গনীমত সম্পদ দ্বারা মুহাজিরগণ অভাবমুক্ত হওয়ায় আনসার কর্তৃক প্রদত্ত

গনীমত সম্পদ দ্বারা মুহাজিরগণ অভাবমুক্ত হওয়ায় আনসার কর্তৃক প্রদত্ত

গনীমত সম্পদ দ্বারা মুহাজিরগণ অভাবমুক্ত হওয়ায় আনসার কর্তৃক প্রদত্ত. >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

২৪. অধ্যায়ঃ গনীমত সম্পদ দ্বারা মুহাজিরগণ অভাবমুক্ত হওয়ায় আনসার কর্তৃক প্রদত্ত গাছ ও ফলমূলের বাগানসমূহ তাদেরকে ফেরত দেয়া

৪৪৯৪

আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, যখন মুহাজিরগণ মক্কা থেকে মাদীনায় প্রবেশ করেন তখন কোন কিছুই তাদের হাতে ছিল না। [তাঁরা ছিলেন তখন সম্পূর্ণ নিঃস্ব] আর আনসারগণ ছিলেন জমা-জমির স্বত্বাধিকারী। তখন আনসারগণ মুহাজিরদেরকে তাদের খেজুর বাগানের অর্ধেক এ শর্তে ভাগ করে দেন যে, প্রতি বছর বাগানে মুহাজিরগণ পরিশ্রম ও পরিচর্যা করে উৎপাদিত ফসলের অর্ধেক তাদেরকে দেবেন। আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] -এর মাতা উম্মু সুলায়ম, তিনি আবদুল্লাহ ইবনি আবু তালহার মাতা ছিলেন। আর আবদুল্লাহ ছিলেন আনাসের বৈপিত্রেয় ভাই। আনাসের মাতা রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে তাহাঁর একটি খেজুর গাছ দান করেন এবং রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] সেটা দিলেন তাহাঁর আযাদকৃত দাসী উম্মু আইমানকে যিনি উসামাহ্‌ ইবনি যায়দের মাতা ছিলেন।

ইবনি শিহাব [রাদি.] বলেন, আমাকে আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] খবর দিয়েছেন যে, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] যখন খাইবারের যুদ্ধ শেষে মাদীনায় প্রত্যাবর্তন করিলেন তখন মুহাজিরগণ আনসারদেরকে তাদের দানকৃত ফলের বাগানসমূহ ফিরিয়ে দেন। তখন রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-ও আমার মাতাকে তাহাঁর দানকৃত বাগান ফেরত দেন এবং রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] উম্মু আইমানকে তার পরিবর্তে নিজের বাগানের এক অংশ প্রদান করেন।

ইবনি শিহাব [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বলেন যে উম্মু আইমান- যিনি উসামাহ্‌ ইবনি যায়দের মাতা ছিলেন, তিনি আব্দুল্লাহ ইবনি আবদুল মুত্তালিবের দাসী ছিলেন। রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -এর পিতার ইন্তিকালের পর আমিনাহ্‌র গর্ভ হইতে যখন রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] ভূমিষ্ট হন তখন উম্মু আইমান তাঁকে বড় হওয়া পর্যন্ত লালন-পালন করেন। এরপর তিনি তাঁকে আযাদ করে দেন। পরবর্তীতে যায়দ ইবনি হারিসাহ্‌র সঙ্গে তাঁকে বিয়ে দিয়ে দেন। তিনি রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-এর ইন্তিকালের পাঁচ মাস পর ইন্তিকাল করেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৪৫১, ইসলামিক সেন্টার- ৪৪৫৩]

৪৪৯৫

আনাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

[যখন রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] মাদীনায় আগমন করেন] তখন এক এক ব্যক্তি রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে নিজ ভূমির কিছু খেজুর দান করেন। যখন বানূ কুরাইযাহ্‌ এবং বানূ নাযীর গোত্রদ্বয়ের উপর [মুসলিমগণ] বিজয়ী হলেন, তখন সে ব্যক্তি যা দিয়েছিল তিনি তা ফিরিয়ে দিলেন। আনাস [রাদি.] বলেন, আমার পরিবারের লোকজন রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে যা দিয়েছিলেন তা অথবা তার অংশবিশেষ তাহাঁর নিকট হইতে চেয়ে নিয়ে আসার জন্য নির্দেশ দিলেন। অথচ নবী [সাঃআঃ] উম্মু আইমানকে তা দিয়ে দিয়েছিলেন। এ অবস্থায় আমি তাহাঁর কাছে এসে যখন তা চাইলাম, তখন তিনি তা আমাকে দিয়ে দিলেন। এ সময় উম্মু আইমান [রাদি.] সেখানে এলেন এবং আমার গলায় কাপড় দিয়ে জড়িয়ে ধরলেন ও বলিলেন, আল্লাহর কসম! আমি তোমাকে তা দেবো না। তখন নবী [সাঃআঃ] বললেনঃ হে উম্মু আইমান! আপনি তাকে ছেড়ে দিন। আমি আপনাকে এই এই সম্পদ দিচ্ছি। তখন তিনি বলিলেন, কক্ষনো না। সেই আল্লাহর শপথ! যিনি ব্যাতীত আর কোন ইলাহ নেই। তখনও নবী [সাঃআঃ] বলছিলেন, আপনাকে এই এই সম্পদ প্রদান করছি [আপনি তাকে ছেড়ে দিন]। পরিশেষে নবী [সাঃআঃ] উম্মু আইমানকে ঐ সম্পদের দশগুণ কিংবা দশগুণের কাছাকাছি প্রদান করেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৪৫২, ইসলামিক সেন্টার- ৪৪৫৪]

By মুসলিম শরীফ

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Leave a Reply