নতুন লেখা

গোসলের সুন্নত কয়টি বর্ণনা সহ হাদিস সমূহ

গোসলের সুন্নত কয়টি বর্ণনা সহ হাদিস সমূহ

গোসলের সুন্নত কয়টি বর্ণনা সহ হাদিস সমূহ >> মিশকাতুল মাসাবীহ এর মুল সুচিপত্র দেখুন

পর্বঃ ৩, অধ্যায়ঃ ১১

  • অধ্যায়ঃ ১১. প্রথম অনুচ্ছেদ
  • অধ্যায়ঃ ১১. দ্বিতীয় অনুচ্ছেদ
  • অধ্যায়ঃ ১১. তৃতীয় অনুচ্ছেদ

অধ্যায়ঃ ১১. প্রথম অনুচ্ছেদ

৫৩৭. ইবনি উমার [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ তোমাদের কেউ জুমুআর নামাজ আদায় করিতে চাইলে [এর আগে] সে যেন গোসল করে। {১}

{১} সহীহ : বোখারী ৮৭৭, মুসলিম ৮৪৪, নাসায়ী ১৩৭৬, মালিক ১০৩/৩৩৮, আহমাদ ৫৩১২, দারিমি ১৫৭৭, সহীহ আল জামি ৪৫৮। গোসলের সুন্নত কয়টি -এই হাদিসটির তাহকীকঃ সহীহ হাদিস

৫৩৮. আবু সাঈদ আল খুদরী [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ প্রত্যেক প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তির উপর জুমুআর দিন গোসল করা ওয়াজিব। {১}

{১} সহীহ : বোখারী ৮৫৮, মুসলিম ৮৪৬, আবু দাউদ ৩৪১, নাসায়ী ১৩৭৭, ইবনি মাজাহ ১০৮৯, আহমাদ ১১৫৭৮, দারিমি ১৫৭৮, সহীহ ইবনি হিব্বান ১২২৮। গোসলের সুন্নত কয়টি -এই হাদিসটির তাহকীকঃ সহীহ হাদিস

৫৩৯. আবু হুরাইরাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ মুসলিম মাত্রই সবার জন্য সাতদিনের মধ্যে কমপক্ষে একদিন গোসল করা ওয়াজিব [অত্যাবশ্যক]। এতে তার মাথা ও শরীর ধুয়ে নিবে। {১}

{১} সহীহ : বোখারী ৮৯৮, মুসলিম ৮৪৯, সহীহ আল জামি ৩১৫৪, সুনানুল কুবরা লিল বায়হাক্বী ১৪২০। গোসলের সুন্নত কয়টি -এই হাদিসটির তাহকীকঃ সহীহ হাদিস

অধ্যায়ঃ ১১. দ্বিতীয় অনুচ্ছেদ

৫৪০. সামুরাহ্ ইবনি জুনদুব [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ যে লোক জুমুআর দিন শুধু উযূ করে ফার্‌য [কাজ] আদায় করেছে, আর এটা তার জন্য যথেষ্ট। আর যে লোক [জুমুআর দিন] গোসল করেছে এ গোসল তার জন্য খুবই কল্যাণকর। {১}

{১} হাসান : আহমাদ ২০১৭৪, আবু দাউদ ৩৫৪, তিরমিজি ৪৯৭, নাসায়ী ১৩৮০, দারিমী ১৫৮১। এ হাদিসের বর্ণনাকারী সকলেই বিশ্বস্ত। তবে সামুরাহ্ থেকে হাসান বসরীর বর্ণনাটি তাদলীসের পর্যায়ভুক্ত এবং সামুরাহ্ থেকে শ্রবণের বিষয়টি তিনি স্পষ্ট করেননি। তারপরেও এর অনেকগুলো শাহিদ বর্ণনা থাকায় তা হাসান স্তরে উন্নীত হয়েছে। এই হাদিসটির তাহকীকঃ হাসান হাদিস

৫৪১. আবু হুরাইরাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ মৃত ব্যক্তিকে যে লোক গোসল দেয় সে নিজেও যেন গোসল করে। {১}

{১} সহীহ : আবু দাউদ ৩১৬১, তিরমিজি ৯৯৩, ইবনি মাজাহ ১৪৬৩, ইরওয়া ১৪৪, আহমাদ ৯৮৬২। গোসলের সুন্নত কয়টি -এই হাদিসটির তাহকীকঃ সহীহ হাদিস

৫৪২. আয়িশাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সাঃআঃ] চারটি কারণে গোসল করিতেনঃ [১] অপবিত্রতা, [২] জুমুআহ্‌, [৩] রক্তমোক্ষণের [শিঙ্গা লাগানোর] পর [অর্থাৎ-শরীর থেকে রক্ত বের হলে] এবং [৪] মৃত ব্যক্তির গোসল দেবার পর। {১}

{১} জইফ : আবু দাউদ ৩৪৮। কারণ এর সানাদে মুস্আব ইবনি শায়বাহ্ সর্বসম্মতিক্রমে দুর্বল। এই হাদিসটির তাহকীকঃ দুর্বল হাদিস

৫৪৩. ক্বায়স ইবনি আসিম [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি যখন ইসলাম গ্রহণ করেন তখন নবী [সাঃআঃ] তাকে বরই পাতা মিশ্রিত পানি দিয়ে গোসল করিতে নির্দেশ দিয়েছেন। {১}

{১} সহীহ : আবু দাউদ ৩৩৫, তিরমিজি ৬০৫, নাসায়ী ১৮৮। গোসলের সুন্নত কয়টি -এই হাদিসটির তাহকীকঃ সহীহ হাদিস

অধ্যায়ঃ ১১. তৃতীয় অনুচ্ছেদ

৫৪৪. ইকরিমাহ্ [রাহিমাহুল্লাহ] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, ইরাকের কিছু লোক এসে জিজ্ঞেস করিল, হে আবদুল্লাহ ইবনি আব্বাস! জুমুআর দিনের গোসলকে আপনি কি ওয়াজিব মনে করেন? তিনি বললেন, না। কিন্তু যে ব্যক্তি তা করিবে তার জন্য খুবই উত্তম ও পবিত্রতম। আর যে ব্যক্তি তা করিল না তার জন্য ফার্‌য নয়। কিভাবে জুমুআর গোসল শুরু হল তা আমি তোমাদেরকে বলছি। লোকেরা গরীব ছিল। পশমের মোটা কাপড় পরত। পিঠে ভারবাহীর মতো কঠিন পরিশ্রম করতো। তাদের মাসজিদ ছিল ছোট ও নীচু চালার খেজুর ডালের চাপরা। রাসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] এমনি এক গরমের দিনে মাসজিদের দিকে গেলেন। মানুষ পশমের কাপড় পড়ে ঘামে ভিজেছিল। তাদের শরীর থেকে দুর্গন্ধ বের হচ্ছিল। এতে একে অপরের দুর্গন্ধে কষ্ট পাচ্ছিল। রাসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-ও গন্ধ পাচ্ছিলেন। তিনি বললেন, হে লোক সকল! তোমরা এ দিনে গোসল করে মাসজিদে আসবে। তোমাদের প্রত্যেকেই যেন আপন আপন সামর্থ্যনুযায়ী ভাল ভাল তৈল ও সুগন্ধী ব্যবহার করে। ইবনি আব্বাস [রাদি.] বলেন, অতঃপর আল্লাহ তাআলা তাদের সম্পদ দান করিলেন। তারা পশম ছাড়া অন্য কাপড়-চোপড় পরতে থাকেন। তাদের পরিশ্রম ও দিন মজুরীর অবসান ঘটে। তাদের মাসজিদও প্রশস্ত হল। তাদের একে অপরকে কষ্ট দেবার মতো দুর্গন্ধ ঘামও দূর হয়ে গেল। {১}

{১} সহীহ : আবু দাউদ ৩৫৩। গোসলের সুন্নত কয়টি -এই হাদিসটির তাহকীকঃ সহীহ হাদিস

৫৪৫. আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, ইয়াহূদীদের কোন স্ত্রীলোকের হায়য হলে তারা শুধু তাদের সাথে একত্রে খাওয়াই বন্ধ করে দিত না, বরং তাদেরকে একত্রে এক ঘরেও রাখত না। নবী [সাঃআঃ]-এর সহাবীগণ তাঁকে [এ বিষয়ে] জিজ্ঞেস করিলেন। আল্লাহ তাআলা তখন এ আয়াত অবতীর্ণ করিলেন, “আর তারা আপনাকে হায়য সম্পর্কে জিজ্ঞেস করে……..”- [সূরাহ্‌ আল বাক্বারাহ ২:২২২] আয়াতের শেষ পর্যন্ত। তখন রাসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বললেন, তাদের সাথে যৌনসঙ্গম ব্যতীত আর সব কিছু করিতে পার। এ সংবাদ ইয়াহূদীদের কাছে পৌঁছালে তারা বলিল, এ ব্যক্তি আমাদের সব কিছুতেই বিরোধীতা না করে ছাড়তে চায় না। অতঃপর উসায়দ ইবনি হুযায়র এবং আব্বাদ ইবনি বিশ্‌র [রাদি.] আসলেন। তারা বললেন, হে আল্লাহর রসূল! ইয়াহূদীরা এসব কথা বলে বেড়ায়। আমরা কি আমাদের স্ত্রীদের সাথে যৌনসঙ্গম করার অনুমতি পেতে পারি? এ কথা শুনে রাসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-এর চেহারা বিবর্ণ হয়ে গেল। তাতে আমাদের ধারণা হল, তিনি তাদের উপর রাগ করিয়াছেন। তারপর তারা বের হয়ে গেলেন। এমন সময় তাদের সামনেই নবী [সাঃআঃ]-এর জন্য কিছু দুধ হাদিয়া আসল। অতঃপর তিনি [সাঃআঃ] পেছনে পেছনে লোক পাঠিয়ে তাদেরকে ডেকে এনে দুধ খেতে দিলেন। এতে তারা বুঝলেন যে, তিনি [সাঃআঃ] তাদের সাথে রাগ করেননি। {১}

{১} সহীহ : মুসলিম ৩০২, দারিমি ১০৯৩, আবু দাউদ ২৫৮, তিরমিজি ২৯৭৭, ইবনি মাজাহ ৬৪৪, আহমাদ ১২৩৫৪। গোসলের সুন্নত কয়টি -এই হাদিসটির তাহকীকঃ সহীহ হাদিস

৫৪৬. আয়িশাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, নাপাক অবস্থায় আমি ও নবী [সাঃআঃ] একই পাত্রে হইতে গোসল করতাম। তিনি আমাকে হুকুম করিতেন, আমি শক্ত করে লুঙ্গি বেধে দিতাম, আর তিনি আমার গায়ে গা লাগাতেন অথচ তখন আমি হায়য অবস্থায় ছিলাম। তিনি ইতিক্বাফ অবস্থায় তাহাঁর মাথা মাসজিদ থেকে বের করে দিতেন, আমি ঋতুবতী অবস্থায় পানি দিয়ে তাহাঁর মাথা ধুয়ে দিতাম। {১}

{১} সহীহ : বোখারী ৩০১, মুসলিম ২৯৩; শব্দবিন্যাস বোখারীর। গোসলের সুন্নত কয়টি -এই হাদিসটির তাহকীকঃ সহীহ হাদিস

৫৪৭. আয়িশাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি হায়য অবস্থায় পানি পান করতাম। এরপর নবী [সাঃআঃ]-কে তা দিতাম। তিনি আমার মুখের জায়গায় মুখ রেখেই পানি পান করিতেন। আমি কখনও হায়য অবস্থায় হাড়ের গোশ্ত খেতাম। অতঃপর আমি এ হাড় নবী [সাঃআঃ]-কে দিতাম। আর তিনি [সাঃআঃ] আমার মুখের জায়গায় মুখ রেখে তা খেতেন। {১}

{১} সহীহ : মুসলিম ৩০০, নাসায়ী ২৮২, সহীহ ইবনি হিব্বান ১৩৬০, আহমাদ ২৫৫৯৪, ইবনি মাজাহ ৬৪৩, আবু দাউদ ২৫৯, ইরওয়া ১৯৭২। গোসলের সুন্নত কয়টি -এই হাদিসটির তাহকীকঃ সহীহ হাদিস

৫৪৮. আয়িশাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি হায়য অবস্থায় থাকতে নবী [সাঃআঃ] আমার কোলে হেলান দিয়ে কুরআন মাজীদ তিলাওয়াত করিতেন। {১}

{১} সহীহ : বোখারী ২৯৭, মুসলিম ৩০১, মুসান্নাফ আবদুর রায্যাক ১২৫২, সহীহ ইবনি হিব্বান ৭৯৮, আহমাদ ২৪৮৬২। গোসলের সুন্নত কয়টি -এই হাদিসটির তাহকীকঃ সহীহ হাদিস

৫৪৯. আয়িশাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, নবী [সাঃআঃ] আমাকে বললেন, মাসজিদ হইতে আমাকে চাটাই এনে দাও। আমি বললাম, আমি তো ঋতুবতী। তিনি বললেন, তোমার হায়য তো তোমার হাতে নয়। {১}

{১} সহীহ : মুসলিম ২৯৮, আবু দাউদ ২৬১, তিরমিজি ১৩৪, আহমাদ ২৪১৮৪, সহীহ আল জামি ২০৬১। গোসলের সুন্নত কয়টি -এই হাদিসটির তাহকীকঃ সহীহ হাদিস

৫৫০. মায়মূনাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] একটি চাদরে সালাত আদায় করিতেন। যার একটি অংশ আমার শরীরের উপর থাকত আর অন্য অংশ তার শরীরের উপর থাকত। অথচ তখন আমি ঋতুবতী। {১}

{১} সহীহ : মুসলিম ৫১৪, নাসায়ী ৭৬৮। সহীহায়নে হাদিসটি মায়মূনার বর্ণনা থেকে পাওয়া যায় না। এটি মুসলিমে আয়িশাহ্ [রাদি.]-এর বর্ণনা থেকে রয়েছে। গোসলের সুন্নত কয়টি -এই হাদিসটির তাহকীকঃ সহীহ হাদিস

About halalbajar.com

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Check Also

হজ্জ পর্ব

হজ্জ পর্ব হজ্জ পর্ব >> মিশকাতুল মাসাবীহ এর মুল সুচিপত্র দেখুন পর্ব-১১ হজ্জ পর্বঅধ্যায়বিষয়হাদিস সংখ্যা১১১-১৫হজ্জ পর্ব(২৫০৫-২৭৫৮)=২৫৪১১০হজ্জ ১১১ইহরাম ও …

Leave a Reply

%d bloggers like this: