নতুন লেখা

তাফসীরে তাবারী বাংলা pdf ৬ষ্ঠ খন্ড – ইবনে জারির আল তাবারি

তাফসীরে তাবারী বাংলা pdf ৬ষ্ঠ খন্ড – ইবনে জারির আল তাবারি

তাফসীরে তাবারী বাংলা pdf ৬ষ্ঠ খন্ড – ইবনে জারির আল তাবারি  >> তাফসীরে তাবারী এর মুল সুচিপত্র দেখুন

সৃচীপত্র – তাফসীরে তাবারী বাংলা pdf ৬ষ্ঠ খন্ড

২. সূরা আলেইমরান

  • ন্বরণ কর, যখন বললেন, “হে ঈসা আমি তোমার জীবনকাল পূর্ণ করছি
  • এবং আমার নিকট তোমাকে তুলে নিচ্ছি এবং যারা কুফরী করেছে তাদের
  • মধ্য হতে তোমাকে মুক্ত করছি……….
  • যারা কুফুরী করেছে আমি তাদেরকে ইহকাল ও পরকালে কঠোর শাস্তি
  • প্রদান করব এবং তাদের কোন সাহায্যকারী নেই। …….
  • আর যারা ঈমান এনেছে এবং নেক আমল করেছে তিনি তাদের প্রতিফল
  • পুরোপুরিভাবে প্রদান করবেন। আল্লাহ তা’আলা জালিমদেরকে পসন্দ করেন
  • না। ………
  • যা আমি তোমার নিকট বর্ণনা করছি, তা নিদর্শন ও বিজ্ঞানময় উপদেশ। ..
  • আল্লাহ্র নিকট ঈসার দৃষ্টান্ত আদমের দুটান্ত সদৃশ। তাকে মৃত্তিকা হতে সৃষ্ট
  • করেছেন; তারপর তাকে বললেন, “হও”, ফলে সে হয়ে গেল। ………
  • এত সত্য আপনার প্রতিপালকের নিকট হতে, সুতরাৎ আপনি
  • সংশয়বাদীদের অন্তর্ভুক্ত হবেন না। ………
  • তোমার নিকট জ্ঞান আসার পর যে কেউ এ বিষয়ে তোমার সাথে তর্ক
  • করে তাকে বল, এস আমরা আহবান করি আমাদের পুত্রগণকে এবং
  • .. তোমাদের পুত্রগণকে, আমাদের নারীগণকে ও তোমাদের নারীগণকে,
  • আমাদের নিজদেরকে এবং তোমাদের নিজদেরকে …
  • দশ এটি সত্য বৃত্ত আল্লহ ব্যভীত অনয ইলাহ নেই নিয় আল্লাহ্‌
  • পরম প্রতাপশালী, প্রজ্ঞাময়।
  • যদি তারা মুখ ফিরিয়ে নেয়, তবে নিশ্চয় আল্লাহ্‌ ফাসাদ্‌কারীদের সহন্ধে
  • সম্যক অবহিত। ……….
  • তুমি বল, হে আহলে কিতাবিগণ! এসো সে কথায়, যা আমাদের ও
  • তোমাদের মধ্যে একই; যেন আমরা আল্লাহ্‌ ব্যতীত কারো ইবাদত করি
  • না, কোন কিছুকেই তাঁর শরীক না করি ………
  • হে কিতাবিগণ! ইবরাহীম সম্পর্কে কেন তোমরা তর্ক কর; অথচ তাওরাত
  • ও ইনজীল তো তার পরেই অবতীর্ণ হয়েছিল? তোমরা কি বুঝ না?
  • দেখ, যে বিষয়ে তোমাদের সামান্য জ্ঞান আছে, তোমরা তো সে বিষয়ে
  • তর্ক করেছ, তবে যে বিষয়ে তোমাদের কোন জ্ঞান নেই সে বিষয়ে কেন
  • তর্ক করছ? ……….
  • ইবরাহীম ইয়াহুদীও ছিল না বৃষ্টানও ছিল নাঃ সে ছিল একনিষ্ঠ মুসলিম
  • এবং সে মুশরিকদের অন্তত ছিল না। ………
  • যারা ইবরাহীমের অনুসরণ করেছিল তারা এবং এই নী ও যারা ঈমান
  • এনেছে মানুষের মধ্যে তারাই ইবরাহীমের ঘণিষ্ঠতম ..
  • কিতাবীদের একদল তোমাদেরকে বিপদগামী করতে চেয়েছিল; অথচ তারা
  • তাদের নিজেদেরকেই বিপথগামী করে কিন্তু তারা উপলব্ধি করে না। …..
  • হে কিতাবিগণ! তোমরা কেন আল্লাহ্র আয়াতকে অস্বীকার কর, অথচ
  • তোমরাই সাক্ষ্যবহন কর। ………
  • হে কিতাবিগণ! তোমরা কেন সত্যকে মিথ্যার সাথে মিশ্রিত কর এবং সত্য
  • গোপন কর, যখন তোমার জান:
  • আহলে কিতাবের একদল বলল, যারা ঈমান এনেছে তাদের প্রতি যা
  • অবতীর্ণ হয়েছে দিনের প্রারগে তা বিশ্বাস কর এবং দিনের শেষে তা
  • অবিশ্বাস কর, হয়ত তারা ফিরতে পারো ……..
  • আর যারা তোমাদের দীনের অনুসরণ করে, তাদেরকে ব্যতীত আর কাউকে
  • বিশ্বাস করনা। বল, আল্লাহ্‌র নির্দেশিত পথই পথ। …
  • রা পে আম
  • কিতাবীদের মধ্যে এমন লোকও রয়েছে, যে বিপুল সম্পদ আমানত
  • রাখলেও ফেরত দিবে ………
  • “হ্যা কেউ তীর অঙ্গীকার পূর্ণ করলে এবং তাকওয়া
  • আল্লাহ্‌ মুস্তাকিগণকে ভালবাসেন।” ………
  • যারা আল্লাহ্র সাথে কৃত প্রতি এবং নিজেদের শপথকে তুচ্ছ মূল্য
  • বিক্রি করে, পরকালে তাদের কোন অংশ নেই। কিয়ামতের দিন আল্লাহ্‌
  • তাদের সাথে কথা বলবেন না এবং তাদের দিকে দৃষ্টিপাত করবেন না…
  • তাদের মধ্যে একদল লোক আছেই যারা কিতাবকে জিহবা দ্বারা বিকৃত
  • করে যাতে তোমরা তাকে আল্লাহ্‌র কিতাবের অংশ মনে কর; কিন্তু তা
  • কিতাবের অংশ নয় বরং তারা বলে তা আল্লাহ্‌র পক্ষ হতে ………
  • “কোন ব্যক্তিকে আল্লাহ্‌ কিতাব, হিকমাত ও নবুওয়াত দান করার পর সে
  • মানুষকে বলবে, আল্লাহ্‌র পরিবর্তে তোমরা আমার দাস হয়ে যাও, ভা তার
  • জন্য শোভন নয় ..
  • ফেরেশতাগণকে ও নবীগণকে প্রতিপালকন্ধপে গ্রহণ করতে সে
  • তোমাদেরকে নির্দেশ দিবে না।
  • স্বরণ কর, যখন আল্লাহ্‌ নবীদের অংগীকার নিয়েছিলেন, তোমাদেরকে
  • কিতাব ও হিকমাত যা কিছু দিয়েছি তার শপথ, আর তোমাদের কাছে যা
  • আছে তার সমর্থকরূপে যখন একজন রাসূল আসবে তখন নিশ্চয় তোমরা
  • তীঁকে বিশ্বাস করবে
  • এরপর যারা মুখ ফিরাবে তারাই সত্যপথ ত্যাগী।
  • তারা কি চায় আল্লাহ্র দীনের পরিবর্তে অন্য দীন? যখন আকাশে ও
  • যা কিছু আছে সমন্তই স্বেচ্ছায় অথবা অনিচ্ছায় তাঁর নিকট
  • আত্মসমর্পণ করেছে! আর তার দিকেই তারা প্রত্যাবর্তিত হবে। ….
  • সবল, আমরা আল্লাহৃতে এবং আমাদের প্রতি যা অবতীর্ণ হয়েছে এবং
  • ইবরাহীম, ইসমাঈল, ইসহাক, ইয়াক্ব ও তাঁর বংশধরগণের প্রতি যা
  • অবতীর্ণ হয়েছে এবং যা মুসা, ঈসা ও অন্যান্য নবীগণকে তাদের
  • প্রতিপালকের নিকট হতে প্রদান করা হয়েছে
  • *কেউ ইসলাম ব্যতীত অন্য কোন দীন গ্রহণ করতে চাইলে তা
  • কখনও কবুল করা হবে না এবং সে হবে পরকালে ক্ষতিগ্রস্তদের
  • ঈমান আনয়নের পর ও রাসূলকে সত্য বলে সাক্ষ্মদান করার পর এবং
  • তাদের নিকট স্পষ্ট নিদর্শন আসার পর যে সম্প্রদায় সত্য প্রত্যাখ্যান করে,
  • তাকে আল্লাহ্‌ কিরূপে সংপথে পরিচালিত করবেন? …
  • ূ এরাই তারা যাদের কর্মফল এই যে, তাদের উপর আল্লাহ, ফেরেশতাগণ
  • এবং মানুষ সকলেরই -লা’নত। …
  • তারা তাতে সর্বদা অবস্থান করবে, তাদের শাস্তি লঘু করা হবে না এবং
  • তাদেরকে বিরামও দেয়া হবে না ………
  • তবে এরপর যারা তওবা করে ও নিজদেরকে সংশোধন করে তারা ব্যতীত।
  • ঈমান আনার পর যারা সত্য প্রত্যাখ্যান করে এবং যাদের সত্য
  • ্ত্যাখ্যান-প্রবৃততি বৃদ্ধি পেতে থাকে, তাদের তওবা কখনও কবুল হবে না।
  • এরাই পথ …..
  • যারা কুফরী করে এবং কাফিররপে যাদের মৃত্য ঘটে ভাদের কারো নিকট
  • হতে পৃথিবীপূ্ণ স্বর্ণ বিনিময় স্বরূপ প্রদান করলেও তা কখনও কবুল হবে
  • না। এরাই তারা, যাদের জন্য বেদনাদায়ক শাস্তি রয়েছে; ‘ভানের কোন
  • সাহায্যকারী নেই। …
  • তোমরা যা৷ ভালবাস তা হতে ব্যয় না করা পর্যস্ত তোমরা কখনও পুণ্য লাভ
  • করবে না। ……..+.
  • তাওরাত অবতীর্ণ হবার পূর্বে ইসরাঈল ইয়াকুব (আ.) নিজের জন্য যা
  • হারাম করেছিল তা ব্যতীত বনী ইসরাঈলের জন্য যাবতীয় খাদ্যই হানাল
  • ছিল। ………
  • এরপরও যারা আল্লাহ তা’আলা সম্পর্কে মিথ্যা সৃষ্টি করে তারাই জালিম।
  • বল, আল্লাহ্‌ তা’আলা সত্য বলেছেন। সুতরাং তোমরা একনিষ্ঠ ইবরাহীমের
  • ধর্মাদর্শ অনুসরণ কর, তিনি মুশরিকদের অন্ততৃক্ত নন।
  • মানব জাতির জন্য সর্বপ্রথম যে গৃহ প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল তা তো বাকায়, তা
  • বরকতময় বিশ্বজগতের দিশারী। ………
  • তাতে বহু সুস্পষ্ট নিদর্শন রয়েছে যেমন মাকামে ইবরাহীম এবং যে কেউ
  • (সেখানে প্রবেশ করে সে থাকবে নিরাপদ। মানুষের মধ্যে যার সেখানে
  • যাবার সামধ্য আছে, আল্লাহ্র উদ্দেশ্যে গৃহের হজ্জ করা তার অবশ্য
  • বল, হে কিতাবিগণ! তোমরা আল্লাহ্‌ তা’আলার নিদর্শনকে কেন প্রত্যাখ্যান
  • কর? তোমরা যা কর আল্লাহ্‌ তা’আলা তার সাক্ষী। ………
  • বল, হে কিতাবিগণ! যারা ঈমান এনেছে তাদেরকে কেন আল্লাহ্‌র পথে
  • বাধা দিচ্ছ, তা বক্রতা অৰেষণ করে? অথচ তোমরা সাক্ষী। তোমরা যা কর
  • আল্লাহ্‌ তা’আলা সে সন্ধে অনবহিত নন। ………
  • হে মুমিনগণ! যাদেরকে কিতাব দেয়া হয়েছে, তোমরা যদি তাদের দল
  • (বিশেষের আনুগত্য কর, তবে তারা তোমাদেরকে ঈমান আনার পর আবার
  • কাফিররূপে পরিণত করবে। ………
  • আল্লাহ্‌ তা’আলার আয়াত তোমাদের নিকট পঠিত হয় এবং তোমাদের
  • মধ্যেই তাঁর রাসূল রয়েছেন; তা সত্তেও কিরূপে তোমরা সত্য প্রত্যাখ্যান
  • করবে?
  • হে মুমিনগণ! তোমরা আল্লাহ্‌ তা’আলাকে যথার্থভাবে ভয় কর এবং
  • তোমরা আত্মনমর্পণকারী না হয়ে কোন অবস্থায় মরো না। ……
  • আর তোমরা সকলে আল্লাহ্র রঙ্ছু দৃঢ়ভাবে ধর এবং পরস্পর বিচ্ছিন হয়ো
  • না। তোম, “ল প্রতি আল্লাহ্‌র অনুগ্রহকে ম্বরণ করোঃ তোমরা ছিপে
  • পরস্পর শক্র এবং তিনি তোমদের হৃদয়ে শ্রীতির সঞ্চার করেন। …….
  • জন্য শোভন *
  • কদ্যাণের পথে আহবানকারী একদল থাকা চাই
  • তোমাদের মধ্যে এমন একদল হোক যারা মানুষকে কল্যাণের দিকে
  • আহবান করবে এবং সৎ কাজের নির্দেশ দেবে ও অসৎ কাজ থেকে বিরত
  • রাখবে; তারাই সফলকাম। ……….
  • ইয়াহুদ নাসারার মতো হলে ধ্বংস অনিবার্ধ
  • তোমরা তাদের মত হয়ো না, যারা তাদের নিকট স্পষ্ট নিদর্শনসমূহ আসার
  • পর বিচ্ছিন্ন হয়েছে ও নিজেদের মধ্যে মতান্তর সৃষ্টি করেছে
  • শেষ বিচারের দিন ঈমান ও কুফরী অনুপাতে চেহারা উজ্জ্বল ও মলীন হবে
  • (সেদিন কতেক মুখ উদ্ভ্বল হবে এবং কতেক যুখ কাল হবে; যাদের মুখ
  • কাল হবে তাদেরকে বলা হবে, ঈমান আনয়নের পর কি তোমরা কুফরী
  • করেছিলে? সৃতরাং তোমরা শাস্তি ভোগ কর ……….
  • যাদের মুখ উদ হবে, তারা আল্লাহর অনুগ্রহে শান্তিতে থাকবে, সেখানে
  • তারা স্থায়ী হবে। ……..
  • এগুলো, আল্লাহ্র আয়াত, আপনার নিকট যথাযথভাবে আবৃত্তি করছি।
  • আল্লাহ্‌ বিশ্বলগতের প্রতি জুলুম করতে চান না। ………
  • আসমান ও যমীনে যা কিছু রয়েছে, সব আল্লাহ তা’আলারই, আল্লাহ্‌
  • তা”আলার নিকটই সব কিছু ফিরে যাবে। ………
  • োমরাই শেঠ উত্ত, মানব জাতির কল্যাণের জন্যে তোমাদের আবির্ভাব
  • হয়েছে তোমরা সংকাজের আদেশ করবে, অসৎ কাজে নিষেধ করবে
  • এবং আল্লাহ্‌ তা’আালাকে বিশ্বাস করবে। ……….
  • সামান্য কষ্ট দেয়া ব্যতীত তারা তোমাদের কোন ক্ষতি সাধন করতে পারবে
  • না, যদি তোমাদের সঙ্গে যুদ্ধ করে, তবে তারা পৃষ্ঠ প্রদর্শন (পলায়ন)
  • ক্রবে। …….
  • আল্লাহ্‌র আশ্রয় ও মানুষের আশ্রয়ের বাইরে যেখানেই থাকুক সেখানেই
  • তারা লাঞ্ছিত হয়েছে। তারা আল্লাহ্‌র গযবে পতিত হয়েছে এবং
  • পরমুখাপেক্ষিতা তাদের প্রতি নির্ধারিত রয়েছে। এটা এহেতু যে, তারা
  • মহান আল্লাহ্র আয়াতসমূহ প্রত্যাখ্যান করত এবং অন্যায়ভাবে নবীগণকে
  • হত্যা করত। তি
  • তারা সকলে এক প্রকার নয়। আহলে কিতাবগণের একদল দীনের উপর
  • কায়েম রয়েছে, তারা রাত্রিকালে আল্লাহ্‌ তা’আলার আয়াতসমূহ পাঠ করে
  • এবং সিজদায় রত থাকে। ………
  • তারা আল্লাহ্‌ এবং শেষ দিনে বিশ্বাস করে, সবকার্ের নির্দেশ দেয়,
  • অসংকার্য নিষেধ করে এবং তারা সংকার্ষে প্রতিযোগিতা করে। .
  • উত্তম কাজের যা কিছু তারা করে, তার প্রতিদান থেকে তাদেরকে কখনও
  • বঞ্চিত করা হবে না .
  • যারা কুফরী করে তাদের ধনৈশবর্য ও সন্তান-সন্ততি আল্লাহ্র নিকট কখনও
  • কোন কাজে লাগবে না।
  • এ পার্থিব জীবনে যা তারা ব্যয় করে তার দৃষ্টান্ত হিমশীতল বায়ু, যা, যে
  • জাতি নিজেদের প্রতি জুলুম করেছে তাদের শস্যক্ষেত্রকে আঘাত করে ও
  • বিনষ্ট করে। আল্লাহ্‌ তাদের প্রতি কোন জুলুম করেন নি ..
  • “হে মুমিনগণ! তোমাদের আপনজন ব্যতীত অপর কাউকেও অন্তরংগ
  • বন্ধুরূপে গ্রহণ করনা; তারা তোমাদের অনিষ্ট করতে ক্রুটি করবে না; যা
  • তোমাদের বিপন্ন করে তা-ই তারা কামনা করে। …….
  • তোমরাই তাদেরকে ভালোবস অথচ
  • তারা তোমাদের ভালোবাসে না
  • “হুশিয়ার! তোমরাই কেবল তাদেরকে ভালবাস, কিন্তু তারা তোমাদেরকে
  • তালবাসে না এবং তোমরা সমস্ত আসমানী কিতাবে বিশ্বাস কর।
  • শ্যদি তোমাদের মঙ্গল হয়, তারা দুঃখিত হয়, আর যদি তোমাদের অমঙ্গল
  • হয়, তারা আনন্দিত হয়। তোমরা যদি ধৈর্যশীল হও এবং মুত্তাকী হও,
  • বদর যুদ্ধের প্রস্তুতি পর্বের বর্ণনা
  • শ্যরণ কর, যখন তুমি তোমার পরিজনবর্গের নিকট হতে প্রত্যুষে বের
  • হয়ে যুদ্ধের জন্যে মু*মিনগণকে ঘাঁটিতে স্থাপন করছিলেন
  • “্যখন তোমাদের মধ্যে দুই দলের সাহস হারাবার উপক্রম হয়েছিল এবং
  • আল্লাহ্‌ পাক উভয়ের সহায়ক ছিলেন,
  • বদরের যুদ্ধে মহান আল্লাহর সাহায্য
  • আর আল্লাহ্‌ তা’আলা .তোমাদেরকে সাহায্য করেছিলেন বদরের যুদ্ধে,
  • এমতাবস্থায় যে, তোমরা দুর্বল ছিলে …
  • বদর যুদ্ধে ফেরেশতা দ্বারা সাহায্য করা হয়েছে
  • (হে রাসূল! আপনি) স্বরণ করুন যখন আপনি মুমিনগণকে বলছিলেন এটা
  • কি তোমাদের জন্যে যথেষ্ট নয় যে, তোমাদের প্রতিপালক প্রেরিত তিন
  • সহম্্ ফেরেশতা ছার! তোমাদের সহায়ত৷ করবেনঃ
  • . হ্যা নিশ্চয়, যদি তোমরা ধৈর্য ধারণ কর ও সাবধান হয়ে চল, আর তারা
  • দ্রুতগতিতে তোমাদের উপর আক্রমণ করে তোমাদের প্রতিপালক পাচ
  • “আর এ তো আল্লাহ্‌ তোমাদের জন্য সুসংবাদ করেছেন এবং যাতে
  • তোমাদের মন শান্ত তাকে এবং সাহায্য শুধু প্রবল প্রাক্রনত প্রজ্ঞাময়
  • আল্লাহ্র নিকট থেকেই হয়।” …….
  • শ্যারা কাফির এক অংশকে নিশ্চিহু করার অথবা লাঞ্চিত করার জন্যঃ
  • ফলে তারা নিরাশ হয়ে ফিরে যায়!
  • .. শ্ভিনি তাদের প্রতি ক্ষমাশীল হবেন অথবা তাদেরকে শাস্তি দেবেন, এ
  • বিষয়ে আপনার করণীয় কিছুই নেই, কারণ, তারা সীমা লংঘনকারী।” ….
  • আসমানে ও যমীনে যা কিছু আছে সমস্তই আল্লাহ্র। তিনি যাকে ইচ্ছা ক্ষমা
  • করেন এবং যাকে ইচ্ছা শাস্তি দেন …
  • .. “হে বিশ্বাসিগণ! তোমরা চক্রবৃদ্ধি হারে সুদ খেয়ো না এবং আল্লাহকে ভয়
  • কর যাতে তোমরা সফলতা লাভ করতে পার।” ……..
  • তোমরা সে অগ্নিকে তয় কর যা কাফিরদের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। ….
  • . তোমরা আল্লাহ্‌ ও রাসূলের আনুগত্য কর যাতে তোমরা কৃপা লাত করতেপার
  • . তোমরা ধাবমান হও আপন প্রতিপালকের নিকট হতে ক্ষমা এবং সে
  • জান্নাতের দিকে যার বিস্তৃতি আসমান ও যমীনের ন্যায় যা প্রস্ুত করা
  • হয়েছে মুত্তাকীদের জন্য। ………
  • . যারা সচ্ছল ও অসচ্ছল অবস্থায় ব্যয় করে এবং যারা ক্রোধ সংবরণকারী
  • এবং মানুষের প্রতি ক্ষমাশীল ………
  • আর যারা (অনিচ্ছাকৃতভাবে) কোন অগ্রীল কাজ করে ফেলে অথবা
  • নিজেদের প্রতি জুলুম করে আল্লাহ্‌কে স্বরণ করে এবং নিজেদের পাপের
  • জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করে এবং আল্লাহ্‌ ব্যতীত কে পাপ ক্ষমা করবে? আর
  • তারা যা করে তা জেনে-শুনে তারই পুনরাবৃত্তি করে না .
  • , তারাই তারা, যাদের পুরম্কার তাদের প্রতিপালকের ক্ষমা এবং
  • জান্নাত, যার পাদদেশে নদী প্রবাহিত; সেখানে তারা স্থায়ী হবে
  • তোমাদের পূর্বে বহু বিধান গত হয়েছে, কাজেই তোমরা পৃথিবী ভ্রমণ কর
  • এবং দেখ মিথ্যশ্রয়ীদের কি পরিণাম। ………
  • তা মানবজাতির জন্য সুস্পষ্ট বর্ণনা এ.
  • উপদেশ। ………
  • তোমরা হীনবল হয়ো না এবং দুঃখিত হয়ো না, বস্তুত তোমরাই বিজয়ী,
  • যদি তোমরা মু’মিন হও। …….
  • যদি তোমাদের আঘাত লেগে থাকে, তবে অনুরূপ আঘাত তাদেরও
  • তো লেগেছে। মানুষের মধ্যে এই দিনগুলোর পর্যায়ক্রমে আমি আবর্তন
  • ঘটাই। …….
  • যাতে আল্লাহ্‌ মুমিনগণকে পরিশোধন করতে পারেন এবং সত্য
  • তোমরা কি মনে কর যে, তোমরা জান্নাতে প্রবেশ করবে, যখন আল্লাহ্‌
  • তোমাদের মধ্যে কে জিহাদ করেছে এবং ধৈর্যশীল তা এখনও জানেন না ..
  • মৃত্র সম্থুখীন হওয়ার পূর্বে তোমরা তা কামনা করতে, এখন তো
  • “মুহাম্মদ রাসূল ব্যতীত কিছু নয়, তাঁর পূর্বে বহু রাসূল গত হয়েছে।
  • কাজেই যদি সে মারা যায় অথবা নিহত হয়, তবে তোমরা কি পৃষ্ঠ প্রদর্শন
  • আল্লাহ্র অনুমতি ব্যতীত কারো মৃত্যু হতে পারে না, যেহেতু এর মিয়াদ
  • অবধারিত।
  • আর কত নবী যুদ্ধ করেছে তাদের সাথে বহু আল্লাহওয়ালা ছিল। আল্লাহ্র
  • পথে তাদের যে বিপর্যয় ঘটেছিল তাতে তারা হীনবল হয়নি, দুর্বপ হয়নি
  • এবং নত হয়নি ………
  • এ কথা ব্যতীত তাদের আর কোন কথা ছিল না, হে আমাদের প্রতিপালক!
  • আমাদের পাপসমূহ এবং আমাদের কাজে সীমালত্ঘন আপনি ক্ষমা করুন .
  • তারপর আল্লাহ্‌ পাক তাদেরকে পার্থিব পুরস্কার এবং উত্তম পারলৌকিক
  • পুরস্কার দান করবেন ……..
  • “হে মুমিনগণ! তোমরা যদি কাফিরদের আনুগত্য কর তবে তারা
  • তোমাদেরকে বিপরীত দিকে ফিরিয়ে দেবে এতে তোমরা ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে
  • আল্লাহই তো তোমাদের অভিভাবক এবং তিনিই শ্রেষ্ঠ সাহায্যকারী
  • কাফিরদের অন্তরে ভীতির সঞ্চার করে দিব, যেহেতু তারা আল্লাহ্‌র শরীক
  • করেছে, যার সপক্ষে আল্লাহ্‌ কোন সনদ পাঠাননি। আর জাহান্নাম তাদের
  • আবাস; কত নিকৃষ্ট বাসস্থান জালিমদের। …….
  • আল্লাহ্‌ তোমাদের সাথে তাঁর প্রতিশ্রুতি পূর্ণ করেছিলেন যখন তোমরা
  • : আল্লাহ অনুমতিক্রমে তাদেরকে বিনাশ করছিলে, যে পর্যন্ত না তোমরা
  • সাহস হারালে এবং নির্দেশ সন্ধে মতভেদ সৃষ্টি করলে …
  • . শ্যরণ কর সেই সময়কে, যখন তোমরা উর্ধ্বমুখে ছুটছিলে এবং পেছনের
  • দিকে কারো প্রতি লক্ষ্য করছিলে না, আর রাসূলুল্লাহ্‌ (সা.) তোমাদেরকে
  • . তারপর দুঃখের পর তিনি তোমাদেরকে প্রদান করলেন প্রশান্তি তন্ত্রারূপে,
  • যা তোমাদের এক দলকে আচ্ছন্ন করেছিল। আর এক দল জাহিলী যুগের
  • অভ্র ন্যায় আল্লাহ্‌ স্বন্ধে অবাস্তব ধারণা করে নিজেরাই নিজেদেরকে
  • উদ্ধি্র করেছিল …….
  • সেদিন দু’দল পরস্পরের সম্থুবীন হয়েছিল, সে দিন তোমাদের মধ্য হতে
  • র যারা পৃষ্ঠ প্রদর্শন করেছিল, তাদের কোন কৃতকর্মের জন্য শয়তানই তাদের
  • পদস্থলন ঘটিয়েছিল। অবশ্য আল্লাহ্‌ তাদেরকে ক্ষমা করেছেন
  • হে মুমিনগণ! তোমরা তাদের মত হয়ে! না যারা কুফরী করে
  • তোমরা আল্লাহ্‌র পথে নিহত হলে অথবা মৃত্যুবরণ করলে, যা তারা জমা
  • করে, আল্লাহর ক্ষমা এবং দয়া অবশ্যই তা অপেক্ষা শ্রেয়।
  • “ আর তোমাদের মৃত্যু হলে অথবা তোমরা নিহত হলে, আল্লাহ্রই নিকট
  • তোমাদেরকে একত্র করা হবে ……..
  • (হে রাসূল!) আপনি তাদের প্রতি কোমল-হবদয় হয়েছিলেন; যদি আপনি
  • কর্কশভাসী ও কঠিনচিত্ত হতেন, তবে তারা আপনার আশপাশ থেকে দূরে
  • সরে পড়ত। …….
  • আল্লাহ্‌ তোমাদেরকে সাহায্য করলে তোমাদের উপর জয়ী হওয়ার আর
  • (কেউই থাকবে না। আর তিনি তোমাদেরকে সাহায্য না করলে, তিনি ছাড়া
  • কে এমন আছে, যে তোমাদেরকে সাহায্য করবে? ……..
  • অন্যায়ভাবে কোন বন্তু গোপন করা, তা নবীর পক্ষে অসম্ভব এবং কেউ
  • অন্যায়ভাবে কিছু গোপন করলে, যা সে অন্যায়ভাবে গোপন করবে
  • কিয়ামতের দিন সে তা নিয়ে আসবে। তারপর প্রত্যেককে, যা সে অর্জন
  • করেছে তা পূর্ণ মাত্রায় দেয়া হবে
  • আল্লাহ্‌ যাতে রাষী, এর যে তারই অনুসরণ করে, সে কি এ ব্যক্তির মত
  • যে আল্লাহ্র ক্রোধের পাত্র হয়েছে এবং জাহান্নামই যার আবাস? এবং তা
  • নিশ্চয় আল্লাহ্‌ পাক মুমিনগণের প্রতি বিশেষ ইহসান করেছেন যে, তাদের
  • মধ্যে থেকেই তাদের নিকট রাসূল প্রেরণ করেছেন। ..
  • কি ব্যাপার! যখন তোমাদের উপর মুসীবত এল তখন তোমরা বললে, এ
  • কোথেকে আসল? অথচ তোমরা তো দ্বিগুণ বিপদ ঘটিয়েছিলে ……
  • যে দিন দু’দল পরস্পরের, সম্ুখীন হয়েছিল সেদিন তোমাদের উপর যে
  • বিপর্যয় ঘটেছিল তা আল্লাহরই নির্দেশক্রমে হয়েছিল; এ ছিল মু’মিনদেরকে
  • পরীক্ষা করার জন্য! ………
  • মুনাফিকদেরকে জানাবার জন্য এবং তাদেরকে বলা হয়েছিল, এস,
  • আল্লাহ্‌র রাহে জিহাদ করো, অথবা শক্রদেরকে রুখে দাঁড়াও। তখন
  • মুনাফিকরা বলল, যদি আমরা কোন নিয়মতান্ত্রিক পন্থায় যুদ্ধ দেখতাম,
  • তবে অবশ্যই তোমাদের সাথে আমরা অংশগ্রহণ করতাম ………
  • যারা ঘরে বসে রইল এবং তাদের ভাইদের সম্বন্ধে বলল, যে, তারা তাদের
  • কথা মত চললে নিহত হতো না, তাদেরকে বল, যদি তোমরা সত্যবাদী
  • হও তবে নিজেদেরকে মৃত্যু হতে রক্ষা কর
  • যারা আল্লাহ্‌র পথে নিহত হয়েছে তাদেরকে কখনো মৃত মনে করোনা;
  • বরং তারা জীবিত এবং তাদের প্রতিপালকের নিকট হতে তারা জীবিকা
  • রাত
  • আল্লাহ্‌ নিজ অনুথহে তাদেরকে যা দিয়েছেন তাতে তারা আনন্দিত এবং
  • তাদের পিছনে যারা এখনও তাদের সাথে মিলিত হয়নি তাদের জন্য আনন্দ
  • প্রকাশ করে, এ জন্য যে, তাদের কোন ভয় নেই এবং তারা দুঃখিতও হবে
  • না.
  • আল্লাহ্‌র অবদান ও অনুগ্রহের জন্য তারা আনন্দ প্রকাশ করে এবং তা এ
  • কারণে যে, আল্লাহ্‌ মু’মিনদের প্রতিদান বিনষ্ট করেন না
  • যখম হওয়ার পর যারা আল্লাহ্‌ ও রাসূলের ভাকে সাড়া দিয়েছে, তাদের
  • মধ্যে যারা সৎকার্য করে এবং তাকওয়া অবলবন করে চলে তাদের জন্য
  • রয়েছে মহাপুরস্কার ………
  • তাদেরকে লোকে বলেছে, তোমাদের বিরুদ্ধে লোক জমায়েত হয়েছে
  • সুতরাং তোমরা তাদেরকে ভয় কর; কিন্তু এ কথা তাদের বিশ্বাস দৃঢ়তর
  • করেছে; এবং তারা বলেছিল, আল্লাহই আমাদের জন্য যথেষ্ট
  • ১৭৪. তারপর তারা আল্লাহ্‌র অবদান ও অনুগ্রহসহ ফিরে এসেছিল, কোন অনিষ্ট
  • তাদেরকে স্পর্শ করেনি এবং আল্লাহ্‌ যাতে রাহী তারা তারই অনুসরণ
  • করেছিল এবং আল্লাহ্‌ মহা অনুগ্বশীল ..
  • ১৭৫. শয়তানই তোমাদেরকে তার বন্ধুদের ভয় দেখায়; সুতরাং যদি তোমরা
  • মু’মিন হও তবে তোমরা তাদেরকে ভয় করো না, আমাকেই তয় কর। …
  • ১৭৬. যারা দ্রতবেগে নাফরমানীর দিকে ধাবিত হয় তাদের আচরণ যেন
  • তোমাকে দুঃখ না দেয়। তারা কখনো আল্লাহ্‌র কোন ক্ষতি করতে পারবে
  • ১৭৭. যারা ঈমানের বিনিময়ে কুফরী ক্রয় করেছে তারা কখনো আল্লাহ্‌র কোন
  • ক্ষতি করতে পারবে না .
  • ১৭৮০ কাফিররা যেন কিছুতেই নে না করে যে, আমি অবকাশ দেই তাদের
  • মঙ্গলের জন্য; আমি অবকাশ দিয়ে থাকি যাতে তাদের পাপ বৃদ্ধি পায় এবং
  • তাদের জন্য লাঞ্নাদায়ক শাস্তি রয়েছে। …
  • ১৭৯… অসৎকে সৎ হতে পৃথক না করা পর্যন্ত তোমরা যে অবস্থায় রয়েছে আল্লাহ্
  • মুমিনদেরকে সে অবস্থায় ছেড়ে দিতে পারেন না। অদৃশ্য সম্পর্কে আল্লাহ্‌
  • তোমাদেরকে অবহিত করবার নন; তবে আল্লাহ্‌ তার রাসূলগণের মধ্যে
  • যাকে ইচ্ছা মনোনীত করেন
  • ১৮০, আল্লাহ্‌ নিজ অনুষহে যা তোমাদেরকে দিয়েছেন ভাতে যারা কৃপণতা করে
  • তাদের জন্য তা মঙ্গল, এ যেন তারা কিছুতেই মনে না করে। ……..
  • ১৮১, য়ারা বলে, আল্লাহ্‌ অভাবশ্স্ত ও আমরা অভাবমুক্ত তাদের কথা আল্লাহ্
  • শুনেছেন; তারা যা বলেছে তা ও নবীগণকে অন্যায়ভাবে হত্যা করার বিষয়
  • আমি লিখে রাখব
  • ৮২-_ এ তোমাদের কৃতকর্মেরই ফল এবং তা একারণে যে, আল্লাহ্‌ বান্দাদের
  • প্রতি জালিম নন।
  • ১৮৩, যারা বলে, আল্লাহ্‌ আমাদেরকে আদেশ দিয়েছেন যে, আমরা যেন কোন
  • রাসূলের প্রতি বিশ্বাস স্থাপন না করি যতক্ষণ পর্যন্ত সে আমাদের নিকট
  • এমন কুরবানী উপস্থিত না করবে যা অগ্নিগ্রাস করবে ……..
  • ১৮৪. তারা যদি তোমাকে অস্বীকার করে, তোমার পূর্বে যে সব রাসূল স্পষ্ট
  • নিদর্শন, অবতীর্ণ গ্রন্থসমূহ এবং দীত্তিমান কিতাবসহ এসেছিল ..
  • ১৮৫. জীবমাত্রই মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করবে। কিয়ামতের দিন তোমাদেরকে
  • তোমাদের কর্মফল পূর্ণ মাত্রায় দেয়া হবে ……..
  • ১৮৬. তোমাদেরকে নিশ্চয়ই তোমাদের ধনৈশবর্য ও জীবন সমন্ধে পরীক্ষা করা
  • হবে। তোমাদের পূর্বে যাদেরকে কিতাব দেয়া হয়েছিল তাদের এবং
  • মুশরিকদের নিকট হতে তোমরা অনেক কষ্টদায়ক কথা শুনবে
  • স্মরণ কর যাদেরকে কিতাব দেয়া হয়েছিল আল্লাহ্‌ তাদের থেকে প্রতিশ্রুতি
  • নিয়েছিলেন, তোমরা তা মানুষের নিকট স্পষ্টভাবে প্রকাশ করবে
  • যারা নিজেরা যা করেছে তাতে আনন্দ প্রকাশ করে এবং যা নিজেরা করেনি
  • এমন কার্যের জন্য প্রশংসিত হতে ভালবাসে, তারা শাস্তি হতে মুক্তি পাবে
  • আসমান ও যমীনের সার্বভৌম ক্ষমতা একমাত্র আল্লাহ্রই ..
  • আকাশমন্ডল ও পৃথিবীর সৃষ্টিতে, দিবস ও রা্রির পরিবর্তনে নিদর্শনাবলী
  • রয়েছে বোধশক্তি সম্পন্ন লোকের জন্য। …….
  • যারা দাঁড়িয়ে বসে এবং শুয়ে আল্লাহকে স্বরণ করে এবং আকাশমন্ডল ও
  • পৃথিবীর সৃষ্টি সন্ধে চিন্তা করে এবং বলে, হে আমাদের প্রতিপালক! তুমি
  • এ সব নিরর্ক সৃষ্টি করনি …….
  • হে আমাদের প্রতিপালক! কাউকে তুমি অগনিতে নিক্ষেপ করলে তাকে তো
  • তুমি নিশ্য়ই হেয় করলে এবং জালিমদের কোন সাহায্যকারী নেই।
  • হে আমাদের প্রতিপালক! আমরা এক আহ্বায়ককে ঈমানের দিকে আহবান
  • করতে শুনেছি, তোমরা তোমাদের প্রতিপালকের প্রতি ঈমান আনয়ন কর।
  • সুতরাৎ আমরা ঈমান আনয়ন করেছি। …….
  • হে আমাদের প্রতিপালক। তোমার রাসূলগণের মাধ্যমে আমাদেরকে যা
  • দিতে প্রতিস্রুতি দিয়েছ তা আমাদেরকে দাও এবং কিয়ামতের দিন
  • আমাদের কে হেয় করো না
  • তারপর তাদের প্রতিপালক তাদের ডাকে সাড়া দিয়ে বলেন, আমি
  • তোমাদের মধ্যে কোন কর্মনিষ্ঠ নর অথবা নারীর কর্ম বিফল করি নাঃ
  • তোমরা একে অপরের অংশ ………
  • যারা কুফরী করেছে দেশে দেশে তাদের অবাধ বিচরণ যেন কিছুতেই
  • তোমাকে বিভ্রান্ত না করে।
  • এ সামান্য ভোগ মাত্র; তারপর জাহান্নাম তাদের আবাস; আর তা কত
  • কিনতু যারা তাদের প্রতিপালককে ভয় করে তাদের জন্য রয়েছে জান্নাত,
  • যার পাদদেশে নদী প্রবাহিত, সেখানে তারা স্থায়ী হবে ……..
  • ‘কিতাবীদের মধ্যে এমন লোক আছে যারা আল্লাহর প্রতি বিনয়াবনত হয়ে
  • তীর প্রতি এবং তিনি যা তোমাদের ও তাদের প্রতি অবতীর্ণ করেছেন
  • তাতে বিশ্বাস স্থাপন করে এবং আল্লাহ্‌র আয়াত তুচ্ছ মূল্যে বিক্রি করে না
  • হে ঈমানদারগর্ণ তোমরা ধৈর্যধারণ কর, ধৈর্যে প্রতিযোগিতা কর এবং সদা
  • প্রস্তুত থাক; আল্লাহকে ভয় কর যাতে তোমরা সফলকাম হতে পার।

তাফসীরে তাবারী বাংলা pdf ৬ষ্ঠ খন্ড বইটি আপনার প্রয়োজন হলে নিচে Leave a Reply এ গিয়ে Comment করুন । Enter your comment here… এখানে বিস্তারিত লিখুন, তাহলে আমরা আপনাকে বইটি পাঠিয়ে দিব, ইনশাআল্লাহ।

About halalbajar.com

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Check Also

ফাজায়েলে কুরআন

ফাজায়েলে কুরআন ফাজায়েলে কুরআন >> বুখারী শরীফ এর মুল সুচিপত্র পড়ুন পর্বঃ ৬৬, ফাজায়েলে কুরআন, অধ্যায়ঃ (১-৩৭)=৩৭টি …

Leave a Reply

%d bloggers like this: