তামাত্তু হজ্জের বৈধতা

তামাত্তু হজ্জের বৈধতা

তামাত্তু হজ্জের বৈধতা >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

২৩. অধ্যায়ঃ তামাত্তু হজ্জের বৈধতা

২৮৫২

ক্বাতাদাহ্ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আবদুল্লাহ ইবনি শাক্বীক্ব [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বলেছেন, উসমান [রাদি.] তামাত্তু হজ্জ করিতে নিষেধ করিতেন। আর আলী [রাদি.] তামাত্তু হজ্জ করার নির্দেশ দিতেন। অতএব উসামান [রাদি.] আলী [রাদি.] –এর সঙ্গে কথা বলিলেন। অতঃপর আলী [রাদি.] বলিলেন, আপনি অবশ্যই জানেন, আমরা নিশ্চিত রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-এর সঙ্গে তামাত্তু হজ্জ করেছি। উসমান [রাদি.] বলিলেন, হ্যাঁ; কিন্তু আমরা তখন আতঙ্কিত ছিলাম। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৮২৮, ইসলামিক সেন্টার- ২৮২৭]

২৮৫৩

শুবাহ্‌ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

এ সানাদে অনুরূপ বর্ণনা করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৮২৯, ইসলামিক সেন্টার- ২৮২৮]

২৮৫৪

সাঈদ ইবনি মুসাইয়্যাব [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আলী [রাদি.] ও উসমান [রাদি.] উসফান নামক স্থানে একত্রে হলেন। উসমান [রাদি.] তামাত্তু ও উমরাহ্ করিতে নিষেধ করিতেন। আলী [রাদি.] বলিলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] যে কাজ করিয়াছেন, আপনি তা নিষেধ করিয়াছেন- এতে আপনার উদ্দেশ্য কী? উসমান [রাদি.] বলিলেন, আপনি আমাকে আপনার কথা থেকে রেহাই দিন। আলী [রাদি.] বলিলেন, আমি আপনাকে ছাড়তে পারি না। আলী [রাদি.] যখন এ অবস্থা দেখলেন, তিনি একত্রে হজ্জ ও উমরাহ্ উভয়ের ইহরাম বাঁধলেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৮৩০, ইসলামিক সেন্টার- ২৮২৯]

২৮৫৫

আবু যার [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, তামাত্তু হজ্জ মুহাম্মাদ-এর সাহাবীগণের জন্যই বিশেষভাবে নির্দিষ্ট ছিল। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৮৩১, ইসলামিক সেন্টার- ২৮৩০]

২৮৫৬

আবু যার [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, তামাত্তু হজ্জ আমাদের জন্য একটি বিশেষ সুবিধা হিসেবে অনুমোদিত ছিল। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৮৩২, ইসলামিক সেন্টার- ২৮৩১]

২৮৫৭

আবু যার [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

দুটি মুতআহ কেবল আমাদের যুগের জন্যই নির্দিষ্ট ছিল। অর্থাৎ মুতআহ্‌ বিবাহ ও তামাত্তু হজ্জ। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৮৩৩, ইসলামিক সেন্টার- ২৮৩২]

২৮৫৮

আবদুর রহমান ইবনি আবু শাসা [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি ইব্রাহীম নাখাঈ ও ইব্রাহীম আত্ তায়মীর নিকট এলাম এবং বললাম, আমি এ বছর হজ্জ ও উমরাহ্ একত্রে করিতে চাই। ইব্রাহীম নাখাঈ বলিলেন, কিন্তু তোমার পিতা তো এরূপ সংকল্প করেননি। কুতায়বাহ্ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি].. ইব্রাহীম আত্ তায়মী তার পিতার সূত্রে বর্ণনা করেন যে, তিনি [পিতা] রাবাযাহ্ নামক স্থানে আবু যার [রাদি.]-এর নিকট দিয়ে যাচ্ছিলেন, তখন তিনি তার সামনে এ প্রসঙ্গ উপস্থাপন করিলেন। আবু যার [রাদি.] বলিলেন, তা আমাদের জন্য [একটা সুবিধা স্বরূপ] নির্দিষ্ট ছিল, তোমাদের জন্য নয়। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৮৩৪, ইসলামিক সেন্টার- ২৮৩৩]

২৮৫৯

গুনায়ম ইবনি ক্বায়স [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি সাদ ইবনি আবু ওয়াক্কাস [রাদি.]-কে তামাত্তু হজ্জ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলাম। তিনি বলিলেন, আমরা উমরাহ্‌ আদায় করেছি। এটা সে সময়কার কথা যখন তিনি [আমীর মুআবিয়াহ্] কাফির ছিলেন এবং মাক্কার বাড়িতে বসবাস করিতেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৮৩৫, ইসলামিক সেন্টার- ২৮৩৪]

২৮৬০

সুলায়মান আত্‌ তায়মী [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

উক্ত সানাদে বর্ণনা করেন। তিনি এ রিওয়ায়াতে মুআবিয়াহ্‌ [রাদি.]-এর নাম উল্লেখ করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৮৩৬, ইসলামিক সেন্টার- ২৮৩৫]

২৮৬১

সুলায়মান আত্‌ তায়মী [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

উক্ত সূত্রে উভয়ের হাদীসের অনুরূপ বর্ণিত হয়েছে এবং সুফ্‌ইয়ানের হাদীসে তামাত্তু হজ্জের উল্লেখ রয়েছে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৮৩৭, ইসলামিক সেন্টার- ২৮৩৬]

২৮৬২

মুত্বাররিফ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, ইমরান ইবনি হুসায়ন [রাদি.] আমাকে বলিলেন, আমি আজ তোমাকে একটি হাদীস বলব, পরবর্তী সময়ে আল্লাহ তাআলা এর দ্বারা তোমাকে উপকৃত করবেন। জেনে রাখ, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] তাহাঁর পরিবারের কয়েকজন সদস্যকে যিলহাজ্জ্ব মাসের দশ তারিখের মধ্যে উমরাহ্ করিয়েছিলেন। এটা রহিত করে কোন আয়াত নাযিল হয়নি এবং রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] তাহাঁর ইন্তিকাল পর্যন্ত তা করিতে নিষেধ করেননি। পরে লোকেরা নিজ নিজ ইচ্ছানুযায়ী মত পোষণ করে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৮৩৮, ইসলামিক সেন্টার- ২৮৩৭]

২৮৬৩

আল জুরায়রী [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

উক্ত সূত্রে বর্ণনা করিয়াছেন। তবে হাতিম তার রিওয়ায়াতে বলেছেন, “এক ব্যক্তি অর্থাৎ উমর [রাদি.] তাহাঁর নিজ ইচ্ছানুযায়ী মত পোষণ করেন”। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৮৩৯, ইসলামিক সেন্টার- ২৮৩৮]

২৮৬৪

মুত্বাররিফ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, ইমরান ইবনি হুসায়ন [রাদি.] আমাকে বলিলেন, আমি তোমাকে একটি হাদীস শুনাব। আশা করি, আল্লাহ তোমাকে এর দ্বারা উপকৃত করবেন। রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] হজ্জ ও উমরাহ্ একত্রে আদায় করিয়াছেন। তিনি মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত এরূপ করিতে নিষেধ করেননি এবং তা হারাম বলে কুরআনের কোন আয়াতও নাযিল হয়নি। [রোগের কারণে] তপ্ত লোহার দাগ গ্রহণ করার পূর্ব পর্যন্ত আমাকে [ফেরেশতাগণ কর্তৃক] সালাম দেয়া অব্যাহত ছিল। আমি দাগ গ্রহণ করলে সালাম দেয়া বন্ধ হয়ে যায়। আবার যখন দাগ দেয়া বন্ধ করলাম, পুনরায় সালাম দেয়া শুরু হয়। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৮৪০, ইসলামিক সেন্টার- ২৮৩৯

২৮৬৫

মুত্বাররিফ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, ইমরান ইবনি হুসায়ন [রাদি.] আমাকে বলিলেন.. পরবর্তী অংশ উপরোক্ত মুআয বর্ণিত হাদীসের অনুরূপ। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৮৪১, ইসলামিক সেন্টার- ২৮৪০]

২৮৬৬

মুত্বাররিফ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, ইমরান ইবনি হুসায়ন [রাদি.] মৃত্যুকালীন রোগে আমাকে ডেকে পাঠান। তিনি বলিলেন, আমি তোমাকে কয়েকটি হাদীস বলব, আশা করি আল্লাহ তাআলা আমার পরে তোমাকে এর দ্বারা উপকৃত করবেন। আমি বেঁচে থাকলে তুমি আমার সূত্রে বর্ণনা করা গোপন রাখবে। আর আমি মারা গেলে তুমি চাইলে তা বর্ণনা করিতে পার। আমাকে সালাম করা হতো। জেনে রাখ, আল্লাহর নবী [সাঃআঃ] হজ্জ ও উমরাহ্ একত্রে আদায় করিয়াছেন। অতঃপর এ বিষয়ে কোন আয়াতও নাযিল হয়নি এবং নবী [সাঃআঃ] ও তা নিষিদ্ধ করেননি। এক ব্যক্তি [উমর] এ বিষয়ে যা ইচ্ছা করিলেন, তা বলিলেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৮৪২, ইসলামিক সেন্টার- ২৮৪১]

২৮৬৭

ইমরান ইবনি হুসায়ন [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, জেনে রাখ, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] হজ্জ ও উমরাহ্ একত্রে [একই ইহরামে] আদায় করিয়াছেন। এরপর এ বিষয়ে কোন আয়াত নাযিল হয়নি এবং রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-ও অনুরূপ করিতে আমাদেরকে নিষেধ করেননি। এরপর এক ব্যক্তি এ বিষয়ে নিজ ইচ্ছামত যা বলার, তা বলিলেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৮৪৩, ইসলামিক সেন্টার- ২৮৪২]

২৮৬৮

ইমরান ইবনি হুসায়ন [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমরা রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-এর সঙ্গে তামাত্তু হজ্জ করেছি। এ বিষয়ে কুরআনে কোন আয়াত নাযিল হয়নি। এক ব্যক্তি ইচ্ছামত যা বলার, তাই বলিলেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৮৪৪, ইসলামিক সেন্টার- ২৮৪৩]

২৮৬৯

ইমরান ইবনি হুসায়ন [রাদি.]-এর সূত্র হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, নবী [সাঃআঃ] তামাত্তু হজ্জ আদায় করিয়াছেন এবং আমরাও তাহাঁর সঙ্গে তামাত্তু হজ্জ করেছি। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৮৪৫, ইসলামিক সেন্টার- ২৮৪৪]

২৮৭০

ইমরান ইবনি হুসায়ন [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আল্লাহর কিতাবে মুত্আহ অর্থাৎ তামাত্তু হজ্জ সম্পর্কে আয়াত নাযিল হয়েছে। রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] আমাদের তা করার নির্দেশ দিয়েছেন। অতঃপর তামাত্তু হজ্জ সম্পর্কিত আয়াত রহিতকারী কোন আয়াত নাযিল হয়নি এবং রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-ও ইন্তিকালের পূর্ব পর্যন্ত তা করিতে নিষেধ করেননি। পরবর্তীকালে এক ব্যক্তি নিজ ইচ্ছামত যা বলার, তাই বলেছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৮৪৬, ইসলামিক সেন্টার- ২৮৪৫]

২৮৭১

ইমরান ইবনি হুসায়ন [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

অনুরূপ বর্ণনা করেন। অবশ্য তিনি বলেছেন, “আমরা রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-এর সঙ্গে হজ্জ করেছি।” তিনি এরূপ বলেননি- “রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] আমাদের তা করার নির্দেশ দিয়েছেন”। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৮৪৭, ইসলামিক সেন্টার- ২৮৪৬]

By বুলূগুল মারাম

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। তবে আমরা রাজনৈতিক পরিপন্থী কোন মন্তব্য/ লেখা প্রকাশ করি না। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই লেখাগুলো ফেসবুক এ শেয়ার করুন, আমল করুন

Leave a Reply