উরুদ্বয়ের উপর দুহাত স্থাপন করার নিয়ম পদ্ধতি

উরুদ্বয়ের উপর দুহাত স্থাপন করার নিয়ম পদ্ধতি

উরুদ্বয়ের উপর দুহাত স্থাপন করার নিয়ম পদ্ধতি >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

২১. অধ্যায়ঃ নামাজে উপবিষ্ট হওয়া ও উরুদ্বয়ের উপর দুহাত স্থাপন করার নিয়ম পদ্ধতি

১১৯৪

আবদুল্লাহ ইবনি যুবায়র [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, নামাজ আদায়ের সময় রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] যখন বৈঠক করিতেন তখন বাঁ পাটি [ডান পায়ের] উরু ও নলার মধ্যে স্থাপন করিতেন, ডান পাটি বিছিয়ে দিতেন, আর বাঁ হাতটি বাঁ হাঁটুর উপর এবং ডান হাতটি ডান উরুর উপর স্থাপন করিতেন। আর আঙ্গুল দিয়ে ইশারা করিতেন। [ই.ফা.১১৮৩, ইসলামিক সেন্টার- ১১৯৫]

১১৯৫

আবদুল্লাহ ইবনি যুবায়র [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] যখন দুআ করার জন্য বসতেন তখন ডান হাতটি ডান উরুর উপর এবং বাঁ হাতটি বাঁ উরুর উপর রাখতেন। আর শাহাদাত আঙ্গুল দ্বারা ইশারা করিতেন। এ সময় তিনি বৃদ্ধাঙ্গুলি মধ্যমার সাথে সংযুক্ত করিতেন এবং বাঁ হাতের তালু [বাঁ] হাঁটুর উপর রাখতেন। [ই.ফা.১১৮৪, ইসলামিক সেন্টার- ১১৯৬]

১১৯৬

আবদুল্লাহ ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, নবী [সাঃআঃ] নামাজ আদায়ের সময় যখন বসতেন [বৈঠক করিতেন] তখন দুহাত দু হাঁটুর উপর রাখতেন। আর ডান হাতের বৃদ্ধাঙ্গুলির পার্শ্ববর্তী [শাহাদাত] আঙ্গুল উঠিয়ে ইশারা করিতেন এবং বাঁ হাত বাঁ হাঁটুর উপর ছড়িয়ে রাখতেন। [ই.ফা.১১৮৫, ইসলামিক সেন্টার- ১১৯৭]

১১৯৭

আবদুল্লাহ ইবনি উমর [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] নামাজের মধ্যে তাশাহ্‌হুদ পড়তে যখন বসতেন তখন বাঁ হাতটি বাঁ হাঁটুর উপর এবং ডান হাত ডান হাঁটুর উপর রাখতেন। আর [হাতের তালু ও আঙ্গুলসমূহ গুটিয়ে আরবী] তিপ্পান্ন সংখ্যার মতো করে শাহাদাত আঙ্গুল দ্বারা ইশারা করিতেন। {১} [ই,ফা, ১১৮৬, ই,সে, ১১৯৮]

{১}হাদীসের তিপ্পান্ন সংখ্যার উদ্দেশ্য বর্ণনায় আবদুল হাক মুহাদ্দিস দেহলভী [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] বলেন, তার পদ্ধতি হলোঃ ডান হাতের মধ্যমা, অনামিকা ও শেষের কনিষ্ঠাঙ্গুলি- এ তিনটি মুষ্টিবদ্ধ করা হইবে; অতঃপর শাহাদাত অঙ্গুলি [তর্জনী] – কে খুলে রেখে বৃদ্ধাঙ্গুলি দ্বারা শাহাদাত অঙ্গুলির মাঝ বরাবর ধরা হইবে। এ চিত্রটা দেখিতে আরবী তিপ্পান্ন [৫৩] – এর মতো হয়। [শারহে মুসলিম- ২১৬ পৃষ্ঠা, পার্শ্বটীকা- ২]

১১৯৮

আলী ইবনি আবদুর রহ্‌মান আল্‌ মুআবী [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেছেনঃ আবদুল্লাহ ইবনি উমর [রাদি.] আমাকে দেখলেন যে, আমি নামাজের অবস্থায় ছোট ছোট পাথর টুকরা নিয়ে অনর্থকভাবে নড়াচড়া করছি। নামাজ শেষ করে তিনি আমাকে এরূপ কাজ করিতে নিষেধ করে বললেনঃ রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] যেরূপ করিতেন তুমিও তাই করিবে। আমি তখন জিজ্ঞেস করলামঃ রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] নামাজরত অবস্থায় কী করিতেন? তিনি [আলী ইবনি আবদুর রহ্‌মান আল মুআবী] বললেনঃ তিনি [সাঃআঃ] নামাজে যখন বৈঠক করিতেন তখন ডান হাতের তালু ডান উরুর উপর রেখে আঙ্গুলগুলো গুটিয়ে শুধু বৃদ্ধাঙ্গুলির পার্শ্ববর্তী [শাহাদাত] আঙ্গুল দ্বারা ইশারা করিতেন। আর বাঁ হাতের তালু বাঁ উরুর উপর স্থাপন করিতেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১১৮৭, ইসলামিক সেন্টার- ১১৯৯]

১১৯৯

আলী ইবনি আবদুর রহমান আল মুআবী [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আমি আবদুল্লাহ ইবনি উমারের পাশে দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করছি। এরপর তিনি মালিক বর্ণিত হাদীসের অনুরূপ হাদীস বর্ণনা করিলেন। তবে তার বর্ণনায় এতটুকু কথা অতিরিক্ত আছে যে, ইয়াহ্‌ইয়া ইবনি সাঈদ মুসলিমের নিকট হাদীস বর্ণনা করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১১৮৮, ইসলামিক সেন্টার- ১২০০]

By বুলূগুল মারাম

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। তবে আমরা রাজনৈতিক পরিপন্থী কোন মন্তব্য/ লেখা প্রকাশ করি না। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই লেখাগুলো ফেসবুক এ শেয়ার করুন, আমল করুন

Leave a Reply