গনীমাতের মালের বর্ণনা

গনীমাতের মালের বর্ণনা

গনীমাতের মালের বর্ণনা >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

১২. অধ্যায়ঃ গনীমাতের মালের বর্ণনা

৪৪৪৮

মাসআব ইবনি সাদ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] তাহাঁর পিতা হইতে বর্ণীতঃ

আমার পিতা যুদ্ধলব্ধ সম্পদের এক পঞ্চমাংশ হইতে কিছু বস্তু নিয়ে রসূলুল্লাহ [সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম]-এর কাছে এসে বলেন, এটি আমাকে উপঢৌকন প্রদান করুন। তিনি অস্বীকার করেন। তখন আল্লাহ তাআলা এ আয়াত নাযিল করেন : “তারা আপনার কাছে যুদ্ধলব্ধ দ্রব্য সম্ভার সম্বন্ধে জিজ্ঞেস করে, আপনি বলে দিন, যুদ্ধলব্ধ দ্রব্য সম্ভার আল্লাহ ও রসূলের ” আয়াতটি শেষ পর্যন্ত নাযিল হলো। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৪০৬, ইসলামিক সেন্টার- ৪৪০৬]

৪৪৪৯

মুসআব বিন সাদ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি তাহাঁর পিতা থেকে বর্ণনা করেন। তিনি বলেন, আমার সম্বন্ধে চারটি আয়াত নাযিল হয়েছে। আমি একটি তলোয়ার পেলাম। এরপর সেটি নবী [সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম]-এর কাছে নিয়ে এসে বললাম, হে আল্লাহর রসূল! আপনি এটি আমাকে দান করুন। তিনি বললেনঃতুমি এটি রেখে দাও। তারপর আবার দাঁড়িয়ে বলিলেন, হে আল্লাহর রসূল! এটি আমাকে প্রদান করুন। তখনও তিনি বলিলেন, এটি যেখান থেকে নিয়েছো সেখানে রেখে দাও। তারপর তিনি আবার দাঁড়িয়ে বলিলেন, হে আল্লাহর রসূল! এটি আমাকে দিয়ে দিন। আমাকে কি সে ব্যক্তির মতো গণ্য করা হলো যার এটার দরকার নেই? নবী [সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম] বললেনঃ তুমি এটি যেখান থেকে নিয়েছ সেখানে রেখে দাও। এরপর এ আয়াত নাযিল হয়: [অর্থ] “তারা আপনাকে যুদ্ধলব্ধ দ্রব্যসম্ভার সম্পর্কে জিজ্ঞেস করে। আপনি বলুন, যুদ্ধলব্ধ সম্পদ আল্লাহ ও রসূলের জন্য”…….। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৪০৭, ইসলামিক সেন্টার- ৪৪০৭]

৪৪৫০

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম] একদা একটি সেনাদল নাজদের দিকে পাঠান। আমিও তার মধ্যে ছিলাম। তাঁরা সেখানে অনেক উট গনীমাত হিসেবে লাভ করিলেন। প্রত্যেকের অংশে বারটি করে অথবা এগারটি করে উট পড়ল এবং প্রত্যেককেই একটি করে বাড়তি উট প্রদান করা হলো। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৪০৮, ইসলামিক সেন্টার- ৪৪০৮]

৪৪৫১

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রাসুলা্ল্লাহ [সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম] নাজদের দিকে একটি সেনাদল পাঠান এবং তাদের মধ্যে ইবনি উমর [রাদি.]-ও ছিলেন। যুদ্ধলব্দ সম্পদের বন্টনে তাদের ভাগে পড়ল বারটি করে উট। আর তা ছাড়া বাড়তি একটি করে উট দেয়া হলো। আর রসুলা্ল্লাহ [সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম] এরূপ বন্টন সমর্থন করলে পরিবর্তন করেননি। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৪০৯ , ইসলামিক সেন্টার- ৪৪০৯ ]

৪৪৫২

ইবনি উমর [ রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসুলা্ল্লাহ [সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম] নাজদের দিকে একটি সেনাদল প্রেরন করেন। আর আমিও এতে গিয়েছিলাম। আমরা বহু উট এবং ছাগল পেলাম। আমাদের প্রত্যেক জনের ভাগে বারটি করে উট পরল এবং রসুলা্ল্লাহ [সাঃআঃ] প্রত্যেককে আরো একটি করে অতিরিক্ত উট প্রদান করিলেন। [ ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৪১০, ইসলামিক সেন্টার- ৪৪১০]

৪৪৫৩

উবাইদুল্লাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

উবাইদুল্লাহ [রাদি.] থেকে উল্লেখিত হাদীসের অনুরূপ সানাদে হাদীস বর্ণনা করেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৪১১, ইসলামিক সেন্টার- ৪৪১১]

৪৪৫৪

ইবনি আওন [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি নফল সম্পর্কে জানতে চেয়ে নাফি [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]-এর কাছে লিখলাম। তিনি উত্তরে আমাকে লিখলেন যে, ইবনি উমর [রাদি.] একটি সেনাদলে ছিলেন। ইবনি রাফি ও হারুন ইবনি সাঈদ আঈলি [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] তারা সকলেই নাফি [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]- এর সূত্রে উক্ত সানাদে অনুরূপ হাদীস বর্ননা করেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৪১২, ইসলামিক সেন্টার- ৪৪১২]

৪৪৫৫

সালিম তাহাঁর পিতা হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম] আমাদের অংশ পঞ্চমাংশ ছাড়াও বাড়তি দান করিলেন। অতএব আমাদের ভাগে একটি শারিফ মিললো। শারিফ মানে বড় ধরনের বয়স্ক উট। [ই.ফা.৪৪১৩, ইসলামিক সেন্টার- ৪৪১৩]

৪৪৫৬

ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম] ক্ষুদ্র সেনাদলের মাঝে যুদ্ধলব্ধ মালামাল বন্টণের ব্যাপারে ইবনি উমর থেকে আমার নিকট ইবনি রাজা কতৃক বর্ণিত হাদীসের মতো একটি হাদীস এসেছে। [ ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৪১৪, ইসলামিক সেন্টার- ৪৪১৪]

৪৪৫৭

আবদুল্লাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] ক্ষুদ্র সেনাদলে যেসব সৈনিককে প্রেরণ করিতেন, তাদের কোন কোন সময় সাধারন সৈনিকদের অংশের চেয়েও কিছু অতিরিক্ত বিশেষভাবে প্রদান করিতেন। আর সকল অর্জিত গনীমাতের মালের উপরেই এক পঞ্চমাংশ বের করা ওয়াজিব। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৪১৫, ইসলামিক সেন্টার- ৪৪১৫ ]

By মুসলিম শরীফ

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Leave a Reply