নতুন লেখা

ঈমানের গুনে ইয়ামানবাসী রা অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত

ঈমানের গুনে ইয়ামানবাসী রা অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত

ঈমানের গুনে ইয়ামানবাসী রা অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

২১. অধ্যায়ঃ মুমিনদের মধ্যে একে অপরের চাইতে ঈমানের গুনে প্রাধান্য থাকা এবং এ বিষয়ে ইয়ামানবাসী রা অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত

৮৫

আবু মাসুদ [রাঃআ:] হইতে বর্ণিতঃ

নবি [সাঃআ:] তাহাঁর হাত দিয়ে ইয়ামানের দিকে ইশারা করে বলিলেন, জেনে রাখো, ঈমান সেখানেই। কঠোর ও পাষাণ হৃদয় হচ্ছে শয়তানের দুই শিংয়ের মধ্যে বসবাসকারী সে সব লোক যারা উটের লেজের গোড়া থেকে চীৎকার দিয়ে থাকে, অর্থাৎ রাবীআহ্‌ ও মুযারা গোত্র। [ই.ফা. ৮৭; ই.সে. ৮৯]

হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

৮৬

আবু হুরাইরাহ [রাঃআ:] হইতে বর্ণিতঃ

রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] বলেছেন, ইয়ামানের অধিবাসীরা এসেছে; তাহাদের হৃদয় বড়ই কোমল। ঈমান রয়েছে ইয়ামানবাসীদের মধ্যে, ধর্মীয় গভীর জ্ঞান রয়েছে ইয়ামানবাসীদের মধ্যে এবং হিকমাত রয়েছে ইয়ামানবাসীদের মধ্যে। [ই.ফা. ৮৮; ই.সে. ৯০]

হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

৮৭

আবু হুরাইরাহ [রাঃআ:] হইতে বর্ণিতঃ

রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] বলেছেন, পরবর্তী অংশ উপরোক্ত হাদিসের মতোই। [ই.ফা. ৮৯; ই.সে. ৯১]

হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

৮৮

আবু হুরাইরাহ [রাঃআ:] হইতে বর্ণিতঃ

রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] বলেছেনঃ তোমাদের নিকট ইয়ামানবাসীরা এসেছে। তারা নম্রচিত্ত ও কোমল হৃদয়ের অধিকারী। ধর্মীয় গভীর জ্ঞান ইয়ামানবাসীদের মধ্যে এবং হিকমাতও ইয়ামানবাসীদের মধ্যে রয়েছে। {৩০} [ই.ফা. ৯০; ই.সে. ৯২]

{৩০} উল্লিখিত হাদীসে ﻭاﻠﺤﻜﺔ اﻠﻔﻘﻪ [আল ফিক্‌হ ওয়াল হিকমাহ্‌] অর্থাৎ জ্ঞান ও প্রজ্ঞাকে ইয়ামানের দিকে সম্পৃক্ত করা হয়েছে।

হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

৮৯

আবু হুরাইরাহ [রাঃআ:] হইতে বর্ণিতঃ

রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] বলেছেন, কুফ্‌রের মূল উৎস হচ্ছে পূর্ব দিকে। অহংকার ও দাম্ভিকতা রয়েছে উচ্চৈঃস্বরে চিৎকারকারী পশুপালক ঘোড়া ও উট ওয়ালাদের মধ্যে। আর নম্রতা রয়েছে বকরীওয়ালাদের মধ্যে। {৩১} [ই.ফা. ৯১; ই.সে. ৯৩]

{৩১} প্রকৃত “ফাদ্দাদিন” হাদিসে শব্দের বিভিন্ন রকম অর্থ হয়ে থাকে। যেমন কেউ বলেন, গাই গরু যার দ্বারা জমিন আবাদ করা হয়। কেউ এ অর্থ অস্বীকার করেও বলেন যে, উচ্চৈঃস্বরে চিৎকার করে প্রকৃতপক্ষে উট ঘোড়াওয়ালা স্বাভাবিকভাবে চিল্লাচিল্লি করে থাকে। আর “আবার” উটের পশমকেও বলা হয়। আর নম্রতা বকরীওয়ালাদের মধ্যে, এজন্য বকরী চরানোর মাধ্যমে নবিদের মন মেজাজে নম্রতার শিক্ষা দেয়া হয়েছে।

হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

৯০

আবু হুরাইরাহ [রাঃআ:] হইতে বর্ণিতঃ

রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] বলেছেন, ঈমানের উৎস হচ্ছে ইয়ামানবাসীদের মধ্যে, আর কুফ্‌রের উৎস হচ্ছে পূর্ব দিকে এবং নম্রতা বকরীওয়ালাদের মধ্যে। আর অহংকার ও রিয়া চিৎকারকারী ঘোড়া ও উট পালকদের মধ্যে। [ই.ফা. ৯২; ই.সে. ৯৪]

হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

৯১

আবু হুরাইরাহ [রাঃআ:] হইতে বর্ণিতঃ

আমি রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:]-কে বলিতে শুনিয়াছি যে, অহংকার ও দাম্ভিকতা চিৎকারকারী উট পালকদের মধ্যে এবং নম্রতা বকরীওয়ালাদের মধ্যে। [ই.ফা. ৯৩; ই.সে. ৯৫]

এখানে ইয়ামান দ্বারা কি উদ্দেশ্য এ সম্পর্কে বিভিন্ন মতামত রয়েছে। কাজী আয়ায সকল মতামতকে সমন্বয় করিয়াছেন। তন্মধ্যে একটি মতামত হচ্ছে এখানে ইয়ামান দ্বারা মাক্কাহ্‌ নগরীকে বুঝানো হয়েছে। দ্বিতীয় মতামত হচ্ছে, এর দ্বারা মাক্কাহ্‌ ও মাদীনাহ্‌ উভয় স্থানকে বুঝানো হয়েছে। বর্ণিত আছে যে, নবি [সাঃআ:] যখন এ কথাটি বলেছিলেন তখন তিনি তাবূকে অবস্থা করছিলেন। তখন মাক্কাহ্‌ ও মাদীনাহ্‌ নবি [সাঃআ:] ও ইয়ামানের মধ্যখানে ছিল। তাই নবি [সাঃআ:] মাক্কাহ্‌ ও মাদীনাকে বুঝাতে গিয়ে ইয়ামানের দিকে ইঙ্গিত করিয়াছেন যেমন কাবা ঘরের যে কোন্‌টি ইয়ামানের দিকে অবস্থিত তাকে বুঝানোর জন্য রুকনে ইয়ামানী বলা হয়। [শারহুন্‌ নাবাবী আলা মুসলিম, ২য় খণ্ড, পৃষ্ঠা ৩২]

হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

৯২

যুহরী [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণিতঃ

উপরোক্ত সূত্রে অবিকল বর্ণনা করেন। তবে এতে এ বাক্য অতিরিক্ত রয়েছে “ঈমান ইয়ামানবাসীদের মধ্যে এবং হিকমাত ইয়ামানবাসীদের মধ্যে”। [ই.ফা. ৯৪; ই.সে. ৯৬]

হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

৯৩

আবু হুরাইরাহ [রাঃআ:] হইতে বর্ণিতঃ

তিনি বলেন, নবি [সাঃআ:] বলেছেনঃ তোমাদের নিকট ইয়ামানের লোকেরা উপস্থিত হয়েছে। তারা নম্রচিত্ত ও কোমল হৃদয়ের অধিকারী। ঈমান ইয়ামানীদের মধ্যে এবং হিকমাত ইয়ামানীদের। নম্রতা বকরীওয়ালাদের মধ্যে এবং অহংকার ও দাম্ভিকতা, চিৎকারকারী উট পালকের মধ্যে, যাদের অবস্থান সূর্যোদয়ের দিকে। [ই.ফা. ৯৫; ই.সে. ৯৭]

হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

৯৪

আবু হুরাইরাহ [রাঃআ:] হইতে বর্ণিতঃ

রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] বলেছেনঃ তোমাদের নিকট ইয়ামানের লোকেরা উপস্থিত হয়েছে। তারা নম্রচিত্ত ও কোমল হৃদয়ের অধিকারী। ঈমান ইয়ামানীদের মধ্যে এবং হিকমাত ইয়ামানীদের। আর কুফ্‌রের উৎস হচ্ছে পূর্ব দিকে। [ই.ফা. ৯৬; ই.সে. ৯৮]

হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

৯৫

আমাশ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি]-এর সূত্রে হইতে বর্ণিতঃ

এ সানাদেই অনুরূপ হাদীস বর্ণনা করিয়াছেন। তবে তাহাঁর বর্ণনায় কুফ্‌রের উৎস রয়েছে পূর্ব দিকে কথাটি উল্লেখ করেননি। [ই.ফা. ৯৭; ই.সে. ৯৯]

হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

৯৬

মুহাম্মাদ ইবনি আল মুসান্না ও বিশ্‌র ইবনি খালিদ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণিতঃ

এ সানাদে জারীর [রাঃআ:] বর্ণিত হাদিসের অনুরূপ বর্ণনা করিয়াছেন। তবে এতে বর্ণনাকারী শুবাহ্‌, অতিরিক্ত বর্ণনা করিয়াছেন অহংকার ও দাম্ভিকতা উট মালিকদের মধ্যে, আর নম্রতা ও গাম্ভীর্য বকরীর মালিকদের মধ্যে। [ই.ফা. ৯৮; ই.সে. ১০০]

হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

৯৭

জাবির ইবনি আবদুল্লাহ [রাঃআ:] হইতে বর্ণিতঃ

রসূলুল্লাহ্‌ [সাঃআ:] বলেছেন, মনের কঠোরতা ও অন্তরের নিষ্ঠুরতা পূর্ব দিকের মানুষের মধ্যে আর ঈমান হিজাযবাসীদের মধ্যে। [ই.ফা. ৯৯; ই.সে. ১০১]

হাদিসের তাহকিকঃ সহিহ হাদিস

About halalbajar.com

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Check Also

মহান আল্লাহর বাণী : “তারা দুটি বিবদমান পক্ষ তাদের প্রতিপালক সম্পর্কে বাক-বিতণ্ডা করে”

মহান আল্লাহর বাণী : “তারা দুটি বিবদমান পক্ষ তাদের প্রতিপালক সম্পর্কে বাক-বিতণ্ডা করে” মহান আল্লাহর …

Leave a Reply

%d bloggers like this: