়া হলে তাতে সাড়া দিবে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৩৭৭, ইসলামিক সেন্টার- ৩৩৭৬]

৩৪০৫

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন যে, নবী [সাঃআঃ] বলেছেন: যখন তোমাদের কেউ তার ভাইকে দাওয়াত দেয় সে যেন তার দাওয়াতে সাড়া দেয়, বিবাহের অনুষ্ঠানই হোক বা সে রকম [অন্য কোন অনুষ্ঠান]। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৩৭৮, ইসলামিক সেন্টার- ৩৩৭৭]

৩৪০৬

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন যে, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেন: যদি কাউকে কোন বিবাহ অনুষ্ঠানে অথবা এ ধরণের অন্য কোন অনুষ্ঠানে দাওয়াত দেয়া হয়, সে যেন সাড়া দেয়। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৩৭৯, ইসলামিক সেন্টার- ৩৩৭৮]

৩৪০৭

আবদুল্লাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ “যখন তোমাদেরকে দাওয়াত দেয়া হয় তখন তোমরা দাওয়াতে আসবে।” [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৩৮০, ইসলামিক সেন্টার- ৩৩৭৯]

৩৪০৮

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ তোমরা এ দাওয়াতে সাড়া দিবে যখন তোমাদেরকে তার জন্য দাওয়াত দেয়া হয়।

রাবী বলেন, আবদুল্লাহ [রাদি.] বিবাহের দাওয়াতে বা বিয়ে ছাড়া অন্য যে কোন দাওয়াতে আসতেন। এমনকি তিনি সায়িম অবস্থায়ও [দাওয়াতে আসতেন]। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৩৮১, ইসলামিক সেন্টার- ৩৩৮০]

৩৪০৯

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সাঃআঃ] বলেছেন : যখন তোমাদের বকরীর পায়া খাওয়ার দাওয়াত দেয়া হয় তখন তোমরা তাতে সাড়া দিও। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৩৮২, ইসলামিক সেন্টার- ৩৩৮১]

৩৪১০

জাবির [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যখন তোমাদের কাউকে খাওয়ার জন্য দাওয়াত দেয়া হয়, তখন সে যেন দাওয়াতে সাড়া দেয়। অতঃপর ইচ্ছা করলে আহার করিবে, না হয় না করিবে।

ইবনিল মুসান্না [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] তার বর্ণনায় পানাহারের দিকে কথাটি উল্লেখ করেননি। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৩৮৩, ইসলামিক সেন্টার- ৩৩৮২]

৩৪১১

আবু যুবায়র [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

এ সানাদে অনুরূপ হাদীস বর্ণনা করিয়াছেন। [ই.ফা.৩৩৮৪, ইসলামিক সেন্টার-৩৩৮৩]

৩৪১২

আবু হুরায়রাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যখন তোমাদের কাউকে দাওয়াত দেয়া হয় সে যেন তাতে সাড়া দেয়। যদি সে সায়িম হয় তাহলে সে [ওখানে গিয়ে] দুআ- নামাজ রত থাকিবে। আর যদি সায়িম না হয় তাহলে সে আহার করিবে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৩৮৫, ইসলামিক সেন্টার- ৩৩৮৪]

৩৪১৩

আবু হুরায়রাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলিতেন, সে ওয়ালীমার খাদ্য কতই না মন্দ যা খাওয়ার জন্য কেবল ধনীদের দাওয়াত দেয়া হয়, আর গরীবদের তা থেকে বঞ্চিত করা হয় বলে তারা তাতে যোগ দিতে পারে না। যে ব্যক্তি দাওয়াত সাড়া দেয় না সে আল্লাহ্ তাআলা ও তাহাঁর রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-এর নাফরমানী করিল। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৩৮৬, ইসলামিক সেন্টার- ৩৩৮৫]

৩৪১৪

ইবনি আবু উমর [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, সুফ্ইয়ান [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বলেছেন, আমি যুহরী [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]-কে জিজ্ঞেস করলাম- হে আবু বকর! “এই যে হাদীস- সব চাইতে মন্দ খাদ্য ধনীদের খাদ্য- এ সম্পর্কে আপনার কী মত? শুনে তিনি হাসলেন এবং বলিলেন, না, ধনীদের খাদ্য সব চাইতে মন্দ খাদ্য নয়।

সুফ্ইয়ান [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বলিলেন, আমার পিতা যেহেতু ধনী লোক ছিলেন এজন্য হাদীসখানি আমাকে ঘাবড়িয়ে তুলেছিল, যখন আমি তা শুনতে পেলাম। তাই আমি এ হাদীস সম্পর্কে ঈমাম যুহরী [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]-কে জিজ্ঞেস করি। [ঈমাম] যুহরী [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] উত্তর দিলেন, আমার নিকট আবদুর রহমান আল আরাজ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হাদীস বর্ণনা করিয়াছেন, তিনি আবু হুরায়রাহ্ [রাদি.]-কে বলিতে শুনেছেন যে, ওয়ালীমার খাদ্য সবচাইতে নিকৃষ্ট খাদ্য। অতঃপর তিনি মালিক [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]-এর হাদীসের ন্যায় হাদীস বর্ণনা করেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৩৮৭, ইসলামিক সেন্টার- ৩৩৮৬]

৩৪১৫

আবু হুরায়রাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, নিকৃষ্ট খাদ্য হলো ওয়ালীমার খাদ্য। মালিক এর হাদীসের অনুরূপ। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৩৮৮, ইসলামিক সেন্টার- ৩৩৮৭]

৩৪১৬

আবু হুরায়রাহ্ [রাদি.]-এর সুত্র হইতে বর্ণীতঃ

অনুরূপ বর্ণিত। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৩৮৯, ইসলামিক সেন্টার- ৩৩৮৮]

৩৪১৭

আবু হুরায়রাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সাঃআঃ] বলেছেনঃ নিকৃষ্টতম খাদ্য হল ওয়ালীমার খাদ্য যেখানে আগমনকারীদের বাধা দেয়া হয়। আর অনিচ্ছুকদের দাওয়াত দেয়া হয়। যে ব্যক্তি দাওয়াতে সাড়া দেয় না সে আল্লাহ্ এবং তাহাঁর রসূল [সাঃআঃ]-এর নাফরমানী করিল। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৩৩৯০, ইসলামিক সেন্টার- ৩৩৮৯]

By মুসলিম শরীফ

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Leave a Reply