আযানের শব্দগুলো দুবার এবং ইকামতের শব্দগুলো একবার

আযানের শব্দগুলো দুবার এবং ইকামতের শব্দগুলো একবার

আযানের শব্দগুলো দুবার এবং ইকামতের শব্দগুলো একবার >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

২. অধ্যায়ঃ আযানের শব্দগুলো দুবার করে এবং ইকামতের শব্দগুলো একবার করে

৭২৪ : আনাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, বিলাল [রাদি.]-কে আযানের শব্দ জোড় সংখ্যায় এবং ইকামাতের শব্দ বেজোড় বলার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

ইয়াহ্‌ইয়া তার বর্ণনায় ইবনি উলাইয়্যাহ্‌-এর সূত্রে বলেছেন, তিনি আইয়ূব [রাদি.]-এর কাছে এ হাদীস বর্ণনা করলে তিনি বলিলেন, কিন্তু কাদ্‌কা- মাতিস্‌ সলা-হ্‌ শব্দটি ব্যতীত [এটি দুবার বলবে] বাকী শব্দগুলো একবার করে বলবে

[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৭২২, ইসলামিক সেন্টার-৭৩৭]

৭২৫ : আনাস ইবনি মালিক [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, [লোকেদের] নামাজের সময় জানানোর উদ্দেশে একটা কিছু নির্দিষ্ট করার জন্যে সহাবাগণ পরস্পর আলোচনা করিলেন। তাঁরা বলিলেন, আগুন জ্বালানো হোক অথবা নাকূস [ঘন্টা] বাজানো হোক। বিলালকে আযানের শব্দগুলো দুবার এবং ইকামাতের শব্দগুলো একবার করে উচ্চারণ করার নির্দেশ দেয়া হল।

[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৭২৩, ইসলামিক সেন্টার-৭৩৮]

৭২৬ :খালিদ আল হায্‌যা হইতে উল্লেখিত সূত্রে হইতে বর্ণীতঃ

যখন লোকসংখ্যা বেড়ে গেল, সহাবাগণ নামাজের সময় জানানোর একটি উপায় খুঁজে বের করার জন্যে পরস্পর আলোচনা করিলেন…… অতঃপর সাকাফী-এর হাদীসের অবিকল বর্ণনা করেন। এ বর্ণনায় [আরবি] শব্দের পরিবর্তে [আরবি] শব্দের উল্লেখ করা হয়েছে। [অর্থাৎ “আগুন জ্বালানো হোক” উভয় শব্দের অর্থ একই]।

[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৭২৪, ইসলামিক সেন্টার-৭৩৯]

৭২৭ : আনাস [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, বিলাল [রাদি.]-কে আযান জোড় সংখ্যায় এবং ইকামাত বেজোড় সংখ্যায় বলার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

[ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৭২৫, ইসলামিক সেন্টার-৭৪০]

By বুলূগুল মারাম

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। তবে আমরা রাজনৈতিক পরিপন্থী কোন মন্তব্য/ লেখা প্রকাশ করি না। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই লেখাগুলো ফেসবুক এ শেয়ার করুন, আমল করুন

Leave a Reply