কবরের উপর মসজিদ নির্মাণ , মাসজিদে ছবি বানানো…

কবরের উপর মসজিদ নির্মাণ , মাসজিদে ছবি বানানো

কবরের উপর মসজিদ নির্মাণ , মাসজিদে ছবি বানানো >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

৩. অধ্যায়ঃ কবরের উপর মসজিদ নির্মাণ , মাসজিদে ছবি বানানো, কবরকে সাজদার স্থান নির্ধারণ করার প্রতি নিষেধাজ্ঞা

১০৬৮

আয়িশাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

উম্মু হাবীবাহ্ ও উম্মু সালামাহ্ [রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -এর দু স্ত্রী] রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -এর কাছে এমন একটি গীর্জার বর্ণনা দিলো যার মধ্যে মূর্তি বা ছবি যা তারা হাবশায় দেখেছিলেন। তাদের কথা শুনে রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলিলেন, তারা এরূপই করে থাকে। তাদের মধ্যেকার কোন নেক লোক মারা গেলে তারা তার কবরের উপর মসজিদ নির্মাণ করে এবং তার মধ্যে ছবি বা মূর্তি স্থাপন করে। ক্বিয়ামাতের দিন এরা হইবে আল্লাহর কাছে সর্বাপেক্ষা নিকৃষ্ট সৃষ্টি। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১০৬২, ইসলামিক সেন্টার- ১০৭০]

১০৬৯

আয়িশাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

[তিনি বলেছেনঃ ] রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] যখন পীড়িত তখন সাহাবীগণ তাহাঁর কাছে কাথা-বার্তা বলিলেন। তখন উম্মু সালামাহ্ ও উম্মু হাবীবাহ্ গীর্জার কথা বর্ণনা করিলেন। এরপর বর্ণনাকারী হাদীসটিতে পূর্বে বর্ণিত হাদীসের অনুরূপ বিষয়বস্তু বর্ণনা করিলেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১০৬৩, ইসলামিক সেন্টার- ১০৭১]

১০৭০

আয়িশাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, নবী [সাঃআঃ] -এর স্ত্রীগণ আবিসিনিয়ায় [যা বর্তমানে ইথিওপিয়া] মারিয়াহ্ নামক যে এক রকম গীর্জা দেখেছিলেন তার আলোচনা করিলেন। এ পর্যন্ত বর্ণনা করার পর বর্ণনাকারী হাদীসটির অবশিষ্টাংশ পূর্বোক্ত হাদীসের অনুরূপ বর্ণনা করিলেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১০৬৪ ইসলামিক সেন্টার- ১০৭২]

১০৭১

আয়িশাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] তাহাঁর রোগ-শয্যায় বলেছিলেন, আল্লাহ ইয়াহূদ ও নাসারাদের [খৃস্টানদের] প্রতি লানাত বর্ষণ করুন। কারণ তারা তাদের নবীদের কবরকে মসজিদ বা সাজদার স্থান করে নিয়েছেন। আয়িশা [রাদি.] বলেছেনঃ যদি এরূপ করার আশঙ্কা না থাকতো তাহলে তাকে উন্মুক্ত স্থানে কবর দেয়া হত।

কিন্তু যেহেতু তিনি আশংকা করিতেন যে, তাহাঁর কবরকে মসজিদ বা সাজদার স্থান করা হইতে পারে তাই উন্মুক্ত স্থানে কবর করিতে দেননি। বরং আয়েশাহ [রাদি.] -এর কক্ষে তাহাঁর কবর করা হয়েছে।

তবে ইবনি আবু শায়বাহ্-এর বর্ণিত হাদীসে [আরবি] স্থানে [আরবি] কথাটি বর্ণনা করা হয়েছে। আর তিনি ক্বালাত শব্দটি বর্ণনা করেননি। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১০৬৫ ইসলামিক সেন্টার- ১০৭৩]

১০৭২

আবু হুরায়রাহ্ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ আল্লাহ ইয়াহূদদের ধ্বংস করুন। তারা তাদের নবীদের কবরকে মসজিদ বা সাজদার স্থান বানিয়ে নিয়েছে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১০৬৬, ইসলামিক সেন্টার- ১০৭৪]

১০৭৩

আবু হুরায়রা [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ আল্লাহ ইয়াহূদ ও নাসারাদের [খৃষ্টানদের] ওপর অভিসম্পাত বর্ষণ করুন। কারণ তারা তাদের নবীদের কবরসমূহকে মসজিদ বা সাজদার স্থান করে নিয়েছে। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১০৬৭, ইসলামিক সেন্টার- ১০৭৫]

১০৭৪

আয়িশাহ্ ও আবদুল্লাহ ইবনি আব্বাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তারা উভয়েই বর্ণনা করিয়াছেন যে, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -এর ওয়াফাতের সময় ঘনিয়ে আসলে তিনি চাদর টেনে টেনে মুখমন্ডলের উপর দিচ্ছিলেন। কিন্তু আবার যখন অস্বস্তিবোধ করছিলেন তখন তা সরিয়ে দিচ্ছিলেন। এ অবস্থায় তিনি বলছিলেন ইয়াহূদ [ইয়াহূদী] ও নাসারাদের [খৃষ্টানদের] ওপর আল্লাহর অভিসম্পাত বর্ষিত হোক। তারা তাদের নবীদের কবরসমূহকে মসজিদ বা সাজদার স্থান করে নিয়েছে [অর্থাৎ-সেখানে তারা সাজদাহ্ করে]। আর ইয়াহূদ ও নাসারাদের মতো না করিতে তিনি [সাঃআঃ] বার বার হুঁশিয়ার করে দিচ্ছিলেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১০৬৮, ইসলামিক সেন্টার- ১০৭৬]

১০৭৫

জুনদুব [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] -এর মৃত্যুর পাঁচদিন পূর্বে তাঁকে বলিতে শুনেছি যে, তোমাদের মধ্যে থেকে আমার কোন খলীল বা একান্ত বন্ধু থাকার ব্যাপারে আমি আল্লাহর কাছে মুক্ত। কারণ মহান আল্লাহ ইব্রাহীমকে যেমন খলীল বা একান্ত বন্ধু হিসেবে গ্রহণ করিয়াছেন, সে রকমভাবে আমাকেও খলীল বা একান্ত বন্ধু হিসেবে গ্রহণ করিয়াছেন। আমি আমার উম্মাতের মধ্যে থেকে কাউকে খলীল বা একান্ত বন্ধু হিসেবে গ্রহণ করিতে চাইলে আবু বকরকেই তা করতাম। সাবধান থেকো তোমাদের পূর্বের যুগের লোকেরা তাদের নবী ও নেককার লোকদের কবরসমূহকে মসজিদ [সাজদার স্থান] হিসেবে গ্রহণ করত। সাবধান তোমরা কবরসমূহকে সাজদার স্থান বানাবে না। আমি এরূপ করিতে তোমাদেরকে নিষেধ করে যাচ্ছি। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১০৬৯, ইসলামিক সেন্টার- ১০৭৭]

By বুলূগুল মারাম

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। তবে আমরা রাজনৈতিক পরিপন্থী কোন মন্তব্য/ লেখা প্রকাশ করি না। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই লেখাগুলো ফেসবুক এ শেয়ার করুন, আমল করুন

Leave a Reply