নতুন লেখা

ইফতার করার সঠিক নিয়ম এবং সায়িমের জন্য কখন ইফতার করা বৈধ

ইফতার করার সঠিক নিয়ম এবং সায়িমের জন্য কখন ইফতার করা বৈধ

ইফতার করার সঠিক নিয়ম এবং সায়িমের জন্য কখন ইফতার করা বৈধ >> বুখারী শরীফ এর মুল সুচিপত্র পড়ুন

পর্বঃ ৩০, সাওম, অধ্যায়ঃ (৪৩-৪৬)=৪টি

৩০/৪৩. অধ্যায়ঃ সায়িমের জন্য কখন ইফতার করা বৈধ ।
৩০/৪৪. অধ্যায়ঃ পানি বা অন্য কিছু যা সহজলভ্য তদ্বারা ইফতার করিবে ।
৩০/৪৫. অধ্যায়ঃ শীঘ্র ইফতার করা
৩০/৪৬. অধ্যায়ঃ রমযানে ইফতারের পরে যদি সূর্য (আবার) দেখা যায় ।

৩০/৪৩. অধ্যায়ঃ সায়িমের জন্য কখন ইফতার করা বৈধ ।

সূর্যের গোলাকার বৃত্ত অদৃশ্য হওয়ার সাথে সাথেই আবু সাঈদ খুদরী (রাদি.) ইফতার করিতেন ।

১৯৫৪. উমার ইবনু খাত্তাব (রাদি.) হইতে বর্ণিতঃ

তিনি বলেন, আল্লাহর রাসুল (সাঃআঃ) বলেছেনঃ যখন রাত্র সে দিক হইতে ঘনিয়ে আসে ও দিন এ দিক হইতে চলে যায় এবং সূর্য ডুবে যায়, তখন সায়িম ইফতার করিবে।

১৯৫৫. আবদুল্লাহ ইবনু আবু আওফা (রাদি.) হইতে বর্ণিতঃ

তিনি বলেন, কোন এক সফরে আমরা আল্লাহর রাসুল (সাঃআঃ)-এর সাথে ছিলাম। আর তিনি ছিলেন সওমের অবস্থায়। যখন সূর্য ডুবে গেল তখন তিনি দলের কাউকে বললেনঃ হে অমুক! উঠ। আমাদের জন্য ছাতু গুলে আন। সে বলিল, সন্ধ্যা হলে ভাল হতো। তিনি বললেনঃনেমে যাও এবং আমাদের জন্য ছাতু গুলে আন। সে বলিল, হে আল্লাহর রাসুল! সন্ধ্যা হলে ভাল হতো। তিনি বললেনঃ নেমে যাও এবং আমাদের জন্য ছাতু গুলে আন। সে বলিল, দিন তো এখনো রয়ে গেছে। তিনি বললেনঃ তুমি নামো এবং আমাদের জন্য ছাতু গুলে আন। অতঃপর সে নামল এবং তাঁদের জন্য ছাতু গুলে আনল। আল্লাহর রাসুল (সাঃআঃ) তা পান করিলেন, অতঃপর বললেনঃ যখন তোমরা দেখবে, রাত একদিক হইতে ঘনিয়ে আসছে, তখন সাওম পালনকারী ইফতার করিবে।

৩০/৪৪. অধ্যায়ঃ পানি বা অন্য কিছু যা সহজলভ্য তদ্বারা ইফতার করিবে ।

১৯৫৬. আবদুল্লাহ ইবনু আবু আওফা (রাদি.) হইতে বর্ণিতঃ

তিনি বলেন, আমরা আল্লাহর রাসুল (সাঃআঃ)-এর সঙ্গে রওয়ানা দিলাম এবং তিনি সাওমরত ছিলেন। সূর্য অস্ত যেতেই তিনি বললেনঃ তুমি সওয়ারী হইতে নেমে আমাদের জন্য ছাতু গুলে আন। তিনি বলিলেন, হে আল্লাহর রাসুল! আর একটু সন্ধ্যা হইতে দিন। তিনি বললেনঃ তুমি নেমে যাও এবং আমাদের জন্য ছাতু গুলে আন। তিনি বলিলেন, হে আল্লাহর রাসুল! এখনো তো আপনার সামনে দিন রহিয়াছে। আল্লাহর রাসুল (সাঃআঃ) বললেনঃ তুমি নেমে যাও এবং আমাদের জন্য ছাতু গুলে আন। অতঃপর তিনি সওয়ারী হইতে নামলেন এবং ছাতু গুলে আনলেন। এরপর আল্লাহর রাসুল (সাঃআঃ) আঙ্গুল দ্বারা পূর্বদিক ইঙ্গিত করে বললেনঃ যখন তোমরা দেখবে যে, রাত এদিক হইতে আসছে, তখনই সাওম পালনকারীর ইফতারের সময় হয়ে গেল।

৩০/৪৫. অধ্যায়ঃ শীঘ্র ইফতার করা

১৯৫৭. সাহল ইবনু সাদ (রাদি.) হইতে বর্ণিতঃ

আল্লাহর রাসুল (সাঃআঃ) বলেছেন: লোকেরা যতদিন শীঘ্র ইফতার করিবে [১], ততদিন তারা কল্যাণের উপর থাকবে।

[১] হাদীসে জলদি জলদি ইফতার করার জন্য খুব তাগিদ দেয়া হয়েছে। এর অর্থ হচ্ছে সূর্যাস্তের সঙ্গে সঙ্গে ইফতার করিতে হইবে। চোখে সূর্যাস্ত দেখে ইফতার করা যায় । সূর্যাস্ত দেখিতে না পাওয়া গেলে সূর্যাস্তের সময়সূচী বাংলাদেশ আবহাওয়া অফিস থেকে সংগ্রহ করা যায় । রেডিও ও টেলিভিশনে সূর্যাস্তের সময় ঘোষণা করা হয়, খবরের কাগজেও সূর্যাস্তের সময় লেখা হয় । আমাদের দেশে ইফতারের সময়সূচী প্রকাশ করা হয়-যেগুলিতে সূর্যাস্তের সময়ের সাথে ১ মিনিট বা ২ মিনিট বা ৫ মিনিট যোগ করে ইফতারের সময় বলে লেখা হয় । কিন্তু হাদীসে উল্লেখিত কল্যাণ লাভ করিতে চাইলে সূর্যাস্তের সময় জেনে নিয়ে সাথে সাথেই ইফতার করিতে হইবে । সূর্যাস্ত হয়ে গেলেও ইফতার না করে বসে বসে অন্ধকার করা ইহুদী ও নাসারাদের কাজ ।

(আবু দাউদ ২২৫৩, ইবনু মাজাহ ১৬৯৮)

১৯৫৮. ইবনু আবু আওফা (রাদি.) হইতে বর্ণিতঃ

তিনি বলেন, এক সফরে আমি নাবী (সাঃআঃ)-এর সঙ্গে ছিলাম। তিনি সন্ধ্যা পর্যন্ত সাওম পালন করেন। এরপর এক ব্যক্তিকে বললেনঃ সওয়ারী হইতে নেমে ছাতু গুলে আন। লোকটি বলিল, আপনি যদি (পূর্ণ সন্ধ্যা হওয়া পর্যন্ত) অপেক্ষা করিতেন। তিনি আল্লাহর রাসুল (সাঃআঃ) পুনরায় বললেনঃ নেমে আমার জন্য ছাতু গুলে আন। [তারপর আল্লাহর রাসুল (সাঃআঃ) বলিলেন] যখন তুমি এদিক (পূর্বদিক) হইতে রাত্রির আগমন দেখিতে পাবে তখন সাওম পালনকারী ইফতার করিবে।

৩০/৪৬. অধ্যায়ঃ রমযানে ইফতারের পরে যদি সূর্য (আবার) দেখা যায় ।

১৯৫৯. আসমা বিনত আবু বাকর (রাদি.) হইতে বর্ণিতঃ

তিনি বলেন, নাবী (সাঃআঃ)-এর যুগে একদা মেঘাচ্ছন্ন দিনে আমরা ইফতার করলাম, এরপর সূর্য দেখা যায়। বর্ণনাকারী হিশামকে জিজ্ঞেস করা হল, তাদের কি কাযা করার নির্দেশ দেয়া হয়েছিল? হিশাম (রহমাতুল্লাহি আলাইহি) বলিলেন, কাযা ব্যতীত উপায় কী? (অপর বর্ণনাকারী) মামার (রহমাতুল্লাহি আলাইহি) বলেন, আমি হিশামকে বলিতে শুনিয়াছি, তাঁরা কাযা করেছিলেন কি না তা আমি জানি না।

About halalbajar.com

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Check Also

চিকিৎসা বিষয়ক হাদিস, মধু, কালজিরা, চন্দন, শিঙং ও ঝাড়ফুঁক

চিকিৎসা বিষয়ক হাদিস, মধু, কালজিরা, চন্দন, শিঙং ও ঝাড়ফুঁক চিকিৎসা বিষয়ক হাদিস, মধু, কালজিরা, চন্দন, …

Leave a Reply

%d bloggers like this: