[আরবী] আঙ্গুরকে [আরবী] নামকরণ মাকরূহ

[আরবী] আঙ্গুরকে [আরবী] নামকরণ মাকরূহ

[আরবী] আঙ্গুরকে [আরবী] নামকরণ মাকরূহ >> সহীহ মুসলিম শরীফ এর মুল সুচিপত্র দেখুন >> নিম্নে মুসলিম শরীফ এর একটি অধ্যায়ের হাদিস পড়ুন

২. অধ্যায়ঃ [আরবী] আঙ্গুরকে [আরবী] নামকরণ মাকরূহ

৫৭৬০

আবু হুরাইরাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ তোমাদের কেউ সময়কে গালি দিবে না। কারণ, আল্লাহ সময়ের নিয়ন্ত্রক। আর তোমাদের কেউ আঙ্গুরকে (বুঝাবার জন্য)العنب এর পরিবর্তেالْكَرْمَ বলবে না। কারণ,الْكَرْمَ বদান্যতা ও মর্যাদা হলো মুসলিম লোক। {৩১} [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৬৭২, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭০২]

{৩১} [আরবী] শব্দের অর্থ হলো, বদান্যতা, আভিজাত্য ও মর্যাদা। অতএবং শব্দের অর্থানুযায়ী একজন মুসলিমই এ নামে সম্বোধন পাওয়ার যোগ্য। কারণ, আল্লাহ তাআলার নিকট একজন মুসলিমই এ সম্মানের অধিকারী। একটি বস্তু যা সে যুগে মদের উৎস ও উপকরণ ছিল তা এ নাম পেতে পারে না।

৫৭৬১

আবু হুরাইরাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, তোমরা [আঙ্গুরকে] আল কার্‌ম বলো না, কারণ কার্‌ম হলো মুমিনের অন্তর। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৬৭৩, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭০৩]

৫৭৬২

আবু হুরাইরাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আঙ্গুরকে [আরবী] [আল-কার্‌ম] নামে ডেকো না। কারণ “আল-কারম হলো মুসলিম ব্যক্তি। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৬৭৪ ইসলামিক সেন্টার- ৫৭০৪]

৫৭৬৩

আবু হুরাইরাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ অবশ্যই তোমাদের কেউ যেন [আঙ্গুরকে] আল-কারম না বলে। কারণ আল-কারম হলো মুমিনের অন্তর। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৬৭৫, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭০৫]

৫৭৬৪

হাম্মাম ইবনি মুনাব্‌বিহ [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, এ হলো সে সব হাদীস যা আবু হুরায়রা্‌ [রাদি.] রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] হইতে আমাদের নিকট বর্ণনা করিয়াছেন। এ কথা বলে তিনি কতিপয় হাদীস বর্ণনা করেন, সে সবের একটি হলো- রসূলুল্লাহ [সাঃআঃ] বলেছেনঃ তোমাদের কেউ আঙ্গুরকে কখনো [আরবী] [আল-কার্‌ম] বলবে না। আল-কার্‌ম তো মুসলিম লোক। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৬৭৬, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭০৬]

৫৭৬৫

আল্‌কামাহ ইবনি ওয়ায়িল [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, তোমরা [আঙ্গুরকে] আল-কারম বলো না বরং [আরবী] আল হাবালাহ বলো। [বর্ণনাকারী বলেন,] তিনি এ কথা বলে আঙ্গুরের প্রতি ইঙ্গিত করিয়াছেন। [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৬৭৭, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭০৭]

৫৭৬৬

শুবাহ [রাদি.] হইতে বর্ণীতঃ

তিনি বলেন, আলকামাহ্‌ ইবনি ওয়ায়িল [রহমাতুল্লাহি আলাইহি] কে তাহাঁর পিতার সানাদে নবী [সাঃআঃ] হইতে রিওয়ায়াত করিতে শুনেছি। তিনি বলেন, তোমরা [আঙ্গুরকে] আল-কারম বলো না। তবে বলো [আরবী] [আল হাবালাহ] ও [আরবী] [আল ইনাব]। {৩২} [ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৫৬৭৭, ইসলামিক সেন্টার- ৫৭০৮]

{৩২} [আরবী] আল হাবালাহ্‌ আঙ্গুরের একটি প্রচলিত নাম। যার অর্থ- আঙ্গুর বৃক্ষ বা তার শাখা-প্রশাখা।

By মুসলিম শরীফ

এখানে কুরআন শরীফ, তাফসীর, প্রায় ৫০,০০০ হাদীস, প্রাচীন ফিকাহ কিতাব ও এর সুচিপত্র প্রচার করা হয়েছে। প্রশ্ন/পরামর্শ/ ভুল সংশোধন/বই ক্রয় করতে চাইলে আপনার পছন্দের লেখার নিচে মন্তব্য (Comments) করুন। “আমার কথা পৌঁছিয়ে দাও, তা যদি এক আয়াতও হয়” -বুখারি ৩৪৬১। তাই এই পোস্ট টি উপরের Facebook বাটনে এ ক্লিক করে শেয়ার করুন অশেষ সাওয়াব হাসিল করুন

Leave a Reply