আসর নামাজ এর পর নবী [সাঃ]এর পঠিত দু রাকআত নামাজ

আসর নামাজ এর পর নবী [সাঃআঃ]-এর পঠিত দু রাকআত নামাজ সম্পর্কে জ্ঞাতব্য

আসর নামাজ এর পর নবী [সাঃআঃ]-এর পঠিত দু রাকআত নামাজ সম্পর্কে জ্ঞাতব্য >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

২২. অধ্যায়ঃ আসর নামাজ এর পর নবী [সাঃআঃ]-এর পঠিত দু রাকআত নামাজ সম্পর্কে জ্ঞাতব্য

১৮১৮

কুরায়ব [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

আবদুল্লাহ ইবনি আব্বাস, আবদুর রহমান ইবনি আযহার ও মিস্‌ওয়ার ইবনি মাখরামাহ্‌ [রাদি.] প্রমুখ তাকে মহানবী [সাঃআঃ]-এর স্ত্রী আয়েশাহ [রাদি.]-এর নিকট পাঠালেন। তারা বলিলেন, তুমি তাকে {আয়েশাহ [রাদি.]-কে} আমাদের পক্ষ থেকে সালাম জানাবে এবং আস্‌রের নামাজের পর দু রাকআত [নাফ্‌ল] নামাজ আদায় সম্পর্কে জিজ্ঞেস করিবে এবং বলবে যে, আমাদের অবহিত করা হয়েছে যে, আপনি সে দু রাকআত আদায় করেন, অথচ আমরা জানতে পেরেছি যে, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] তা আদায় করিতে নিষেধ করিয়াছেন। ইবনি আব্বাস [রাদি.] বলেন, আমিও উমর ইবনিল খাত্ত্বাব [রাদি.]-এর সাথে লোকজনকে এ নামাজ থেকে বিরত রাখতাম। আবু কুরায়ব [রাদি.] বলেন, তারা আমাকে যে বিষয়সহ পাঠিয়েছিলেন, আমি তাহাঁর ঘরে প্রবেশ করে তা তাকে পৌছে দিলাম। তিনি বলেন, উম্মু সালামাহ্‌ [রাদি.]-কে জিজ্ঞেস কর। আমি বের হয়ে তাদের নিকট এসে আয়েশাহ [রাদি.]-এর কথা তাদেরকে অবহিত করলাম। অতঃপর তারা আমাকে যে বিষয়সহ আয়েশাহ [রাদি.]-এর নিকট পাঠিয়েছিলেন, সেই একই বিষয়সহ উম্মু সালামাহ্‌ [রাদি.]-এর নিকট পাঠালেন। উম্মু সালামাহ্‌ [রাদি.] বলেন, আমি রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ]-কে সে নামাজ আদায় করিতে নিষেধ করিতে শুনেছি, তা সত্ত্বেও পরে আমি তাকে তা আদায় করিতে দেখেছি। তিনি যখন এ নামাজ আদায় করিয়াছেন তার বিবরণ এই যে, তিনি আস্‌রের নামাজ আদায় করিলেন, অতঃপর আমার নিকট প্রবেশ করিলেন, তখন আনসার সম্প্রদায়ভুক্ত বানূ হারাম-এর কতক মহিলা আমার নিকট উপস্থিত ছিল। তিনি দু রাকআত নামাজ আদায় করিলেন। আমি এক দাসীকে তাহাঁর নিকট পাঠিয়ে বললাম, তুমি গিয়ে তাহাঁর এক পাশে দাঁড়াবে, তারপর তাঁকে বলবে, উম্মু সালামাহ্‌ [রাদি.] বলেছেন, হে আল্লাহর রসূল ! এ দু রাকআত নামাজ আদায় করিতে আপনি নিষেধ করিয়াছেন তা আমি শুনেছি, আর এখন দেখছি, আপনি তা আদায় করছেন। তিনি তাহাঁর হাত দিয়ে ইশারা করলে সে তাহাঁর জন্য অপেক্ষা করিবে। বর্ণনাকারী বলেন, দাসী তাই করিল। তিনি তাহাঁর হাত দিয়ে ইশারা করলে সে তাহাঁর জন্য অপেক্ষায় থাকে। তিনি নামাজ থেকে অবসর হয়ে বলেনঃ হে আবু উমাইয়্যাহ্‌-এর কন্যা ! তুমি আস্‌রের নামাজের পর দু রাকআত নামাজ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করেছ। তার বিবরণ এই যে, আবদুল ক্বায়স গোত্রের কতক লোক স্বগোত্রের পক্ষ থেকে ইসলাম ধর্ম গ্রহনের উদ্দেশে আমার নিকট আসে। [তাদের নিয়ে] ব্যস্ত থাকার কারণে আমি যুহরের নামাজের পরবর্তী দু রাকআত নামাজ আদায় করিতে পারিনি। এ হল সে দু রাকআত। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১৮০৩, ইসলামিক সেন্টার- ১৮১০]

১৮১৯

আবু সালামাহ্‌ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি আয়েশাহ [রাদি.]-কে দু রাকআত নামাজ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করেন যা রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] আস্‌র নামাজের পর আদায় করেছিলেন। তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] আস্‌র নামাজের আগে ঐ দু রাকআত নামাজ আদায় করিতেন। অতঃপর ব্যস্ততার কারণে অথবা ভুলে গিয়ে তিনি তা আদায় করেননি। সে দু রাকআতই তিনি আস্‌র নামাজের পর আদায় করিয়াছেন, অতঃপর তা নিয়মিত পড়তে থাকেন। তিনি কোন নামাজ আদায় করলে তা নিয়মিত আদায় করিতেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১৮০৪, ইসলামিক সেন্টার- ১৮১১]

১৮২০

আয়েশাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] আমার নিকট [অবস্থানকালে] আস্‌র নামাজের পরের দু রাকআত কখনো ত্যাগ করেননি। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১৮০৫, ইসলামিক সেন্টার- ১৮১২]

১৮২১

আয়েশাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] আমার ঘরে অবস্থানকালে দুটি নামাজ প্রকাশ্যে বা গোপনে কখনো ত্যাগ করেননিঃ ফাজ্‌রের নামাজের পূর্বে দু রাকআত এবং আস্‌র নামাজের পর দু রাকআত। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১৮০৬, ইসলামিক সেন্টার- ১৮১৩]

১৮২২

আসওয়াদ ও মাসরূক্ব [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

আমরা আয়িশাহ্ [রাদি.] সম্পর্কে সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, তিনি বলেছেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] আমার পালার দিন আমার ঘরে অবস্থানকালে আস্র নামাজের পর দু রাকআত নামাজ আদায় করিতেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ১৮০৭, ইসলামিক সেন্টার- ১৮১৪]

By বুলূগুল মারাম

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। তবে আমরা রাজনৈতিক পরিপন্থী কোন মন্তব্য/ লেখা প্রকাশ করি না। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই লেখাগুলো ফেসবুক এ শেয়ার করুন, আমল করুন

Leave a Reply