রমাযান মাসের উমরার ফযিলত

রমাযান মাসের উমরার ফযিলত

রমাযান মাসের উমরার ফযিলত >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

৩৬. অধ্যায়ঃ রমাযান মাসের উমরার ফযিলত

২৯২৮

ইবনি আব্বাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] এক আনসারী মহিলাকে বলিলেন যার নাম ইবনি আব্বাস [রাদি.] উল্লেখ করেছিলেন কিন্তু আমি তার নাম ভুলে গেছি- আমাদের সাথে হজ্জ করিতে তোমাকে কিসে বাধা দিল? মহিলা বলিল, আমাদের পানি বহনকারী মাত্র দুটি উট আছে। আমার ছেলের বাপ [স্বামী] ও তার ছেলে এর একটিতে চড়ে হজ্জ করেন এবং অপরটি আমাদের জন্য রেখে যান পানি বহনের উদ্দেশে। তিনি বলিলেন, রমাযান মাস এলে তুমি উমরাহ্‌ কর। কারণ এ মাসের উমরাহ্‌ একটা হজ্জের সমান। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৯০৪, ইসলামিক সেন্টার- ২৯০৩]

২৯২৯

ইবনি আব্বাস [রাদি. হইতে বর্ণীতঃ

নবী [সাঃআঃ] উম্মু সিনান নাম্নী এক আনসারী মহিলাকে বললেনঃ আমাদের সাথে হজ্জ করিতে তোমাকে কিসে বাধা দিল? মহিলা বলিল, অমুকের পিতা- তার স্বামীর দুটি পানি বহনকারী উট আছে। এর একটি নিয়ে সে ও তার ছেলে হাজ্জে গিয়েছে। অপরটির সাহায্যে আমাদের গোলাম পানি বহন করছে। রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলিলেন, তাহলে রমাযান মাসের উমরাহ্ হজ্জের সমান কিংবা তিনি বলেছেন, আমাদের সঙ্গে একটি হজ্জের সমান। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ২৯০৫, ইসলামিক সেন্টার- ২৯০৪]

By বুলূগুল মারাম

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। তবে আমরা রাজনৈতিক পরিপন্থী কোন মন্তব্য/ লেখা প্রকাশ করি না। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই লেখাগুলো ফেসবুক এ শেয়ার করুন, আমল করুন

Leave a Reply